ইয়াবাসহ বিজিবি সদস্য আটক

ডেস্ক রিপোর্টঃ  মাগুরায় ইয়াবাসহ ওমর আলী (২৩) নামের এক বিজিবি সদস্যসহ দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার মহম্মদপুর উপজেলার বিনোদপুর বাজার এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

কক্সবাজারে কর্মরত আটক বিজিবি সদস্য ওমর আলী উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের ভাবনপাড়া গ্রামের হাফিজার মোল্যার ছেলে। আটক অপর সহযোগীর নাম জসিম উদ্দিন।

মাগুরার পুলিশ সুপার (এসপি) খান মোহাম্মদ রেজোয়ান জাগো নিউজকে জানান, ওই বিজিবি সদস্য ঈদের ছুটিতে বাড়ি এসে তার এক সহযোগীকে সঙ্গে নিয়ে এলাকার মাদকসেবীদের কাছে ইয়াবা বিক্রি করছেন, এমন সংবাদের ভিত্তিতে মহম্মদপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে ও তার সহযোগীকে আটক করে। তাদের কাছ থেকে ৫৪ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের করে আটককৃতদের আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছেন এ কর্মকর্তা।

প্রাইভেটকার থেকে ১২ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার

news_img (7)ডেস্ক রিপোর্ট : যশোর জেলার বাঘারপাড়া থেকে জব্দ করা প্রাইভেটকারে তল্লাশি চালিয়ে ১২ কেজি ৮৩ গ্রাম ওজনের ১১০ পিস সোনার বার উদ্ধার করেছে পুলিশ।
শুক্রবার রাতে জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ওই প্রাইভেটকারে (ঢাকা মেট্রো-গ-১৩-৯৫৪০) তল্লাশি চালানো হয়।
বাঘারপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ছয়রুদ্দিন আহমেদ বলেন, শুক্রবার রাতে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কে এম আরিফুল হকের উপস্থিতিতে প্রাইভেটকারটিতে তল্লাশি করা হয়। এসময় গাড়ির গিয়ার বক্সের ভেতরে লুকানো ১১টি প্যাকেট থেকে মোট ১১০টি সোনার বার উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, ‘প্রাইভেটকারের মালিক খুলনার তৌহিদুর রহমানকে আটক করতে পুলিশের অভিযান চলছে।’

প্রসঙ্গত, গত ২ সেপ্টেম্বর জেলার বাঘারপাড়া উপজেলার ধলগ্রাম রাস্তার মোড় থেকে প্রাইভেটকারটি আটক করেন থানার উপ-পরিদর্শক তরুণ কুমার কর।

শিক্ষকের আলমারি থেকে বিবস্ত্র অবস্থায় ছাত্রী উদ্ধার

1439402306ডেস্ক রিপোর্টঃ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের বাসার আলমিরাতে থাকার কথা কাপড় চোপড় আর মূল্যবান জিনিস পত্র। কিন্তু সেই আলমিরাতেই পাওয়া গেলো ‘জীবন্ত পুতুল’! এই পুতুল বাজার থেকে ক্রয় করা কোন পুতুল নয়। বরং এই পুতুল হলো ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী সাবিরা সুলতানা পুতুল। 

