কুমারখালীতে প্রধান শিক্ষককে গুলি করে হত্যা

কুষ্টিয়াডেস্ক রিপোর্টঃ  কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার দয়ারামপুর গ্রামে মুন্সি রবিউল ইসলাম (৪৫) নামে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক প্রধান শিক্ষককে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার দয়ারামপুরের নিজ বাড়ির সামনে রবিউলকে গুলি করে দুর্বৃত্তরা। নিহত রবিউল ইসলাম স্থানীয় মহেন্দ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ। কুমারথালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লুৎফর রহমান জানান, রবিউল ইসলাম শুক্রবার দিবগত রাত ১ টার দিকে তার পরিচালনাধীন এমএমআর ব্রিকস নামের ইট ভাটা থেকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়িতে ফিরছিলেন। এ সময় তার নিজ বাড়ির সম্মুখে কয়েকজন দুর্বৃত্ত তাকে লক্ষ করে গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায়। গুলির শব্দ শুনে রবিউলের আত্মীয়-স্বজন এবং স্থানীরা তাকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় কুমারখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রবিউলের মাথায় এবং ডান পাজরে দুটি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে কুমারখালী থানা পুলিশ গিয়ে ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। পুলিশ রাতেই ঘটনার মুল পরিকল্পনাকারী সন্দেহে ওহিদুল নামের ওই ভাটার এক কর্মচারীকে আটক করেছে। ইট ভাটা ব্যবসাকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকান্ড সংগঠিত হতে পারে বলে ধারনা করছে পুলিশ। নিহত রবিউলের ভাগিনা মিথুন জানান, তার মামা রবিউলকে বেশ কিছুদিন আগে একটি অপরিচিত নম্বর থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। রবিউল এ ব্যাপারে কুমারখালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরীও করেছিলেন।

উল্লেখ্য, নিহত রবিউল ইসলামের চাচাতো ভাই সাবেক স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও কুমারখালী থানা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মুন্সি রশিদুল ইসলামকেও গত বছরের ৮ ডিসেম্বর মহেন্দ্রপুর বাজারে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। রশিদুলের মৃত্যুর পর ইট ভাটাটি রবিউল দেখাশোনা করতেন।

 

কুষ্টিয়ায় ট্রলিচাপায় সাংবাদিকের মৃত্যু

HJ-1420067212ডেস্ক রিপোর্ট  : কুষ্টিয়া শহরতলির মোল্লাতেঘড়িয়া এলাকায় ইঞ্জিনচালিত এক ট্রলির ধাক্কায় শাহিনুর ইসলাম শাহিন (৩৮) নামের স্থানীয় এক সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী আঞ্চলিক সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহিন কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক দেশতথ্য পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার ছিলেন। তিনি শহরতলির বাড়াদী এলাকার অমূল্য বিশ্বাসের ছেলে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছিলেন শাহিন। মোটরসাইকেলটি মোল্লাতেঘড়িয়া এলাকায় মণ্ডল ফিলিং স্টেশনের সামনে পৌঁছানোর পর বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রলি উল্টো পথে এসে মোটরসাইকেলটি ধাক্কা দেয়। এতে রাস্তার ওপর শাহিন ছিটকে পড়েন। তখন ট্রলির একটি চাকা শাহিনের মাথার একপাশ দিয়ে চলে যায়। স্থানীয়দের সহায়তায় শাহিনকে উদ্ধার করে রাত ১১টার দিকে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসা কর্মকর্তা আবুল হাসনাত তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শাহিনের নিহত হওয়ার সংবাদ পেয়ে কুষ্টিয়া জেলার সাংবাদিকেরা হাসপাতালে ছুটে যান।

হাসপাতালে আসা কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সাগর জানান, শাহিনের মৃত্যুর প্রতিবাদে শুক্রবার বেলা ১১টায় কুষ্টিয়া শহরের মজমপুর মোড়ে কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কে অবৈধ নছিমন, করিমন, ট্রলি বন্ধের দাবিতে কর্মসূচি পালন করা হবে।


কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল খালেক জানান, শাহিনের লাশ হাসপাতালে রাখা হয়েছে। ট্রলিটি আটক করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে গেছেন।

 

 

দোষীদের শস্তি দাবিতে মানববন্ধন

image_63067_0কুষ্টিয়া: শিক্ষকদের ওপর দু’দফা হামলার ঘটনায় দায়িদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শিক্ষক সমিতি।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় অনুষদ ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।
 
মানববন্ধনে ইবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নজিবুল হক বলেন, ‘যে বিশ্ববিদ্যালয়ে এক বছরেও শিক্ষকদের ওপর হামলার বিচার হয় না সেখানে শিক্ষক-কর্মকর্তা-শিক্ষার্থীরা কেউই নিরাপদ নয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এসব বিষয় আমলে না নিয়ে শুধু নিয়োগের পায়তারা করছে।’
 
ড. নজিবুল আরো বলেন, ‘এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির পরিবর্তে চাকরির ব্যবস্থা করছে ইবি প্রশাসন। শিক্ষকদের ওপর হামলাকারী ছাত্রনামধারী এই সন্ত্রাসীদের বিচার না হওয়া এবং কর্মরত সব শিক্ষক-কর্মকর্তার নিরাপত্তার ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত আর কোনো নিয়োগ দিতে দেয়া হবে না।’
 
মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন- শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নজিবুল হক, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. ইকবাল হোসেন, ড. তোজাম্মেল হোসেন, ড. এয়াকুব আলি, ড. এমতাজ উদ্দিন, ড. শহীদুল ইসলাম নুরী, ড. রুহুল আমিন ভুঁইয়া, ড. আকরাম হোসেন মজুমদার, ড. গফুর গাজীসহ বিভিন্ন বিভাগের প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষক।