প্রদীপ সম্পর্কিত বিস্ময়কর তথ্য নিয়ে যা বললেন আসিফ নজরুল

ডেস্ক রিপাের্ট : কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা ঘটনা নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল গত রাতে তার ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন। এখানে তা তুলে ধরা হলো।

সিনহা হত্যাকাণ্ডে গ্রেফতার হয়েছিল ওসি প্রদীপ। তার সম্পর্কে বিস্ময়কর কিছু তথ্য পাওয়া গেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি রিপোর্টে।

প্রথম তথ্য হচ্ছে প্রদীপের কাছে সাড়ে ৭ লাখ টাকা দামের একটি ব্যক্তিগত ওয়াল্টার পিস্তল আছে। প্রশ্ন হচ্ছে, সে পিস্তল কেনার টাকা জন্য এতো টাকা কোথায় পেল? সে এই পিস্তল দিয়ে যেসব মানুষকে গুলি করেছে, তার হিসেব নাকি জিডি করা আছে। কোথায় এসব জিডি?

দ্বিতীয় তথ্য, সে প্রটোকলের তোয়াক্কা না করে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ফোন করেছে। এই কর্মকর্তাদের নাম কি? প্রদীপের বিভিন্ন হত্যাযজ্ঞ ও দায়মুক্ত থাকার বিষয়ে এদের ভূমিকা কি?
তৃতীয় তথ্য সবচেয়ে গুরুতর। তদন্ত কমিটি বলেছে যে নিয়ম ও আচরণবিধি ভেঙে একটি বিদেশি দূতাবাসে যোগাযোগ করেছে।

আমার প্রশ্ন একজন সামান্য ওসি-র সাথে বিদেশশি দূতাবাসের যোগাযোগ থাকে কিভাবে? এ দূতাবাসটি কোন দেশের জানতে চাই। প্রদীপের ক্ষমতা, দম্ভ, দায়মুক্তির সাথে দূতাবাসটির সম্পর্ক্ কি?
পৃথিবীর যে কোন স্বাধীন ও সভ্য দেশে এসব প্রশ্নের উত্তর বের করতো সরকার। আমাদেরও এসব উত্তর জানা দরকার।

এরসঙ্গে নাগরিকদের নিরাপত্তা শুধু নয় দেশের সার্বভৌমত্বের প্রশ্নও জড়িত।

‘মা হওয়ার পরও আব্বা আমাকে ভাত মেখে খাওয়াতেন’

গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকায়: ঢাকায় আমরা এলাম ১৯৫৪ সালে। আমি আর কামাল। জামাল ছিল খুব ছোট। আর প্রথমবার আমরা এসেছিলাম ১৯৫২ সালে। তখন ভাষা আন্দোলন হয়। আব্বা ছিলেন জেলখানায়। তখন খবর পেলাম, আব্বার শরীর খুব খারাপ। তখন দাদা সিদ্ধান্ত নিলেন, আমাদের নিয়ে ঢাকা আসবেন, আমরা তখন নৌকায় করে ঢাকা এসেছিলাম। আমার দাদার বড় নৌকা ছিল। তাতে দুটি কামরা ছিল। তিন মাল্লার নৌকা। আমি আর কামাল আমরা ছোটবেলায় দৌড়াদৌড়ি করতাম। নৌকার মধ্যে হাঁটতে পারতাম। নৌকার ভেতরেই রান্নাবান্না হতো। খাওয়াদাওয়া হতো। যখন ঝড় আসত কিংবা পাশ দিয়ে স্টিমার যেত, নৌকা যে দুলত, দাদি আমাদের ধরে রাখতেন। আমার খুব মনে আছে। ঢাকায় আসতে আমাদের চার দিন লেগেছিল।

শেখ মুজিব যখন বাবা: আমার আব্বা এত বড় নেতা হলে কী হবে, যতটুকু সময় পেতেন আমাদের যত্ন নিতেন। আমি যখন আমার জীবনে ছেলেমেয়ের মা, তখনও কিন্তু আব্বা ভাত মাখিয়ে দিতেন; আমি বসে বসে খেতাম। আসলে আমাদের জ্ঞান হওয়ার পর যেটা হয়েছে, আমরা দেখতাম আব্বা জেলখানায়। ছাড়া পেলে তার সঙ্গে দেখা হতো। দেখতাম বক্তব্য দিতেন। এটাই ছিল আমাদের জীবন। বেশিরভাগই দাদা-দাদির কাছে।

১৯৪৯ সালে আব্বা যখন গ্রেপ্তার হন, তিনি ছাড়া পাননি, একটানা ১৯৫২ সাল পর্যন্ত জেলখানায়। তাকে যখন জেলে নেওয়া হয়, তখন আমার ছোট ভাইটি (শেখ কামাল) খুবই ছোট। আব্বাকে তখন সেভাবে দেখার সুযোগ পায়নি। কাজেই আমি যখন আব্বা আব্বা বলে কাছে যেতাম, ছোট ভাই খুব অবাক হয়ে দেখত। তখন জিজ্ঞেস করত, তোমার আব্বাকে কি আমি একটু আব্বা বলতে পারি? এটাই ছিল আমাদের জীবন।

