‘চাকরি নিয়ে বসে আছি, ভালো কর্মী দিন’

A A Aডেস্ক রিপাের্ট : আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) মতে বাংলাদেশে বেকারের হার দক্ষিণ এশিয়ার প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে বেশি।   কিন্তু এর মধ্যেই আবার দক্ষ কর্মীর অভাবে ভুগছে চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।

বেসরকারি সংস্থা- কাজী আইটি সেন্টার লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক মাইক কাজী জানিয়েছেন, তারা চাকরি দিতে কর্মীদের অপেক্ষায়। কিন্তু ভালো কর্মী পাচ্ছেন না সেভাবে। যারা আমাদের কাছে চাকরির জন্য আসেন তাদের যাচাই করতে গেলে এক শতাংশও টেকে না।

একান্ত সাক্ষাৎকারে মাইক কাজী জানান, ২০১৮ সালে এক হাজার কর্মী নেয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছেন তারা। আর এই বছরে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ কোটি ডলার।

আপনারা কেমন কর্মী চাচ্ছেন?

আমাদের কাজ হচ্ছে বিদেশি ক্লায়েন্টদের সঙ্গে। সে জন্য আমরা চাই ইংরেজি ভাষায় দক্ষ কর্মী, যারা ভাল ইংরেজি বলতে, লিখতে এবং পড়তে পারবে। ওই কর্মী কোন বিভাগে পড়াশুনা করছে সেটি মুখ্য নয়।

 

ইংরেজি জানা ছেলে মেয়ে পাচ্ছেন না?

বাংলাদেশিরা অনেক মেধাবী। তবে তারা ইংরেজিতে দুর্বল। আমরা ইংরেজিতে পরীক্ষা নিলে তারা একটু খারাপ করে। ৩০ শতাংশ পাস করে। আর যদি বাংলায় প্রশ্ন করা হয় তাহলে ৯০ শতাংশ পাস করে। তার মানে ইংরেজি প্রশ্ন বুঝতে তাদের সমস্যা হয়।

আপনাদের কর্মী বাছাই প্রক্রিয়ার পদ্ধতি কী?

কাজী আইটি অভিনব উপায়ে নিয়োগ দিয়ে দৃষ্টান্ত তৈরি করেছে। যা গণমাধ্যমেও খবর হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত ফেসবুক লাইভে সরাসরি ইন্টারভিউ নেয়া। কাজী আইটির সিইও হিসেবে আমি প্রতি শনিবার সকাল ১১ টায় ফেসবুক লাইভে এসে আগ্রহীদের নানা প্রশ্নের জবাব দেই। আর সেখান থেকেই করে ফেলি প্রাথমিক সিলেকশন।

এরপর আমাদের এইচআর টিম তাদের সাথে যোগাযোগ করে চাকুরি পাওয়ার পরের ধাপগুলো সম্মন্ন করে ফেলে।

এই প্রক্রিয়ায় আমরা অকেককেই নিয়োগ দিয়েছি। আপনাদের মাধ্যমে দেশের চাকরিপ্রার্থীদের জানাতে চাই তারা চাইলে সরাসরি এসে আমাদের নিকুঞ্জ অফিসে সিভি দিতে পারে। অথবা কাজী আইটির ফেসবুক ফ্যানপেজ https://www.facebook.com/ilovekaziit/ তে গিয়ে যোগাযোগ করতে পারেন।

আর যারা সরাসরি ইন্টারভিউ দিতে চান তারা প্রতি শনিবার সকাল ১১ টায় কাজী আইটির ফেসবুক পেজে লাইভে আমার সাথে যুক্ত হতে পারেন।

আর হ্যাঁ, কাজী আইটিতে নতুন অবস্থায় বেতন দেয়া হয় ৩৫ হাজার টাকা। সাথে থাকছে সেলস কমিশন ও বাড়তি আয়ের নানা সুযোগ। সবমিলে অনেকেই এখন ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা আয় করছে।

আপনারা কি শুধু গ্রাজুয়েট নেবেন?

আমাদের রিকোয়েরমেন্ট যদি কেউ ফুলফিল করতে পারে তাহলে আমরা গ্রাজুয়েট না হলেও নেব। আমরা আসলে একজন কর্মীকে তৈরি করি। তাকে আমরা প্রশিক্ষণ দেই। আমরা খুব শিগগিরই প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট করব, যেখানে আমরা দক্ষ জনশক্তি তৈরি করব।

আপনাদের কাজের ধরণটা সম্পর্কে যদি বলেন…

আমরা ডে এবং নাইট- ‍দুই শিফটে লোক নিয়োগ করি। আমাদের এখানে কাজ করতে হলেও কাউকে জাভা প্রোগ্রাম বা অন্য কোনো প্রোগ্রাম জানতে হবে সেটা কিন্তু না।

আমরা ইউএসের বিভিন্ন ব্যাংকের কাজ বাংলাদেশে বসে করে দেই। ব্যাংকের বিভিন্ন আইটি সাপোর্ট আছে, মর্টগেজের কাজ, তাদের বাড়িঘরের লোন আছে- এগুলো মেইনটেনেন্স বাংলাদেশে বসে করি। অমরা অনলাইনেই কাজগুলো করে থাকি।

আমাদের প্রতিষ্ঠান ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকে। সেখানকার ব্যাংকের কাছে মর্ডগেজ করা বাড়িগুলো মেনটেনেন্স করার জন্য আমাদের লোক নিয়োগ দেয়া আছে। বাংলাদেশে বসে তাদের কাজগুলো মনিটরিং করা হয়। কখনো স্কাইপ, কখনো ফোনে ও বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়।

আমরা ব্যাংক, বিমা, লিগ্যাল সার্ভিসসহ বিভিন্ন সেক্টর নিয়ে কাজ করি।  কনসালটিং, টেকনোলজি, আউটসোর্সিং ও পরবর্তী প্রজন্মের সেবা দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

আপনাদের কাজের চাহিদা কেমন?

আমাদের যে কাজ আসছে তার ১৫ শতাংশও আমরা শেষ করতে পারছি না। আমাদের ৬০-৭০ শতাংশ বাকি আছে মার্কেট ম্যাচিউরিটি করার জন্য।

আইটি খাতে বাংলাদেশের সম্ভাবনা কেমন দেখছেন?

বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রপ্তানি আয় আসে পোশাক খাত থেকে। গত অর্থবছরে যা প্রায় ২৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। পোশাক খাত থেকে এর চেয়ে প্রায় পাঁচগুণ বেশি আয় করে চীন। তবে এতো আয় করেও চীন পোশাক উৎপাদন থেকে ধীরে ধীরে সরে যাচ্ছে। তারা পোশাকের চেয়ে বহুগুণ বেশি প্রাধান্য ‍দিচ্ছে মেশিনারিজ উৎপাদন ও আইটি খাতকে।

শুধু চীন নয়, সারা বিশ্ব বর্তমানে আইটি খাতকে ধরছে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে। সেই ক্ষেত্রে, বাংলাদেশ সরকারও পিছিয়ে নেই, ২০২১ সালকে সামনে রেখে তারা পাঁচ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে তা অত্যন্ত ইতিবাচক। আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি আরো অনেক বেশি রপ্তানি আয় করা সম্ভব যদি সঠিক পথে চলা যায়।

সরকার এই খাতে কেমন সহযোগিতা করছে?

বিশ্বখ্যাত গবেষণা প্রতিষ্ঠান বোস্টন কনসালটিং গ্রুপ(বিসিজি) এরই মধ্যে আমাদের সাথে কাজ করা শুরু করেছে। এক্ষেত্রে সরকার আমাদের সহযোগিতা করছে। আমি মনে করি, এটা সরকারের খুবই ভালো উদ্যোগ। দেশের আইটি সেক্টর তাদের কাছ থেকে বহু কিছু পেতে পারে। তবে তাদের কাছ থেকে সর্বোচ্চ নিতে আমাদেরও চেষ্টা থাকতে হবে।

আইসিটি মন্ত্রণালয়ও খুব ভালো করছে বিশেষ করে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক সবসময় দেশের আইটি খাতের উন্নয়নে ভালো ভালো উদ্যোগ নিচ্ছে। নতুন মন্ত্রী হিসেবে আইটি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জাব্বার দক্ষভাবে এই খাতকে এগিয়ে নিবেন সেই আশাই করি।

আইটি খাতে লোকজন কেমন আসছে?

আইটি খাতের চাকরিকে এখনও অনেকেই সিকিউর মনে করে না। তাদের ধারণা পাল্টাতে উদ্যোগ নিতে হবে। তবে আসার বিষয় হচ্ছে তরুণরা এখন এটিকে পেশা হিসেবে নিতে চাচ্ছে। যেটা আগে ছিল না। আমরা জব ফেয়ারে এ নিয়ে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি।

আপনি তো আমেরিকায় ছিলেন। সেখান থেকে দেশে কেন?

আমি খুব ছোটবেলায় আমেরিকায় চলে যাই, সেখানেই বড় হয়েছি। জীবনের প্রতিটি অধ্যায়ে আমি দেশকে মনে করেছি। ধীরে ধীরে দেশের প্রতি ভালোবাসা জমা হয়েছে আমার। আর তাই দেশের জন্য কিছু করার তাগিদ থেকেই এদেশে অফিস নিয়ে কাজ করছি।

আমার মতো বহু এনআরবি (নন রেসিডেন্স বাংলাদেশি) রয়েছে যারা ভালো সুযোগ পেলে এদেশে বিনিয়োগ করবে। এটা সরকারের আরো বেশি করে ভাবা দরকার। বিনিয়োগ পরিবেশ ভালো করতে নতুন উদ্যোগ আশা করছি আমরা।

এদেশে ব্যবসা শুরুর গল্পটা কেমন?

কাজী আইটি অনেক ভালো প্রত্যয় নিয়ে ২০১০ সালে বাংলাদেশে কাজ শুরু করেছে। কোম্পানির শুরুটা যুক্তরাষ্ট্রে হলেও বাংলাদেশ নিয়ে আমরা বড় করে ভাবছি।

বর্তমানে এদেশে আমাদের তিনটি অফিস। নিকুঞ্জ ১২ নম্বর রোডের প্রধান অফিসের পাশাপাশি রাজধানীর ধানমন্ডিতে একটি ও ঢাকার বাইরে রাজশাহীতে আরও একটি অফিস নিয়েছি আমরা। আমরাই প্রথম ঢাকার বাইরে কোন বিভাগীয় শহরে বড় পরিসরে কাজ শুরু করেছি।

আমরা নতুনত্বে বিশ্বাসী তাই অভিনব উপায়ে নিয়োগ দিতেও কার্পণ্য করি না। আমরা মনে করি যে কেউ নিজেকে যোগ্য মনে করে কাজী আইটিতে কাজ করতে চাইলে তার জন্য আমাদের এখানে সুযোগ আছে।

তবে তাকে অবশ্যই ইংরেজিতে দক্ষ হতে হবে। আইটিতে কোনো অভিজ্ঞতা ছাড়াই লোক নিচ্ছি আমরা। যাদেরকে আমরাই সব রকমের প্রশিক্ষণ দিয়ে তৈরি করে নেব। যত ভালো কর্মী পাব আমরা ততই নিয়োগ দিতে পারব। কারণ লোক পেলে আমরা আমেরিকাতে নতুন কোম্পানি কিনে নেব। আগামী ২০ বছরে এক লাখ লোকের কর্মসংস্থান তৈরির লক্ষমাত্রা রয়েছে আমাদের।

সিনহা সাহেব বহুবার শপথ ভঙ্গ করেছেন : বিচারপতি শামসুদ্দিন

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার একাধিক আচরণ শপথ ভঙ্গের শামিল বলে মনে করেন আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী। তার অভিযোগ, অবসরে যাওয়ার পর বিরাগের বশবর্তী হয়ে তার পেনশন আটকে দিয়েছিলেন প্রধান বিচারপতি। এমন কাজ তিনি বহুবার করেছেন বলে অভিযোগ বিচারপতি শামসুদ্দিনের। একান্ত সাক্ষাৎকারে এই বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন তিনি। আজ থাকছে সাক্ষাৎকারের দ্বিতীয় পর্ব।

নির্বাহী বিভাগ কী বিচার বিভাগে উপরে চলে গেল?

এখানে কেউ কারো উপরে উঠেনি। সবাই যার যার জায়গায় স্বকীয়তা বজায়ে রেখেছে।

ষোড়শ সংশোধনী, তা বাতিলের রায়- সবকিছু মিলিয়ে আইন বিভাগ ও বিচার বিভাগের অবস্থান নিয়ে এক ধরনের বিপরীতমুখী চিন্তা দেখা গেল। কে উপরে? সংসদ না উচ্চ আদালত? আপনার পরযবেক্ষণ কী?

