বিএনপি ক্ষমতায় যেতে চোরাগলি খুঁজছে : সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

ডেস্ক রিপাের্ট : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি এখন অন্যের ওপর ভর করে ক্ষমতায় যেতে অন্ধকারের চোরাগলি খুঁজছে।’

মন্ত্রী আজ বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় এ সব কথা বলেন। তিনি তার সংসদ ভবন এলাকার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ সভায় যুক্ত হন।

তিনি বলেন, ‘ধর্মীয় সহনশীলতা বিনষ্টের যে কোন অপচেষ্টা কঠোর ভাবে দমন করা হবে। বিএনপি এখন একটি ব্যর্থ রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে। তাই আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে তারা অন্যের ওপর ভর করে ক্ষমতায় যেতে অন্ধকারের চোরাগলি খুঁজছে।’

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের হুঁশিয়ার করে দিয়ে তিনি বলেন, ‘মীমাংসিত বিষয় নিয়ে আপোষ করার কোন সুযোগ নেই।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ আন্দোলন বা সমাবেশ করলে সরকার কোন বাধা দিবে না, তবে আন্দোলনের নামে অশান্তি সৃষ্টি করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সমুচিত জবাব দেয়া হবে।’

দলে মনোনয়ন নিয়ে বাণিজ্য করা থেকে বিরত থাকতে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দিনের পর দিন ক্ষমতার অপব্যবহার করার জন্য দলের পদ পদবি কাউকে ইজারা দেয়া হয়নি।’

দলীয় নেতাকর্মীদের সাবধান করে দিয়ে তিনি বলেন, ‘যে কোন নেতিবাচক ঘটনা দলের ও সরকারের ইতিবাচক অর্জনগুলো যেন ম্লান না হয় সেদিকে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকতে হবে। দল করলে দলের শৃঙ্খলা মানতে হবে। উন্নয়ন-অর্জনে কোন লাভ হবে না, যদি দলে শৃঙ্খলা ফিরে না আসে। সাধারণ মানুষের সাথে আচরণ খারাপ করে উন্নয়নকে ম্লান না করারও আহ্বান জানান কাদের।’

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর উদ্দেশে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ইতোমধ্যে যারা বিদ্রোহ করেছে আবার নির্বাচিত বা পরাজিত হয়েছে তাদের আর দল থেকে মনোনয়ন দেয়া হবে না।’

স্থানীয় পর্যায়ের উন্নয়ন প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, ‘শিগগিরই বেগমগঞ্জ থেকে লক্ষ্মীপুর পর্যন্ত চার লেনের সড়ক উন্নীত করা হবে। কোন অবস্থাতেই লক্ষীপুর পিছিয়ে থাকবে না, লক্ষ্মীপুরের লক্ষ্মী ফিরিয়ে আনা হবে।’

লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ গোলাম ফারুক পিংকুর সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, কৃষি ও সমবায় সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী,সাবেক মন্ত্রী শাহাজান কামাল,সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খান, জেলা আওয়ামী সাধারণ সম্পাদক নূর উদ্দিন চৌধুরী নয়নসহ লক্ষ্মীপুর জেলার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।
সূত্র : বাসস

বিএনপি আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ দল, তারা দেশের দুঃসময়ে জনগণের করুণ অবস্থা প্রত্যাশা করে : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি সরকারের বিরোধিতা করতে গিয়ে জনগণের উন্নয়নের বিরোধীতা করছে। তাইতো জনগণ তাদের কথায় এখন আর সায় দেয় না। তাদের আন্দোলনের ডাক আষাঢ়ের গর্জনের মধ্যেই সমাপ্ত।

তিনি বলেন, বিএনপি দেশের দুঃসময়ে জনগণের করুণ অবস্থা প্রত্যাশা করেছে। তারা চেয়েছে মানুষ না খেয়ে চিকিৎসা না পেয়ে রাস্তায় পড়ে মরে থাকবে। আল্লাহর অশেষ রহমতে শেখ হাসিনার দূরদর্শিতায় দেশের এমন পরিস্থিতি হয়নি।

আশুলিয়া ও ধামরাইয়ের সীমান্ত এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দ্বিতীয় নয়ার হাট সেতুর (৪ লেন) নির্মাণ কাজের শুভ সূচনা শেষে বুধবার (২ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি।