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: দিনরাত সারাক্ষণ ওই রাস্তাভর্তি মিছিল। সারাক্ষণ মানুষ আর মানুষ। আব্বা এই গাড়িবারান্দার ওপর দাঁড়িয়ে বক্তৃতা দিতেন। গেটের সামনে দাঁড়িয়ে বক্তৃতা দিতেন। কোনো ক্লান্তি ছিল না। এই কোনার রুমে টেলিফোন ছিল। ওখান থেকেই তিনি স্বাধীনতার ঘোষণার কথা মুখে বলে দেন। এই প্রচারটা যখন পাকিস্তানের ওয়্যারলেসে ধরা পড়ে, তারা ৩২ নম্বরের বাসায় দ্রুত চলে আসে এবং আব্বাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। তখন থেকে অপেক্ষার পালা। হঠাৎ আমরা খবর পেলাম, ৮ জানুয়ারি তিনি মুক্তি পেয়েছেন এবং সেখান থেকে সরাসরি লন্ডন চলে গেছেন। তারপর তিনি ১০ জানুয়ারি (১৯৭২) ফিরে আসেন। আমরা অপেক্ষা করে আছি। কামাল, জামাল, আমার দাদা, রাসেল সবাই এয়ারপোর্টে যায়। লাখো মানুষ। সমস্ত রাস্তা মানুষে মানুষে ভরা। আমার মা রেডিওর পাশে বসা। এসেই তিনি প্রথমে চলে যান তার জনগণের কাছে। আমাদের কাছে তিনি আসার পর। যখন তিনি আসেন সত্যিকার অর্থেই তখন একতালা বাসা। তখন দুটো কামরা ছিল। মা তার কামরায় বসেছিলেন। আমরা তখন সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলাম। আব্বা এলেন, আমাদের সবাইকে আদর করলেন। আমরা সবাই ছিলাম বাকরুদ্ধ। আমাদের চোখে পানি। মনে আনন্দ। তখন আমাদের যে কী এক অনুভূতি। এই যে ফিরে পাওয়াটা। এই ফিরে পাওয়াটা আমাদের জন্য কত মূল্যবান ছিল। আমরা নানা কথা শুনতাম। উনাকে মেরে ফেলেছে ইত্যাদি ইত্যাদি। ফিরে এসে তিনি সবাইকে আদর করার পর যখন মায়ের কাছে গেলেন, মা বাবাকে এমনভাবে জড়িয়ে ধরলেন মনে হলো যেন তিনি জীবনের সব পাওয়া পেয়ে গেছেন।

খন্দকার মোশতাক প্রসঙ্গে: খন্দকার মোশতাক ষড়যন্ত্র করতে পারে, এটা আব্বা জানতেন। বরং যখন তাজউদ্দীন চাচা চলে গেলেন। বাবার জন্য এটা খুব দুঃখজনক ছিল। সে সময় আমি হঠাৎ কথায় কথায় বলে ফেলেছিলাম যে, ঠিকাছে যখন তাজউদ্দীন চাচা চলে গেছে তাতে কী হয়েছে। মোশতাক চাচা তো আছেই। এ কথা শুনে আব্বা যা বললেন, সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমাকে বললেন, মোশতাককে কি তুই চিনিস? ও তো সুযোগ পেলে আমার বুকে ছুরি মারবে। অর্থাৎ আব্বা জানতেন, কে কী করতে পারে।

১৫ আগস্টের ফোন: সকালে একটা ফোন বাজল। পনেরো আগস্ট সকালবেলা। ফোনের আওয়াজটা আমার মনে হয়, এত কর্কশ ফোনের আওয়াজ আমি জীবনে শুনিনি। আমরা যে রুমে ছিলাম, ও নেমে গেছে। ঠিক সে সময় ফোন। হোস্ট ফোনটা ধরলেন। তারপর আমাকে বললেন, তোমার হাসবেন্ডকে ডাকো। আমি বললাম, কেন কী হয়েছে আমাকে বলেন। বলল, না। তাকে ডাকো। তখন শুনলাম দেশে ক্যু হয়েছে। ক্যু হয়েছে শুনে আমি বললাম, তাহলে তো কেউ আমাদের বেঁচে নেই। ঠিক এইটুকু আমার মুখ থেকে এলো। তারপর থেকে যেকোনো ফোন বাজলেই খুব হঠাৎ বুকের ভেতরে কেমন যেন করে উঠত। কেমন যেন অন্যরকম কষ্ট যে ফোনের আওয়াজটাই সহ্য করতে পারতাম না।

