ঘর ভাড়ার টাকা দিতে ত্রাণ বিক্রি করছে অনেক রোহিঙ্গা

ডেস্ক রিপোর্টঃ  ত্রাণ বিক্রির টাকায় ঘর ভাড়া দিতে হচ্ছে কক্সবাজারের টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহায়-সম্বল ফেলে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা এজন্য সরকারি-বেসরকারিভাবে পাওয়া ত্রাণ খোলা বাজারে কম দামে বিক্রি করে দিচ্ছে।

শনিবার (৩০ জুন)  সকাল থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত চারটি রোহিঙ্গা শিবির ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহিংস নির্যাতনের পর গত বছরের ২৫ আগস্ট থেকে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আসে। বর্তমানে তারা উখিয়া ও টেকনাফের ৩০টির মতো শরণার্থী শিবিরে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, টেকনাফের জাদিমুড়া পাহাড়ের ওপরে গড়ে উঠেছে একটি অস্থায়ী রোহিঙ্গা শিবির। সেখানে চার হাজার রোহিঙ্গার জন্য ১১৫টি ঝুপড়ি ঘর রয়েছে। প্রতিটি ঘরের মাসিক ভাড়া ৫০০ টাকা। স্থানীয় বাসিন্দা মো. ছব্বির, মো. ইলিয়াছ, সাইফুল ইসলাম ও নূর মোহাম্মদ নামের চার ব্যক্তি নিজেদেরকে ওই জমির মালিক দাবি করে ঘরের ভাড়া আদায় করছেন। এর মধ্যে মো. ছব্বিরের ৩০ ঘর, মো. ইলিয়াছের ২০, সাইফুল ইসলামের ২৫ ও নূর মোহাম্মদ ৪০টি ঘরের ভাড়া আদায় করছেন।

টেকনাফের লেদার তুলা বাগান এলাকায় আড়াই একর জমিতে রয়েছে রোহিঙ্গাদের আরেকটি শিবির।  সেখানে পাঁচ হাজার রোহিঙ্গার জন্য ১৪২টি ঝুপড়ি ঘর রয়েছে এখানে। এই জমির মালিক দাবিদার দিল মোহাম্ম নামে এক ব্যক্তি প্রতিটি ঘর থেকে মাসে ৫০০ টাকা করে ভাড়া তুলছেন। এছাড়া, আশেপাশে এলাকায় গড়ে ওঠা আরও  প্রায় সাত হাজার রোহিঙ্গা পরিবারকে ঘর ভাড়ার টাকা যোগাতে  হয়। তারা মূলত ত্রাণ বিক্রি করেই ঘর ভাড়ার টাকা ভাড়া পরিশোধ করেন। তবে এই ৫০০ টাকা যোগাতেই  হিমশিম খাচ্ছে রোহিঙ্গা পরিবারগুলো।

জানতে চাইলে টেকনাফের তুলা বাগান জায়গার মালিক দাবিদার দিল মোহাম্মদ বলেন, ‘এই জায়গাটি আমার বাব-দাদার আমলের। এখানে ধানচাষ করে আমাদের পুরো পরিবারের সংসার চলতো।  মানবিক কারণে সেখানে এখন রোহিঙ্গাদের থাকতে দেওয়া হয়েছে।’ তাহলে টাকা নিচ্ছেন কেন,  এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অনেক দিন তাদের কাছ থেকে কোনও টাকা নেইনি। কী করবো, আমাদেরও তো বাচঁতে হবে। তাই তারা যা দিচ্ছে, তা নিচ্ছি। ’

টেকনাফের লেদা রাস্তার পূর্বে লবনের মাঠে ছোট্ট একটি ঝুপড়ি ঘর তুলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন রোহিঙ্গা নাগরিক মো. একরাম। তিনি বলেন, ‘কম খেয়ে বেচেঁ থাকা যায়, কিন্তু ঘর ছাড়া কি সহজে বেঁচে থাকা যায়? ওপারে (রাখাইনে) সেগুন গাছের তিন তলা বাড়িতে সুখের সংসার ছিল, আর এপারে কাদাঁমাটিতেও সংসারের সুযোগ সহজে মিলছে না। যে জায়গায় ধানের চাষ হতো, সেখানে ছোট্ট একটি তাঁবুর নিচে প্রথমে ঠাঁই হয়েছিল। তবে ভাড়া দিতে না পারায় বেশি দিন সেখানে থাকা হয়নি। ত্রাণ বিক্রি করে মাসে ৫০০ টাকার বিনিময়ে এখানে আশ্রয় নিয়েছি।’

