সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী – প্রথম থেকে নবম শ্রেণিতে লটারির মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষার নেওয়া হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : লটারির মাধ্যমে এবারের মাধ্যমিকের ভর্তি করানো হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রতিবারের মতো এবারে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হবে না। এজন্য বিকল্প বিভিন্ন বিষয় ভেবেছি। শেষ পর্যন্ত ৩টি বিকল্প প্রক্রিয়া নিয়ে ভাবা হয়। এক- স্বাভাবিক নিয়মে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া। কিন্তু করোনার এই সময়ে এটি করতে চাচ্ছি না। এমসিকিউ পদ্ধতির কথাও চিন্তা করেছি, কিন্তুও তাতেও ঝুঁকি থাকে। দ্বিতীয়- অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা।

তবে সব ভর্তিচ্ছুদের পক্ষে এটা সম্ভব হবে না। তৃতীয়-লটারির মাধ্যমে ভর্তি। এবার আমরা তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

চলমান করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধ রয়েছে দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এই সময়ে মাধ্যমিক পর্যায়ে ভর্তি সংক্রান্ত বিষয়ে কথা বলতে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন ডাকেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

মন্ত্রী আরও বলেন, এবার ভর্তি কার্যক্রমে কিছু পরিবর্তন আসছে। এবার ক্লাস্টারে ৫টি স্কুলকে পছন্দ দেবার সুযোগ পাবে ভর্তিচ্ছুরা। এছাড়াও রাজধানীতে ক্যাচমেন্ট এরিয়া ৪০ শতাংশ থেকে ৫০ শতাংশ করা হয়েছে।

ঢাবির সান্ধ্য কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সান্ধ্য এমবিএ কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। শুক্রবার ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের এই প্রোগ্রামের ৪৫তম ব্যাচের ভর্তি পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। তবে শেষ মুহূর্তে এসে তা স্থগিত করতে বাধ্য হয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

রাজধানীর আজিমপুর গভর্নমেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে এই পরীক্ষা নেয়ার সব প্রস্তুতিও গ্রহণ করেছিল কর্তৃপক্ষ। তবে শেষ পর্যন্ত উপাচার্যের নির্দেশে ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন এই পরীক্ষা স্থগিত করেন৷

ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সদস্য ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স বিভাগের অধ্যাপক মো. আবু তালেব গণমাধ্যমকে বলেন, ‘পরীক্ষা হওয়ার ব্যাপারে আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি ছিল। কিন্তু উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান আমাদের পরীক্ষা না নেয়ার নির্দেশ দেন। এজন্য এটি স্থগিত করা হয়েছে।’

নীতিমালা চূড়ান্ত না হওয়া পর্যন্ত ঢাবির সান্ধ্য কোর্সে ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা পরিষদ (একাডেমিক কাউন্সিল)। কিন্তু নীতিমালা হওয়ার আগেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে সান্ধ্য এমবিএ কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা নিতে যাচ্ছিল ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ।

এর আগে ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. মুহাম্মাদ আব্দুল মঈন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল, শুক্রবার (২০ নভেম্বর) ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের এমবিএ (সান্ধ‌্য) প্রোগ্রামের ভর্তি পরীক্ষা আজিমপুর গভর্নমেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে অনুষ্ঠিত হবে।

এটা নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়। পরে উপাচার্যের নির্দেশে পরীক্ষা স্থগিত করতে বাধ্য হয় ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ।

আজ শুক্রবার বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। অনেকে পরীক্ষা দিতে আজিমপুর গভর্নমেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে চলেও আসেন। তবে তাদেরকে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের নয়টি বিভাগের সন্ধ্যাকালীন কোর্স ও চারটি প্রফেশনাল কোর্সে প্রতিবছর প্রতিটি সেশনে ৭২০ জন করে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়।

১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়লাে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় ফের বাড়ানো হলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি। শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আগামী ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হলো।

বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

করোনা মহামারির কারণে এ বছর প্রাথমিক সমাপনী, অষ্টমের সমাপনী ছাড়াও এইচএসসি পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। জেএসসি ও এসএসসির ফলের ভিত্তিতে এইচএসসির ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত হলেও অন্যান্য শ্রেণিগুলোয় পরীক্ষা ছাড়া পরবর্তী ক্লাসে তুলে দেওয়া হবে। তবে মাধ্যমিকের ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে মূল্যায়ন করা হচ্ছে।

বুধবার (১১ নভেম্বর) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেললে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানান, আমরা এ মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত বন্ধ রেখেছি। ১৫ তারিখ থেকে খুলবে কিনা, নাকি এই ছুটিটি আরও বাড়বে নাকি কোনো কোনো ক্লাসের জন্য আমরা সীমিত আকারে শুরু করতে পারবো- এসব বিষয় নিয়ে এখনও কাজ চলামান। তবে ১৪ তারিখের আগে চেষ্টা করব সিদ্ধান্ত আপনাদের জানিয়ে দিতে। কারণ, ১৪ তারিখের আগে তো আমাদের একটা সিদ্ধান্ত দিতেই হবে।

এর আগে দেশে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এর পর দফায় দফায় ছুটি আগামী ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছিল। কিন্তু নতুন করে আবারও ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত এ ছুটি বাড়ানো হলো।

১৫ নভেম্বর থেকে বিদ্যালয় খুলবে, এটা ভুল ব্যাখ্যা : প্রাথমিকের ডিজি

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম বলেছেন, আগামী ১৫ নভেম্বর থেকে বিদ্যালয় খুলবে, এটা ভুল ব্যাখ্যা। বিদ্যালয় খোলার বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেই যে কবে স্কুল খুলবে। যা হবে দুই মন্ত্রণালয় বসে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। বুধবার (৪ নভেম্বর) গণমাধ্যমকে এ কথা বলেন তিনি।

ডিজি বলেন, আগামী ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত স্কুল বন্ধ রয়েছে। আগামী ১৪ নভেম্বর বন্ধ তার মানে ১৫ নভেম্বর থেকে বিদ্যালয় খুলবে এটা ভুল ব্যাখ্যা। এটার কোনও সত্যতা নেই। আমরা অনেকবারই তো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করেছি। তার মানে ছুটির পরের দিন থেকে কি বিদ্যালয় খুলেছি? কোনও ভুল মেসেজ যেন না যায়।

এ দিকে, স্কুল রিওপেনিং প্ল্যান অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের স্থানীয়ভাবে পরিকল্পনা তৈরি করে জেলা শিক্ষা অফিসারদের পাঠাতে নির্দেশ দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। নির্দেশনা অনুযায়ী আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে স্থানীয় পরিকল্পনা জেলা শিক্ষা অফিসারের দপ্তরে পাঠানোর নির্দেশনা দেওয়া হয় বলে জানান মহাপরিচালক।

জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মৌলিক সক্ষমতা (কোর কম্পিটেন্ট) অর্জনে নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে ৩০ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এর আগে ১ নভেম্বর থেকে ৩৯ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছিল মন্ত্রণালয়। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি আগামী ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত বাড়ানোর কারণে ৩৯ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। পরে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা অ্যাকাডেমি (নেপ) ৩০ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রস্তুত করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠায়। ওই সিলেবাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়েছে।

একই সঙ্গে যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগে থেকে খোলার বিষয়ে পূর্বপ্রস্তুতি এখনও নেয়নি সেসব প্রতিষ্ঠানকে মৌখিকভাবে নির্দেশ দিতে বিভাগীয় উপ-পরিচালকের সঙ্গে কথা বলেছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম।

ডিজি আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, আগামী সাত দিনের মধ্যে স্কুলের অবকাঠামো ও শিক্ষার্থী সংখ্যা বিবেচনা করে বিদ্যালয় রিওপেনিং প্ল্যান অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের স্থানীয়ভাবে পরিকল্পনা তৈরি করে জেলা শিক্ষা অফিসারদের পাঠাতে বলা হয়েছে। সাত দিনের মধ্যে স্থানীয় পরিকল্পনা তারা জমা দেবেন। বিদ্যালয় পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এই পরিকল্পনা করার কথা ছিল। অনেক বিদ্যালয় তা করেনি। একটি বিদ্যালয়ের রুম অনুযায়ী কতজন শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে আনলে স্বাস্থ্যবিধি মানা সম্ভব, জটলা হবে না, সেই পরিকল্পনা এখনও অনেক বিদ্যালয় জানায়নি।

সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে মাধ্যমিকে পাঠদান আজ শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাধ‌্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন‌্য ৩০ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি করা হয়েছে। এর আলোকে আজ রোববার (১ নভেম্বর) থেকে পাঠদান শুরু হবে। পাঠদান শুরুর পর সাপ্তাহিক এসাইনমেন্টের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের পরবর্তী শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করার নির্দেশনা দিয়েছে মাধ‌্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

জানা গেছে, সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে ডিসেম্বরের মধ্যে পাঠদান শেষ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর আগে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি ও নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে বার্ষিক পরীক্ষা না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

পাঠ্যসূচি ও মূল্যায়ন টুলস তৈরির জন‌্য নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এই ৮ সপ্তাহের কোন সপ্তাহে শিক্ষার্থীর কী মূল্যায়ন করা হবে, তার নির্দেশনা সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে দেওয়া হয়েছে। প্রথম সপ্তাহে মূল্যায়নের পর দ্বিতীয় সপ্তাহের প্রস্তুতি নিতে হবে। এভাবে পর্যায়ক্রমে ৮ সপ্তাহ শেষে শিক্ষার্থী মূল্যায়ন কার্যক্রম শেষ হবে।

এক্ষেত্রে কিছু বিষয় অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে আছে— নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত পুনর্বিন্যাস করা সিলেবাস শেষ করতে হবে। প্রস্তাবিত মূল্যায়ন নির্দেশনা অনুসরণ করে শিক্ষার্থীকে প্রতি সপ্তাহে প্রত্যেক বিষয়ে একটি করে কাজ দিতে হবে। প্রত‌্যেক বিষয়ে ৮ সপ্তাহে প্রস্তাবিত ৮টি কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের বিষয়ভিত্তিক কাজের মূল্যায়ন করবেন। এ কার্যক্রমে প্রত‌্যেক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ নিশ্চিতসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সব মূল‌্যায়নের তথ‌্য সংরক্ষণ করতে হবে।

ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ৩০ দিনের সংক্ষিপ্ত এই সিলেবাস তৈরি করে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। এরপর এনসিটিবি এই সিলেবাস শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। পরে মন্ত্রণালয় থেকে সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়বে কি না, বৃহষ্পতিবার জানাবেন শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির কারণে ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ থাকা দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়ানো হবে কিনা, সে বিষয়ে জানা যাবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার।

সংবাদ সম্মেলনে ছুটির বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত জানাবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এমএ খায়ের স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী চলমান মহামারী কোভিড-১৯ এর পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি সংক্রান্ত ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিং করবেন শিক্ষামন্ত্রী।

৩১ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে (কওমি মাদ্রাসা ছাড়া) ছুটি রয়েছে। এছাড়া আসন্ন শীতে করোনার দ্বিতীয় আঘাত আসার সম্ভাবনা রয়েছে। এ অবস্থায় সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার প্রস্তুতি নিতে পারেনি। করোনার কারণে প্রাথমিক সমাপনী, জেএসসি-জেডিসি ও এইচএসসির মতো পাবলিক পরীক্ষাও বাতিল করতে হয়েছে।

মাউশির মহাপরিচালকসহ ৪৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ডেস্ক রিপাের্ট : যথাযথ কারণ ছাড়া বরিশালের উজিরপুর উপজেলার গুঠিয়া মহেশচন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং এমএলএসএসকে বরখাস্ত করায় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক ও বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ ৪৭ জনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা করা হয়েছে।