বেলজিয়াম থেকে জার্মানি: হুমায়ুন রশীদ সাহেবকে অ্যাম্বাসাডর সানাউল হক সাহেব বললেন যে আপনি যে বিপদটা আমার ঘাড়ে দিয়েছেন, এখন নিয়ে যান। আমাদেরকে উনারা বর্ডারে পৌঁছে দেওয়ার কথা। উনি নিজে গাড়িটা দিলেন না। সোজা বলে দিলেন যে গাড়িটা নষ্ট। তখন আরেকজন অফিসার ছিলেন। উনার স্ত্রীর সঙ্গে ক্লাস সেভেন থেকে একসঙ্গে পড়তাম। সে ভদ্রলোক একটু খাতির করলেন। তখন বেলজিয়াম ভাষায় নিউজ হচ্ছে। বারবার টিভিতে আব্বার ছবি দেখাচ্ছে। কিন্তু আমরা কোনো ভাষা বুঝতে পারছি না। তো, বেলজিয়ামের বর্ডারে নামলাম। তারপর নো-ম্যান্স ল্যান্ডে হেঁটে আমাদের মালপত্র সব হাতে নিয়ে ইমিগ্রেশন করে আমরা ওপারে যাই। হুমায়ুন রশীদ সাহেব উনার সেক্রেটারিকে পাঠিয়েছিলেন গাড়ি নিয়ে, কারণ চার-পাঁচ ঘণ্টা যেতে হবে। আমাকে রাতে হুমায়ুন রশীদ সাব আলাদা ডেকে নিলেন। বললেন, তুমি একটু আসো। উনার রুমে, উনি আর উনার স্ত্রী বসা। তখনি বললেন, দেখো আমি চেষ্টা করেছি খোঁজ করতে। যতদূর খবর পাচ্ছি, কেউই বেঁচে নেই। এ কথাটা যখন শুনলাম। সত্যি কথা বলতে কি, আমি তা বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। কিন্তু আমার মনে হচ্ছিল, আমার শরীরের সকল রক্ত যেন একেবারে হিমশীতল হয়ে গেল। তখনি মনে হয়েছিল, আমি পড়ে যাব। আমি অনেক কষ্ট করে চেয়ার ধরে নিজেকে সামলালাম। উনি, উনার ওয়াইফ মিলে আমাকে অনেক সান্ত্বনা দেন। তখন আমি আর রেহানাকে এসে কিছু বলতে পারিনি। আমি এসে দেখি রেহানা ঘুমে আছে। আমিও তার পাশে আস্তে জড়িয়ে ধরে শুয়ে পড়লাম।

হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী পরিবারের সহায়তা: তবে হুমায়ুন রশীদ সাহেবের ওয়াইফ যথেষ্ট করেছেন। আমাদের খাবার উনি গাড়িতে করে কালস্ট্রুহে পৌঁছে দিয়ে আমাদের হাতে উনি এক হাজার ডশমাক দিয়ে বললেন, তোমাদের হাতে তো অত টাকা নেই। তারপর একটা স্যুটকেস ভরে গরম কাপড় ভরে দিলেন। এগুলো তো লাগবে। কোথায় পাবা। কীভাবে কিনবা। বোধ হয় সময়ের স্নেহ আর ভালোবাসাটা বা একটা আস্থা, এটা আমাদের জন্য খুব দরকার ছিল। জামন সরকার বলল, আমরা চাইলে পলিটিক্যাল অ্যাসাইলাম নিয়ে সেখানে থাকতে পারব। আর মিসেস গান্ধী সাথে সাথে উনার অ্যাম্বাসাডর দিয়ে আমাদের অ্যাম্বাসাডর হুমায়ুন রশীদ সাহেবের সঙ্গে যোগাযোগ করলেন। মাশাল টিটো ও তার অ্যাম্বাসাডর দিয়ে যোগাযোগ করলেন। তখন একটাই চিন্তা ছিল, আমরা দেশে যাব। দেশে যাব।

ইন্দিরা গান্ধীর আন্তরিকতা: মিসেস গান্ধী যেহেতু আমাদের মেসেজ পাঠালেন। সে ব্যবস্থা অনুযায়ী আমরা ইন্ডিয়াতে চলে আসি। যখন মিসেস গান্ধীর সঙ্গে কথা বলি, তিনি বলেন- তুমি কিছু খেয়েছ? তুমি ওমলেট খাবে? চা খাবে, টোস্ট খাবে? উনি উঠে গিয়ে সেই ওমলেট টোস্ট আর চা নিয়ে এলেন। নিজের কাপে চা ঢেলে আমাকে বললেন, খাও। তোমার মুখটা একদম শুকনো। আর তুমি কিচ্ছু খাওনি। মানে এমন ভালোবাসা, স্নেহ ঘরোয়াভাবে তিনি যেটা দেখিয়েছেন, সেটা ভোলা যায় না। সেটা আমার মনে পড়ে। সত্যি কথা বলতে কী ওই সময়ে বাবা হারানোর পর ওনার সামনে গিয়ে এই অনুভূতি হচ্ছিল- আমাদের জন্য কেউ আছে। কারণ আমাদের মুক্তিযুদ্ধে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে ওনার যে অবদান।