তিনি আরও  বলেন, ‘মিয়ানমার সেনাদের হাত থেকে জীবন বাঁচাতে নাফ নদী পেরিয়ে সাত মাস আগে  বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছি। সঙ্গে ছিল পরিবারের আট সদস্য।’ একরাম জানান, মিয়ানমারের পেরাংপুল গ্রামে তার বাড়ি । সেখানে তার তিন তলা কাঠের বাড়ির একেক তলায় পাঁচটি করে কক্ষ ছিল। নিজস্ব জেনারেটর দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতেন ।

একরাম জানালেন, লবনের মাঠে যে জায়গাটিতে পরিবার নিয়ে এখন আছেন, মো. ইলিয়াছ নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি ওই জায়গার মালিক বলে দাবি করেন। কিছু দিন যেতে না যেতে ঘরভাড়ার টাকা দাবি করেন ইলিয়াছ। টাকা দিতে না পারলে ঘর ছেড়ে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন। তখন থেকে সরকারি-বেসরকারিভাবে পাওয়া ত্রাণ বিক্রি করে ভাড়ার টাকা শোধ করছেন তিনি। ‘কম খেয়ে হলেও ঘর ভাড়ার টাকা দিতে হচ্ছে। না হলে কই থাকবো।’,— বললেন এক সময়ের স্বচ্ছল গৃহস্ত বর্তমানে নিঃস্ব এক শরাণার্থী মো. একরাম।  টেকনাফ লামার বাজারে ত্রাণ বিক্রি করছিলেন রহিম উল্লাহ ও রহিমা বেগম নামে দুই রোহিঙ্গা। রহিম উল্লাহ বলেন, ‘বিভিন্ন এনজিও  থেকে পাওয়া কিছু ত্রাণ বাজারে বিক্রি করছি। কেননা, মাস শেষে ঘরভাড়া দিতে হবে। তাই সকাল থেকে এখানে বসে ত্রাণ বিক্রি করে কিছু টাকা উপার্জন করছি। ’

হ্নীলা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘রোহিঙ্গারা ঘরভাড়া দিতে স্থানীয় দোকানে কম দামে ত্রাণ বিক্রি করে দিচ্ছে। বিশেষ করে ঘর ভাড়ার নগদ টাকার জন্য তারা ত্রাণ বিক্রি করছে।’

সাত হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পরিবার রয়েছে। তাদের সবারই ঘরভাড়া পরিশোধ করতে হয়। এই টাকার জন্য তাদের ত্রাণ বিক্রি করতে হচ্ছে।’

টেকনাফ বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সরকারি জমিতে যেসব রোহিঙ্গা শিবির গড়ে উঠেছে, সেখানে রোহিঙ্গারা বিনা ভাড়ায় থাকছে। এসব শিবির থেকে কারও ভাড়া নেওয়ার কোনও সুযোগ নেই। তারপরও জমির মালিকানা দাবি করে রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে ঘরভাড়া তোলার বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’ – সূত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন।

শ্যামলী পরিবহনের বাসে কোটি টাকার ইয়াবা : গ্রেপ্তার ৩

ডেস্ক রিপোর্টঃ  চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালি থানার মোটেল সৈকতসংলগ্ন স্টেশন রোড এলাকায় অভিযান চালিয়ে শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস থেকে প্রায় কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৭। উদ্ধারকৃত ইয়াবার সংখ্যা ১৯ হাজার পিস। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে তিন মাদক ব্যবসায়ীকে। জব্দ করা হয়েছে শ্যামলী পরিবহনের বাসটিও।

শুক্রবার সকালে র‌্যাব এই অভিযান পরিচালনা করে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- মোহাম্মদ সবুজ (৩২), পলাশ মন্ডল (২৮) এবং নাসির হাওলাদার (৩০)।

চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মিমতানুর রহমান রাইজিংবিডিকে জানান, গোপন সূত্রে তথ্য পেয়ে কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রামে যাত্রী নিয়ে আসা শ্যামলী পরিবহনের বাস (ঢাকা মেট্রো-ব ১৪-৯৮৬৪) স্টেশন রোড এলাকায় পৌঁছালে র‌্যাব বাসটি থামার সঙ্কেত দেয়। বাসটি থামার পর বাসের চালকের আসনের নিচে তল্লাশি চালিয়ে ১৯ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয় র‌্যাব। এ ঘটনায় বাসে থাকা তিন ইয়াবা ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থামান মামলা দায়ের করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে শ্যামলী পরিবহনের বাসটিও। রাইজিং বিডি

 

গাড়ির হেলপার নুরুল এখন শতকোটি টাকার মালিক

ডেস্ক রিপোর্টঃ  নুরুল হুদা। একদা ছিলেন গাড়ির হেলপার। লোকজন ডাকত নুরা বলে। অপর পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে ছোট দুজনকে নিয়ে নাফ নদীতে জাল ফেলতেন তাদের বাবা। তিনজন পরের জমিতে

লবণ শ্রমিকের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু যাদের জমিতে কামলা দিতেন, কয়েক বছরের মাথায় ইয়াবা ব্যবসার বদৌলতে সেই জমিই কিনে নেন নুরুল হুদা। মহাসড়কের ধারে গড়ে তোলেন দৃষ্টিনন্দন বাড়ি। তার পর একেক ভাইয়ের জন্য বানান একেকটি প্রাসাদ। ওঠাবসা করেন এমপি, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সঙ্গে। পরে ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার পদে নির্বাচন করেন। দলীয় মার্কা না থাকলেও অর্থ আর ক্ষমতাসীনদের সমর্থনে ব্যালট বাক্স ভর্তি করে বনে যান নেতা। টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদ ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার হন নুরুল হুদা।

স্থানীয় এবং বিভিন্ন সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, এককালের সেই হেলপার নুরা আজ শতকোটি টাকার মালিক। হ্নীলার টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের পাশেই তাদের ছয় ভাইয়ের নামে ৬টি নান্দনিক বাড়ি নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে তাদের বাড়ির সংখ্যা ১৪। টেকনাফের হোছ্যারখালের উত্তর পাশে, হ্নীলা আলীখালী, লেদাবাজার এলাকায় হুদার নিজেরই তিনটি বাড়ি। নিজে বসবাস করেন পুরান লেদায়। ফ্ল্যাট আছে চট্টগ্রামে। তবে হ্নীলার দমদমিয়া বিজিবি চেকপোস্টঘেঁষে সবচেয়ে ব্যয়বহুল পাঁচতলা বাড়ি নির্মাণ করেন ছোট ভাই নূর মোহাম্মদ। ২০১৪ সালে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন নূর মোহাম্মদ।

গতকাল সরেজমিন গিয়ে কাজ চলতে দেখা যায় নূর মোহাম্মদের বাড়িতে। এ ছাড়া হ্নীলা লেদায় শত একর জমি কিনে নিয়েছে এই ইয়াবা ব্যবসায়ীরা। পুলিশের খাতায় মোস্ট ওয়ান্টেড নুরুল হুদা। তবে আসামি থাকা অবস্থায়ই ২ কোটি টাকা ব্যয় এবং ক্ষমতার জোরে মেম্বার নির্বাচিত হন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, হ্নীলার জাদিমুড়া থেকে খারাংখালী এলাকা পর্যন্ত নাফ নদীর দুই পাশে ইয়াবার সাম্রাজ্য গড়ে তোলেন নুরুল হুদা। জাদিমোড়া, নয়াপাড়া, মোচনী, লেদা, রঙ্গীখালী, নাটমোড়া পাড়া, হ্নীলা সদর, ওয়াব্রাং ও খারাংখালী পয়েন্ট হয়ে প্রতিদিন মিয়ানমার থেকে তার নামে ইয়াবার চালান আসত। সন্ধ্যার পর এসব খোলা বিলে লোকজনের উপস্থিতি না থাকায় ইয়াবা চোরাচালানের একটি অন্যতম রুটে পরিণত হয়। তার কর্মতৎপরতায় তুষ্ট হন স্থানীয় জননেতা আবদুর রহমান বদি। ফলে বদির ঘনিষ্ঠজন হয়ে ওঠেন নুরুল হুদা। বদির আশীর্বাদে নুরুল হুদার ছেলে নুরুল আলম ফাহিম হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি বনে যান। অবশ্য গত ৩১ মে ফাহিম গ্রেপ্তার হন।