রবিবার উজিরপুর সহকারী জজ আদালতে ওই মামলা দুটি করেন গুঠিয়া মহেশচন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মাহবুবুল আলম ও এমএলএসএস সমীর কৃষ্ণ মণ্ডল।

সোমবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার আইনজীবী আজাদ রহমান।

এর মধ্যে বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মাহবুবুল ইসলাম ২৩ জনকে এবং এমএলএসএস সমীর কৃষ্ণ মণ্ডল ২৪ জনকে বিবাদী করে পৃথক দুটি মামলা করেন।

আইনজীবী আজাদ রহমান জানিয়েছেন, বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক, বরিশাল জেলা শিক্ষা অফিসার, উজিরপুর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, উজিরপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার, বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক, রূপালী ব্যাংক ভবানীপুর শাখার ম্যানেজার, উজিরপুর গুঠিয়া শাখার ম্যানেজার, অগ্রণী ব্যাংক বানারীপাড়া শাখার ম্যানেজার, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. আওরঙ্গজেব, শিক্ষক সদস্য মো. আলমগীর হোসেন, রবীন্দ্রনাথ মণ্ডল, বিথীকা মণ্ডল, অভিভাবক সদস্য মো. ইউসুফ আলী মোল্লা, মো. ছুরাত মোল্লা, মো. নাসির উদ্দিন খান, মো. নিজাম সরদার, শিরিন সরোয়ার, বিদ্যোৎসাহী সদস্য মো. আতাহার আলী হাওলাদার, সহকারী শিক্ষক মো. মোস্তফা কামাল, প্রধান শিক্ষক ও সম্পাদক ম্যানেজিং কমিটিসহ ৪৭ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

এমএলএসএস সমীর কৃষ্ণ মণ্ডলের মামলায় উল্লেখ করা হয়, ২০১৫ সালের ২৭ মে গুঠিয়া মহেশচন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্কুলে এমএলএসএস পদে যোগদান করে দায়িত্ব পালন শুরু করেন তিনি। কোনো কারণ ছাড়াই বিবাদীরা ২০২০ সালের ১৫ অক্টোবর ৯/২০২০ সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ১নং বিবাদী বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের চাকরি বিধি ১৯৭৯ উপেক্ষা করে ২০২০ সালের ১৭ অক্টোবর তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। ২০২০ সালের ১৯ অক্টোবর ১নং বিবাদী সমীর কৃষ্ণ মণ্ডল কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন।

প্রধান শিক্ষক মো. মাহবুবুল ইসলামের করা মামলায় উল্লেখ করা হয়, ২০১৪ সালের ২৮ এপ্রিল প্রধান শিক্ষক পদে যোগদান করে তিনি দায়িত্বরত ছিলেন। ২০২০ সালের ২১ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৫ অক্টোবর তাকে বেআইনিভাবে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

তাছাড়া ২১ সেপ্টেম্বর ম্যানেজিং কমিটির সদস্য নিজাম সরদার স্কুলের মালামাল কক্ষের চাবি প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে নিয়ে যান।

প্রধান শিক্ষক মামলায় উল্লেখ করেন, বিদ্যালয়ের মালামাল সংরক্ষিত রুমের চাবি নিয়ে যাওয়া এবং বিদ্যালয়ের নোটিশ বই, রেজুলেশন বই, ক্যাশবই, জব্দ করা ও নিয়ে যাওয়া হঠকারিতা এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এর প্রতিকার ও স্বপদে বহাল থাকার দাবি জানানো হয় আদালতে।

মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা হচ্ছে না, অ্যাসাইনমেন্টে মূল্যায়ন

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের কারণে এবারের মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা হচ্ছে না। অ্যাসাইমেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বুধবার দুপুরে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান মন্ত্রী।