এদিকে শিক্ষকের  আলমারি থেকে বিবস্ত্র অবস্থায় ছাত্রী উদ্ধারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে যেমন চলছে তোলপাড়, তেমনি এনিয়ে সর্বমহলে চলছে ক্ষোভ আর ধিক্কার।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মঙ্গলবার বিকেলে ঝিনাইদহ শহরের সিটি কলেজের সামনে ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষক আবদুল হালিমের  বাড়িতে একই বিভাগের ছাত্রী সাবিরা সুলতানা পুতুল প্রবেশ করে। এর কিছুক্ষণ পর স্থানীয় যুবকদের একটি গ্রুপ ওই বাসার দরজায় কড়া নাড়ে। দীর্ঘক্ষণ দরজায় শব্দ করার পর শিক্ষক আবদুল হালিম দরজা খুলে দেন। এ সময় তারা বাড়িতে যে মেয়েটি প্রবেশ করেছে সে কোথায় তা জানতে চায়। কিন্তু আবদুল হালিম বাসায় কোনো মেয়ে থাকার কথা অস্বীকার করে। এ সময় বিষয়টি নিয়ে উভয়পক্ষ বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ার একপর্যায়ে আলমারিতে কিছু একটা নড়ে ওঠে। ওই যুবকরা তালাবদ্ধ আলমারিতে আঘাত করলে ভেতর থেকে নারী কন্ঠের আর্তনাদ ভেসে আসে। পরবর্তীতে তালা খোলা হলে আলমারিতে থেকে প্রায় বিবস্ত্র পুতুল বের হয়ে আসে।

সাপের দলের হামলা, বেকায়দায় গোটা পরিবার

1437235069ডেস্ক রিপোর্টঃ সাপ মেরে এখন বেকায়দায় গোটা পরিবার। পাঁচ দিন ধরে ঘরের ত্রিসীমানায় পরিবারের কেউ পা রাখতে পারেননি। ঢোকার যে চেষ্টা করেননি, তা নয়। কিন্তু, 


সে ঘর এখন সাপেরই দখলে। প্রাণের ভয়ে তাই ঘরছাড়া মোকাদ্দেস মোল্লার পরিবার।

একটা কাক মারলে, চারপাশ থেকে হাজারটা কাক চলে আসে। হনুমান মারলে বা মরলে, জড়ো হয়ে যায় এক দঙ্গল। তা বলে, সাপও! হ্যাঁ, তেমনটাই হয়েছে 


যশোরের অভয়নগরের গাজিপুর গ্রামে, মোকাদ্দেস মোল্লার বাড়িতে।

মোকাদ্দেস মোল্লার ছেলে তারিকুল জানান, সোমবার সকালে বাড়ির পাঁচিলে সাপ বাইতে দেখে তিনি সাপটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলেন। তার আধ ঘণ্টা পরে, সেখান 


দিয়ে আর একটি সাপকে যেতে দেখেন তারিকুল। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই গোটা বাড়িতে ২০-২৫টি সাপ জড়ো হয়। অবস্থা বেগতিক দেখে, বাড়িতে থাকার কেউ ঝুঁকি 


নেননি। বাড়িতে সাপ জড়ো হয়েছে শুনে, কৌতূহলে গ্রামের অনেকেই দেখতে আসেন। কিন্তু, তাঁরাও ভয়ে ঘরে ঢুকতে সাহস পাননি। প্রত্যক্ষদর্শী কাউন্সিলর মুজিবর 


রহমানের প্রতিক্রিয়া, সত্যিই আজব ব্যাপার!