২০১৪ সালে ভাই নিহত হওয়ার সময় গ্রেপ্তার হন নুরুল হুদাও। ছাড়া পেয়ে আবার জড়িয়ে পড়েন আগের ব্যবসায়। নয়াপাড়া রেজিস্টার্ড ও লেদার নন-রেজিস্টার্ড রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নারী, শিশুদের ব্যবহার করে ইয়াবার চালান নিয়ন্ত্রণ করেন। এ ছাড়া পাহাড়ি পান-সুপারির গাড়ি, লবণের কাভার্ডভ্যান, শুঁটকি ও কাঁচামাছের গাড়ি এবং পুরনো পরিবহন বন্ধুদের দিয়ে রমরমা ব্যবসা চালিয়ে আসছেন।

পুলিশ জানায়, নুরুল হুদা হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র সরওয়ার কামাল হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি। তিনি ও তার সব ভাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন-পুরনো সবকটি তালিকাভুক্ত ইয়াবা পাচারকারী। নির্বাচনে প্রতিপক্ষ মেম্বারপ্রার্থী মোহাম্মদ আলীর মা ছবুরা খাতুনের ওপর হামলা করেন। ইয়াবাসহ এসব ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ১১টি মামলা রয়েছে। ২০১৬ সালের ১১ মার্চ থানা পুলিশ তার লেদার বাড়িতে গিয়ে গ্রেপ্তার করে। হাতকড়া পরিয়ে তাকে বাড়ি থেকে বের করার সময় হঠাৎ পুলিশের ওপর ইটপাটকেল, লাঠিসোটা, রড ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে ছিনিয়ে নেওয়া হয়। ২০১৪ সালে আত্মগোপনে থেকে মেম্বার নির্বাচিত হলেও শপথ নিতে পারেননি। পরে ২০১৬ সালে কোটি টাকা ব্যয়ে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে রাতের আঁধারে শপথ গ্রহণের চেষ্টা করেন। অবশ্য এক সরকারি কর্মকর্তা বিপুল পরিমাণ অর্থ নিয়ে শপথ পড়ার ব্যবস্থা করান।

পুলিশ জানায়, এরা পারিবারিকভাবে ইয়াবা ব্যবসায়ী। দ্বিতীয় ভাই শামসুল হুদা যাবজ্জীবন সাজা ভোগ করছেন। নুরুল কবির, সরওয়ারসহ অন্য ভাইরাও ফেরার। তবে নুরুল হুদার সঙ্গে স্থানীয় নেতাকর্মীর যোগাযোগ থাকলেও মোবাইলে আড়িপাতার যুগে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে খুঁজে পাচ্ছে না।

টেকনাফ থানার ওসি রনজিত বড়–য়া বলেন, নুরুল হুদাসহ তার সব ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় মামলা আছে। সে গ্রেপ্তার এড়াতে অনেক আগে থেকেই ফেরার। আমরা তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছি। সূত্রঃ আমাদের সময়।

চট্টগ্রামে গ্রেফতার ৭৬, মদ-ইয়াবা উদ্ধার

news_img (3)ডেস্ক রিপোর্ট :চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে সাজপ্রাপ্ত আসামিসহ পলাতক ৭৬ আসামি গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় চোলাই মদ-ইয়াবাও উদ্ধার করা হয়।

বুধবার রাতভর জেলা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ২৭ লিটার চোলাই মদ ও ২৩০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এসময় মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ৭৬ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) কাজী আব্দুল আওয়াল এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, অভিযানে জোড়ারগঞ্জ থেকে ১৫০ পিস, সীতাকুণ্ড থেকে ৫০ পিস ও পটিয়া থেকে ৩০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এছাড়া আনোয়ারা থেকে ২২ লিটার ও মিরসরাই থেকে ৫ লিটার মদ উদ্ধার করে পুলিশ।