দিল্লির অভিজ্ঞতা: প্রথম কয়েকটা বছর বসে বসে চিন্তা করে সময় যাচ্ছিল। আমি আসলে বলতে পারব না। হয়তো একভাবে বসে আছি, বসেই আছি। হয়তো এমনও সময় গেছে আমি ছেলেমেয়েদের খাবারই দেইনি। ভুলেই গেছি ওদের খাবার দিতে হবে বা রান্না করতে হবে। রান্না করে সংসার করা সেটা বলা চলে দিল্লিতে এসেই শেখা। ৮-১০ প্রকারের ডাল। সেটা আমি এখন বলতে পারছি না। মসুর ডাল, মুগ ডাল আর ছোলার ডালের বেশি চিনি না। ওদের অনেক রকমের ডাল। ধুলিডবা না ধুলির ডাল আবার কি। শিং মাছ ধরা নিয়ে কয়েকজনের দৌড়াদৌড়ি, বহু অভিজ্ঞতা আমাদের আছে। সারাক্ষণ উদ্বেগে থাকতাম- দেশে কী হচ্ছে। কী হবে। কারণ এ দেশটা স্বাধীন করেছিলেন আমার বাবা। দেশে গণতন্ত্র থাকবে। মানুষের কল্যাণ হবে। কিন্তু সেটা তো হলোই না। উল্টো একটা খুনিদের রাজত্ব কায়েম হয়ে গেল।

যখন দেশে ফিরলেন: আমি যখন ৮১ সালে ফিরে এলাম। তখন এ দেশে কী অবস্থা ছিল? খুনিরা তখন বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি করে। ফরেন মিনিস্ট্রিতে চাকরি করে। অবাধে বিচরণ করে। সরকার তাদের মদদ দিচ্ছে। জয়বাংলা স্লোগান নিষিদ্ধ। বলা যাবে না। বলতে গেলে বিএনপির গুন্ডাপান্ডারা ছুটে আসে, রীতিমতো মারতো। ছুরি দিয়ে কাটা, কোপ দিয়ে কেটে দিত। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের নিরাপত্তা দেওয়া হবে, তাদের বিচার করতে দেওয়া হবে না- এটা কী ধরনের আইন। বঙ্গবন্ধুর ছবি নিষিদ্ধ।

আসার পর যখন ট্যুর করতে লাগলাম- আমার তো তখন থাকার জায়গাও ছিল না। কোথায় থাকব জানি না। বাসায় ভাড়া থাকব, আমার তো কোনো সোর্স অব ইনকামও নেই। ৩২ নম্বরের বাসায় তো ওঠার প্রশ্নই আসে না। আর ওটা তখন সরকারের হাতে। আমি আসার পর যে মিলাদ পড়ব সেটাও পড়তে পারিনি। আমি রাস্তার ওপর মিলাদ পড়ে চলে আসি।

১৫ আগস্ট ও বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার: একজন নারী হত্যা হতেই সবাই চিৎকার করে। শিশু হত্যা হলে সবাই প্রতিবাদ করে। আর এই ৩২ নম্বরের বাসায় পনেরো আগস্ট শিশু, নারী থেকে শুরু করে রাষ্ট্রপতিকে পর্যন্ত হত্যা করা হলো, আর সেই খুনি ঘুরে বেড়াবে, রাজনৈতিকভাবে তাদের নিরাপত্তা দেওয়া হবে। তাদের বিচারের আওতায় আনা হবে না- এটা কী ধরনের আইন। সভ্য জগতে তো এ রকম আইন হতে পারে না।

আমাদের বাসা সবার জন্য একেবারে উন্মুক্ত দরজা। যে কারণে ষড়যন্ত্রকারীরা সুযোগ পেয়ে গেল। তারাও সারা দিনরাত আসা-যাওয়া করত, দেখত, জানত। যেমন- ডালিমের শাশুড়ি, ডালিমের বউ সকাল বেলা আসত আর সন্ধ্যার পর যেত। ডালিমও আসত। নুর কামালের সঙ্গে একসঙ্গে এডিসি ছিল। যেকোনো সময় চলে আসত। এমনকি জিয়াউর রহমান ও তার স্ত্রী। ওরাও আমাদের বাসায় আসতো, বসতো।

১৯৯৬ সালে আমি প্রথম সরকার গঠন করলাম। পার্লামেন্টে আসার পর ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স বাতিল করলাম। বাতিল করার পর আমরা আইন করলাম। অনেকে বলছেন, স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল গঠন করতে বা নতুন আইন করতে। আমি বললাম, না। বাংলাদেশের ৮-১০ জন মানুষ যেভাবে বিচার পান সেই আইনেই হবে। আমি বাংলাদেশের সাধারণ নাগরিক। নাগরিক হিসেবে আমি সেভাবেই বিচার চাই।

এত সংগ্রামের ফলে ওই (১৯৯১) নির্বাচনে হারাটা- আসলে বিশ্বাস করতেও অবাক লাগে। আমাদের পাঁচ বছর চলে গেল (২০০১), বিচারটা সম্পন্ন হলো না। ওই অবস্থায় পড়ে ছিল। খুব স্বাভাবিক, বিএনপি আসার পর ওই কেস আর চালায়নি। ২০০৯ সালে যখন আবার সরকার গঠন করি, তখন উদ্যোগ নিই।