এখানে উপর নিচ বিচার করার সুযোগ নেই। সংবিধান যার যার ক্ষমতা আলাদাভাবে দিয়েছেন। এই যে কে বাড় কে ছোট এই প্রশ্ন করা কিন্তু ভাল লক্ষণ না। সংবিধান সবার স্থান নির্ধারণ করে দিয়েছে। বরং দেশের স্বার্থে তিনটি বিভাগের উচিত একে অপরের পরিপূরক হয়ে কাজ করা।

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ে আমাদের সংসদ কতটা কারযকর, কতটা শক্তিশালী, এসব প্রশ্ন উঠেছে। বড় একটি দল সংসদে নেই, ১৫৩ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। দশম সংসদ আইন ও সংবিধানের আলোকে ঠিক আছে। কিন্তু নৈতিক দিক দিয়ে দুর্বল আওয়ামী লীগও বিভিন্ন সময় বিষয়টি স্বীকার করেছে। আপনি কী বলবেন?

সংবিধানে এমন কোনো কথা নেই যে আনঅপোজড কোন ব্যক্তি ইলেকটেড হতে পারবে না। এখন কেউ যদি নির্বাচনে না আসে তাহলে একজন তো নির্বাচিত হবে এইটাই তো স্বাভাবিক। কোন দল যদি নির্বাচনে না আসে তাহলে কী নির্বাচন বসে থাকবো? থাকবে না।

 

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের ক্ষেত্রে সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের প্রসঙ্গও এসেছে। এ নিয়ে আপনার অবস্থান কী?

রিমোভাল প্রসিডিউরটা যদি হতো তাহলেও কিন্তু ৭০ অনুচ্ছেদ বাদ সাধতো না। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে যেতে পারবে না, দলীয় সিদ্ধান্ত কিন্তু সব সময় লাগে না। একজন বিচারপতি সরানো হবে কি হবে না সেটা কিন্তু দলীয় সিদ্ধান্তের ব্যাপার না। সুতরাং এখানে ৭০ অনুচ্ছেদ একেবারেই অপ্রাসঙ্গিক।

আইন বিভাগ, বিচার বিভাগ ও নির্বাহী বিভাগ- তথা রাষ্ট্রের তিনটি স্তম্ভের ক্ষমতার ভারসাম্য একটি আদর্শ রাষ্ট্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। আমাদের দেশ এ হিসেবে কোন অবস্থানে আছে? ষোড়শ সংশোধনীর রায় কেন্দ্র করে যে পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে, তা থেকে উত্তরণের পথ কী?

আমাদের দেশে কিন্তু তিনভাগের সম্পর্ক ভালই আছে। এবং ভালই ছিল। গণ্ডগোলটা লাগিয়েছেন প্রধান বিচারপতি।

স্বাধীন বিচার বিভাগ আইনের শাসন নিশ্চিত করার জন্যে জরুরি। এর জন্যে করণীয় কী?

বিচার বিভাগ তো স্বাধীনতা ভোগ করছে। এটি চলমান থাকবে বলেই আমি বিশ্বাস করি। এটি অব্যাহত রাখলেই বিচার বিভাগের স্বাধীনতা অক্ষুন্ন থাকবে।

প্রধান বিচারপতি আপনার সঙ্গেও অন্যায় করেছেন বলে একাধিকবার আপনি বলেছেন।

হম করেছেন। একজন বিচারপতি শপথ নেন তিনি অনুরাগ বা বিরাগের বশবর্তী হয়ে কিছু করবেন না। কিন্তু আমার সঙ্গে আচরণই সিনহা সাহেবের শপথ ভঙ্গের শামিল। উনি শপথ ভঙ্গ করেছেন বহুবার। বিরাগে চরম উদাহরণ দেখিয়েছেন উনি। ছয়মাস পেনশন দেননি। উনি আমার অফিস বন্ধ করে দিয়েছেন। উনি আমাকে রায় লিখতে দেননি। উনি আমার স্টাফ উথড্র করেছেন। এগুলো বিরাগের চরম উদাহরণ। তিনি বিচার বিভাগের একজন কুলাঙ্গার হিসেবে পরিগণিত হয়েছেন। অথচ তিনি এমনভাবে কথা বলতো মনে হতো তিনি একজন মহা মনীষী।

এখন আপনার পেনশনের কী অবস্থা। পাচ্ছেন?

ছয়মাস পরে বিষয়টি সুরাহা হয়েছে। বিশেষ করে আইন মন্ত্রণালয় কাজটি করে দিয়েছে। উনি দিতে চাননি। কিন্তু মন্ত্রণালয় এটি করে দিয়েছে।

ছয়মাস পেনশন আটকে থাকায় তো ক্ষতি হয়েছে?

আমার বিশাল ক্ষতি হয়েছে। আমি ছয়মাস পেনশন পাইনি। এই সময়টায় আমার ব্যাংকে ওই টাকা টা থাকলে আমি লাভ পেতাম। ১০ থেকে ১২ লাখ টাকা আমি পেতাম। ওই টাকার ক্ষতি হয়েছে আমার।

এজন্য কী আপনি আইনি প্রতিকারে যাবেন?

আমি তার বিরুদ্ধে মামরা করবো।

কী মামলা করবেন?

ক্ষতিপূরণের মামলা করবো। এটিকে বলে মানি স্যুড মামলা।

কোন কোর্টে করবেন?

যুগ্ম জেলা জজ আদালতে ক্ষতিপুরণ মামলা করবো।

কবে নাগাদ মামলাটি করতে পারেন?

আমি নথিপত্র গুছাচ্ছি। প্রস্তুতি নিচ্ছি। প্রস্তুতি শেষ হলেই আমি মামলা করবো।

এতোদিন করেননি কেন?

এতোদিন করিনি কারণ এতোদিনে মামলা করলে তার জজ সাহেবরা মামলা নিতো না। বা মামলা আমি সুবিচার পেতাম না। তিনি প্রভাব বিস্তার করতেন।

ধন্যবাদ স্যার সময় দেয়ার জন্য
আপনাকেও ধন্যবাদ।

 

‘আ’লীগ ঘুমের মধ্যেও খালেদা-তারেকের স্বপ্ন দেখে ভয় পায়’

‘আ’লীগ ঘুমের মধ্যেও খালেদা-তারেকের স্বপ্ন দেখে ভয় পায়’ডেস্ক রিপাের্ট : মোহাম্মদ শাহজাহান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। রাজনৈতিক নানা চরাই-উত্তরাই পার হয়ে রাজনীতিতে এখনো সক্রিয় তিনি। এক এগারোর পরীক্ষিত এই নেতা বিএনপি পুনর্গঠনের দায়িত্ব পালন করছেন।

বিএনপি পুনর্গঠনের অগ্রগতি, দেশের সমসাময়িক রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং আগামী নির্বাচন নিয়ে এই প্রতিনিধির সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন মোহাম্মদ শাহজাহান।

বিএনপির পুনর্গঠন প্রক্রিয়ার আগ্রগতি সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?

আগে বিএনপির সাংগঠনিক জেলা ছিল ৭৮টি। বর্তমানে কয়েকটি উপজেলা ও পৌরসভা যুক্ত হয়ে ৮১টি সাংগঠনিক জেলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫১টি কমিটি হয়েছে। ৩০টি মতো এখন বাকী আছে। ম্যাডাম (খালেদা) দেশে আশার পর উনার সঙ্গে আলোচনা করে খুব অল্প সময়ের মধ্যে দল পুনর্গঠনের কাজ শেষ করব।

দল পুনর্গঠন করতে গিয়ে দলীয় বা দলের বাইরে কোনো প্রতিবন্ধকতায় পড়ছেন কী-না?
প্রতিবন্ধকতা তো আছেই। কোনো সাংগঠনিক কাজ করতে পারছি না। সদস্য সংগ্রহ করতে গেলেও সেখানে বাধা দেওয়া হচ্ছে। কর্মী সভা করার সুযোগ পাচ্ছি না। বাধা দেয়া হচ্ছে। এজন্য ৪-৫টির বেশি কমিটি করতে পারিনি।
যেখানেই প্রোগ্রাম দিয়েছি সেখানেই পুলিশ বাধা দিয়েছে। যার কারণে মাঠ পর্যায় থেকে তথ্য সংগ্রহ করে কেন্দ্র থেকে কমিটি করতে হচ্ছে।
দলের মধ্যে কোনো আভ্যন্তরীণ সমস্যা নেই তা বলব না, বড় রাজনৈতিক দলের কিছু থাকতেই পারে। কিন্তু সবচেয়ে বড় বাধা হলে সরকার।  

কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে কমিটি চাপিয়ে দেয়া হয়-এমন অভিযোগ প্রায়ই আসে- আপনি কি বলবেন?
মাঠ পর্যায়ে গিয়ে কমিটি করার সুযোগ তো আমরা পাচ্ছি না।
তথ্য সংগ্রহ করে দলের চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলোচনা করে নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করা হয়। এখানে কারোর ইচ্ছা-অনিচ্ছায় কমিটি গঠন করা হয় না।
কেন্দ্র থেকে দায়িত্ব নিয়ে কমিটি শতভাগ জেনুইন করা সহজ কাজ নয়। দুই-এক জায়গায় কমিটি একটু এদিক-সেদিক হয় না, তা তো নয়। সেজন্য একটু কথা তো থাকবেই।

আগামী নির্বাচন নিয়ে আপনারা কী ভাবছেন?
বিএনপি একটি নির্বাচনমুখী রাজনৈতিক দল। আমরা মনে করি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আমাদেরকে ক্ষমতায় যেতে হবে। কেউ আমাদেরকে ক্ষমতায় বসিয়ে দিবে এই নীতিতে বিশ্বাস করি না। ক্ষমতায় যাওয়ার আমাদের একমাত্র পথ হল জনগণ। আর জনগণের সমর্থন পাওয়ার জন্য দরকার হলো অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন। এমন একটা নির্বাচন থেকে আমরা বঞ্চিত।

আপনারা সমঝোতার কথা বলছেন, কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া নেই তাহলে…
আমরা আশা করেছিলাম সরকার বিরোধী দল তথা বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর অন্যায় জুলুম-অত্যাচার-নির্যাতন বন্ধ করবে। সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য একটি অর্থবহ নির্বাচন অনুষ্ঠানে রাজনৈতিক সমঝোতায় আলোচনার পথে আসবে। কিন্তু আমরা ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে কোনো প্রকার তার লক্ষণ দেখতে পাচ্ছি না। বরং ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো আরেকটি একতরফা নির্বাচন করতে রাজনৈতিক পরিবেশকে অস্থিতিশীল করে তুলছে। এরা (আওয়ামী লীগ) দেশে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন চায়- তাদের কোনো কাজে এমন লক্ষণ দেখছি না। তারপরও বিএনপি নির্বাচনের জন্য শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাবে।

বর্তমান সাংবিধান অনুযায়ী সরকার আরেকটি নির্বাচনের ব্যবস্থা নিলে আপনাদের অবস্থান কী হবে?
শেষ পর্যন্ত যদি দেখি সরকার ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন করতে মরিয়া, তখন পরিস্থিতি বলে দেবে বিএনপির করণীয়। আমরা সহায়ক সরকারের কথা বলছি, প্রকৃত পক্ষে নির্বাচনকালীন কিংবা অন্তর্বর্তীকালীন নিরপেক্ষ সরকার। আর সেই সরকার যে কোনো নামে হতে পারে। কারো মতে সহায়ক সরকার, কারো মতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার, কারো মতে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার। অর্থাৎ একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করতে যে ধরনের সরকার প্রয়োজন বিএনপি সেই ধরনের সরকার চায়।

সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনার ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন (ইসি) রাজনৈতিক দল ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সংলাপ করছেন। আপনারা নিশ্চয়ই ইসি সংলাপে অংশ নিচ্ছেন। ইসি সংলাপে বিএনপির মূল দাবি কী থাকবে?
ভোটাধিকার প্রয়োগে নিশ্চয়তাসহ অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে যে যে পদক্ষেপ নেয়া দরকার সে ব্যাপারে বিএনপি একটি প্রস্তাবনা তুলে ধরবে। এক কথায় দেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে যে সকল পদক্ষেপ নেয়া দরকার সে বিষয়টিকে প্রাধান্য দেয়া হবে। আমরা নির্বাচন কমিশনের কথা শুনবো এবং আমাদের কথা বলবো। আমরা নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাই না। যদিও তারা নিজ কৃতকর্মের মধ্য দিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েন। তারাই জনগণের মধ্যে সন্দেহ সৃষ্টি করেন। আমরা নির্বাচন কমিশনকে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠায় একটি ভালো নির্বাচন উপহারের ক্ষেত্রে পরীক্ষক হিসেবে দেখতে চাই।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বর্তমানে লন্ডনে। দেশে ফেরা না ফেরা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে আলোচনা আছে। তিনি কবে নাগাদ দেশে ফিরছেন?
চিকিৎসা শেষে যথাসময়ে দেশে ফিরবেন ম্যাডাম (খালেদা জিয়া)। উনি দেশে ফিরতে উদগ্রীব। দেশের বাইরে স্বস্তি অনুভব করেন না, বরং দেশে থাকতে পছন্দ করেন। ভ্রমণে যাননি, তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশ গিয়েছেন। অথচ ক্ষমতাসীনরা কত কথাই তো বলছে। তাদের রাতে ঘুম হয় কি না, সেটাও আমরা জানি না। তারা তো রাতে ঘুমের মধ্যেও খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে স্বপ্ন দেখেন। তবে আমার মনে হয় সরকার বিএনপি, খালেদা জিয়া এবং তারেক রহমানের নাম শুনলেই ভয় পায়।
এতক্ষণ সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
আপনাকেও ধন্যবাদ।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় জোট সরকার যে জড়িত তার প্রমাণ আছে : আমু

AMUডেস্ক রিপাের্ট : ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় আহতদের মধ্যে অন্যতম আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আমির হোসেন আমুর স্থির বিশ্বাস এই ঘটনায় সে সময়ের সরকার জড়িত। এটা সন্দেহ নয়, নানা ঘটনায় প্রমাণিত বলেও মনে করেন তিনি।

এক সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন আমু। জানান, ওই হামলায় শরীরে বিঁধা স্প্লিন্টারগুলো এখনও যন্ত্রণা দেয়। সেই দিনের স্মৃতি জাগিয়ে তোলে।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমু বর্তমান সরকারের শিল্প মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।

২১ আগস্টের হামলাকে আপনি কোন দৃষ্টিতে দেখেন?