দীপু মনি জানান, শিক্ষার্থীদের প্রতি সপ্তাহে অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হবে। এক সপ্তাহের মধ্যে সেই অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেবেন শিক্ষার্থীরা।

করোনার প্রভাবে গত ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। কওমি মাদ্রাসা বাদে অন্যসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা আছে।

করোনার কারণে চলতি বছরের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী, ইবতেদায়ি সমাপনী, জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি), জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) এবং উচ্চমাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।

এছাড়া চলতি বছর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত নিজ বিদ্যালয়ে মূল্যায়নের কথা চিন্তা করছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা মূল্যায়ন কোন পদ্ধতিতে আজ সে বিষয়ে ঘোষণা দিতে আজ সংবাদ সম্মেলন আসেন শিক্ষামন্ত্রী। সেখানে মাধ্যমিকে অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়নের কথা জানান তিনি।

বুধবার স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষার সিদ্ধান্ত হতে পারে

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলতি বছরের বার্ষিক পরীক্ষা নিয়ে সরকারি সিদ্ধান্ত বুধবার জানা যেতে পারে। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি দুপুর ১২টায় এ বিষয়ে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন করবেন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

করোনাভাইরাসের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে। কিছু ক্ষেত্রে অবশ্য অনলাইন ও টেলিভিশনে ক্লাস নেয়া হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে ইতিমধ্যে এ বছরের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি), ইবতেদায়ি সমাপনী (ইইসি), জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি), জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) এবং উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। টানা ৭ মাস ধরে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় বার্ষিক পরীক্ষা নিয়েও অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে। সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত বন্ধ আছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এ বছর বিদ্যালয়গুলোতে বার্ষিক পরীক্ষাও না নেয়ার চিন্তাভাবনা রয়েছে। এর পরিবর্তে বিকল্প উপায়ে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করে পরবর্তী শ্রেণিতে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। আর প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক স্তরের শিশুদের কোনো ধরনের পরীক্ষা ছাড়াই পরবর্তী শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করার সিদ্ধান্ত প্রায় চূড়ান্ত করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রাথমিকে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

ডেস্ক রিপাের্ট : দেশের বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে সরকার। এই পর্বে প্রায় ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

সোমবার প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ( ডিপিই) অধীন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

ডিপিই থেকে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্বখাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক’ এর শূন্যপদ এবং জাতীয়করণ করা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পিডিইপি-৪ এর আওতায় প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য রাজস্বখাতে সৃষ্ট ‘সহকারী শিক্ষক’ পদে জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫ এর ১৩তম গ্রেডে অস্থায়ীভাবে নিয়োগ করা হবে। তবে তিন পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের প্রার্থীরা এতে আবেদন করতে পারবেন না।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আগামী ২৫ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টা থেকে অনলাইনে আবেদন গ্রহণ শুরু হবে। শেষ হবে ২৪ নভেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিটে। সহকারী শিক্ষকদের বেতন হবে জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫ এর গ্রেড ১৩ অনুযায়ী ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা।

বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, শিক্ষাগত যোগ্যতার ক্ষেত্রে যেকোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএ-সহ স্নাতক বা সম্মান বা সমমানের ডিগ্রি থাকতে হবে।

অনুযায়ী প্রার্থীর বয়সসীমা ২০ অক্টোবর তারিখে বয়স সর্বনিম্ন ২১ বছর এবং ২০২০ সালের ২৫ মার্চ সর্বোচ্চ ৩০ বছর। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, শারীরিক প্রতিবন্ধী আবেদনকারীর ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ২৫ মার্চ ৩২ বছর। প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতা কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএসহ সম্মান বা সমমানের ডিগ্রি থাকতে হবে।