অভিযানে নিয়মিত মামলায় ১০ জন এবং সাজা পরোয়ানামূলে ৬৬ জনকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। 

তবে এদের মধ্যে বিএনপি-জামায়াতের কোনো নেতাকর্মী আছে কিনা তা জানা যায়নি।

কুমিল্লার ৬ পৌরসভায় নির্বাচন

20151125074031তুহিন খান নিহাল, (কুমিল্লা) : আগামী ৩০ ডিসেম্বর কুমিল্লার ৬ পৌরসভাসহ দেশের মোট ২৩৬ টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবং মঙ্গলবার তফসিল ঘোষণা করেছে  নির্বাচন কমিশন। সোমবার রাতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকের পর নির্বাচন কমিশনার আবদুল মোবারক জানান, আগামী ৩০ডিসেম্বর ভোটের দিন ঠিক হয়েছে। মঙ্গলবার সিইসি তফসিল ঘোষণা  করেছে।। কুমিল্লার নির্বাচনের উপযোগি পৌরসভাগুলো হল- লাকসাম, চৌদ্দগ্রাম, বরুড়া, দাউদকান্দি, চান্দিনা ও হোমনা।এবারই প্রথম স্থানীয় পর্যায়ের নির্বাচনে দলীয় পরিচয় ও প্রতীকে পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

৪১ লাক্ষাধিক টাকার ভারতীয় নিষিদ্ধ পণ্য জব্দ – গ্রেফতার ৪

12084131_395835707277189_1595679136_nতুহিন খান নিহাল, কুমিল্লা : কুমিল্লার ৪১ লাক্ষাধিক টাকার ভারতীয় মাদকদ্রব্য ও চোরাই পণ্যসহ ৪ মাদক বিক্রেতা কে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।
প্রতিদিন ভারতীয় সীমান্তের কাটাতাঁর গলিয়ে বিভিন্ন প্রকার মাদক, আতশবাজি, চিপসসহ আমদানি নিষিদ্ধ ওষুধ ঢুকছে বাংলাদেশে। বিজিবি সুত্র জানায়, বুধবার দুপুরে ১০ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের আওতাধীন শশীদল বিওপি‘র দণি তেতাঁভুমি নামক এলাকা হতে ৫০০ গ্রাম গাঁজাসহ মো. সলিম মিয়া (২৬), পিতা- মো. তাইজুল ইসলাম, গ্রাম- রায়পুরা, ডাকঘর- শিমুলকান্দি, থানা- ভৈরব, জেলা- কিশোরগঞ্জ- কে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালত।
পরে তাকে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। এছাড়াও একই দিনে সন্ধ্যায় তেতাঁভূমি নামক স্থান থেকে
১২ বোতল বিয়ারসহ মো. আবু কালাম (৩৫), পিতা- মো. মতি মিয়া, গ্রাম- উত্তর তেতাঁভূমি, ডাকঘর- হরিমঙ্গল, থানা- বি-পাড়া, জেলা- কুমিল্লাকে আটক করে ভ্রাম্যমান
আদালত ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়। আমানগন্ডার বিওপি‘র দায়িত্বপূর্ণ দ্বীপচন্দ্রনগর নামক স্থান থেকে ৫০ বোতল ফেন্সিডিল এবং ২ কেজি গাঁজাসহ মো. আব্দুল্লাহ (৩৫), পিতা- আতাউর রহমান এবং মো. আনোয়ার
হোসেন (২৫), পিতা- আমির, উভয়ের গ্রাম- বীরচন্দ্রনগর, ডাকঘর- চৌদ্দগ্রাম, থানা- চৌদ্দগ্রাম, জেলা কুমিল্লাকে ভ্রাম্যমান আদালত ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়। এছাড়াও অন্যান্য বিওপি‘র দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় অভিযান পরিচালনা কওে ভারতীয় গাঁজা- সাড়ে ৮ কেজি, স্কাপ সিরাপ- ৭ বোতল, নেশাজাতীয় ট্যাবলেট- ৫৫০২০ টি, আতশবাজি- ১৩০৩ প্যাকেট এবং চিপস্-৫০০ টি মালিকবিহীন অবস্থায় আটক করা হয়। আটককৃত মাদকদ্রব্য ও অন্যান্য মালামালের আনুমানিক মূল্য ৪১ ল ৪ হাজার ১শত টাকা। আটককৃত মাদকদ্রব্য কুমিল্লা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এবং অন্যান্য মালামাল কাস্টম্্স অফিসে জমা করা হয়েছে।