করোনা, বন্যা ও আমফানের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিএনপি কোনো ভূমিকা পালন করেনি দাবি করে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আপনারা তো জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে গণমাধ্যম ও ফেসবুকে কথার বৃষ্টি ঝরিয়েছেন। মহামারি করোনায় গোটা বিশ্ব যখন টালমাটাল তখন মানুষের জীবন জীবিকার চাকা সচল রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে দূরদর্শিতা দেখিয়েছেন তা বিশ্বে প্রশংসিত হচ্ছে। দেশের মানুষের জন্য কোনো ভূমিকা না রেখে আপনারা শুধু বক্তৃতা-বিবৃতি ও উৎসব মিছিল করছেন। এটাই হচ্ছে বিএনপির এখনকার রাজনীতি। আর সরকার যা করছে তার অন্ধ সমালোচনা করে চলছে এই দলটি।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ দল। আর তাই রাতের অন্ধকারে তারা তাদের গঠনতন্ত্রের সাত নম্বর ধারা বাতিল করেছে। এই ধারায় বলা আছে- চিহ্নিত দুর্নীতিবাজরা বিএনপির নেতা হতে পারবে না। জনপ্রতিনিধি হতে পারবে না। কোনো মাদকসেবী বিএনপির নেতা হতে পারবে না।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নাকি সরকার অন্যায়ভাবে মামলা দিচ্ছে। একদিকে বিএনপির নেতাকর্মীরা সংঘাত সৃষ্টি করবে, জনগণের সম্পদ-শান্তি নষ্ট করবে বাসে আগুন দেবে, নিজেরা নিজেরা মারামারি করবে। আর তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নেওয়া যাবে না। এ যেন মামাবাড়ির আবদার।’

নয়ার হাটে ভিডিও কনফারেন্স অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-২০ আসনের সংসদ সদস্য বেনজীর আহমেদ, আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক ফারুক হাসান তুহিন, যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফুল ইসলামসহ প্রমুখ।

বিএনপি মহাসচিব দেশের মানুষের স্বস্তি দেখতে পান না, দেখতে পান অপরাধীদের ভীতসন্ত্রস্ত মুখচ্ছবি : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় এসেছে। সুতরাং সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে পরবর্তী নির্বাচন হবে। তাই শাসন দীর্ঘায়িত করার সরকারের কোনো ইচ্ছাও নেই, সুযোগও নেই। তাদের (বিএনপি) দুঃশাসন এখনও মানুষকে তাড়া করে। তাই তারা জনমানুষের আস্থা হারিয়েছে।’

রবিবার (২৯ নভেম্বর) সকালে নিজ সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আওয়ামী লীগ কোনো খেলা বা ষড়যন্ত্রে বিশ্বাসী নয় বরং আওয়ামী লীগই বারবার ষড়যন্ত্রের শিকার। বিএনপিই পর্দার আড়ালে ষড়যন্ত্র তত্ত্বে বিশ্বাসী, তারাই ক্ষমতার জন্য অপকৌশল ও দেশ-বিদেশে বিভিন্ন খেলা খেলছে।’

‘বিএনপি মহাসচিব দেশের মানুষের স্বস্তি দেখতে পান না, দেখতে পান অপরাধীদের ভীতসন্ত্রস্ত মুখচ্ছবি’,-বলেন তিনি। বিএনপির গণতন্ত্র চর্চা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‌‘গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার আগে বিএনপিকে নিজ দলের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা প্রয়োজন। বিবৃতি আর গুজব, অপপ্রচার চালিয়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা যায় না।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নির্বাচনকে উদ্দেশ্যমূলক প্রশ্নবিদ্ধ করে, গোপনে সরকার পতনের অলিগলি পথ খুঁজে আর দেশ-বিদেশে গোপন বৈঠক করে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে চায় বিএনপি?