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবোরে হত্যার মাধ্যমে হত্যার রাজনীতি শুরু। এরপর জাতীয় চার নেতাকে জেলখানায় হত্যা করা হয়েছে। এমনকি মুক্তিযুদ্ধে যারা সাব সেক্টর কমান্ডার ছিলেন তাদের অনেককেই হত্যা করা হয়েছে, তাদের ফাঁসি দেয়া হয়েছে। তাঁরাই একটি বিশেষ ধারা সংযুক্ত হলো ২১ আগস্ট। অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তকারীরা তাদের প্রতিহিংসা চারিতার্থ কারার জন্য এবং বাংলাদেশকে পাকিস্তানের সাথে একটা কনফেডারেশন করার চিন্তাভাবনা থেকে তারা বার বার স্বাধীনতার সপক্ষের নেতৃত্বের উপর আঘাত করছে।

বঙ্গবন্ধুকে আঘাতের পরে আমরা লক্ষ্য করেছি মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধকে হত্যা, সংবিধানে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি যুক্ত করা এবং সবচেয়ে বড় কথা হলো মুক্তিযুদ্ধে যারা সক্রিয়ভাবে পাকিস্তানের দালালি করে হত্যা, ধর্ষণ করে তাদের শুরু থেকে জিয়াউর রহমান রাজনৈতিক, সমাজিক এবং অর্থনৈতিকভাবে পুর্নবাসন করার চেষ্টা করে। শেখ হাসিনা দেশে আসার পর যখন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রক্রিয়াকে অব্যাহত রাখলেন এবং এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেন তখনই বারবার তাঁর প্রাণনাশের চেষ্টা করা হয়।

সেদিন কেন আপনারা কর্মসূচির ডাক দিয়েছিলেন?

দেশের বিভিন্ন জায়গায় বোমা হামলা, তৎকালীন বৃটিশ হাই কমিশনারের উপর গ্রেনেড হামলা, সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের উপর হামলা, শাহ এম এস কিবারিয়াকে হত্যার প্রতিবাদে কর্মসূচি দেয়া হয়েছিল। সেই দিন তৎকালীন সরকারের প্রত্যক্ষ ছত্রছায়ায় এবং সহযোগিতায় লাস্ট টার্গেট শেখ হাসিনার উপর গ্রেনেড হামলা করা হয়। এ হামলা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বকে ধ্বংস করার জন্যই করা হয়।

তাহলে আপনি ভাবছেন, শেখ হাসিনাই ছিলেন এই হামলার প্রধান লক্ষ্য?
এ তো স্পষ্টই। তাকে হত্যার জন্যই তো হামলা হয়েছিল। ট্রাকে ছোড়া গ্রেনেডটি বিস্ফোরিত হলে আল্লাহই জানেন কী হতো। তারপরও আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করেছি, নেত্রীকে ঘিরে ধরে নিজের স্প্লিন্টারের আঘাত নিয়েছি। চেষ্টা করেছি নেত্রীকে অক্ষত রাখার। আমরা বঙ্গবন্ধুকে হারিয়েছি, তার মেয়েকে হারাতে চাইনি।

সেদিনের ঘটনাটি কীভাবে ঘটল?

ওই দিন আমাদের মিটিং হওয়ার কথা ছিলো মুক্তাঙ্গনে কিন্তু পুলিশ সেখানে বাধা দেয়। তারা আমাদের মাইক খুলে নিয়ে যায়। তাই আমরা বাধ্য হয়েই প্রোগ্রাম শিফট করে নিয়ে যায়। একটা অস্থায়ী মঞ্চ প্রোগ্রাম শুরু করি। নেত্রী নির্ধারিত সময়েই আসবেন ধরেই আমরা আমাদের বক্তাদের তালিকা তৈরি করি। কিন্তু লাস্ট বক্তা হানিফ (মেয়র মোহাম্মদ হানিফ) যখন বক্তৃতা দিচ্ছেলেন তখন নেত্রী আসলেন। উঠার সময় নেত্রী বললেন পথে পথে এত মিছিল, এত লোক তাই দেরি হয়ে গেল। আর আমরাও যখন আড়াইটার দিকে মিটিং এ আসি তখন রাস্তায় প্রচুর লোক ছিলো। তিনি (শেখ হাসিনা) এসেই বক্তৃতা শুরু করলেন। নেত্রী বক্তব্য শেষ করে যখন নামবেন তখনই প্রথম গ্রেনেড হামলা হয়। তখন আমরা ওনাকে ট্রাকের উপর নিয়ে যাই। মাঝে যখন তাকে আমরা গাড়িতে উঠিয়ে দিতে যাচ্ছি তখন গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি এবং গ্রেনেড হামলা করা হয়। এর কিছুক্ষণ পরে তৃতীয়বার আবারও গ্রেনেড বিস্ফোরণ হয়।

এই হামলার জন্য সেই সময়ের সরকারকে দায়ী করছেন কেন?
সরকার মুক্তাঙ্গন থেকে বাধা দিয়ে আমাদের বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে নিয়ে আসলো কিন্তু এখানে বাধা দিলো না বরং হতাহত যখন হচ্ছে তখন লাঠিচার্জ এবং টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করছে। এটা কেন? তাহলে যারা গ্রেনেড নিক্ষেপকারী তাদের পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দিল।

ঘটনা এখানেই শেষ না, যুক্তরাজ্যের গোয়েন্দা সংস্থা স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের একটি প্রতিনিধি দলকে আমন্ত্রণ জানালেও তারা দেশে এসে সরকারের কর্মকাণ্ডে বিরক্তি প্রকাশ করে। ওই সময় পুলিশ এই মামলার গুরুত্বপূর্ণ আলামত গায়েব করে দেয়।

আবার আমরা নিজেরাই এই হামলা চালিয়েছি, এমন কথাও প্রচার করে জোট সরকার। সেই সঙ্গে তারা জজ মিয়া নাটক সাজায়। আবার এক বিচারককে দিয়ে এক হাস্যকর তদন্ত করে যাতে বলা হয়, একটি প্রতিবেশী দেশে এই হামলার মহড়া চালান হয়েছে। এর সবই একটাই দিক নির্দেশ করে, সেই সময়ের সরকার আসলে আমাদের নেত্রীকে শেষ করে দিতে চেয়েছিল।

তদন্তের বিশ্বাসযোগ্যতা তো ঘটনার দায় অস্বীকারের জন্যও হতে পারে…

কেবল এই কয়টি ঘটনাই নয়, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে করা তদন্তেই তো সে সময়ের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিণ্টু আসামি হয়েছেন। পিণ্টুর ভাই মাওলানা তাজউদ্দিনকে তো জোট সরকারই বিদেশে পালিয়ে যেতে সহায়তা করেছে। আবার এই মামলার আসামি ফাঁসি কার্যকর হওয়া মুফতি হান্নানের জবানবন্দির ভিডিও তো এখনও ইউটিউবে পাওয়া যায়। তাতে তো হামলার পরিকল্পনার পূর্ণ বিবরণ আছে। হাওয়া ভবনে একাধিক বৈঠকের কথা তো মুফতি হান্নান নিজের মুখেই স্বীকার করেছেন। সেই বৈঠকে তারেক রহমান, মুজাহিদ তো উপস্থিত ছিলেন।

আপনার সেদিন কী অবস্থা হয়েছিল?

আমি আহত কখন হয়েছি সেটা আমি বুঝতে পারি নাই। নেত্রী যাওয়ার পর যখন আমি উঠলাম। আমাকে যখন ট্রাক থেকে নামিয়ে আনা হল, তখন দেখলাম আমার সারা শরীর রক্তে ভেজা। শরীর থেকে রক্ত বের হচ্ছে। শরীরের সব জায়গায় স্প্লিন্টার ছিল। এখন শরীরের বিভিন্ন জায়গায় স্প্রিন্টার রয়েছে, তা বের করতে গেলে আমার রগ কাটা যাবে, এ জন্য বের করা সম্ভব নয়।

মামলার বিচার তো হলো না…

তৎকালীন সরকার (বিএনপি-জামায়াত জোট) একটা প্রহসনমূলক তদন্ত করেছিল যাতে আমরা আপত্তি জানিয়েছি। এখন আমাদের তদন্তেও যাতে আপত্তি না থাকে এবং তা স্বচ্ছ হয়। প্রকৃত দোষীদের বের করা উচিত এবং তারা শাস্তি পান তা আমরা চাই। এখানে সাক্ষ্যগ্রহণ সময়সাপেক্ষ। তারা আবার অনুপস্থিত থাকে। বিভিন্ন প্রক্রিয়া রয়েছে, আইন আদালত রয়েছে। এ প্রক্রিয়া বাদ দিতে গেলে তো এখন আবার হইচই শুরু হয়ে যাবে।

শেখ হাসিনার ওপর তো বারবার হামলার চেষ্টা হচ্ছে। তার নিরাপত্তার দিকটিতে বিশেষ কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে?

এখন যেভাবে নিরাপত্তা চলছে, সেভাবেই চলবে। আর এ পরিকল্পনাতো পরিষ্কার বলা যাবে না। তাতে শত্রুপক্ষ জেনে যাবে। তবে আমরা সবসময়ই সতর্ক আছি। তার উপর যে হামলা হয়েছে তার বেশিরভাগেই হয়েছে বিরোধী দলে থাকাকালীন সময়ে।

এই হামলা মামলায় অন্যতম আসামি তারেক রহমান তো বিদেশে। তাকে ফিরিয়ে আনতে সরকারের কী উদ্যোগ আছে?

এ বিষয়টি আমি জানি না।   

হামলার পর আপনারা রাজনৈতিকভাবে কী কর্মসূচি দিয়েছিলেন?

আমাদের উপর গ্রেনেড হামলা হবে, এ জন্য আমরা ঘরে বসে থাকব তা তো হতে পারে না। আমরা আমাদের কাজ করেছি। আমরা তো ২১ আগস্টের পরে ঘরে বসে থাকি নাই। আমরা নিয়মিত মিছিল, মিটিং এ উপস্থিত ছিলাম। শেখ হাসিনাকে ১৯ বার হত্যা চেষ্টার পরও তো তিনি থেমে থাকেন নাই। জীবন-মৃত্যু আল্লাহর হাতে।

আর এই হামলার পর জোট সরকারের বিরুদ্ধে যে জনমত গঠন হয়েছিল তার ফলেই তো আজ তারা ক্ষমতা থেকে বাইরে। জনগণ এখন তাদেরকে আর গ্রহণ করতে রাজি নয়।- ঢাকাটাইমস

‘এডিস মশা তো আপনার ঘরেই জন্মে’

ADISডেস্ক রিপাের্ট : চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব প্রকট আকার ধারণ করেছে। এই রোগ মহামারি আকার ধারণ না করলেও রোগের ভীতি ছড়িয়ে পড়েছে সবখানে। তবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, এই রোগে আতঙ্কিত এবং পেনিকড হওয়ার কোনো কারণ নেই। কারণ এই রোগে মৃত্যুর ঝুঁকি নেই। বর্ষা মৌসুমে এডিস মশাবাহিত রোগটির প্রবণতা এখন একটু নিচের দিকে। তবে এই রোগ থেকে মুক্তি লাভের একমাত্র উপায় সচেতনতা। চিকুনগুনিয়া এবং ডেঙ্গু নিয়ে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সাব্রিনা ফ্লোরার মুখোমুখি হয়েছে প্রতিনিধি

সাক্ষাৎকারে মীরজাদী সাব্রিন ফ্লোরা বলেছেন, ‘এডিস মশা নিধন না করলে চিকুনগুনিয়া এবং ডেঙ্গু থেকে মুক্তি পাওয়া প্রায় অসম্ভব। আর এ মশা নিধনে ব্যক্তি, পরিবার এবং সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। কারণ এই মশাটি আপনার ঘরেই জন্মায়। আর নিধন আন্দোলন শুরু করতে হবে ঘর থেকেই।’

অধ্যাপক মীরজাদী সাব্রিনা ফ্লোরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তিনি যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজ থেকে পিএইচডি করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র থেকেও চিকিৎসা বিজ্ঞানে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়েছেন রোগতত্ত্বের এই গবেষক। নিচে আইইডিসিআরের পরিচালকের সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো:-

প্রশ্ন: এখন তো চিকুনগুনিয়ার ছড়াছড়ি

ডা. ফ্লোরা: এপ্রিল-মে’র দিকে এর প্রভাব বেশি ছিল। এডিস অ্যালবোপিকটাস ও এডিস ইজিপ্টি-এই দুই ধরনের মশার কামড়ে সাধারণত চিকুনগুনিয়া হয়। রাজধানী বা শহরাঞ্চলে মূলত এডিস ইজিপ্টি বেশি থাকে, আর গ্রামে এডিস অ্যালবোপিকটাস। কিন্তু এখন এটির ট্রেন্ড নিম্নগামী। জুনের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে চিকুনগুনিয়া কমতে শুরু করেছে। এটি নিয়ে শুধুই আতঙ্ক ছড়ানো হচ্ছে। এটি নিয়ে আতঙ্ক ছড়ানোর কিছু নেই।

প্রশ্ন: কেন আতঙ্কিত হবে না মানুষ?