মামলাটা দিনের পর দিন চলেছে। যিনি রায় দেন গোলাম রসুল সাহেব, অত্যন্ত সাহসের সঙ্গেই রায় দেন। অবাক হবেন যে, তার তিনটি মেয়ে ছোট ছোট। কীভাবে যেন তার বাড়িতে এমন একটি পরিবেশ তৈরি করে ফেলল- মেয়েগুলোর যেন মানসিক কিছু একটা সমস্যা বা তার ওয়াইফকে ভীতি প্রদর্শন। এবং যেদিন বিচারের রায় হবে, সেদিন বিএনপি হরতাল ডাকল। যাতে করে জজ সাহেব কোর্টে যেতে না পারেন। রায় দিতে না পারেন, সে বাধাও কিন্তু দিয়েছিল। প্রথম রায় যখন পাই, আমি সঙ্গে সঙ্গে ৩২ নম্বরের বাড়িতে চলে গেছি। সিঁড়ির কাছে বসি। আমি সব সময় সিঁড়ির কাছে বসি। সিঁড়ির কাছ থেকেই আব্বার আত্মাটা বেরিয়ে গেছে।

আলসেখানা থেকে রাজনীতির ময়দানে: রেহানার সঙ্গে আমার মায়ের অনেক মিল। সে খুব গোছানো, নিয়মমাফিক। আমি না। আমি সব থেকে আলসে। আমার শখ ছিল গান শোনা আর বই পড়া। সারাদিন গান শুনে আর বই নিয়ে পড়ে থাকতাম। আমার ঘরের নাম ছিল ‘আলসেখানা’। আন্দোলন-সংগ্রামে ছিলাম। কলেজে ভিপি নির্বাচিত হলাম, এটা ঠিক। কিন্তু যে একটা বড় দলের নেতৃত্ব দিতে হবে বা একদিন প্রধানমন্ত্রী হবো- এসব চিন্তা কোনোদিনই মাথায় ছিল না। আব্বা কিন্তু নিজের মতো করে বলতেন, এ দেশটাকে নিয়ে তিনি কীভাবে চিন্তা করেন। কী করবেন। খুব স্বাভাবিকভাবেই একটা দেশকে স্বাধীন করতে হলে যে পদক্ষেপগুলো হিসাব করে করে নেওয়া এবং সেটাকে সম্ভব করা খুব কঠিন কাজ। কেউ যদি মনে করে খুব সহজে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে গেল, এটা কিন্তু না।

এলাম যখন স্বাভাবিকভাবেই দায়িত্বটা তো নিতে হবে। কাজ করতে হবে। আমার যেটা লক্ষ্য ছিল, পার্টির মধ্যে অনেক দ্বিধাবিভক্তি ছিল। আমাকে নিয়ে আসা হয়েছিল দলের ঐক্য বজার রাখতে। তো আমি সে অনুযায়ী চেষ্টা করে গেলাম- সংগঠনটাকে আগে গড়ে তুলি। ইডেন হোটেল যেখানে ছিল, সেখানে আমাদের সভা হতো। সেখানে প্রথম আমি একটা ঘোষণা দিয়েছিলাম- বাংলাদেশে আর আমরা রক্তক্ষয় দেখতে চাই না। সেনাবাহিনীতে আর বিধবার কান্না শুনতে চাই না। ছেলেহারা মায়ের কান্না শুনতে চাই না। সবাইকে ধৈর্য ধরতে হবে। বাংলাদেশে গণতন্ত্র চাই। যখন আমি এ বক্তব্য দিই, অনেকেই আমাকে নিষেধ করে। কী বলেছি যে, মিলিটারি আসবে। আমাকে সত্যটা বলতে হবে। এভাবে দেশ চলতে পারে না।

স্বপ্নের টুঙ্গিপাড়া: যখন টুঙ্গিপাড়া যাই ভীষণ ভালো লাগে। খুবই ভালো লাগে। মনে হয় যেন আমি আমার মাটির কাছে ফিরে এসেছি। মানুষের কাছে চলে এসেছি। আমার তো মনে হয়- পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর জায়গা টুঙ্গিপাড়া। খালের পাড়ে একটা হিজলগাছ ছিল। হিজলগাছের অনেক শিকড় হয়। ছোটবেলায় হিজলগাছের শেকড় থেকে লাফ দিয়ে পানিতে ঝাঁপাতাম।

ছোটবেলা থেকেই আমার ভয়ডর কম। গ্রামে মানুষ হয়েছি। এভাবে খোলা বাতাসে। খোলা পরিবেশে বড় হয়েছি বলেই বোধ হয় মানসিক শক্তিটা বাড়ে। গ্রাম ছাড়া ভালো লাগে না। যখন স্কুল ছুটি হতো আমরা চলে আসতাম। বিশেষ করে ডিসেম্বরে স্কুল ছুটির সময় সবাই চলে আসত। ঘরে ঘরে রান্না হচ্ছে খাওয়া হচ্ছে। সবাই একসঙ্গে। পরিবার, আত্মীয়স্বজন প্রতিবেশী আনন্দঘন পরিবেশে সবাই থাকত। আমি যখন রিটায়ার করব, টুঙ্গিপাড়া গিয়ে থাকব।

শেখ হাসিনা: প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা

(হাসিনা: এ ডটার’স টেল তথ্যচিত্র থেকে সংকলিত) – সমকাল থেকে

সাহেদ গ্রেপ্তার: মানুষ কেন সন্দেহ করে?