৩৭ বছর পর মা’র সঙ্গে দেখা হল মেয়ের

1435570334ডেস্ক রিপোর্টঃ ৩৭ বছর বয়সী এক নারী। নাম এস্থার জামিনা জর্ডিং। যুক্তরাষ্ট্র থেকে এসেছেন। চোখেমুখে উদ্বেগের ছাপ। ছাপা শাড়ি পরা ষাটোর্ধ্ব এক নারী সিঁড়ি বেয়ে ধীরে ধীরে উঠে এলেন দোতলায়। অস্থির হয়ে উঠলেন এস্থার। দু'জন দু'জনের দিকে কয়েক মুহূর্ত তাকিয়ে থাকলেন। এরপর জড়িয়ে ধরলেন একে অপরকে। ভেঙে পড়লেন কান্নায়। এঁরা দুজন হলেন মা নূরজাহান বেগম (৬৫) ও মেয়ে এস্থার জামিনা জর্ডিং (৩৭)। নূরজাহান বেগম থাকেন বাগেরহাটের মংলায় আর এস্থার যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে। ৩৭ বছর পর মা-মেয়ের দেখা হলো রোববার। ভাষার ব্যবধান হার মানল মাতৃত্বের কাছে। খুলনার দাকোপ উপজেলার গুনারী গ্রামের নূরজাহান বেগম ও মোহন গাজী দম্পতির পঞ্চম সন্তান জামিলা জন্ম নেন ১৯৭৭ সালের জুন মাসে। তাঁরা থাকতেন চালনায়। অভাবের সংসার। শারীরিকভাবে অসুস্থ মোহন গাজী মেয়েটিকে কাউকে দত্তক হিসেবে দিতে চাইলেন। জামিলার জন্মের পাঁচ দিন পর চালনায় খোয়া ভাঙার কাজ করতে যান নূরজাহান বেগম। ফিরে এসে তিনি আর মেয়েকে পাননি। স্বামী তাঁকে জানান, মেয়েকে বারান্দা থেকে কেউ নিয়ে গেছে। মোহন গাজী স্ত্রীর কাছে মিথ্যা বলেন। আসলে তিনি মেয়েকে খুলনার এজি মিশনে নিয়ে ৫০০ টাকায় বিক্রি করে দেন। এর প্রায় আট মাস পর মেরি ও পেট দম্পতি এজি মিশনে আসেন। তাঁরা জামিলাকে দত্তক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যান। জামিলা হয়ে যান এস্থার জামিনা জর্ডিং। এস্থারের তিন ছেলে। স্বামী ল্যান্স জর্ডিং পেশায় কেমিস্ট। ২০১৩ সালে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম টুইটারে এস্থারের সঙ্গে পরিচয় হয় যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বাংলাদেশি নওরীন ছায়রার। সেই সূত্র ধরে সামাজিক যোগাযোগের আরেক মাধ্যম ফেসবুকে নওরীন ছায়রার ছোট বোন যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী শিক্ষিকা নাহিদ ব্রাউনের সঙ্গে পরিচয় হয় এস্থারের। এরপর শুরু হয় শিকড়ের সন্ধান। জামিনার সেই সময়ের বাংলাদেশি পাসপোর্টের সূত্র ধরে তাঁরা নিশ্চিত হন তাঁর বাড়ি খুলনার কোনো এক গ্রামে। নাহিদ তাঁর ফুফাতো ভাই খুলনায় কর্মরত আবু শরীফ হুসেন আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি (শরীফ) প্রায় এক বছর চেষ্টা করে এস্থারের মা নূরজাহানের সন্ধান পান মংলায়। গত বছরের জানুয়ারি মাসে ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে এস্থার নিশ্চিত হন, নূরজাহান বেগমই তাঁর মা। গত শনিবার নাহিদ ব্রাউনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র থেকে খুলনায় আসেন এস্থার। রোববার আবু শরীফের বাসায় দেখা হয় মা-মেয়ের। নূরজাহান বেগম বলেন, ‘সব সময় মনে হতো আমার মেয়ে বেঁচে আছে। ওর আসার খবর শোনার পর ঠিকমতো খেতে পারি না। রাতে ঘুমাতে পারি না। কখন আমার মেয়ের সঙ্গে দেখা হবে। আজ যেন আকাশের চাঁদ হাতে পেয়েছি।’ এস্থার জামিনা জর্ডিং বলেন, ‘আমি ভীষণ খুশি। মাকে দেখার অপেক্ষা আর সইছিল না। বারবার গলা শুকিয়ে যাচ্ছিল। এ আনন্দ ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না।’ নাহিদ ব্রাউন বলেন, ‘দুই বছর চেষ্টার পর মা-মেয়ের মিলন ঘটাতে পেরেছি। দীর্ঘ ৩৭ বছর পর ও শিকড়ের সন্ধান পেয়েছে।’ 

এক বছরেই অবৈধ হয়ে গেল সরকার? প্রশ্ন মিজানুর রহমানের

full_263172225_1425405294ডেস্ক রিপোর্টঃ  এক বছর একটা সরকার বৈধভাবে চলার পর এখন কীভাবে অবৈধ হয়ে গেল, এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান। মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরা শহরের আছাদুজ্জামান মিলনায়তনে ‘সহিংসতা ও মানবাধিকার’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মিজানুর রহমান ওই প্রশ্ন তোলেন। 

৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংসতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে, এমন ধারণার প্রতি দ্বিমত পোষণ করে সরকার পতনের আন্দোলনকারীদের প্রতি ইঙ্গিত করেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘এক বছর আপনারা কী করেছেন? আপনারা কি ঘুমিয়ে ছিলেন? কেন আগে কথা বলেননি? এক বছর একটা সরকার বৈধভাবে চলল, এখন অবৈধ হয়ে গেল? যেখানে বিশ্ব নির্বাচনকে বৈধতা দিয়েছে সেখানে এক বছর পর এসে নির্বাচন অবৈধ বলার সুযোগ নেই।’ চলমান সহিংসতা ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, ‘যারা রাষ্ট্রের ক্ষমতায় রয়েছেন তাঁদের দায়িত্ব নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। রাজনীতির নামে এই ব্যভিচার বন্ধ করতে হবে। শুধু কথার ফুলঝুড়ি নয়, অধিকার রক্ষায় প্রয়োজনে সরকারকে আরও কঠোর হতে হবে। আমরা ব্যর্থতা দেখতে চাই না। তবে কঠোর হওয়ার নামে যেন মানবাধিকার লঙ্ঘন না হয়। আটক বাণিজ্য করা না হয়।’

মিজানুর রহমান বলেন, ‘রাজনীতির উদ্দেশ্য জনকল্যাণ হলে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা, ট্রেন লাইন উপড়ে নাশকতা কেন? এগুলো দিয়ে কি জনকল্যাণ করা সম্ভব? এই রাজনীতি কি আমরা গ্রহণ করব, না ত্যাগ করব? আমাদের মধ্যে সব সময় শঙ্কা ও নিরাপত্তাহীনতা কাজ করছে। কেন এমন হলো? আমরা তো ভালো ছিলাম। হঠাৎ করে কেন এমন হলো। মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে, যাঁরা করছেন তাঁদের দমন করার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। আর রাষ্ট্র নাগরিকের অধিকার লঙ্ঘন করলে তাকে আমরা কাঠগড়ায় দাঁড় করাব।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, যারা সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদী তৎপরতা চালাচ্ছেন, তাঁদের সঙ্গে সংলাপের কোনো সুযোগ নেই। বিশ্বে এমন কোনো নজির নেই।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ও পার্টনার্স ইন ডেভেলপমেন্ট (পিআইডি) আয়োজিত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন পিআইডির সভাপতি জাকিরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিত থাকার কথা বলা হলেও তাঁরা উপস্থিত ছিলেন না। এ ছাড়া কমিশনের চেয়ারম্যানের সঙ্গে সেমিনারে উপস্থিত লোকজনের প্রশ্নোত্তর পর্বটিও বাদ দেওয়া হয়।

সেমিনারে পিআইডির সাধারণ সম্পাদক মো. মহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কালা চাঁদ সিংহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, জেলা আনসার ও ভিডিপির কমান্ডার মো. কামরুজ্জামান প্রমুখ বক্তব্য দেন। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবু জায়েদ মোহাম্মদ।


এর আগে মিজানুর রহমান মাগুরা সদর হাসপাতাল পরিদর্শনে যান। হাসপাতালের নানা অব্যবস্থাপনা দেখে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করে সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে তিনি বলেন, এখানে রোগীদের সেবা বলে কিছু নেই। চিকিৎসক-নার্স যাঁরা দায়িত্ব পালন করছেন তাঁদের চাকরি থাকা উচিত না।