আগ্রহী প্রার্থীদের http://dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণের নির্দেশনা পাওয়া যাবে। ওই নির্দেশনা অনুসরণ করে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করে সাবমিট করা হলে ওয়েবসাইট থেকে ইউজার আইডিসহ আনপেইড স্ট্যাটাসসম্পন্ন ড্রাফট অ্যাপলিকেশনের কপি তৈরি করে বা প্রিন্ট করে আবেদনের প্রদত্ত তথ্য যাচাই করতে হবে। আবেদন ফি জমাদানের আগে ড্রাফট অ্যাপলিকেশনের কপি একাধিকবার পড়ে প্রার্থী তার প্রদত্ত তথ্যের যথার্থতা সম্পর্কে নিশ্চিত হবে। কোনো ভুল পরিলক্ষিত হলে তার বিপরীতে আবেদন ফি জমা দেয়া যাবে না এবং এই বিজ্ঞপ্তির ৩ নম্বর শর্ত অনুচ্ছেদ অনুসরণ করে নতুন করে অ্যাপলিকেশন ফরম সঠিক তথ্য দিয়ে পূরণ করে নতুন ইউজার আইডি সংবলিত আনপেইড স্ট্যাটাসসম্পন্ন অ্যাপ্লিক্যান্টস কপি প্রিন্ট নিয়ে পুনরায় প্রদত্ত তথ্য যাচাই করতে হবে।

নির্ভুলভাবে পূরণকৃত আবেদন ফরমের বিপরীতে প্রদত্ত ইউজার আইডি ব্যবহার করে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ড্রাফট অ্যাপ্লিকেন্স কপিতে প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণ করে যেকোনও টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল নম্বর থেকে এসএমএস-এর মাধ্যমে অফেরতযোগ্য ১০০ টাকা আবেদন ফি এবং টেলিটকের ১০ টাকাসহ মোট ১১০ টাকা পরিশোধ করতে হবে। আবেদন ফি পরিশোধের পর আবেদনে দেয়া মোবাইল নম্বরে এসএমএস-এর মাধ্যমে আবেদনকারীকে ইউজার আইডিসহ একটি পাসওয়ার্ড দেয়া হবে। এরপর http://dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটের ডাউনলোড অ্যাপ্লিকেন্টস কপি ট্যাবে ক্লিক করে মোবাইলে পাওয়া ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড সাবমিট করে পেইড (paid) স্ট্যাটাসসম্পন্ন ফাইনাল অ্যাপ্লিকেন্টস কপি পাওয়া যাবে। যা প্রিন্ট করে নিয়োগ প্রক্রিয়ার শেষ অবধি আবশ্যিকভাবে সংরক্ষণ করতে হবে। কেবল আবেদন ফি পরিশোধের পর আবেদনটি চূড়ান্তভাবে গৃহীত হয়েছে বলে গণ্য হবে। এরপর আবেদনের আর কোনো তথ্য সংশোধন, সংযোজন, পরিমার্জন বা একই প্রার্থীর নতুনভাবে অ্যাপ্লিকেশন ফরম পূরণের সুযোগ থাকবে না।

২০০৯ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক লাখ ৯৭ হাজার ৮৬৪ জন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। মুজিববর্ষে সব শূন্যপদে নিয়োগ দেয়ার পরিকল্পনা থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে সম্ভব হয়নি।

সবশেষ ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই সহকারী শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এতে মোট উত্তীর্ণ হন ৫৫ হাজার ২৯৫ জন, নিয়োগ দেয়া হয় ১৮ হাজার ১৪৭ জনকে। এর আগে একই বছর ২০১৪ সালের স্থগিত পরীক্ষাটিও নেয়া হয়। ওই পরীক্ষায় মোট উত্তীর্ণ হন ২৯ হাজার ৫৫৫ প্রার্থী। এর মধ্যে নিয়োগ দেয়া হয় ৯ হাজার ৭৬৭ জনকে। এ দুই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও চূড়ান্ত নির্বাচিত হননি ৫৬ হাজার ৯৩৬ প্রার্থী। উত্তীর্ণ এসব প্রার্থী ২০১০-২০১১ সালের মতো প্যানেল নিয়োগ চান। এই দাবিতে তারা আন্দোলনও করছেন। এর মধ্যেই নতুন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলো।

১৪২