আমীন আল রশীদ : ‘আসামি সাহেদকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে যায় র‌্যাব। এ সময় র‌্যাবকে লক্ষ্য করে তার সহযোগীরা গুলি ছোঁড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে সাহেদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।’ ঘটনাটি এরকম ঘটেনি বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘ক্রসফায়ার’ বা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ কোনো অপরাধী/ আসামি/ সন্দেহভাজনের নিহত হওয়ার পরে যে ধরনের বিবৃতি দেওয়া হয়, রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মোহাম্মদ সাহেদের ক্ষেত্রে ঘটনাটি সেরকম ঘটেনি। বরং তাকে গ্রেপ্তারের নাটকীয়তা চলেছে বেশ কয়েকদিন ধরে এবং অবশেষে ১৫ জুলাই ভোরে তাকে গ্রেপ্তারের খবর জানানো হলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন কিছু বিষয় বা প্রশ্ন সামনে এসেছে, যেসব প্রশ্ন সাধারণ মানুষ ‘ক্রসফায়ার’ বা ‘বন্দুকযুদ্ধ’ সম্পর্কেও করে থাকে।

সাহেদকে গ্রেপ্তারের যেসব ছবি গণমাধ্যমে এসেছে তাতে দেখা যাচ্ছে, তার জামায় কাদা লেগে রয়েছে; কোমরে পিস্তল। কিন্তু জামায় কাদা অথচ জুতায় কাদা নেই। জামায় কাদা লেগে আছে মানে হলো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তাড়া খেয়ে তিনি দৌড় দিয়েছেন এবং কাদায় পড়ে গিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন, জামায় কাদা থাকলে জুতায়ও কাদা লাগার কথা। দ্বিতীয়ত, কোমরের বাম পাশে প্যান্টের বেল্টের সঙ্গে পিস্তল গোঁজা।

কেউ কেউ রসিকতা করে লিখেছেন, ‘সাহেদ বাঁ হাতে অস্ত্র চালাতেন।’ কোমরে পিস্তল থাকা অবস্থায় র‌্যাব কর্মকর্তারা তাকে সঙ্গে নিয়ে ছবি তুলেছেন। প্রশ্ন উঠেছে, তাকে নিরস্ত্র না করেই কি গ্রেপ্তার করা হয়েছে? আবার এতো তাড়াহুড়ার পরও পিস্তলের পজিশন ঠিক থাকলো কী করে? অস্ত্রসহ ছবির প্যান্টের সঙ্গে অন্য ছবির প্যান্টের মিল নেই বলেও কেউ কেউ উল্লেখ করেছেন।

একজন লিখেছেন, ‘ছবি দেখে মনে হচ্ছে, পালানোর সময় সাহেদের সঙ্গে র‌্যাবের ধস্তাধস্তি হয়েছে। কিন্তু, এরকম কোনো ঘটনা ঘটলে যে ধরনের উত্তেজনা থাকার কথা, ছবিতে তার ছাপ নেই।’ এসব কারণে অনেকে সাহেদকে গ্রেপ্তারের ঘটনাটিকে ‘নাটক’ বা ‘দুর্বল স্ক্রিপ্ট’ বলে অভিহিত করেছেন।

প্রশ্ন হলো, মানুষ কেনো এই ছবিগুলো নিয়ে প্রশ্ন তুলছে বা তুলতে পারছে অথবা রসিকতার সুযোগ পাচ্ছে? এর কারণ মূলত দুটি: ১. ছবিগুলোয় আসলেই কিছু অসঙ্গতি রয়েছে এবং ২. অপরাধী গ্রেপ্তারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রচলিত ভাষ্যে জনআস্থার সংকট।

সাহেদকে আসলেই ১৫ জুলাই ভোরে সাতক্ষীরা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে নাকি আরও আগেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে, সেটি সাধারণ মানুষের পক্ষে জানা সম্ভব নয়। বরং এক্ষেত্রে র‌্যাবের ভাষ্যকেই বিশ্বাস করতে হবে। যদিও অনেক সময় অপরাধীকে ধরার পরে তার কাছ থেকে তথ্য নেওয়া এবং সেই তথ্য-উপাত্তের আলোকে তাকে সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে অভিযানের স্বার্থে অনেক সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেপ্তার বা আটকের সঙ্গে সঙ্গেই এটি প্রকাশ করে না। এটি তাদের কাজের একটি ধরন। কেননা, গ্রেপ্তার বা আটকের সঙ্গে সঙ্গে এটি প্রকাশ করা হলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে আদালতে হাজির করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু, তাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যেসব তথ্য জানতে চায়, তার সবগুলো হয়তো ওই অল্প সময়ে জানা সম্ভব নয় বলে আটক বা গ্রেপ্তারের কথা প্রকাশে সময় নেওয়া হয়। কার ক্ষেত্রে কী কৌশল অবলম্বন করা হবে, সেটি সংশ্লিষ্ট বাহিনীর ওপর নির্ভর করে। এটি যে শুধু বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী করে, তা নয়; বরং উন্নত বিশ্বেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অপরাধ দমনে এমন অনেক কাজ করে, যেগুলো মানবাধিকার ও নৈতিকতার মানদণ্ডে উত্তীর্ণ নয়।