কুমারখালীতে প্রধান শিক্ষককে গুলি করে হত্যা

কুষ্টিয়াডেস্ক রিপোর্টঃ  কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার দয়ারামপুর গ্রামে মুন্সি রবিউল ইসলাম (৪৫) নামে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক প্রধান শিক্ষককে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার দয়ারামপুরের নিজ বাড়ির সামনে রবিউলকে গুলি করে দুর্বৃত্তরা। নিহত রবিউল ইসলাম স্থানীয় মহেন্দ্রপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ। কুমারথালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লুৎফর রহমান জানান, রবিউল ইসলাম শুক্রবার দিবগত রাত ১ টার দিকে তার পরিচালনাধীন এমএমআর ব্রিকস নামের ইট ভাটা থেকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়িতে ফিরছিলেন। এ সময় তার নিজ বাড়ির সম্মুখে কয়েকজন দুর্বৃত্ত তাকে লক্ষ করে গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায়। গুলির শব্দ শুনে রবিউলের আত্মীয়-স্বজন এবং স্থানীরা তাকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় কুমারখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রবিউলের মাথায় এবং ডান পাজরে দুটি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে কুমারখালী থানা পুলিশ গিয়ে ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। পুলিশ রাতেই ঘটনার মুল পরিকল্পনাকারী সন্দেহে ওহিদুল নামের ওই ভাটার এক কর্মচারীকে আটক করেছে। ইট ভাটা ব্যবসাকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকান্ড সংগঠিত হতে পারে বলে ধারনা করছে পুলিশ। নিহত রবিউলের ভাগিনা মিথুন জানান, তার মামা রবিউলকে বেশ কিছুদিন আগে একটি অপরিচিত নম্বর থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। রবিউল এ ব্যাপারে কুমারখালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরীও করেছিলেন।

উল্লেখ্য, নিহত রবিউল ইসলামের চাচাতো ভাই সাবেক স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও কুমারখালী থানা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মুন্সি রশিদুল ইসলামকেও গত বছরের ৮ ডিসেম্বর মহেন্দ্রপুর বাজারে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। রশিদুলের মৃত্যুর পর ইট ভাটাটি রবিউল দেখাশোনা করতেন।

 

সাতক্ষীরার জামাত নেতা শরিফুল ইসলামের ২ বছর কারাদণ্ড

news_imgডেস্ক রিপোর্টঃ নাশকতা সৃষ্টির দায়ে সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী এবং নড়াইল পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি ও সাবেক শিবির নেতা শরিফুল ইসলামকে ২ বছর করে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১২টার দিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ আব্দুল সাদী ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাদের এ সাজা দেন। এর আগে সকাল ৯টার দিকে সাতক্ষীরা শহরের বিনেরপোতা এলাকা থেকে নাশকতা সৃষ্টির দায়ে তাদের হাতেনাতে আটক করে পুলিশ।সাজাপ্রাপ্ত সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সাতক্ষীরা শহরের মাছখোলা ঝুঁটিতলা এলাকার মৃত দ্বীন আলী সরদারের ছেলে এবং নড়াইল পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি ও সাবেক শিবির নেতা শরিফুল ইসলাম নড়াইল জেলার ডুমুরতলা গ্রামের খান জয়নাল আবেদীনের ছেলে।

সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের তথ্য কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামাল হোসেন তাদের সাজার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নড়াইলের শিবির নেতা শরিফুল ইসলাম হত্যা মামলার আসামি। সে সাতক্ষীরায় দীর্ঘদিন ধরে পালিয়ে ছিল।

সীমান্ত পাড়ি দিয়েও ব্যর্থ প্রেমিকা !