মাগুরা জেলা বিএনপি কার্যালয়ে হামলার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কারা হামলা করেছে, তা তদন্ত হওয়া দরকার। এ ঘটনা তাদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের বহিঃপ্রকাশ কি না, তা খতিয়ে দেখাও দরকার।’

নিজস্ব বলয় তৈরি করতে মাই ম্যান দিয়ে কমিটি গঠন করা যাবে না জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, যেসব জেলায় আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়নি এবং কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে, সেসব জেলায় দ্রুত কাউন্সিল করার নির্দেশনা দিয়েছেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা। জেলা সম্মেলনের আগে উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠন করতে হবে।

‌‘চিহ্নিত অপরাধী, চাঁদাবাজ, দখলদার ও সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর কাউকে দলে নেওয়া যাবে না। ত্যাগী নেতাকর্মীদের জন্য রাজনীতিতে টিকে থাকার এবং এগিয়ে যাওয়ার পথ সৃষ্টি করে দিতে হবে’, -বলেন তিনি।

করোনায় খালেদা জিয়ার পক্ষে আদালতে হাজির হওয়া সম্ভব নয়- বললেন দুদকের আইনজীবী

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনায় আদালতে হাজির হতে পারবেন না অসুস্থ খালেদা জিয়া। তার অনুপস্থিতিতেই বিচারিক কার্যক্রম চলবে, বলছেন দুদকের আইনজীবী।

করোনা পরিস্থিতিতে শারীরিক অসুস্থতার কারণে নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার পক্ষে আদালতে হাজির হওয়া সম্ভব নয়। এমনটাই মনে করছেন তার আইনজীবীরা। তবে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের আইনজীবী বলছেন, অসুস্থতার কারণে বিএনপি চেয়ারপার্সন আদালতে হাজির হতে না পারলেও তার অনুপস্থিতিতেই বিচারিক কার্যক্রম চলবে।

কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭ কোটি টাকা ক্ষতি ও দুর্নীতির অভিযোগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাও থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন।

মামলার প্রধান আসামী সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। ১১ বছর পর ২০১৮ সালের ৫ মে বেগম জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক।

বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, ওয়ান এলেভেন এর সময় যারা মাইনাস-টু করতে চেয়েছিল দুই নেত্রীকে। তাদেরকে দেশে থেকে বিতারিত করতে চেয়েছিল। তারা দুইটি মামলা করেছিল। একটি শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আরেকটি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসায় শেখ হাসিনার মামলা খারিজ হয়ে গেলেও, খালেদা জিয়া বিরোধী দলের হওয়ায় দুদক সুযোগ নিয়ে এই মামলা চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রধান আসামীর অসুস্থতার কারণে আবেদন করায় কয়েক দফা পিছিয়েছে অভিযোগ গঠনের শুনানি। আসছে ৫ই জানুয়ারি অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন নির্ধারিত আছে।

বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন,তার শারিরীক অবস্থা খুবই দুর্বল। ইমিউনিটি যার নেই বললেই চলে। সেই রকম একজন মানুষকে আদালতে উপস্থিত করে বিচার কাজ পরিচালনা করার মত ঝুঁকি কে নিবে। এর দায় সরকার নিবে না বলেই তাকে মুক্তি দিয়েছে। আদালতের নেয়ার প্রশ্নই আসে না। আমরাও এই ঝুঁকি নিব না। এখানে রাজনীতির কিছু নেই। যিনি মামলার অভিযুক্ত আসামি যার বিরুদ্ধে চার্জ প্রস্তাব করা হবে তিনি আদালতে উপস্থিত থাকবেন। তিনি উপস্থিত থেকে শুনার পর অভিযোগ গঠন করা হবে। কিন্তু তার অনুপস্থিতিতে চার্জ গঠন করা, শুনানি গ্রহণ করা অযৌক্তিক।

খালেদা জিয়ার পক্ষে বারবার সময়ের আবেদন করে আসামীপক্ষ মামলার বিচারিক প্রক্রিয়াকে দীর্ঘায়িত করার চেষ্টা করলেও আশাবাদী দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। তিনি বলেন, এটা মোটেও রাজনৈতিক হয়রানিমূলক মামলা না। উনি বেশ কয়েকদিন আসেনি অসুস্থতার অযুহাতে আসে নি।এই আমলার পরবর্তী তারিখ ৫ই জানুয়ারি নির্ধারণ করা হয়েছে। আমরা আশা করি উনি আসবেন। যদি উনি না আসেন,আসামির অনুপস্থিতিতে অভিযোগ গঠন করা যায়। এতে আইনে কোন বাধা নেই।

ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে একটি সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি করছে : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে একটি ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী যে অনাহুত বিতর্কের সৃষ্টি করছে তার ভিন্ন কোনো উদ্দেশ্য থাকতে পারে।

তিনি বলেন, ভাস্কর্য নিয়ে মনগড়া ব্যাখ্যা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও দেশের সংস্কৃতির প্রতি চ্যালেঞ্জ।

শনিবার (২৮ নভেম্বর) সকালে নিজের সরকারি বাসভবন থেকে এক ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে একটি ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মপ্রিয় মানুষের মনে বিদ্বেষ ছড়ানোর অপচেষ্টা করছে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এদেশে ইসলাম সম্পর্কে গবেষণা, চর্চা এগিয়ে নিতে বঙ্গবন্ধু প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

বঙ্গবন্ধু ধর্মীয় শিক্ষা প্রসারে মাদ্রাসা বোর্ড পুনর্গঠনসহ ইসলাম প্রচারে তাবলিগ জামাতকে জমি দান করেছিলেন জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা পবিত্র ধর্মের একজন নিবেদিত প্রাণ ও অনুসারী হিসেবে ইসলামের সঙ্গে জ্ঞানবিজ্ঞানের সমন্বয় করে প্রকৃত ইসলামের চর্চা এগিয়ে নিতে জনমানুষের ধর্মানুরাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দেশের প্রতিটি উপজেলায় নির্মাণ করেছেন মডেল মসজিদ কমপ্লেক্স।

তিনি বলেন, একজন ধর্মপ্রাণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন সরকার পরিচালনার দায়িত্বে তখন এদেশে ইসলামবিরোধী কোন কার্যক্রম হবে, তা বিশ্বাস করার কোনো কারণ নেই।

তিনি বলেন, ভাস্কর্যকে যারা মূর্তি বলে অপপ্রচারে নেমেছেন তারা নিজেরাই ভ্রান্তিতে আছেন। দেশের আলেম সমাজ এবং বিশেষজ্ঞগণ ইতিমধ্যেই বারবার বলেছেন, মূর্তি আর ভাস্কর্য এক নয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ইসলাম আমাদের ধর্ম, এ ধর্মের বিধিবিধানে ধর্মীয় ইস্যুতে বাড়াবাড়ির সুযোগ নেই। নিরুৎসাহিত করা হয়েছে ধর্মীয় বিষয়ে বিতর্ক করতে, নিষেধ করা হয়েছে ফিৎনা-ফ্যাসাদ সৃষ্টিতে।

‘বাংলাদেশের স্থপতির ভাস্কর্য টেনে হেঁচড়ে নামানো হবে’ হেফাজত নেতা বাবুনগরীর এমন বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এক ধর্মীয় নেতা ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য রাখছেন। তাদের এমন রুচি এবং ভাষা ব্যবহার দেখে তাদের ধর্মচর্চা ও ইসলামী রুচিবোধ নিয়ে জনমনে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

পবিত্র কোরআনের উদ্ধৃতি দিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, সূরা সাবার ১৩ নং আয়াতে বর্ণিত ‘তামাসিলা’ এবং সূরা ইব্রাহিমের ৩৫ নং আয়াতে বর্ণিত ‘আসনাম’ শব্দ দুটি এক নয়। কাজেই মুফাসসসিরগণ মনে করেন তামাসিলা মানে ভাস্কর্য আর আসনাম মানে প্রতিমা- পূজা। এ’দুটি শব্দকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ভুল ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

ওবায়দুল কাদের প্রকৃত ইসলাম চর্চার আহবান জানিয়ে বলেন, ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করা থেকে আসুন সবাই বিরত থাকি।

তিনি ধর্মকে রাজনৈতিক ইস্যুতে ব্যবহার না করারও আহবান জানান।

ওবায়দুল কাদের হুশিয়ার করে বলেন, সরকারের সরলতাকে দুর্বলতা ভাববেন না, জনগণের শান্তি বিনষ্টের যেকোন অপচেষ্টা করলে জনগণই রুখে দাঁড়াবে।

দেশের মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, সংবিধান এবং রাষ্ট্রবিরোধী যেকোন বক্তব্য বরদাশত করা হবে না বলেও হুশিয়ার করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। বলেন, সরকার প্রধান আগেই বলেছেন, দেশে কোরআন- সুন্নাহবিরোধী কোনো আইন হবে না।

তাই অন্য কোনো পথ না পেয়ে ধর্মীয় ইস্যুকে সামনে এনে ধর্মীয় সহনশীলতা বিনষ্টের যেকোনো অপচেষ্টা সরকার কঠোর হস্তে দমন করবে।

যারা দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে, বিশ্বাস করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়, তাদের সবাইকে এক হয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী সব কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান ওবায়দুল কাদের।

শুধু বঙ্গবন্ধু নয়, আমার বাবার নামের ভাস্কর্যও টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেব: বাবুনগরী

ডেস্ক রিপাের্ট : ভাস্কর্যকে মূর্তির সঙ্গে তুলনা করে তা টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। বলেছেন, তার বাবার নামে কেউ ভাস্কর্য তৈরি করলেও তিনি সেটা করবেন।

শুক্রবার রাতে চট্টগ্রামের হাটহাজারী পার্বতী উচ্চবিদ্যালয় মাঠে আল আমিন সংস্থার আয়োজিত মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধুর নামে নির্মিত ভাস্কর্যের দিকে ইঙ্গিত করে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ‘আমি কোনো রাজনৈতিক দলের নাম নেব না। যারা ভাস্কর্য তৈরি করবে, টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেয়া হবে। আমার বাবার নামেও যদি কেউ ভাস্কর্য তৈরি করে, টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেব।’

বাবুনগরী বলেন, ‘বর্তমান পুরো বিশ্বে আস্তিক আর নাস্তিকের লড়াই চলছে। আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে কোনো লড়াই নেই, শুক্রবারের জুমার নামাজে তারাও পাশাপাশি দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পরস্পরের মধ্যে আত্মীয়তার বন্ধন হয়, মুসলমান হিসেবে সবাই ভাই ভাই। কিন্তু আস্তিক আর নাস্তিক কখনো এক হতে পারে না।’

হেফাজত আমির বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন মদিনার সনদে দেশ চলবে। প্রধানমন্ত্রীর এ কথার সঙ্গে সহমত পোষণ করছি। আমরাও চাই মদিনার সনদে দেশ চলুক।’

মাহফিলে প্রধান বক্তা ছিলেন হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক। কিন্তু ছাত্রলীগ প্রতিহত করবে এমন ঘোষণার পর বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে তিনি সেখানে না যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে বাবুনগরী বলেন, ‘আমরা শান্তি চাই। সংঘাত চাই না। মামুনুল হকও সমাবেশে আসতে আগ্রহী ছিলেন না। আমরা তাকে আনতে আগ্রহী নই। কিন্তু তারপরও কিছু কুচক্রী হাটহাজারী বাসস্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন স্থানে মামুনুল হকের কুশপুত্তলিকা দাহ ও অশ্লীল স্লোগান দিয়েছে। এটি একজন আলেমের সঙ্গে বেয়াদবি।’ এ সময় তিনি শুক্রবার বায়তুল মোকাররমে মিছিল করতে গিয়ে গ্রেপ্তার হেফাজতের কর্মীদের মুক্তি দাবি করেন।

সেলিমা রহমান বললেন- লড়াই করে দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হবে

ডেস্ক রিপাের্ট : যতদিন বিএনপির একজন নেতাকর্মী থাকবে, ততদিন পর্যন্ত গণতন্ত্রের লড়াই চলবে। লড়াই করেই এ দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হবে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান এ কথা বলেছেন।

শহীদ ডা. শামসুল আলম খান মিলনের ৩০তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে এই সভার আয়োজন করা হয়।

সেলিমা রহমান বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় একটি পরিবার হল শহীদ জিয়ার পরিবার। শহীদ জিয়া এ দেশের মুক্তিযুদ্ধে মাঠে থেকে যুদ্ধ করেছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে আপসহীন নেতৃত্ব দিয়েছেন। শহীদ জিয়ার পরিবার গণতন্ত্রের প্রতিক।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ছাত্র সমাজ কোনো অন্যায় সহ্য করে না। বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় ছাত্র সমাজকে শহীদ শামসুল আলম মিলনের ত্যাগ থেকে শিক্ষা নিয়ে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। ছাত্র ও যুব সমাজ দেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।