সাধারণ মানুষও এসব নিয়ে খুব একটা প্রশ্ন তোলেন না। কারণ অপরাধীর শাস্তি হলেই তারা খুশি। যে কারণে ‘ক্রসফায়ার’ বা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ কোনো বড় অপরাধী বা জঙ্গি নিহত হলেও তা নিয়ে সাধারণত কেউ প্রশ্ন তোলেন না। বরং অনেক বড় অপরাধী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিতে নিহত হওয়ায় সাধারণ মানুষ খুশি হয়েছে। কোথাও মিষ্টি বিতরণের ঘটনাও ঘটেছে। এভাবে বিচারবহির্ভূত হত্যা সমাজ ও রাষ্ট্রে এক ধরনের বৈধতা পেয়েছে।

রাজনৈতিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো বাদ দিলে অন্যান্য ইস্যুতে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দক্ষতা নিয়ে জনমনে সন্দেহ কম। কিন্তু, এখানে মূল সমস্যা আস্থার সংকট। যে কোনো সময় যে কোনো অপরাধীকে ধরে ফেলার সক্ষমতা বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর রয়েছে— মানুষ এটি যেমন বিশ্বাস করে। তেমনি সব অপরাধীর ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সমান দক্ষতার পরিচয় দেয় না, সেটিও মনে করে। এক্ষেত্রে সব সময় যে রাজনৈতিক সিদ্ধান্তই নিয়ামক হিসেবে কাজ করে, তা নয়; বরং অনেক সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দুর্নীতি ও ঘুষও একটি বড় ফ্যাক্টর— নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনা এর বড় উদাহরণ।

আবার আট বছরেও সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির হত্যাকারীরা কেন ধরা পড়লো না; আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কেন ধরতে পারলো না; কেন বারবার তদন্ত রিপোর্ট দেওয়ার সময় পেছানো হচ্ছে— তা নিয়েও জনমনে সংশয় রয়েছে।

এরকম ঘটনার পেছনে রাজনৈতিক বা অন্য কোনো প্রভাবশালী মহলের স্বার্থ থাকলেও, আখেরে ব্যর্থতার দায় গিয়ে পড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপরেই। এসব কারণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপরে এতো বছরেও মানুষের আস্থা ও বিশ্বাসের জায়গাটি খুব শক্ত নয়। নয় বলেই তারা যখনই কোনো অভিযানের ছবিতে অসঙ্গতি খুঁজে পায় বা কোনো বিবৃতিকে ‘চর্বিত চর্বন’ (যেমন ‘ক্রসফায়ারের’ স্ক্রিপ্ট) বলে মনে করে, তখনই সেটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় তোলেন। তাতে অনেক সময় অপরাধ, অপরাধী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের বিষয়গুলো আড়াল হয়ে যায়। রসিকতাটাই মুখ্য হয়ে ওঠে।

সাহেদের মতো একজন ভয়াবহ প্রতারকের গ্রেপ্তারের সংবাদটি নিঃসন্দেহে স্বস্তির ও এজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অবশ্যই ধন্যবাদ পাওয়ার দাবিদার। মানুষ তাকে গ্রেপ্তারের সংবাদটি শোনার অপেক্ষায় ছিল। কিন্তু, গ্রেপ্তারের পরে সাহেদের যেসব ছবি গণমাধ্যমে এসেছে, সেগুলো আসলে সাধারণ মানুষকে এমন কিছু রসিকতা করার সুযোগ করে দিচ্ছে, যা এরকম একজন বড় অপরাধীর অপরাধ ও তাকে গ্রেপ্তারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সফলতাকে ম্লান করে দিচ্ছে।

সুতরাং শুধু অপরাধীকে গ্রেপ্তার করাই নয়, বরং সেই সংবাদটি গণমাধ্যমে কীভাবে দেওয়া হবে এবং কীভাবে বিশ্বাসযোগ্য উপায়ে সেই তথ্য মানু্ষের সামনে উপস্থাপন করা হবে— যাতে কেউ ওই তথ্য বা সংবাদ কিংবা ছবি নিয়ে রসিকতার সুযোগ না পায়, সে বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও চৌকষ হতে হবে। প্রয়োজনে তাদের গণযোগাযোগ ও গণমাধ্যমের সঙ্গে যোগাযোগ বিষয়ে উন্নত প্রশিক্ষণ দিতে হবে। কারণ আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অত্যন্ত দক্ষ। জঙ্গি দমনে তাদের সফলতা ঈর্ষণীয়। সুতরাং এতসব সফলতা সামান্য কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতির জন্য ম্লান হয়ে যাবে, সেটি কাঙ্ক্ষিত নয়। কারণ বিপদগ্রস্ত মানুষ প্রথম ফোনটা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেই করে।

আমীন আল রশীদ: কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এডিটর, রংধনু টিভি

প্রণোদনার বদলে সাংবাদিকদের কপালে জুটেছে মামলা আর হয়রানি

ডক্টর তুহিন মালিক

১.