 

রাজনের কায়দায় ‘হত্যা’: ৫০ হাজার টাকায় সমঝোতা!

rajon1ডেস্ক রিপোর্টঃ সিলেটের শিশু রাজনকে যেভাবে বেঁধে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছিল ঠিক সেই কায়দায় লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে লক্ষ্মীপুরের শিশু রমজান আলীকেও (১২) মারাত্মক জখম করা হয়েছিল। পরে ৮ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। কিন্তু শিশু শ্রমিককে দোকান মালিক নির্যাতন চালিয়ে ‘হত্যা’ করার পরও এখনো কোনো মামলা হয়নি। বরং মাত্র ৫০ হাজার টাকায় সমঝোতা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে, সমঝোতার ওই টাকা এখনো পাননি ভুক্তভোগী পরিবার। এদিকে, থানায় এখনো কোনো মামলা হয়নি। ফলে পুলিশও কাউকে গ্রেপ্তার করেনি। শিশুর লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করা হয়েছে। নিহতের মা শুক্কুরী বেগম বৃহস্পতিবার দুপুরে সাংবাদিকদের বলেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশু রমজান ডাক্তারদের কাছে জানিয়েছিল তার পিঠের মেরুদণ্ডে লোহার রড দিয়ে দু’টি আঘাত করে দোকান মালিক আলী হোসেন। এতে তার ৬ ও ৭ নাম্বার হাঁড় ভেঙে যায় বলে চিকিৎসকরা জানান। এখন টাকা চাইতে গেলে ছেলে হারানোর (ময়না তদন্তে লাশ কাটা-ছেঁড়া) ভয়ে পুলিশের কাছে সন্তানের না দাবি দিয়ে লাশ দাফন করে ফেলেছি। অন্যদিকে, বাবা তাজুল ইসলাম জানান, স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর মো. শিপন ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে থানায় মামলা করা হয়নি। তবে এখনো কোনো টাকা পাননি বলে জানান তিনি। এদিকে, এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর পৌর কাউন্সিলর শিপনের বক্তব্য জানতে খোঁজ করে তাকে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ রয়েছে। এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. গিয়াস উদ্দিন মিয়া বাংলামেইলকে জানান, ঘটনার তদন্ত চলছে। পরিবারের কেউ মামলা না করলেও পুলিশের পক্ষ থেকে মামলা করা হবে। উল্লেখ্য, গত ১০ আগস্ট মঙ্গলবার স্থানীয় বাগবাড়ীর প্রাণ কোম্পানির পরিবেশক এবং সৌদিয়া ট্রেডাসের মালিক আলী হোসেনের দোকানে কাজ করছিলেন রমজান। এ সময় রমজানের মাথায় দুইটি দুধের কার্টন তুলে দেয় দোকান মালিক। ভার সইতে না পারায় ঘাঢ় মুচড়ে গিয়ে কার্টন গুলো পড়ে গিয়ে গুরুত্বর আহত হন রমজান। একই সময়ে মালামালের ক্ষতি হয়েছে অভিযোগ এনে আহত রমজানকে দোকান মালিক লোহার রড দিয়ে পেটায় বলে অভিযোগ করেন নিহতের পরিবার। পরে ৮দিন পর মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট সন্ধ্যায়) ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় শিশু রমজান। বুধবার বিকালে পারিবারিক কবরস্থানে নিহতের দাফন সম্পন্ন হয়। নিহত রমজান বাঞ্চানগর গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে। সুত্রঃ বাংলামেইল ২৪ 