সেলিমা রহমান বলেন, যখনই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে তখনই আসে দুঃশাসন এবং দুর্ভিক্ষ। আজকে আপনারা দেখতে পাচ্ছেন দুঃশাসন ও দুর্ভিক্ষে বাংলাদেশ অচল হয়ে গেছে। দুর্ভিক্ষ আমাদের দরজায় কড়া নাড়ছে। দ্রব্যমূল্য আজকে আকাশছোঁয়া, সাধারণ মানুষ আজকে খেতে পারছে না, হাজার হাজার যুবক আজকে বেকার। তারপরও তারা (সরকার) নিশ্চিন্তে ঘুমাচ্ছে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিস্তার ঠেকাতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, নো টেস্ট নো করোনা- এই বলে বাংলাদেশের মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে। মানুষ অসহায়ের মতো ঘুরে বেড়িয়েছে, হাসপাতালে কোনো চিকিৎসা নেই, হাসপাতালে কোনো বেড নেই, মানুষের দাফনের কোনো ব্যবস্থা নেই। মানুষ অসহায়ের মতো রাস্তায় মরেছে। করোনাকে তারা (সরকার) দুর্নীতির বাণিজ্য হিসেবে নিয়েছিল। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে শেষ করে দিয়ে আজকে বাংলাদেশের মানুষকে অসহায় করে দিয়েছে। তাই আজকে সময় এসেছে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন যে আপসহীন নেত্রী এ ব্যাপারে কোনো দ্বিমত পোষণ করা যাবে না। তিনি যে বাসায় গেছেন, সেটাও কারাগার। কারাগারে যেমন বিধিনিষেধ, বাসায়ও তেমন। তিনি আপস করে বাসায় যাননি। তার পরিবার কোনো আবেদনও করেনি। তার চিকিৎসার জন্য পরিবার আবেদন করেছে। তিনি বলেন, যদি জেলখানায় খালেদা জিয়ার মৃত্যু হয়, তবে দেশ ও জাতি এমন জঘন্য অপরাধ মেনে নেবে না।

সভার সভাপতি বিএনপি চেয়াপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমরা বলতে চাই- আওয়ামী লীগ সরকার ভোট ডাকাতির সরকার, অবৈধ সরকার, মিডনাইটের সরকার। তাদের কোনো বৈধতা নেই। তাদের হটিয়ে জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এই অবৈধ সরকারকে হটিয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে হবে।

সাবেক ছাত্র নেতা আমিরুল ইসলাম আলিমের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আসাদুজ্জামান রিপন, হাবিবুর রহমান হাবিব, খায়রুল কবির খোকন, জহির উদ্দিন স্বপন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, সাইফুদ্দিন মানিক, খন্দকার লুতফর রহমান, আসাদুর রহমান খান, শিরিন সুলতানাসহ ছাত্রদলের নেতারা বক্তব্য দেন।

হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা মামুনুলকে প্রতিহত করতে চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের অবস্থান

ডেস্ক রিপাের্ট : হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা মামুনুল হককে চট্টগ্রামে আগমন প্রতিহত করতে চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দর এলাকা এবং হাটহাজারীতে অবস্থান নিয়েছে ছাত্রলীগ।

এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের উদ্যোগে হাটহাজারীতে সড়ক অবরোধ করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর ভাষ্কর্য নদীতে ফেলে দেওয়ার হুমকিসহ বিভিন্ন বিতর্কিত বক্তব্যের জন্য সমালোচিত হেফাজত নেতা মামুনুল ইসলামের চট্টগ্রামে আগমন প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়ে ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সকাল থেকেই চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বাইরে বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান গ্রহণ করে প্রতিবাদ সমাবেশ করছে।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি বেসরকারি কারা পরিদর্শক ইয়াছিন আরাফাত কচি বলেন, যেখানেই মামুনুল হক সেখানই প্রতিরোধ করা হবে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙে ফেলার হুমকি দাতা মামুনুল হককে কোনভাবেই চট্টগ্রামের মাটিতে পা রাখতে দেওয়া হবে না।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বলেন, মামুনুল হককে হাটহাজারীতে আগমন প্রতিহত করতে আমরা সড়কে অবস্থান নিয়েছি।