ডা. ফ্লোরা: কারণ চিকুনগুনিয়ায় মানুষের মৃত্যুর ঝুঁকি নেই। আর ডেঙ্গুতে মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে। চিকুনগুনিয়ার চেয়ে ডেঙ্গু বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।

প্রশ্ন: আমরা তো সবাই চিকুনগুনিয়া নিয়েই কথা বলছি।

ডা. ফ্লোরা: আসলে চিকুনগুনিয়া আমাদের দেশে প্রথম। আর এটিতে আক্রান্ত ব্যক্তির কষ্ট অবর্ণনীয়। একারণেই এটি নিয়ে বেশি আলোচনা। আর ডেঙ্গু আমাদের দেশের পুরো রোগ। এ সম্পর্কে সবই মোটামুটি অবহিত। এ রোগে আক্রান্ত হলে কী করতে হবে তাও অনেকেই মোটামুটি বোঝে। এজন্য এটি নিয়ে আলোচনা নেই।

প্রশ্ন: ডেঙ্গু প্রতিরোধে আলাদা কোনো প্রস্তুতি আছে?

ডা. ফ্লোরা: ডেঙ্গু প্রতিরোধে আলাদা কোনো প্রস্তুতি নেই। যেহেতু ডেঙ্গুও এডিস মশা থেকে জন্মায় তাই চিকুনগুনিয়া নিয়ে যে প্রস্তুতি আছে সেটি কনটিনিউ করলেই চলবে।

প্রশ্ন : ডেঙ্গুতে মৃত্যু ঝুঁকি কেন বেশি?

ডা. ফ্লোরা: ডেঙ্গু তো মিস ম্যানেজমেন্টের কারণে অনেক সময় রোগী মারা যায়। অনেক সময় দেখা গেল শরীর ব্যথা করছে সে ব্যথানাশক ওষুধ খাচ্ছে। এটা কিন্তু ঠিক নয়। ডেঙ্গু হলে ব্যথার ওষুধ খাওয়া যাবে না। যারা এই ভুল ওষুধ খায় তারাই বিপদে পড়ে।

প্রশ্ন : অল্প সময়ে চিকুনগুনিয়া বেশি ছড়াচ্ছে কেন?

ডা. ফ্লোরা: সারা বিশ্বেই চিকুনগুনিয়া রোগের একটি সাধারণ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি যখন হতে শুরু করে তখন এর প্রবণতা বাড়তেই থাকে। অর্থাৎ যখন হবে তখন হতেই থাকবে- এটি এই রোগের একটি ‘কমন ক্যারেক্টর’। এটিকে বৈশ্বিকভাবে বলা হয় ‘মিলিয়নস কেইস।’ আমরা এটাকে মিলিয়নস বলতে চাই না। আমরা বলি যখন হবে তখন অনেক কেইসই ঘটবে।

প্রশ্ন : এই রোগটি প্রতিরোধে ব্যবস্থা কী?

ডা. ফ্লোরা: চিকুনগুনিয়া রোগটি কিন্তু আমাদের দেশে নতুন ফেনোমেনা। এটির সঙ্গে আমরা আগে পরিচিত ছিলাম না। নতুন করে পরিচিত হচ্ছি। এটি প্রতিরোধে আমরা সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছি। আর প্রতিরোধের ফল এখনই পাওয়া যাবে না। এর ফল পেতে একটু সময় লাগবে।

প্রশ্ন : কী ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছেন?

ডা. ফ্লোরা: এই রোগ প্রতিরোধে আমাদের মেডিকেল টিম কাজ করছে। সবচেয়ে বড় যে পদক্ষেপ সেটি হচ্ছে- দেশব্যাপী সচেতনতা তৈরি করা। যত কিছুই করি না কেন আমরা যদি সচেতন না হই তাহলে এ থেকে মুক্তি মেলা ভার।
প্রশ্ন : কী ধরনের সচেতনতার কথা বলছেন?

ডা. ফ্লোরা: যেহেতু মশার কারণে রোগটি ছড়িয়ে থাকে, তাই মূল সতর্কতা হিসেবে মশার কামড় থেকে বাঁচার ব্যবস্থা করতে হবে। যেমন ঘরের বারান্দা, আঙিনা বা ছাদ পরিষ্কার রাখতে হবে, যাতে পানি পাঁচ দিনের বেশি জমে না থাকে। এসি বা ফ্রিজের নিচেও যেন পানি না থাকে, তাও নিশ্চিত করতে হবে । যেহেতু এই মশাটি দিনের বেলায় কামড়ায়, তাই দিনের বেলায় কেউ ঘুমালে অবশ্যই মশারি ব্যবহার করতে হবে। মশা মারার জন্য স্প্রে ব্যবহার করা যেতে পারে। ছোট বাচ্চাদের হাফপ্যান্টের বদলে ফুলপ্যান্ট পরাতে হবে, আর সবার খেয়াল রাখতে হবে যেন মশা ডিম পাড়ার সুযোগ না পায়। এই বিষয়টি যদি আমরা ব্যক্তিগত পর্যায় থেকে নিশ্চিত করতে পারি তাহলেই চিকুনগুনিয়া এবং ডেঙ্গু রোগ থেকে মুক্তি লাভ করতে পারি।

প্রশ্ন : ডেঙ্গু থেকেও কি এভাবে মুক্তি পাওয়া সম্ভব?

ডা. ফ্লোরা: অবশ্যই। কারণ ডেঙ্গুও এডিস মশা থেকে জন্মে। সুতরাং এই মশায় কামড়ালে চিকুনগুনিয়া এবং ডেঙ্গু উভয় রোগই হতে পারে। একারণে আমাদের কাছে এই ধরনের রোগী আসলে আমরা সেম্পল নেয়ার সময় দুই ধরনের পরীক্ষা করি। ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া উভয় পরীক্ষাই আমরা এক সঙ্গে করে ফেলি।

প্রশ্ন : আপনাদের এই ধরনের পদক্ষেপ কতদিন পর্যন্ত চলবে।

ডা. ফ্লোরা: এডিস মশা যেহেতু বৃষ্টির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত তাই আমরা সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আমাদের পদক্ষেপগুলো চালিয়ে যাবো। বর্ষা মৌসুম শেষ হয়ে গেলে আর এই ধরনের রোগের সম্ভাবনা থাকে না। কারণ বৃষ্টির মৌসুমেই এডিশ মশা জন্মায়।

প্রশ্ন : এখন পর্যন্ত চিকুনগুনিয়া রোগী সংখ্যা কত?

ডা. ফ্লোরা: আমরা এ পর্যন্ত ৫৫২ জন রোগীর চিকুনগুনিয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত হতে পেরেছি।

প্রশ্ন : এই রোগ থেকে নিস্তার পাওয়া যাবে কবে থেকে?

ডা. ফ্লোরা: এই রোগ থেকে মুক্তি নেই। একমাত্র মুক্তি মিলতে পারে এডিস মশা নিধন করা গেলে। মশা যতদিন সম্পূর্ণরূপে নিধন হবে না ততদিন চিকুনগুনিয়া থেকে মুক্তি লাভ সম্ভব নয়। মানুষ থেকে মশা ও মশা থেকে মানুষে চিকুনগুনিয়া ছড়ায়। যেখান থেকে জীবাণু ছড়ায় সেটাকে বলে সোর্স অব রিজার্ভার। বের হওয়ার পথকে বলে পোর্ট অব এক্সিট। চিকুনগুনিয়ার ক্ষেত্রে পোর্ট অব রিজার্ভার হলো আক্রান্ত মানুষ। আর পোর্ট অব এক্সিট হলো মশার কামড়। মশার কামড় থেকে বাঁচতে তাই বিশেষ সতর্কতা হিসেবে আলাদা মশারি ব্যবহার করা উচিত। এটা কনট্রোল মেজর হিসেবে কাজ করতে পারে।

প্রশ্ন : মশা নিধনই মূল কাজ আপনি বলেছেন। সিটি করপোরেশন মশা নিধনের দায়িত্বে। মশা নিধনে এই সংস্থার গাফিলতি আছে কি না?

ডা. ফ্লোরা: এখানে কাউকে দায়ী করা ঠিক হবে না। গৃহপালিত মশা হচ্ছে এডিস মশা। এই মশা নিধন ব্যক্তি, পারিবারিক ও সামাজিতকভাবে উদ্যোগ নিতে হবে। এখানে কাউকে দায়ী করে আমরা যদি নিজের কাজটি না করি তাহলে আমাকেই ভুগতে হবে। সুতরাং দোষারোপ না করে নিজ থেকেই সচেতন হওয়া জরুরি। 

প্রশ্ন : ডেঙ্গু জ্বরের সঙ্গে চিকুনগুনিয়া জ্বরের পার্থক্য কী?

ডা. ফ্লোরা: ডেঙ্গুজ্বরে শরীরে কাঁপুনি ও ঘাম দেখা দেয় এবং শরীরে রক্তক্ষরণ হয়। কিন্তু চিকুনগুনিয়া জ্বরে শরীরে কাঁপুনি বা ঘাম দেখা দেয় না এবং শরীরে রক্তক্ষরণ হয় না। ডেঙ্গুজ্বরে রক্তের অণুচক্রিকার সংখ্যা অনেক বেশি কমে যায়। কিন্তু চিকুনগুনিয়ায় রক্তের অনুচক্রিকার সংখ্যা বেশি কমে না। একই ব্যক্তির শরীরে ডেঙ্গুজ্বর চারবার পর্যন্ত হতে পারে। কিন্তু চিকুনগুয়িা একবার হলে সাধারণত আর হয় না।

প্রশ্ন : চিকুনগুনিয়া জ্বরের লক্ষণ কী?

ডা. ফ্লোরা:  জ্বর ও অস্থিসন্ধির তীব্র ব্যথা। এ দুটি উপসর্গ একসঙ্গে থাকলে চিকুনগুনিয়া হয়েছে বলে ধরে নেয়া যায়। রক্ত পরীক্ষা করার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া যায়। রোগীর আর্থিক সামর্থ্য না থাকলে রক্ত পরীক্ষার প্রয়োজন নেই। কারণ এতে চিকিৎসার ক্ষেত্রে বিশেষ কোনো তারতম্য হয় না।

প্রশ্ন : এই রোগের চিকিৎসা কী?

ডা. ফ্লোরা: চিকুনগুনিয়ার সুনির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা নেই। চিকিৎসা মূলত রোগের উপসর্গগুলো নিরাময় করা। রোগীকে বিশ্রামে রাখতে হবে। জ্বর ও অস্থিসন্ধির ব্যথা কমানোর জন্য চিকিৎসকের পরামর্শমতো জ্বর উপশমকারী ও ব্যথানাশক ওষুধ ব্যবহার করতে হবে। পানি দিয়ে রোগীর শরীর মুছে দিতে হবে। রোগীর পর্যাপ্ত পানি ও অন্যান্য তরল খাবার খেতে দিতে হবে।

‘আপাতত বিয়ে নিয়ে চিন্তা নেই’

MIMIবিনােদন ডেস্ক : আফসানা মিমি। শোবিজ জগতের জনপ্রিয় মুখ। অভিনয়ের পাশাপাশি মডেলিং, উপস্থাপনা ও পরিচালনায়ও সমান ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন একসময়। নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ‌টিভি ধারাবাহিক ‘কোথাও কেউ নেই’ দিয়ে প্রথম আলোচনায় আসেন তিনি। আর নব্বইয়ের দশকে বেইলি রোডের মহিলা সমিতি মঞ্চে অভিনয়ে অভিষেক হয় মিমির। এরপর দুই দশকের বেশি সময় ধরে তিনি মুগ্ধ করে রাখেন টিভি দর্শকদের। নাটকে অভিনয়ের পাশাপাশি বেশ কিছু চলচ্চিত্রেও কাজ করেছেন তিনি। বর্তমানে অভিনয়ে অনিয়মিত মিমি সমাজ উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কাজে জড়িত। ভিন্নভাবে কাজ করছেন সাংস্কৃতিক উন্নয়নে। এরই ফাঁকে সবকিছু মিলে গেলে অভিনয় কিংবা উপস্থাপনায় হাজির হন। সম্প্রতি কথা হয় এই গুণি মানুষটির সঙ্গে।

শেষ কী কাজ করলেন?