গৃহপরিচারিকাকে দু’দিন বাথরুমে আটকে রেখে খুন্তির ছ্যাকা

Noakhali-Chowmohoni-SISU-NREJATON-Photo-20-Aug-1ডেস্ক রিপোর্টঃ নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভায় সাইফুল ইসলাম নামের এক বিদ্যুৎ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীরির বিরুদ্ধে বিবি আমেনা (১৪) নামের গৃহপরিচারিকা (কাজের মেয়ে)’কে আটক রেখে তার উপর নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে ওই দম্পতি পলাতক রয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে আহত অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাকে ভর্তি করা হয়। নির্যাতনের শিকার বিবি আমেনা ভোলা জেলার দৌলতখানের মাঝিরঘাট এলাকার বকসি বাড়ীর আলমগীর হোসেনের মেয়ে।

অভিযুক্ত দম্পতিরা হচ্ছেন- পল্লী বিদ্যুৎ’এর নোয়াখালী প্রধান কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক সাইফুল ইসলাম ও তার স্ত্রী ঠেঙামারা এনজিও (টিএমএসএস)এর নোয়াখালী কার্যালয়ের কম্পিউটার অপারেটর বেগম নিকোনাদ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত বিবি আমেনা জানায়, পরিবারে অভাব থাকায় গত ১বছর আগে চৌমুহনী-ফেনী সড়কের চৌমুহনী পৌরসভার উত্তর হাজীপুর এনটি ভবনের তৃতীয় তলার ৩০৩ নম্বর কক্ষে বিদ্যুৎ কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামের বাসায় কাজ করতে আসে সে। বাসার কাজের পাশাপাশি ওই দম্পতি চাকরিজীবি হওয়ায় তাদের শিশু বাচ্চাকে দেখা শুনা করতো সে।

ঘটনার শুরুঃ-


গত ১৬ আগস্ট রোববার সাইফুল ইসলামের স্ত্রী এনজিও কর্মকর্তা নিকোনাদের ৪হাজার টাকা মূল্যের একটি নুপুর হারিয়ে যায়। পরে এ বিষয়টি নিয়ে আমেনাকে সন্দেহ করেন তিনি। একই দিন তার শিশু বাচ্চাকে অতিরিক্ত ঔষধ খাইয়ে ঘুমি রেখেছে অভিযোগ এনে ওই দম্পতি আমেনাকে পিটিয়ে বাথরুমের মধ্যে আটক করে রাখে। পানি প্রাণ করে ওই বাথরুমে দুই দিন বন্ধি থাকে আমেনা। মঙ্গলবার আমেনাকে বাথরুম থেকে বের করে ওড়না দিয়ে হাত এবং পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় রুটি তৈরির কাজে ব্যবহৃত খুন্তি আগুনে গরম করে আমেনার শরীরের বিভিন্ন অংশে ছ্যাকা এবং গরম পানি করে আমেনার সারা শরিরে ঢেলে দেয় ওই দম্পতি। এতে আমেনার শরীরের বিভিন্ন অংশ জলসে গিয়ে ক্ষতের সৃষ্টি হয়। ওইদিন রাতে আমেন কৌশলে তাদের ঘর থেকে পালিয়ে গিয়ে পাশ্ববর্তী বাসার ছাদে গিয়ে অবস্থান নেই। বুধবার দিবাগত রাতে ওই দম্পতি বাসা থেকে বের হয়ে গেলে আমেনা পালিয়ে পাশ্ববর্তী একটি বাড়ীতে গিয়ে আশ্রয় নেই।

পরে আমেনা সব ঘটনা তাদের জানালে আশ্রয়দাতা ওই বাড়ীর লোকজন বিষয়টি বেগমগঞ্জ থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এদিকে ঘটনার পর থেকে বিদ্যুৎ কর্মকর্তা সাইফুল ও স্ত্রী এনজি কর্মকর্তা দু’জন পারিবারিক কারণে ২০ আগস্ট বুধবার থেকে কয়েকদিন অফিসে আসতে পারবেনা বলে স্ব-স্ব অফিসে জানিয়ে পলাতক রয়েছেন।

বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. অসিম কুমার দাস জানান, মেয়েটির পিঠ, তলপেটে ও বুকে রুটি তৈরী করার উত্তপ্ত খন্তির ছ্যাকা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত এবং ক্ষতের চিহৃ রয়েছে।

বেগমগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শওকত হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে আমরা আহত অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। ভিকটিমের বাবা ভোলা থেকে আসতেছে। এ বিষয়ে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এবিষয়ে কথা বলতে অভিযুক্ত পল্লী বিদ্যুৎ নোয়াখালী প্রধান কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক সাইফুল ইসলামের ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

১০০ টাকার জন্য লাশ হলো কলেজ ছাত্র

nowaডেস্ক রিপোর্টঃ ১০০ টাকার জন্য লাশ হলো কলেজ ছাত্র রুবেল। রুবেল ও তার পিতা আব্দুল্যাহ মিন্টুর ছোট ফেনী নদী পার হওয়ার জন্য খেয়াঘাটে যান। নদী পার হতে ভাড়া ১০ টাকা হলেও মাঝি আব্দুল হাদি ৫০০ টাকা দাবী করেন। ৫০০ টাকা ছাড়া তাকে নদী পার করিয়ে দিতে অস্বিকার করেন মাঝি। দরকষাকষির এক পর্যায়ে রুবেল ৪০০ টাকা দিতে রাজি হলেও মাঝি তাকে নদী পার করে দিতে রাজি হয়নি।

একপর্যায়ে রুবেল সাতার কেটে নদী পার হওয়ার প্রস্তুতি নিলে তার পিতাও তার সাথে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। পিতা ও পুত্র সাতার কেটে নদী পার হওয়ার সময় পিতা তীরে উঠতে সক্ষম হলেও পুত্র স্রোতের টানে নিখোঁজ হন। নিখোঁজ পর থেকে মাঝি আব্দুল হাদি পালিয়ে গিয়েছে।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ফেনী সোনাগাজী উপজেলার চরছান্দিয়া ইউনিয়নের সওদাগরহাট খেয়া ঘাট সংলগ্ন ছোট ফেনী নদীতে এঘটনা ঘটে। নিখোঁজ কলেজ ছাত্র তারেক হাসান রুবেল (২০) বসুরহাট মুজিব কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র।

এদিকে কলেজ ছাত্র নিখোঁজ হবার ২৮ ঘন্টা পর শনিবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে লাশ উদ্ধার করেছে।

নিখোঁজ ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় এলাকাবাসী ও কোম্পানিগঞ্জ থানার পুলিশ রাতভর তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চালিয় ব্যর্থ হয়। শনিবার সকাল থেকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ছোট ফেনী নদীতে ডুবুরি নামিয়ে ও তাকে উদ্ধারকরা যায়নি। পরে এলাকাবাসীরা নিজ উদ্যোগে রাত সাড়ে ১১টার দিকে ফেনী ছোট নদী থেকে কোম্পানীগঞ্জ মুছাপুর রেগুলেটর এলাকা থেকে কলেজ ছাত্র রুবেলের লাশ উদ্ধার করা হয়। রাতে দাফন সম্পর্ন্ন করা হয়ছে। রুবেল ফেনী সোনাগাজী উপজেলার চরছান্দিয়া ইউনিয়নের পুরাতন সওদাগরহাট এলাকার দরিদ্র কৃষক আব্দুল্যাহ মিন্টুর ছেলে। নিহতের ঘটনায় তার পরিবার, সহপাঠী ও এলাকাবাসীর মাঝে শোকের ছায় নেমে এসেছে।

গলায় রড ঢুকে শ্রমিকের মৃত্যু

 -e1405916974600ডেস্ক রিপোর্টঃ চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদ থানার রুবি গেইট এলাকায় পুরনো লোহা মেরামতের দোকানে কাজ করার সময় গলায় রড ঢুকে আল আমিন (২০) নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আল আমিন রংপুরের মিঠাপুকুর এলাকার মো. মিজানের ছেলে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক মো. হামিদ বলেন, ‘রুবি গেইট এলাকায় পুরনো লোহা মেরামতের দোকানে কাজ করার সময় গলায় রড ঢুকে গুরুতর আহত হন আল আমিন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে আনা হলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’ নিহত আল আমিন বায়েজিদ থানার চৌধুরীনগর এলাকায় পরিবারের সঙ্গে ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন বলে জানান নায়েক হামিদ।