এদিকে, যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ এবং জেলা পুলিশ।

শেখ হাসিনার কাছে অপরাধীর পরিচয় অপরাধীই : বললেন কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একটি সুশৃঙ্খল রাজনৈতিক দল উল্লেখ করে দলটির সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সাংগঠনিকভাবে কোনো অনিয়ম, দুর্নীতির প্রশ্রয় এখানে দেয়া হয় না। যেকোনো অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া মাত্রই নেয়া হয় সাংগঠনিক ব্যবস্থা। গণতন্ত্র চর্চার পাশাপাশি দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগে দুষ্টের দমন ও শিষ্টের লালন নীতি অনুসরণ করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে তার সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা স্বপ্রণোদিত হয়ে যে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছিলেন, তা এখনও চলমান। ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।

রাজনৈতিক পরিচয়ে অপরাধ করার কোনো সুযোগ আওয়ামী লীগে নেই জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, দল কখনো কোনো অপরাধীকে রক্ষা করার ঢাল হবে না। শেখ হাসিনার কাছে অপরাধীর পরিচয় অপরাধীই।

গুটি কয়েক মানুষের অপরাধের জন্য সরকারের অনন্য অর্জনগুলো ম্লান হতে দেয়া যায় না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, অপরাধের দায় ব্যক্তির, দলের নয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি দুটি জেলায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অব্যাহতি দেয়া প্রসঙ্গে বলেন, এটি কেন্দ্র হতে তৃণমূলের জন্য দলীয় প্রধানের একটি বার্তা। দলের অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলাকে এখন গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

সততা, নিষ্ঠা ও দলের প্রতি ত্যাগের স্বীকৃতিস্বরূপ জেলা থেকে কেন্দ্রে পুরস্কৃত করা হয়েছে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

পুরো দেশে সাংগঠনিক নেতৃত্বের উপর দলীয় সভাপতির দৃষ্টি রয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, শেখ হাসিনার কাছে সকলের পারফরম্যান্সের রিপোর্টও রয়েছে।

তিনি বলেন, যারা বর্তমানে বিভিন্ন পর্যায়ে জনপ্রতিনিধি রয়েছেন, দলীয় দায়িত্ব পালন করছেন, তাদের কার্যক্রমও গুরুত্ব সহকারে মনিটর করা হচ্ছে।

ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের সকল স্তরের নেতাকর্মীদের সাংগঠনিক শৃঙ্খলা মেনে এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুসরণের মাধ্যমে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার আহবান জানান।

তিনি নেতাকর্মীদের হুঁশিয়ার করে বলেন, মানুষের ভাগ্য বদলের জন্য বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগ কারও ব্যক্তিগত ভাগ্যবদল ও স্বার্থসিদ্ধির জন্য নয়।

দলের প্রতি ত্যাগ, সততা ও নিষ্ঠা থাকলে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা তৃণমূল থেকে সময়মতো যে কাউকে যেকোনো দায়িত্ব দল এবং সরকারে দিতে পারেন।

বিশ্ব ফুটবলের কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়েগো ম্যারাডোনার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুংখ প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এসময় তিনি বলেন, ম্যারাডোনা ছিলেন কোটি ফুটবলভক্তের প্রাণ। তার মৃত্যু ফুটবল তথা ক্রীড়া বিশ্বের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।

`বিএনপির গণতন্ত্র চর্চার সাফল্য বলতে ‘হাওয়া ভবন প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে মানুষের অধিকার হরণ করা’

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিদেশীদের কাছে নয়, দেশের জনগণের কাছে নালিশ করতে বিএনপি’র প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

ওবায়দুল কাদের আজ বুধবার সকালে সংসদ ভবনস্থ তাঁর সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ আহবান জানান।

এ সময় তিনি বলেন, ‘বিএনপি কথায় কথায় বিভিন্ন দূতাবাসে নালিশ করে আর রাতের আঁধারে দূতাবাসের কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করে। তাদের মুখে দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের কথা মানায় না। তারা কীভাবে স্বাধীনতা রক্ষা করবে?’