১৫ থেকে ১৭ মে চয়নিকা চৌধুরীর একটি নাটকের শুটিং করেছি। কালিয়াকৈর, রাঙ্গামাটি রিসোর্টে ছিল শুটিং। সেখানে পাভেল-বন্যা মির্জা, ইমন-প্রভা, নাঈম-সোনিয়া ও শহীদুজ্জামান সেলিম ছিলেন।

নাটকের গল্পটা শুনতে চাইছি।

গল্পটা কয়েকজন দম্পতির জীবনের টানাপোড়েন ও ভালোবাসার গল্প। তারা সবাই একটি রিসোর্টে বেড়াতে যায়। একটি দম্পতি অন্য দম্পতির সম্পর্কগুলো প্রত্যক্ষ করে। তারা একেক রকম ভাবলেও আসলে সবার সম্পর্কটা থাকে অন্যরকম। এমনই একটি গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে নাটকটি। কাজ করে অনেক ভালো লেগেছে। সেলিম ভাই, বন্যা, পাভেল, চয়নিকা সবাই মিলে অনেক আড্ডা হয়, কথা হয়।

অনেক দিন পর নাটকে অভিনয় করলেন।

হ্যাঁ, প্রায় ছয় মাস পর।

এখন আপনাকে নাটকে কম দেখা যায় কেন?

প্রাতিষ্ঠানিক কাজের জন্য অভিনয় থেকে সরে গেছি। আফজাল ভাইয়ের অনুরোধে গত বছর ঈদের একটি নাটকে কাজ করেছিলাম লম্বা বিরতির পর। তখন চয়নিকারও একটি কাজ করেছিলাম।

তাছাড়া এখন ওজনও অনেক বেড়ে গেছে, তাই কাজ করতে চাইনি। কাজ করা ঠিকে হবে কি না এ রকম ভাবছিলাম। আফজাল ভাই বলেছিল আমার বয়স ও সময়ের সঙ্গে মিল রেখেই গল্পটি। আমার মনের মতো হলেই কাজটি করতে। তারপর কাজ করি। কাজটি করতে পেরে ভালো লেগেছিল।

প্রায় ১৫ বছরের একটি বড় গ্যাপ নিলেন? মাঝে কী কাজ করেছিলেন?

আমি তো মূলত একজন অভিনেত্রী। অভিনয় সব সময়ই করতে পারব। তাই অন্যকিছু নিয়ে ভাবছিলাম। এর মাঝে আমি ‘বন্ধন’, ‘গৃহগল্প’, ‘সাড়ে তিনতলা’, ‘ডলস হাউজ’, ‘পৌষ ফাগুনের পালা’, ‘সাতটি তারার তিমির’-এর মতো মেগা ধারাবাহিক তৈরি করেছি। আর শমী কিন্তু অনেক বছরই বিজ্ঞাপনের সঙ্গে যুক্ত। আফজাল ভাইও বিজ্ঞাপনের কাজ করেন।

কেমন লাগছে ক্যামেরার পেছনে কাজ করতে?

আমি ক্যামেরার পেছনের কাজই বেশি এনজয় করছি। একজন অভিনেতা সারা জীবনই অভিনয় করতে পারেন। তাই মাঝে ব্রেক দিয়ে ভিন্ন কিছু করার চেষ্টা করেছি।

নাটক তৈরির পাশাপাশি আর কী করেছেন?

এর মাঝে বাংলাদেশ ফিল্ম ও টেলিভিশন নামের একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছি। যেখান থেকে আমরা ছোট দুটি কোর্স শেষ করলাম। একটি অভিনয়ের ওপর কোর্স ছিল তিন মাসের। অন্যটি এডিটিংয়ের- ছয় মাসের কোর্স। এখন পুরো বিষয়টিই চলমান। গবেষণা চলছে। এক বছরের একটি ডিপ্লোমা কোর্স করার ইচ্ছা আছে ফিল্ম মেকিংয়ের ওপর।

কেমন সাড়া পেয়েছিলেন?

আমরা যেমন চেয়েছিলাম, আশানুরূপ সাড়া পেয়েছি। আমরা তেমন জোরেশোরে শুরু করিনি। এখনো বিষয়গুলো গবেষণা করছি। কারণ টেকনোলজিও অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে।

বাচ্চাদের নিয়ে একটি স্কুল করেছিলেন জানতাম?

হ্যাঁ। আর একটি স্কুল আমরা করতে পেরেছি ‘ইচ্ছেতলা’ নামে। সেখানে ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সী ছেলেমেয়েদের সাংস্কৃতিক চর্চার মধ্য দিয়ে তৈরি করি আমরা।

কী রকম কর্মকাণ্ড হয় সেখানে?

সাধারণত বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে ছাত্রছাত্রীরা নাচ-গান-আবৃত্তি শেখে। কিন্তু আমাদের এখানকার শিক্ষাটা একটু মজার। শুক্র ও শনিবার তিন ঘণ্টা করে মোট ছয় ঘণ্টা বাচ্চাদের আমাদের এখানে রাখি। সেখানে তাদের ৫টি বিষয়ে শিক্ষা দিই। নাচ, গান, ছবি আঁকা, চারু ও কারু শিক্ষা, কনটেম্পোরারি ড্যান্স ও মার্শাল আর্ট। বাংলা উচ্চারণ-আবৃত্তি-বাংলা গল্প কবিতা ও অভিনয়। এই পাঁচটি শিক্ষা বিষয়ে আমরা প্রত্যেকের ওপর নজর দিয়ে থাকি।

অন্যান্য স্কুল থেকে এটা কী রকম আলাদা?

এখানে কোনো পরীক্ষা হয় না। বা কোনো কম্পিটিশন নেই। সব বাচ্চা সবকিছুতে অংশগ্রহণ করবে। একসময় যার গান ভালো লাগবে, তাকে গান শেখানো হবে। বা কারো ছবি আঁকা ভালো লাগবে, তাকে ছবি আঁকাটাই শেখানো হবে। এই ধরনের কনসেপ্ট নিয়ে আমরা কাজ করছি। ভবিষ্যতে এই কনসেপ্টটি সারা দেশেই ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হবে। স্কুলটি করে অনেক ভালো সাড়া পেয়েছি। এটাকে এখন সামনের দিকে নিয়ে যেতে হবে।

আপনাদের আর কী কার্যক্রম রয়েছে?

এই স্কুল থেকে ক্রিসমাস ট্রি তৈরি করে চকোলেট দিয়ে বড়দিন উদযাপন করি। বৌদ্ধপূর্ণিমায় ফানুস তৈরি করে উড়াচ্ছি। লাইব্রেরি তৈরির চেষ্টা করছি। প্রজেকশনে ছবি দেখি। ২১শে ফেব্রুয়ারিতে ছোট্ট করে শহীদ মিনার তৈরি করে সাজালাম। পহেলা বৈশাখে উত্তরায় ছোট করে শোভাযাত্রা করেছি এবার। মোট কথা একটি সাংস্কৃতিক বাংলা তৈরি করার চেষ্টা করছি। এবার ইচ্ছেতলার চিলড্রেন থিয়েটারের আয়োজন করছি। মিউজিক থিয়েটার শো করব। সেপ্টে্ম্বরে শিল্পকলায় শো করার ইচ্ছা আছে।

তাহলে কি আর আপনাকে টিভিতে দেখা যাবে না?

খুব নিয়মিত অভিনয় করতে পারব না। ফিটনেস ঠিক করতে হবে। পরিচিত পুরনো সহকর্মী বন্ধুরা থাকলে কাজ করে মজা পাই। ভালো কন্টেন্ট পেলে, গল্প চিত্রনাট্য ভালো লাগলে অবশ্যই কাজ করব। নতুনদের সঙ্গেও কাজ করতে আমি ভীষণ আগ্রহী। মাসে দুই মাসে একটা কাজ তো করাই যায়। তবে প্রফেশনালি নেয়া সম্ভব হবে না।

আপনি তো অনেকেরই প্রথম নাটকে কাজ করেছেন।

আমি গাজী রাকায়েতের প্রথম নাটকে কাজ করেছি। এ ছাড়া গিয়াস উদ্দিন সেলিম, বিপাশা, অমিতাভ রেজারও প্রথম প্রোডাকশনে কাজ করেছি আমি।

তারা লাকি, না আপনি?

(হেসে)তারা সবাই অনেক লাকি।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানতে চাইছি।

নতুন সিরিয়ালের পরিকল্পনা করছি। বলার মতো অবস্থা এখনো হয়নি। এ ছাড়া আমি এটিএন নিউজে ভিন্নধর্মী কাজ করেছি। রান্নার অনুষ্ঠান নস্টালজিয়া তৈরি করেছিলাম। মুন্নী সাহা আমার বন্ধু। তার অনুরোধেই কাজটি করেছিলাম। সেটি ছিল ভিন্ন রকম একটি অনুষ্ঠান।

কী রকম?

মুন্নী আর আমি ইডেন কলেজের একই ডরমেটরিতে থাকতাম। আমরা খুব আগের বন্ধু। একদিন মুন্নী বলল, ‘দেখ আমাদের সংস্কৃতির সবচেয়ে বড় সম্পদ হচ্ছে আতিথেয়তা। সাধারণত একটি গ্রামে নিউজের জন্য গেলে তারা গ্লাসটি ধুয়ে পানি খাওয়ায়। অথচ খুবই সাধারণ খড়ের চালাঘরে হয়তো তারা থাকে। একটু নাস্তা খাওয়ানোর চেষ্টা করে। শেষে চলে আসার সময় বলে, কিছুই তো খাওয়াতে পারলাম না।’ আবহমান বাঙালির সংস্কৃতির মূল সুর তাই বলব আতিথেয়তা। গ্রামবাংলার রান্নার যে সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এসব নিয়েই একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলাম। গ্রামের একটি উঠোনে এই ভিন্নধর্মী অনুষ্ঠানটি তৈরি হতো। সেখানে দুই বোন শর্মিলী আহমেদ ও ওয়াহিদা মল্লিক জলি দুই বোনকে নিয়ে এসেছিলাম।

আর কি প্রোগ্রাম করার ইচ্ছা আছে?

ভিন্নধর্মী রান্না ও সাহিত্য নিয়ে আমার অনুষ্ঠান করতে ইচ্ছে করে। আমি ছোটবেলা থেকেই সাহিত্য অনুরাগী। বইয়ের প্রতি ভালোবাসাই আমাকে শিল্প-সংস্কৃতির চর্চার দিকে নিয়ে এসেছে। সারা জীবন শিল্প-সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করে যাব। এর উত্তরণ করে যাওয়ার চেষ্টা করব।

বর্তমান মিডিয়া নিয়ে আপনার প্রজন্মের শিল্পীদের কষ্ট আছে বলে জানি।

কষ্টের পাশাপাশি একপশলা ভালো লাগাও মাঝে মাঝে পাই। জয়া আহসান যখন দেশ ছাড়িয়ে আক্ষরিক অর্থেই বাইরের দেশে ভালো কাজ করেন, তখন খুব ভালো লাগে। তখন আমি গর্ববোধ করি।

কিন্তু সামগ্রিকভাবে আমরা যা করছি, অনেক পিছিয়ে পড়ছি। বাংলাদেশের থিয়েটার, সিনেমা, নাটক এখন কোন পর্যায়ে রয়েছে। স্বাধীনতার পর ধীরে ধীরে সংস্কৃতির ধারার যে ক্রমবিকাশ হচ্ছিল, তা এখন ক্রমশ পিছিয়ে যাচ্ছে। সব দেশেরই কৃষ্টি-কালচার ধীরে ধীরে উন্নত হয়, কিন্তু আমাদেরটা ক্রমশ পিছিয়ে গেলে। সত্যি দুঃখজনক।

মাঝে মাঝে নিজেকে প্রশ্ন করি, এই পিছিয়ে যাওয়া কেন? কারা পেছাল বাংলার এই সংস্কৃতিকে? তারা কে, কী তাদের পরিচয়? যারা এসব দখল করে রয়েছে, এই অসুন্দরের পেছনে কাজ করছে, তারাই বা কে?

আপনারা সরে যাচ্ছেন বলেই এরা জায়গা দখল করছে।

না, অসুন্দরের পূজারিদের বেশি জায়গা দেয়া হচ্ছে বলেই আমরা সরে যাচ্ছি। যারা দেশের সংস্কৃতিকে সুস্থ-সুন্দর করতে চাচ্ছি তারা সরে যাচ্ছি। আমাদের রুচি-মূল্যবোধ জলাঞ্জলি দিয়ে সাংস্কৃতিক চর্চা করতে পারব না। এই দুটোকে বাদ দিয়ে যে সংস্কৃতি তা অ-সংস্কৃতি, তা অপসংস্কৃতি। এটা কোনো সংস্কৃতি হতে পারে না।

এবার একান্ত ব্যক্তিগত একটা প্রশ্ন। বিয়ে নিয়ে কী ভাবছেন? বিয়ে করবেন না?

