গাইবান্ধায় পেট্রোলবোমা নিহতদের দাফন-দাহ সম্পন্ন

Gaibandha_Photo_01__07_02_15__265807550 (2)ডেস্ক রিপোর্টঃ গাইবান্ধায় যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোলবোমা হামলায় নিহত ছয়জনের দাফন-দাহ সম্পন্ন হয়েছে। এদের সবাই জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা ছিলেন।

শনিবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার আগে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চন্ডীপুর ইউনিয়নের স্থানীয় খোলা মাঠে পাঁচজনের নামাজে জানাজা ও কালীর খামার গ্রামের মাঝিপাড়ার শ্মশান ঘাটে একজনের দাহ অনুষ্ঠিত হয়। 

জানাজায় ইমামতি করেন মাওলানা শাহজালাল মিয়া। 

জানাজায় গাইবান্ধা-১ সুন্দরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ইউএনও) রাশেদুল হক প্রধান, সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  মোজাম্মেল হক, চন্ডীপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা আহমেদ, কঞ্চিবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল খায়ের হাফিজার রহমানসহ এলাকার হাজারো মানুষ অংশ নেন।

শেষে প্রত্যেকের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন ও দাহ সম্পন্ন করা হয়।  এরআগে শনিবার বিকেল ৪ টার দিকে চন্ডীপুর গ্রামের বাড়ি এসে পৌছায় নিহতের মরদেহ।

তারা হলেন, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চন্ডীপুর ইউনিয়নের পশ্চিম চন্ডীপুর সিচা গ্রামের মৃত শাহাবুদ্দিনের স্ত্রী হালিমা বেওয়া (৪০), একই গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে সুমন মিয়া (২০), তারা মিয়ার শিশু ছেলে সুজন (১০) তার স্ত্রী সোনাভান (৩০), কঞ্চিবাড়ি ইউনিয়নের দক্ষিণ কালির খামার গ্রামের রিক্সা চালক সৈয়দ আলী (৪০) এবং মধ্যপাড়া নাগের খামার গ্রামের বলরাম দাসের শিশু মেয়ে শিল্পী (৭)।  

 শুক্রবার দিবাগত রাত পৌনে ১১টার দিকে গাইবান্ধা-পলাশবাড়ী সড়কের তুলসীঘাট এলাকায় বোমা হামলায় শিকার হন তারা।  

এদের মধ্যে সৈয়দ আলী, সুমন, শিল্পী ও হালিমা ঘটনাস্থলে ও রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে পরদিন সকালে শিশু সুজন এবং বিকেলে তার মা সোনাভান মারা যান।  

শুক্রবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার পাঁচপীর থেকে নাপু এন্টারপ্রাইজের একটি বাস অর্ধশত যাত্রী নিয়ে ঢাকা উদ্দেশে যাচ্ছিলো। তুলসিঘাট এলাকায় পৌছালে বাসটি লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা ছোড়ে দুর্বৃত্তরা। এতে ওই হতাহতের ঘটনা ঘটে। 

১৬ জেলায় ডাকা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার

mohakhali-bus-stand-220110706091553বিএনপি নেতা শিমুল বিশ্বাসের মুক্তির আশ্বাসে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৬ জেলায় ডাকা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে। সকালে সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন এই ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়।
 
বুধবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নৌপরিবহন মন্ত্রীর বৈঠকে শিমুল বিশ্বাসের মুক্তির আম্বাস পেয়ে এই ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়। এর আগে রংপুর বিভাগের দেড় শতাধিক রুটে আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা থেকে পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়।
 
এদিকে রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় বুধবার সন্ধ্যা থেকে চলা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে। ১৮ দলের ডাকা টানা ৮৪ ঘন্টার হরতালের পর পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয়ায় যাত্রীরা পড়ে চরম দূর্ভোগে।