ইয়াবাসহ বিজিবি সদস্য আটক

ডেস্ক রিপোর্টঃ  মাগুরায় ইয়াবাসহ ওমর আলী (২৩) নামের এক বিজিবি সদস্যসহ দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার মহম্মদপুর উপজেলার বিনোদপুর বাজার এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

কক্সবাজারে কর্মরত আটক বিজিবি সদস্য ওমর আলী উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের ভাবনপাড়া গ্রামের হাফিজার মোল্যার ছেলে। আটক অপর সহযোগীর নাম জসিম উদ্দিন।

মাগুরার পুলিশ সুপার (এসপি) খান মোহাম্মদ রেজোয়ান জাগো নিউজকে জানান, ওই বিজিবি সদস্য ঈদের ছুটিতে বাড়ি এসে তার এক সহযোগীকে সঙ্গে নিয়ে এলাকার মাদকসেবীদের কাছে ইয়াবা বিক্রি করছেন, এমন সংবাদের ভিত্তিতে মহম্মদপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে ও তার সহযোগীকে আটক করে। তাদের কাছ থেকে ৫৪ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের করে আটককৃতদের আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছেন এ কর্মকর্তা।

এক বছরেই অবৈধ হয়ে গেল সরকার? প্রশ্ন মিজানুর রহমানের

full_263172225_1425405294ডেস্ক রিপোর্টঃ  এক বছর একটা সরকার বৈধভাবে চলার পর এখন কীভাবে অবৈধ হয়ে গেল, এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান। মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরা শহরের আছাদুজ্জামান মিলনায়তনে ‘সহিংসতা ও মানবাধিকার’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মিজানুর রহমান ওই প্রশ্ন তোলেন। 

৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংসতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে, এমন ধারণার প্রতি দ্বিমত পোষণ করে সরকার পতনের আন্দোলনকারীদের প্রতি ইঙ্গিত করেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘এক বছর আপনারা কী করেছেন? আপনারা কি ঘুমিয়ে ছিলেন? কেন আগে কথা বলেননি? এক বছর একটা সরকার বৈধভাবে চলল, এখন অবৈধ হয়ে গেল? যেখানে বিশ্ব নির্বাচনকে বৈধতা দিয়েছে সেখানে এক বছর পর এসে নির্বাচন অবৈধ বলার সুযোগ নেই।’ চলমান সহিংসতা ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, ‘যারা রাষ্ট্রের ক্ষমতায় রয়েছেন তাঁদের দায়িত্ব নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। রাজনীতির নামে এই ব্যভিচার বন্ধ করতে হবে। শুধু কথার ফুলঝুড়ি নয়, অধিকার রক্ষায় প্রয়োজনে সরকারকে আরও কঠোর হতে হবে। আমরা ব্যর্থতা দেখতে চাই না। তবে কঠোর হওয়ার নামে যেন মানবাধিকার লঙ্ঘন না হয়। আটক বাণিজ্য করা না হয়।’

মিজানুর রহমান বলেন, ‘রাজনীতির উদ্দেশ্য জনকল্যাণ হলে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা, ট্রেন লাইন উপড়ে নাশকতা কেন? এগুলো দিয়ে কি জনকল্যাণ করা সম্ভব? এই রাজনীতি কি আমরা গ্রহণ করব, না ত্যাগ করব? আমাদের মধ্যে সব সময় শঙ্কা ও নিরাপত্তাহীনতা কাজ করছে। কেন এমন হলো? আমরা তো ভালো ছিলাম। হঠাৎ করে কেন এমন হলো। মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে, যাঁরা করছেন তাঁদের দমন করার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। আর রাষ্ট্র নাগরিকের অধিকার লঙ্ঘন করলে তাকে আমরা কাঠগড়ায় দাঁড় করাব।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, যারা সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদী তৎপরতা চালাচ্ছেন, তাঁদের সঙ্গে সংলাপের কোনো সুযোগ নেই। বিশ্বে এমন কোনো নজির নেই।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ও পার্টনার্স ইন ডেভেলপমেন্ট (পিআইডি) আয়োজিত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন পিআইডির সভাপতি জাকিরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিত থাকার কথা বলা হলেও তাঁরা উপস্থিত ছিলেন না। এ ছাড়া কমিশনের চেয়ারম্যানের সঙ্গে সেমিনারে উপস্থিত লোকজনের প্রশ্নোত্তর পর্বটিও বাদ দেওয়া হয়।

সেমিনারে পিআইডির সাধারণ সম্পাদক মো. মহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কালা চাঁদ সিংহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, জেলা আনসার ও ভিডিপির কমান্ডার মো. কামরুজ্জামান প্রমুখ বক্তব্য দেন। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবু জায়েদ মোহাম্মদ।


এর আগে মিজানুর রহমান মাগুরা সদর হাসপাতাল পরিদর্শনে যান। হাসপাতালের নানা অব্যবস্থাপনা দেখে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করে সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে তিনি বলেন, এখানে রোগীদের সেবা বলে কিছু নেই। চিকিৎসক-নার্স যাঁরা দায়িত্ব পালন করছেন তাঁদের চাকরি থাকা উচিত না।