(হেসে) আপাতত এইগুলো নিয়ে কোনো চিন্তাভাবনা নাই।

আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের কথা জানা যায় না।

প্রয়োজন পড়ে না, তাই নেই। ফেসবুক অনেক টাইম কিল করে। কখনো অফিসিয়াল কাজের জন্য প্রয়োজন হলে করব।

ওয়ান ইলেভেন সরকারকে সাহায্য না করলে সামরিক শাসন জারি হতাে: মইনুল

MANUL.1-1ডেস্ক রিপাের্ট : তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন বলেছেন, ওয়ান ইলেভেন সরকারকে সহায়তা না করলে দেশে সামরিক শাসন জারি হতাে। তারা আমাকে ৪৮ ঘন্টা সময় বেঁধে দিয়েছিল। আমি নিজেও সারাজীবন গণতন্ত্রের জন্যে সংগ্রাম করেছি। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় সেনাবাহিনী যখন সাহায্য চাইল তখন তাদের সহায়তা করেছি। 

বুধবার রাতে বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তিনি আরো বলেন, সেনাবাহিনী রাজনীতিতে এধরনের সরাসরি হস্তক্ষেপ করার পর এবং  সরকারে উপদেষ্টা হবার ব্যাপারে পিছনের কোনো ঘটনা নাই। তখন সামরিক বাহিনী আমার কাছে লোক পাঠিয়েছে এবং তারা আমাকে বললো যে, বাংলাদেশের এই অবস্থায় আমাদের কিছু একটা করা দরকার। আমি নিজেও দেখছিলাম যে সরকারবিহীন একটা রাষ্ট্র চলছে। দেশে রক্তপাত শুরু হয়ে গেছে। তখন আমি তাদেরকে বললাম, আমারতো যোগ্যতা নাই। তবে আমি আপনাদের সাহায্য করতে চাই কিন্তু আমার রাষ্ট্র পরিচালনা করার কোনো যোগ্যতা নাই। আমি পারব না, আপনারা আমাকে মাফ করবেন।
ব্যারিষ্টার মইনুল হোসেন বলেন, তখন তারা আমাকে ৪৮ ঘন্টা সময় দিল। চিন্তা করে দেখলাম যে, সরাসরি সামরিক হস্তক্ষেপ হতে যাচ্ছে। যেটা আমি পছন্দ করিনি। তখন আমি নিজে নিজে চিন্তা করলাম, আমি নিজে গণতন্ত্রের জন্য সারাজীবন সংগ্রাম করেছি। আর এখন তারা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য সাহায্য চাচ্ছে, সেটা আমি কেনো করবো না।
বিবিসি বাংলার পক্ষ থেকে ব্যারিষ্টার হোসেনের কাছে জানতে চাওয়া হয়, বাংলাদেশে স্বাধীনতার পরে প্রথম সংসদ নির্বাচনে আপনি এমপি হয়েছিলেন। আইন পেশার বাহিরে তখন রাজনীতিতে আসা এবং এমপি হওয়া সেটা কিভাবে হয়েছিল? বিবিসি বাংলার এমন প্রশ্নের জবাবে ব্যরিষ্টার মইনুল হোসেন বলেন, আমি রাজনীতিতে নেতৃত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছি। কিন্তু সেটা সোহরাওয়ার্দী সাহেবকে সামনে রেখে। কিন্তু সোহরাওয়ার্দী সাহের মৃত্যুর পরে রাজনীতি থেকে আমার আকর্ষণ হারিয়ে ফেলেছি। কিন্তু বঙ্গবন্ধু নিজে ৭০ সালে নির্বাচনের সময় একবারে আমার বাসায় আসেন এবং আমাকে বলনে, ‘তোকে নির্বাচন করতে হবে’।
তিনি বলেন, তখন যেহেতু আমি দৈনিক ইত্তেফাকের সম্পাদক ছিলাম এবং আমার আব্বা যেহেতু সম্পাদক হিসেবে রাজনীতি করতেন না তাই আমি বঙ্গবন্ধুকে বললাম যে, কাকা আমি তো এই অবস্থায় পারছিনা। ফলে ৭৩ সালে তিনি আবার বললেন যে তুমি হও। তখন আমি রাজি হয়ে যাই।
বঙ্গবন্ধুর সাথে আপনার যে সম্পর্ক সেটাকি আপনার ব্যক্তিগত জায়গা থেকে হয়েছে নাকি আপনার বাবার জন্য হয়েছে? এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নিশ্চয়ই আমার বাবার জন্য হয়েছে।
ব্যারিষ্টার মইনুল হোসেন বলেন, আমি ছোটবেলা থেকে তাকে দেখেছি। সত্যিকথা বলতে বঙ্গবন্ধুকে আমার আব্বা কাছের ছোট ভাইয়ের মত জানতেন। সেই হিসেবে আমরাও তাকে অনেক সম্মান করতাম, ছোটবেলা থেকেই। অতএব আমাকে যে, তিনি রাজনীতিতে এনেছেন, এটা নিশ্চয়ই মানিক ভাইয়ের ছেলে হিসেবে এনেছেন।
আপনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পরে যখন বাংলাদেশের সংসদে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা গঠন করা হয় অর্থাৎ যখন বাকশাল গঠন করা হয় তখন আপনি পদত্যাগ করলেন। আপনি আপনার নেতার প্রতি আস্থা রাখতে পারলেন না কেন, এর কারণ কি ? এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেখেন একটা হলো বঙ্গন্ধুর প্রতি আস্থা রাখা আরেকটা হলো রাজনীতি। জীবনে আমার এটা একটা বড় সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে।
তিনি বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুকে অনেক শ্রদ্ধা করতাম এবং আমার পদত্যাগ করার বিষয়টা আমার কাছে অনেক কঠিন হয়েছে এবং সত্যি কথা বলতে কি আমি একা একা রাস্তায় হেঁটেছি, এই বিষয়টা নিয়ে চিন্তা করেছি। কারণ বঙ্গবন্ধু বিব্রত হবেন বলে। কিন্তু আমি সারাজীবন গণতন্ত্রের কথা জেনে ও বলে এসেছি। জেনে এসেছি গণতান্ত্রিক শাসন। এই জন্য আমি আর পারছিলাম না। সেটা আমার কোন বীরত্ব ছিলনা।
তিনি বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুকে একটা চিঠি লিখেছিলাম। তিনি ওই চিঠি পড়ে আমার প্রতি কোনো রাগ হতে পারলেন না। আমার সাথে তার আগে যে সম্পর্ক ছিল পদত্যাগের পরেও সেটি বহাল ছিল। কারণ তিনি আমাকে ছেলের মত দেখতেন। তাছাড়াও আমার মনে হয় তিনি আব্বার দিকে তাকিয়েই আমার প্রতি রাগ করতে পারলেন না। তার মৃত্যুটা এই জন্যই কষ্টদায়ক।
বাংলাদেশের মানুষের কাছে আপনার একটা বড় পরিচিতি হয়েছে ২০০৭-২০০৮ সালে যখন সেনা সমর্থিত তত্তাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়।
এ প্রসঙ্গে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন বলেন, তারা আমাকে বলেছিল যে, আমরা একেবারে থাকার জন্য আসিনি। আমরা একটা নির্বাচন দিয়ে চলে যাবো। তবে আপনারা যদি না আসেন তাহলে বিষয়টা বিপরীতও হতে পারে। তখন আমি ভাবলাম যে, এই সরকারকে যদি আমি সহযোগিতা না করি আর যদি আমাদের দেশে মার্শালাই আসে তাহলে আমার জীবনের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য যে চেষ্টা ছিল সেটা আবার ব্যর্থ হয়ে যাবে। সেই হিসেবে আমি তাদের সহযোগিতা করার জন্য যাই।
কিন্তু একটা ধারণা আছে অনেকের মনে যে, বাংলাদেশে তখন রাজনীতিতে কেয়ারটেকার সরকার যে বিষয়টি করতে চেয়েছিল যে, রাজনীতিবিদদের ব্যাপক ধরপাকর, দুই নেত্রীকেও গ্রেফতার। সব মিলিয়ে তখনকার রাজনীতি আরও গভীরে সংকটের দিকে চলে যাচ্ছিল এবং অনেকে বলছিলো যে, আপনার যে পদত্যাগ সেটা তখন একটা অংশগ্রহণমুলক নির্বাচনের পথ তৈরি করার জন্য হচ্ছিল। আপনি থাকা অবস্থায় সেটি সম্ভব হচ্ছিল না। কারণ সেনাবাহিনীকে এমন পরামর্শ দিচ্ছিলেন। যেটার কারণে তারা হয়তো অন্যদিকে বের হতে পারছিলেন না। এই ব্যপারে আপনার বক্তব্য কি? জবাবে তিনি বলেন, এটা অতন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন, এটা আমাকে বলতেই হবে।
তিনি বলেন, আমি গণতন্ত্র চাই তার অর্থ এই না যে, শুধু সিভিলিয়ানদের সহযোগিতায়ই গণতন্ত্র হতে পারে। আমরা কিন্তু রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে আসিনি। আমরা আসছি গণতন্ত্রের জন্য। তখন তাদের কথা হলো। ঠিক আছে আপনারা সেই দিক দেখবেন। কিন্তু দেশের যে দুর্নীতি চলছে এটার বিরুদ্ধে আমাদের একটা পদক্ষেপ নিতে হবে। এবং সত্যি কথা বলতে কি, তখন কিন্তু সংবাদপত্রেও সেটা লেখা হয়েছে।
তিনি বলেন, তবে আমি মনে করি এবং একটা বিষয় আমি আপনাকে বলছি এবং এটা আপনি ভেরিফাই করে দেখবেন। যে দুই নেত্রীর বিরুদ্ধে যে সমস্ত মামলা করা হয়েছে সেই মামলার কাগজপত্র কিন্তু আগে থেকেই তৈরি ছিল ৯৯ শতাংশ। অতএব এই দিকটা ঠিকনা যে আমরা বিরাজনীতিকরণ করেছি।
তিনি বলেন, তখনকার যুবক অফিসারদের একটা কথা ছিল যে, আমরাতো বেশি দিন থাকবো না। কিন্তু যাওয়ার আগে একটা শিক্ষা দেওয়া উচিত। সেই হিসেবে আমি মনে করি তাদের এই চিন্তাটা এইসকল কাজ করার জন্য প্রভাবিত করেছে। যেটা আমি অস্বীকার করবনা।
কিন্তু কোন প্রেক্ষাপটে বা কেন আপনাকে শেষ পর্যন্ত সেই সরকার থেকে সরে যেতে হলো? জবাবে তিনি বলেন, আমার ওপরে পদত্যাগ করতে কোন চাপ সৃষ্টি হয়নি বরং আমিই তাদের ওপরে চাপ সৃষ্টি করেছি। যে এক বছর হয়ে গেছে। এখন আমাদের গণতন্ত্রের দিকে যাওয়ার পথ পরিষ্কার করা দরকার।
তিনি বলেন, তখন হয়তো বা তাদের মধ্যে এমন একটা ধারণা হতেও পারে যে, ব্যারিষ্টার থাকলে আমরা যেটা চাচ্ছি সেটা হয়ত হবে না। এটাও হতে পারে কিন্তু পদত্যাগের বিষয়ে তাদের ওপরে চাপ কিন্তু আমারই ছিল।
কিন্তু অনেকের ধারণা যে, রাজনীতিবিদদের সাথে কথা বলে একটা নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাওয়ায় আপনি একটা বাধা হয়ে ছিলেন? জবাবে তিনি বলেন, হ্যা আমি তো বললাম যে, হয়তো তাদের একটা ধারণা হতে পারে যেহেতু আমি তখনো রাজনীতি কি  সে নিয়ে কথা বলতাম, রাজনীতি কি রকমের হওয়া দরকার সেটাও বলতাম। তখন তারা মনে করছেন যে দুর্নীতির মামলা হচ্ছে এর পেছনে ব্যারিষ্টারের হাত আছে। সেটাই ছিল অসুবিধা।
আপনার কি কখনো মনে হয় যে ঐ কাজটা আমার ভুল হয়েছ? জবাবে তিন বলেন, না আমিতো এমন কোন বড় দায়িত্বে ছিলাম না। আমি একটা চিন্তা ভাবনা নিয়ে লিখেছি, বলার চেষ্টা করেছি। আমার বিবেক যেটা বলেছে সেটাই আমি বলার চেষ্টা করেছি। সেটা আমি বঙ্গবন্ধুকেও বলেছি।
তিনি বলেন, জানি না এটাকে ব্যর্থতা বলা যাবে কিনা। বঙ্গবন্ধুর সাথে আমার বা আমাদের যে সম্পর্ক ছিল। তখন তার সাথে শেষ যে কথা হয় তখন তিনি এই বাকশাল নিয়ে কথা বলেছিলেন। তিনি আমাকে তখন বলেছিলেন যে, তোরা আমার সাথে ঝগড়া কর। আমি কত মানিক ভাইয়ের সাথে ঝগড়া করেছি। বলতে বলতে তার চোখেও পানি আসলো, আমার চোখেও পানি আসলো। এখন আমার মনে হয় যে, আমার উচিত ছিল যে তাকে জড়িয়ে ধরে বলা যে, কাকা আপনি এটা কইরেন না। কিন্তু এটা আমি করি নাই। এটাই হয়তোবা আমার একটা ব্যর্থতা হতে পারে। তখন আমার বলা উচিত ছিল যে, কাকা আপনি ‘এতে যাইয়েন না’।