‘আওয়ামী লীগে গণতন্ত্রের চর্চা নেই’ বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘গণতন্ত্রহীনতা এবং অগণতান্ত্রিক চর্চা যাদের দলগত বৈশিষ্ট্য তাদের মুখে একথা ভূতের মুখে রাম নাম ধ্বনির মতো। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন দলে এবং সরকারে তথাকথিত বিএনপি মার্কা গণতন্ত্র চর্চাতো জাতি দেখেছে।’

তিনি বলেন, ‘যাদেরকে ১৯৯৬ সালে জনগণ আন্দোলন করে ক্ষমতা থেকে নামিয়েছে তারা এখন গণতন্ত্রের সবক দিচ্ছে। বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা হাস্যকর। তারা যা করছে আসলে তা জনগণের সাথে প্রতারণা।’

কাদের বলেন, ‘বিএনপির গনতন্ত্র হচ্ছে, রাতের বেলায় কারফিউ, আর নিজ দলে বছরের পর বছর কমিটি গঠনে ব্যর্থ হওয়া। আবার কমিটি গঠন হলেও তা নিয়ে নিজ দলের অফিসে নিজেরা আগুন দেয়া। জন্মলগ্ন থেকে বিএনপি গণতন্ত্রের মুখোশ পরে চললেও তাদের নেতাদের মুখচ্ছবিতে জুলুমতন্ত্র আর সুবিধাবাদের প্রতিচ্ছবি বার বার ফুটে উঠে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির গণতন্ত্র চর্চার সাফল্য বলতে ‘হাওয়া ভবন প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে মানুষের অধিকার হরণ করে দূর্নীতি লালন–পালন ও বিকাশ কেন্দ্র’ তৈরি করা।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি নেতাদের কথা শুনলে মনে হয়, দেশটা তারা স্বাধীন করেছে। আর আওয়ামী লীগ সাইড লাইনে বসে বসে দেখেছে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমেই এসেছে এদেশের স্বাধীনতা এবং দেশের স্বাধীনতার সুরক্ষা আওয়ামী লীগের হাত ধরেই এসেছে।’

বিএনপি’র রাজনীতি এখন জনমুখী নয়, তাদের রাজনীতির মওকা এখন পদ্মা মেঘনা যমুনার তীরের মানুষ নয় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি এখন তাকিয়ে থাকে টেমস নদীর তীরের দিকে। বিএনপির নেতৃত্বের কোন সক্ষমতা নেই, যেকোন সিদ্ধান্ত গ্রহণের, তারা নির্দেশ পালনকারী মাত্র। তাই জনগণ এখন বুঝতে পারছে-পুতুল কোথা থেকে নাচানো হয় আর সুতার টান কোথায়?’

এদেশের রাজনীতিতে সততা আর ত্যাগের প্রতিক হচ্ছেন বঙ্গবন্ধু পরিবার উল্লেখ করে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু পরিবারের হাতে কোন ভাঙ্গা স্যুটকেস ছিলোনা, যা থেকে বড় বড় জাহাজ বেরিয়ে আসবে, ছিলো শুধু জনগণের ভালোবাসা। এদেশের রাজনীতিতে আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধু পরিবার ত্যাগের মহিমায় সমুজ্জ্বল।’

তিনি বলেন, ‘ক্ষমতা ভাগাভাগি আর উচ্ছৃষ্ট ভোগ করা বিএনপির ঐতিহ্য, আর ভোগ বিলাস দূর্নীতি, ষড়যন্ত্র বিএনপির মজ্জাগত। বিএনপি ক্ষমতাকে নিজেদের ভাগ্যবদলের উৎস মনে করে। বঙ্গবন্ধু পরিবার নিয়ে মনগড়া কথা এবং মিথ্যাচার বিএনপির বিকৃত মানসিকতা আর ইতিহাস বিকৃতির ধারাবাহিকতা মাত্র।’

আগামী ২ বছরের জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডব্লিুএইচও, এফএডি এবং ওআইই কর্তৃক ওয়ান হেলথ গ্লোবাল লিডার্স গ্রুপ অন অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল রেজিস্ট্যান্সের (এএমআর) কো-চেয়ারম্যান মনোনীত হওয়ায় দেশের জনগণ ও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান ওবায়দুল কাদের।

৯২৪