Meherpur-1ডেস্ক রিপোর্টঃ সীমান্তের কাটাতারের বেড়া দুই বাংলাকে আলাদা করলেও প্রেমিক যুগলকে আলাদা করতে পারেনি। আর তাইতো প্রেমের টানে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতের নদীয়া থেকে মেহেরপুরে ছুটে এসেছিল স্কুলছাত্রী পারুলা আক্তার (১৫)। তবে বয়স ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়ায় খালি হাতেই দেশে ফিরতে হয়েছে তার। বুধবার দুপুরে মুজিবনগর সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠকের মধ্য দিয়ে তাকে ভারতে ফেরত পাঠানো হয়। মুজিবনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম জানান, ভারতের নদীয়ার নওদাপাড়া গ্রামের নজরুল দফাদারের মেয়ে নবম শ্রেণীর ছাত্রী পারুলা খাতুনের সঙ্গে তার ফুফাতো ভাই মুজিবনগর উপজেলার ভবরপাড়া গ্রামের নছিমন চালক মামুনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মামুনকে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে গত রোববার বাড়ি থেকে পালিয়ে আসে পারুলা। তিনি আরও জানান, তবে বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী পারুলার বিয়ের বয়স পূর্ণ না হওয়ায় বিপাকে পড়েন মামুনের পরিবার। এর মধ্যে পারুলার বাবা নদীয়ার তেহট্ট থানায় একটি অভিযোগ করেন। নদীয়া ও মেহেরপুর পুলিশ সুপারের মধ্যে টেলিফোনে আলোচনার পর মঙ্গলবার দুপুরে মামুনের বাড়ি থেকে পারুলাকে উদ্ধার করে মুজিবনগর থানায় নেয় পুলিশ। পরে মঙ্গলবার দুপুরে মুজিবনগর সীমান্তের ১০৫ নং মেইন পিলার এলাকায় বিজিবি মুজিবনগর ক্যাম্প ও বিএসএফ হৃদয়পুর ক্যাম্প কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে পারুলাকে বাবা নজরুল দফাদারের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়। সেখানে আরও উপস্থিত ছিলেন মুজিবনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম। এদিকে, থানা থেকে পতাকা বৈঠকস্থলে নেয়ার সময় কান্নায় ভেঙে পড়ে পারুলা ও মামুন। এ সময় চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি মামুনের পরিবারের সদস্যরাও। বিয়ের বয়স  পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত দু’জনেই অপেক্ষা করবে বলে জানায় এই প্রেমিক যুগল। তবে বিয়েতে পারুলার বাবার আপত্তি রয়েছে জানায় মামুনের পরিবার।

 

কুষ্টিয়ায় ট্রলিচাপায় সাংবাদিকের মৃত্যু

HJ-1420067212ডেস্ক রিপোর্ট  : কুষ্টিয়া শহরতলির মোল্লাতেঘড়িয়া এলাকায় ইঞ্জিনচালিত এক ট্রলির ধাক্কায় শাহিনুর ইসলাম শাহিন (৩৮) নামের স্থানীয় এক সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী আঞ্চলিক সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহিন কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক দেশতথ্য পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার ছিলেন। তিনি শহরতলির বাড়াদী এলাকার অমূল্য বিশ্বাসের ছেলে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছিলেন শাহিন। মোটরসাইকেলটি মোল্লাতেঘড়িয়া এলাকায় মণ্ডল ফিলিং স্টেশনের সামনে পৌঁছানোর পর বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রলি উল্টো পথে এসে মোটরসাইকেলটি ধাক্কা দেয়। এতে রাস্তার ওপর শাহিন ছিটকে পড়েন। তখন ট্রলির একটি চাকা শাহিনের মাথার একপাশ দিয়ে চলে যায়। স্থানীয়দের সহায়তায় শাহিনকে উদ্ধার করে রাত ১১টার দিকে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসা কর্মকর্তা আবুল হাসনাত তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শাহিনের নিহত হওয়ার সংবাদ পেয়ে কুষ্টিয়া জেলার সাংবাদিকেরা হাসপাতালে ছুটে যান।

হাসপাতালে আসা কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সাগর জানান, শাহিনের মৃত্যুর প্রতিবাদে শুক্রবার বেলা ১১টায় কুষ্টিয়া শহরের মজমপুর মোড়ে কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কে অবৈধ নছিমন, করিমন, ট্রলি বন্ধের দাবিতে কর্মসূচি পালন করা হবে।


কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল খালেক জানান, শাহিনের লাশ হাসপাতালে রাখা হয়েছে। ট্রলিটি আটক করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে গেছেন।