`বাংলাদেশের মানুষ কোয়ালিটি বোঝে’

QUALITIঅল্প সময়ে দেশের ফ্যাশনপ্রেমী মানুষের মন জয় করে নিয়েছে গ্রামীণ ইউনিক্লো। এর পেছনে যে মানুষটি রয়েছেন তিনি নাজমুল হক। জাপানে ছিলেন ১৫ বছর। সেখানে একটি প্রতিষ্ঠানে বিজনেস কনসালটেন্ট হিসেবে ১০ বছর কাজ করেন। ফ্যাশন হাউস গ্রামীণ ইউনিক্লোকে এগিয়ে নিতে দেশে ফিরে এর সঙ্গে যুক্ত হন। নাজমুল হকের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মাহমুদ উল্লাহ।

গ্রামীণ ইউনিক্লো নামটি কেন? এর সম্পর্কে কিছু বলুন।

জাপানের সবচেয়ে বড় অ্যাপারেল রিটেলার প্রতিষ্ঠানের নাম ফাস্ট রিটেলিং কোম্পানি লিমিটেড। সারা পৃথিবীতে এদের সাতটি গ্লোবাল ব্র্যান্ড রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় ব্র্যান্ডের নাম হচ্ছে ইউনিক্লো। পৃথিবীর মধ্যে গার্মেন্ট বিজনেসে এর অবস্থান তিনে। তাদের টার্গেট হচ্ছে পৃথিবীর এক নম্বর ব্র্যান্ড হওয়া। আর ইউনিক্লোর বাংলাদেশে অবস্থিত লাইফস্টাইল ব্র্যান্ডের নামই হচ্ছে গ্রামীণ ইউনিক্লো।

বাংলাদেশকেই ইউনিক্লো কেন বেছে নিয়েছে?

বিশ্বের বিভিন্ন মহাদেশে ইউনিক্লোর ব্র্যান্ড রয়েছে। আমরা নতুন নতুন দেশে ঢুকছি ও আমাদের ব্যবসা প্রসারিত করছি। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশে এসেছি। তবে এখানে পুরোপুরি ব্যবসা করতে আসিনি। ব্যবসার পাশাপাশি মানুষের জন্য ভালো কিছু কাজ করাও আমাদের দায়িত্ব। এরই অংশ হিসেবে কর্পোরেট গ্লোবাল রেসপনসিবিলিটির অংশ হিসেবে ২০১০ সালে ইউনিক্লো সোশ্যাল বিজনেসের জন্য বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করে। এটি অ্যাপারেল রেডিমেট গার্মেন্ট বিজনেস।

এদেশে শুরুটা হয় কিভাবে?

গ্রামীণ হেলথ কেয়ার ট্রাস্ট গ্রামীণ ব্যাংকের একটি শাখা প্রতিষ্ঠান। এরা বাংলাদেশের বিভিন্ন সমস্যা দূর করার জন্য কাজ করছে। তাদের কনসেপ্টটি আমরা নেই। আমাদের গ্রুপের চেয়ারম্যান তাদাশি ইয়ানাই, তিনি গ্রামীণ হেলথ কেয়ারের কনসেপ্টটি পছন্দ করে তাদের সঙ্গে যুক্ত হন। তাদের সমাজ উন্নয়ন কনসেপ্ট নিয়ে গ্রামীণ ইউনিক্লো বাংলাদেশে কাজ শুরু করে। প্রথমে ২০১০ সালে এসে বিভিন্ন রিসার্চ শুরু করি। কিভাবে বাংলাদেশের দারিদ্র্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্য উন্নয়নে কাজ করা যায়, এরপর বিভিন্নভাবে কাজ করতে থাকি।

আচ্ছা, প্রথম দিকের গল্পগুলো বলেন।

২০১১ সালে ব্র্যান্ড কোম্পানি তৈরি করে গ্রামে গ্রামে নারীদের এসাইন করে ১ ডলারে টিশার্ট, নরমাল শার্ট, মেয়েদের টপস টাইপের কিছু প্রোডাক্ট তৈরি করে সেল করি। এভাবেই আমাদের পথচলা শুরু।

এরপর?

আমরা দেখি যে, এভাবে সোশ্যাল ওয়ার্ক হচ্ছে। কিন্তু সোশ্যাল ওয়ার্কটি বিজনেস আকারে দাঁড়াচ্ছে না। তাহলে এটা সাসটেইন করবে না। তাছাড়া এভাবে  প্রোডাক্টের মানও বাড়ছে না। তখন ২/৪ ডলারে প্রোডাক্ট তৈরি করে গ্রামে গ্রামে দিই। মিরপুরসহ ঢাকার বিভিন্ন স্থানে হায়েস গাড়ি দিয়ে প্রোডাক্ট পৌঁছে দিয়ে আসি। রাস্তায়ও কিছু প্রোডাক্ট ভ্রাম্যমাণ হিসেবে বিক্রি করি।

বাংলাদেশে প্রথম শোরুম চালু হয় কবে?

আমরা পরে বুঝতে পারি আরও ভালো প্রোডাক্টের প্রয়োজন রয়েছে আমাদের। বিজনেসটির সঙ্গে আরও বেশি মানুষের সংযোগ স্থাপনও প্রয়োজন হয়ে পড়ছিল। কিভাবে আরও বেশি মানুষের কাছে ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে পৌঁছে দেওয়া যায় সেই চিন্তা থেকেই আমরা ঢাকায় প্রথম শোরুম চালু করি। ২০১৩ সালের জুলাইতে নিউ এলিফ্যান্ট রোডে এটি দেওয়া হয়। এখন এর ১২টি শোরুম রয়েছে। কোয়ালিটি ম্যাটারিয়াল ও অ্যাফোর্ডেবল প্রাইজে রাখার চেষ্টা করি সবসময়।

এত অল্প সময়ে আপনাদের চাহিদা বৃদ্ধি পেলো কিভাবে?

প্রথম থেকেই ব্যবসা নয়, আমরা সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি। আমরা যেহেতু একটি গ্লোবাল ব্র্যান্ড, তাই আমাদের কোম্পানির যে জাপানিজ  প্রযুক্তি রয়েছে তা ব্যবহার করে আরো উন্নত প্রোডাক্ট তৈরি করি। এটা আমাদের মানুষের আস্থা তৈরিতে সাহায্য করেছে। বেশি মানুষের কাছে নিয়ে আসার জন্য আমরা এখনো কাজ করে যাচ্ছি। কম্পেলেইন অ্যান্ড ক্লায়েন্ট ইস্যুগুলোতে আমরা নজর দিই। আরও ভালো ও আরামদায়ক পণ্য সবার হাতের নাগালে পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। মানুষ কি ধরনের প্রোডাক্ট চাচ্ছে সেগুলো বিবেচনা করি। আমাদের অ্যাক্সসেপ্টেন্স এসব কারণে বাড়ছে। আমাদের যাত্রা এখনো অব্যাহত রয়েছে।

আপনাদের প্রোডাক্ট সম্পর্কে কিছু বলুন?

আমাদের সফ্ট অ্যান্ড স্ট্রেচের কিছু  প্রোডাক্ট রয়েছে। ট্রানট্রপ, বক্সার, পালাজো, লেগিংস, ইজি কেয়ার শার্ট যেগুলো আয়রন করা লাগে না। এ রকম কিছু প্রোডাকশন করছি আমরা। এছাড়া ড্রাই পোলো শার্ট রয়েছে আমাদের। বিভিন্ন নতুন নতুন মানসম্পন্ন প্রোডাক্ট বাংলাদেশের মানুষকে  প্রতিনিয়ত পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছি। আমাদের যে ডেনিম রয়েছে তা স্ট্রেচ। মূলত কাস্টমারদের আরামদায়ক পোশাক দেওয়া যায় কি না সেদিকে ফোকাস বেশি করার চেষ্টা করি আমরা। সব মিলিয়ে এগুলোই আমাদের এতদূর আসতে সাহায্য করেছে। 

আপনাদের এই ব্যবসার এজেন্ডাগুলো কীকী?

আমাদের মিশনগুলো হলো (১) বাংলাদেশের মানুষকে খুশি করার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক প্রযুক্তি, নলেজ এবং আইডিয়া ব্যবহার করে আন্তর্জাতিক পণ্য দেশে তৈরি করে বিক্রি করে সুখী ও সন্তুষ্ট করা।

(ক) উচ্চ মানসম্পন্ন আরামদায়ক হাতের নাগালের মূল্যে সবার কাছে পৌঁছে দেওয়া।

(২) সামাজিক সমস্যাকে ব্যবসার মাধ্যমে সমাধান করা।

(ক) গ্লোবাল স্ট্যান্ডার্ডের বিজনেস লিডার  ও বিজনেস পারসন তৈরি করা দেশ-বিদেশে গ্লোবাল ট্রেনিং দিয়ে।

(খ) এ রকম একটি কাজের পরিবেশ তৈরি করা যেখানে এডুকেশন ব্যাকগ্রাউন্ড বা বয়স বা জেন্ডারের কোনো ব্যবধান থাকবে না। সবাইকে সমানভাবে দেখা ও সুযোগ দেওয়া হবে।

(গ) আমরা যাদের সঙ্গে পার্টনারশিপ হিসেবে কাজ করছি, সেসব পার্টনার মানসম্পন্ন কি না তা ইনশিওর করি।

তারা তাদের কর্মীদের সঠিক বেতন-ভাতা দিচ্ছে কি না তাও ইনশিওর করি। সবখানে ওভারটাইম, কাজের পরিবেশ, সুন্দর জীবন  প্রদান হলে সেই ব্যবসায়ীদেরই পার্টনার হিসেবে নিই। আর সে রকম না হলে তাদের এসব কাজে উদ্বুদ্ধ করি।

(৩) আমাদের যে মুনাফা আসবে তা আবার সোশ্যাল বিজনেসই পুনঃবিনিয়োগ করা। বিজনেস বাড়িয়ে বাংলাদেশের মানুষের যে সমস্যা রয়েছে তার সমাধান করা।  

পোশাককর্মীদের জীবনমানের উন্নয়নে আপনারা কিছু করছেন?

আমাদের যেসব পার্টনার ফ্যাক্টরিগুলো রয়েছে তারা তাদের কর্মীদের আন্তর্জাতিক সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে কি না তা মনিটরিং করে তাদের আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নিতে বলি।

আপনাদের পণ্যের দাম তো কম নয়। এ বিষয়ে কি বলবেন?

আমাদের কোয়ালিটির কারণে খরচ তিন গুণ বেশি। তারপরও অন্যান্য  প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তুলনা করলে দেখবেন আমাদের মূল্য কম রয়েছে।

নতুন যারা এই খাতে আসতে চান, তাদের উদ্দেশে কিছু বলুন। 

বাংলাদেশের মানুষ কোয়ালিটি বোঝে। কাস্টমারদের হাতের নাগালে নিতে পারলে সুযোগ আছে। তবে শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়ন ও উপকারে নজর দেওয়া উচিত। একটি কোম্পানি যেন সমাজের উপকারে আসে, সেদিকে নজর দেওয়া উচিত। বাংলাদেশের বিভিন্ন সমাজের জন্য কাজ করার এখনো অনেক কিছু রয়েছে। সেটা ব্যবসার মাধ্যমেই করতে হবে।

আপনি গ্লোবাল মার্কেটিংয়ে যুক্ত। মার্কেটিংয়ে কাজ করতে আগ্রহীদের জন্য পরামর্শ কী?

মিডিয়া ও কাস্টমার বিহেভিয়ার দুটোই সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন হচ্ছে। সবার আগে কাস্টমারের বিহেভিয়ার বুঝতে হবে। আগে মানুষ টিভি দেখত, পেপার পড়ত, ডিজিটালাইজড ছিল না। এখন সবাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঢুকছে।  প্রতিটি কোম্পানি বিহেভিয়ারের মাধ্যমে পরিববর্তন করা গুরুত্বপূর্ণ। কাস্টমারের সঙ্গে সামঞ্জস্যতা রেখে নিজের ব্র্যান্ডকে পৌঁছে দেওয়ার জন্য কাজ করতে হবে। তার নিজস্বতা কি সেটা বিবেচনা করেই ব্র্যান্ডিংয়ে আগাতে হবে বলে আমি মনে করি। এছাড়া সমাজের মানুষের কি সমস্যা ও চাহিদা তা খেয়াল করে বিজনেসে নামলে ভালো। পোশাক ছাড়াও আইটি ও অন্যান্য ক্ষেত্রেও এখানে বিজনেস করা সম্ভব। 

আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

আপনাকেও ধন্যবাদ।

আটক হওয়া নিয়ে যা বললেন বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক

BENOYডেস্ক রিপাের্ট : কেবল এসপি’র (পুলিশ সুপার) জালিয়াতির বিরুদ্ধে কথা বলার কারণে আমি ও আমার পরিবার ধারাবাহিকভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছি। আমার ছেলে এখনও কারাগারে। এখনও বেঁচে আছে সেই ভরসা। সাদা পোশাকে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর ধরেই নিয়েছিলাম আর তাকে দেখতে পাবো না—হয় ক্রসফায়ার হবে, না হয় গুম হয়ে যাবে।

কথাগুলো বলছিলেন মানবাধিকার সংগঠন ‘রাইটস’ এর যশোর অফিসের নির্বাহী পরিচালক ও প্রেসক্লাব যশোরের সাবেক সহ-সভাপতি বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক। মঙ্গলবার জামিন পেয়ে ঢাকায় অবস্থানকালে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হয় তার।

আক্ষেপ করে তিনি বলেন, ‘এটাই শেষ না, আগামীতে আরও বেশি ভোগান্তি আসছে। আমি থেমে থাকবো না। কাউকে না কাউকে তো প্রতিরোধ করতে হবে।’ তিনি এসপির দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযোগ করবেন বলে জানান।

তিনি বলেন, এসপি প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত আমরা সাংবাদিকরা সহযোগিতা করবো না। বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর যাওয়ার কথা সেখানে, ঢাকা থেকে সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহ করলে করবে, আমরা করবো না। আজ আমাকে হয়রানি করছে, কাল আরেকজনকে করবে। যশোরের সাংবাদিকরা যদি এক জায়গায় হয় সেটা খুব মারাত্মক রূপ পেতে পারে।

কেন এ পরিস্থিতি হলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, যশোর শহরের গাড়িখানা রোডের সরকারি জমি (এপি ২০/৭৩) বরাদ্দ নিয়ে ব্যবসা ও দীর্ঘদিন ধরে বসবাসকারীদের অনৈতিকভাবে উচ্ছেদের প্রতিবাদ করায় নিপীড়ন শুরু করেছেন পুলিশ সুপার। গত ৫ ফেব্রুয়ারি রাতে পুলিশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে মালামাল বের করে সেখানকার দরজা ইট দিয়ে গেঁথে দেয়। পুলিশের এই অবৈধ কাজের প্রতিবাদ করায় ক্ষতিগ্রস্তদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের, এমনকি সেখানকার হিন্দু ধর্মাবলম্বী কয়েকজন ব্যবসায়ীকে হয়রানিও করা হয়েছে বলে দাবি করেন বিনয় কৃষ্ণ মজুমদার। তিনি বলেন, এই জমি স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্ত নিয়ে কাঁচাপাকা ঘর ও দোকানঘর নির্মাণ করে ভারত বিভাগের আগ থেকেই স্থানীয় কিছু হিন্দু পরিবার বংশ পরম্পরায় ভোগদখল করে আসছেন। সেই জমির ওপর চোখ পড়েছে, সেটা নিয়ে কথা বলা, গণমাধ্যমে প্রকাশের কারণেই এত বিপত্তি।

ছেলের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলোর বিরুদ্ধে আইনতই লড়বেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমার ছেলে নির্দোষ হয়ে বের হয়ে আসবে। যখন প্রথম জমি জালিয়াতি নিয়ে আমি প্রতিবাদ করি তখনই আমার ছেলেকে একবার ধরে নিয়ে যায়। তার বিরুদ্ধে বোমা হামলা ও প্রতারণার মামলা দিলো ট্রাফিক সার্জেন্ট ও পুলিশের সোর্স দিয়ে। এর পর গত ৯ মার্চ তাকে তার দোকান থেকে বের হওয়ার পর ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের সামনে থেকে সিভিল পোশাকে পুলিশ চোখ বেঁধে তুলে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে আমরা জানতে পারি, তাকে গালাগালি করে ক্রসফায়ারে দিতে চেয়েছে। যে ছেলে প্রতিদিন সাড়ে আটটায় বাসায় ফিরে, সে রাত ৯টায় না আসায় খোঁজ নিতে গিয়ে ঘটনাটা জানতে পারি এবং পুলিশকে ডিবিতে জানাই। তারা কেউই কিছু জানে না বলে আমাকে জানায়।

‘পরদিন সকালে ফুলতলা থানা থেকে ফোন করে জানালো, আমার ছেলেকে থানায় আটকে রেখেছে। সেখানে গিয়ে জানতে পারি, তার বিরুদ্ধে এবার ফেন্সিডিল বিক্রির মামলা। বিবরণীতে লেখা, সোর্সের মাধ্যমে খবর পেয়ে ইণ্ডিয়ান ফেন্সিডিল নিয়ে বেচাকেনার উদ্দেশ্যে ঘুরছে। আমি আবারও আইনি প্রক্রিয়াতেই গেলাম। আইনের লোক আইন ভাঙলেও আমি নাগরিক হিসেবে পারি না। এসপি আমাকে হেয় করার জন্য হেন কাজ নেই যা করেননি। ফলে এখন আর পিছু পা হওয়ার সুযোগ নেই। তিনি আমার সম্মানহানি ঘটিয়েছেন, আমার পরিবারের ওপর চড়াও হয়েছেন।’

নরসিংদীর মামলাটি সম্পর্কে বলতে গিয়ে বিনয় কৃষ্ণ বলেন, যে ছেলে কেস দিয়েছে ওই ছেলে ইরাক ফেরত। ওই ছেলে ফিরে এসে তার ওপর বিদেশে হওয়া নির্যাতনের কথা বলে ডিবিতে সাক্ষ্য দিয়েছিল। সেসময় যে প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তারা গিয়েছিল তারাই উল্টো আমাদের নয়জনের বিরুদ্ধে একটা কেস দিয়েছিল। সেই ঘটনাকে উল্টো দিকে নিতে ইচ্ছেকৃতভাবে নরসিংদীর এসপির সঙ্গে সমন্বয় করে যশোরের এসপি এই ঘটনা ঘটিয়েছে। আমাকে খুলনা রেঞ্জের লোক ধরে নিয়ে গেছে। আমাকে যারা ধরে নিয়ে গেছেন তারাই বলেছেন, এটা মিথ্যা মামলা।

এ বিষয়ে যশোরের এসপি আনিসুর রহমানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় শুনে তিনি সংযোগ কেটে দেন। তারপর একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি আর ফোন ধরেননি।
 

`তরুণ প্রজন্ম আমাদের ভালোভাবে গ্রহণ করেছে`

pakersডেস্ক রিপাের্ট : রিয়াজ আহমেদ বাবু। ২০১০ সাল থেকে মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোডে একটি আউটলেটের মাধ্যমে ব্যাগের ব্যবসা শুরু করেন। প্রতিষ্ঠানের নাম দেন ব্যাগপ্যাকার্স। ২০১৪ সালে এসে ব্যাগপ্যাকার্স ই-কমার্স ব্যবসায় নামে। আজকে দেশের স্বনামধন্য ব্যাগ ও ট্রলি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান এটি। কথা হয় রিয়াজ আহমেদ বাবুর সঙ্গে। ব্যাগপ্যাকার্সের কাহিনি জানালেন এই সময়কে। আলাপ করেছেন মাহমুদ উল্লাহ।

ব্যাগ ব্যবসায় কিভাবে নামলেন?
২০১০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি একটি আউটলেটের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করি মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোডে। প্রথম থেকেই ব্যবসা ভালো চলতে থাকে। ইয়াং জেনারেশন খুব ভালোভাবে গ্রহণ করে আমার উদ্যোগ। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। প্রথমে সব ধরনের ব্যাগই আমি ঢাকার বিভিন্ন এলাকার দোকানগুলো থেকে কিনে এনে বিক্রি করতাম, পরে চিন্তা করি নিজেই প্রোডাকশনে যাব। এরপর ব্যাকপ্যাক ও ট্রলি দিয়ে যাত্রা শুরু করি। নিজের ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টে চায়না থেকে প্রোডাকশন করিয়ে নিয়ে আসি। এভাবেই নতুনভাবে পথচলা শুরু।

কোন ভাবনা থেকে এই ব্যবসায় আসা?
ব্যাগ মানুষের জীবনের একটি জরুরি অনুষঙ্গ। কিন্তু বাংলাদেশের দু-একটি কোম্পানি বাদে কেউ তেমনভাবে এই জায়গাটায় ফোকাস করেনি। আমি প্রথমে লাইফস্টাইলের কোনো ব্যবসার কথা ভেবেছিলাম। কিন্তু সবাইকে দেখি বুটিকসের কাজ করছে। তাই ব্যাগ নিয়েই আমি যাত্রা শুরু করি। আর এখন তো অনেকেই আমাদের নামে নকল কাজও করছে।

কোন ধরনের ব্যাগ আপনারা বিক্রি করছেন?
একজন মানুষের লাইফস্টাইলের সঙ্গে যায় এমন সব ধরনের ব্যাগ, হ্যান্ডব্যাগ, ব্যাকপ্যাক ও ট্রলিই আমরা বিক্রি করে থাকি।

বড় আকারে কখন শুরু করেন?
২০১৫ সালে বাংলাদেশের সব ব্যাগ ব্যবসায়ীকে আমন্ত্রণ করে আমাদের প্রোডাকশনের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেই। তখনই প্রথম মানুষ আমাদের কথা জানতে পারে। এভাবে ব্যবসাটা আকারে বড় হয়। 

এখন ব্যবসার অবস্থা কী?
এখন তিনটা শোরুম রয়েছে আমার। এছাড়া অনলাইনেও বিক্রি শুরু করি। তবে অনলাইনে বিক্রিতে সমস্যা হলো ক্রেতাদের অর্ডারমাফিক মাল ডেলিভারির সময় বাড়িতে পাওয়া যায় না।

অল্পসময়ে পরিচিতি পেয়েছেন। এর কারণ কী?
আমরা প্রথম ব্যানার ব্র্যান্ডিং দিয়ে শুরু করি। আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন টিজার ব্যানার দিয়ে মানুষের কৌতূহল তৈরি করি। এরপর আবার ব্যানার দিয়ে আমাদের বিজ্ঞাপন প্রচার করি। এরকম একভাবে মানুষের আস্থা তৈরি করি। তবে প্রোডাক্টের ভালো মানই আমাদের এতদূর আসতে সাহায্য করেছে। এরপর আমরা ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে নামি। ডিজিটাল মার্কেটিংও আমাদের প্রচারের আলোয় এনে দেয়। বিভিন্ন টিভিতে ব্যাগপ্যাকার্সের টিভিসিও আমাদের জনপ্রিয়তা তৈরিতে সাহায্য করেছে।

সামনের দিনের পরিকল্পনা কী?
ফ্রাঞ্চাইজি শাখা খোলার ইচ্ছা আছে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ডিলার নিয়োগ দিব বলে ভাবছি। এছাড়া লাইভ প্রচারণার কথাও ভাবছি। 

এই ব্যবসায় কতটা সম্ভাবনা দেখছেন?
আমরা দেশের সব ব্যাগ ব্যবসায়ী মিলে এর ৪০ শতাংশ চাহিদা পূরণ করতে পেরেছি। এখনো অনেক জায়গা ফাঁকা আছে। চাইলে যে কেউ এই ব্যবসায় নামতে পারে। তবে প্যাশন থাকতে হবে।

দেশে ব্যাগ উৎপাদন করা সম্ভব কি না।
আসলে এর সব এক্সেসরিজের জন্যই বাইরের দেশের ওপর নির্ভর করতে হয়। জিপার, চেইন, ফেব্রিকসসহ এর সব মেটেরিয়ালই মূলত বিদেশ থেকে আমদানি নির্ভর। সব কিনে নিয়ে এসে দেশে যদি  তৈরি করা হয় তাহলে খরচ বেশি পড়ে। এছাড়া ব্যাগ সেলাই অনেক ঝামেলাপূর্ণ একটি কাজ। এর জন্য দক্ষ কারিগরও দেশে  তৈরি হয়নি। এসব কারণে ব্যাগ তৈরির শিল্প দেশে খুব প্রসার করেনি।

নতুন যারা এই খাতে বিনিয়োগ করতে চায়, তাদের জন্য কী বলবেন?
অবশ্যই তাদেরকে স্বাগতম। তাদের প্রোডাক্টের মান ভালো হতে হবে। ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ওপর জোর দিতে হবে। তবে ভালো করা সম্ভব।
 
এই ব্যবসায় কোনো প্রতিবন্ধকতা আছে?
শোরুমের কর্মচারীরা দ্রুত চাকরি পরিবর্তন করে। তাদের কোনো প্রপার ট্রেনিং নেই। মূলত কর্মী সংকটই শোরুম ব্যবসার মূল সমস্যা।
 
আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। 
আপনাকে এবং এই সময়কেও অনেক ধন্যবাদ।