সাংবাদিক নঈম নিজাম ও পীর হাবিবুর রহমানের ব্যাংক হিসাব তলব করেছে সরকার। নঈম নিজাম গতকালকে লিখলেন- ‘পরিণতির কথা ভাবি না, দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলবই।’ আর আগের দিন সাংবাদিক পীর হাবিবুর রহমান লিখলেন, ‘দুর্নীতিবাজ অপরাধীদের কাছে মাথা নত নয় পরিণতি যাই আসুক।’

২.
স্বাস্থ্য খাতে ক্রমাগত দুর্নীতির বিরুদ্ধে এই দুই সাংবাদিক তাদের পত্রিকায় ও সোস্যাল মিডিয়ায় সাম্প্রতিককালে লিখে যাচ্ছিলেন। সোশ্যাল মিডিয়ায়ও সেটা মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হতে শুরু করে। বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম নিজে করোনা আক্রান্ত হন। স্বাস্থ্য খাতে চরম অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতির চিত্রটি তিনি রোগী হয়ে এবার ভালো করেই দেখলেন। অন্যদিকে স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুরু থেকেই লিখে যাচ্ছেন পীর হাবিবুর রহমান। তাদের লেখাগুলোতে দু’জনেরই বড় প্রত্যাশা ছিল প্রধানমন্ত্রী হয়ত এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে সজাগ হবেন। তাদের এই অভিযোগকে হয়ত আমলে নিবেন। স্বাস্থ্য খাতের বড় বড় দুর্নীতির গডফাদারদের বিরুদ্ধে হয়ত ব্যবস্থা নিবেন। কিন্তু দিনশেষে তারা নিজেরাই আজ সরকারি খড়গের শিকার। উনারা হয়ত ভেবেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয়ই দেশের স্বার্থে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে যাবেন। অথচ তাদের সব ভরসা, বিশ্বাস ও প্রত্যাশার জবাবে আজ তারা পেলেন সরকারি ফরমান!
৩.
উনারা এতটাই ভরসা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর উপর। ভরসাটা এতটাই দৃঢ় ছিল হয়ত খেয়ালই করেননি যে, দু’মাস আগে ‘রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স’ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিল যে, ‘করোনাভাইরাস আক্রান্ত সময়ে বাংলাদেশে সাংবাদিকদের উপর খড়গ নেমে এসেছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই খড়গ এসেছে সরকার ও ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে।’

৪.
এদিকে সংবাদ মাধ্যমের জন্য আজকে সরকারি নিপীড়নই হয়েছে করোনার চাইতে বেশি ভয়াবহ। একদিকে নিউজরুমগুলোতে সরকারি চাপ ছাড়াও অর্থাভাব, চাকরিচ্যুতি ও করোনাভাইরাসের প্রভাবে সৃষ্ট মন্দাভাব এবং করোনায় সাংবাদিক মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যাও কম নয়। অন্যদিকে করোনাকালীন সময়ে সরকারি ত্রাণ বিতরণে লুটপাটের প্রতিবেদন প্রকাশের অপরাধে গত দুই মাসে অন্তত দেড় ডজন সাংবাদিক সরকারি দলের নিপীড়ন, নির্যাতন ও হুমকি-ধামকির মুখোমুখি হয়েছেন। এদের অনেকে মারাত্মক জখমও হয়েছেন। এদের মধ্যে ভোলার স্থানীয় সাংবাদিক সাগর চৌধুরী ও হবিগঞ্জে সাংবাদিক শাহ সুলতান আহমেদ মারাত্মকভাবে আহত হন। ঠাকুরগাঁও জেলার সাংবাদিক মো. আল মামুন, জাগো নিউজের সম্পাদক মহিউদ্দিন সরকারসহ চার সংবাদকর্মী, নরসিংদীতে নিউজ ২৪ এর সংবাদদাতা হৃদয় খানসহ আরও দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়। তাদের সকলের একটাই ‘অপরাধ’ তারা ত্রাণচুরির সংবাদ প্রকাশ ও ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন। তাদের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গুজব রটানোর মামলাও হয়েছে।

৫.
ত্রাণচোর ও চালচোরের বিরুদ্ধে লিখতে গিয়ে সাংবাদিকদের কপালে জুটেছে হামলা-মামলা, গ্রেফতার ও জেল-জুলুম। আর স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতির বরপুত্রদের বিরুদ্ধে লিখতে গিয়ে প্রথম সারির জাতীয় দৈনিকের সম্পাদক ও নিবার্হী সম্পাদকের কপালে জুটেছে সরকারি খড়গ। সত্যিই বাংলাদেশে পত্রিকার স্বাধীনতা থাকলেও সাংবাদিকরা পরাধীন।

লেখক : আইনজ্ঞ ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ।

জয়িতা ভট্টাচার্যের নিবন্ধ – চীনা সিস্টার সিটির শর্ত মেনেছে ঢাকা, উদ্বেগ বেড়েছে দিল্লির

ডেস্ক রিপাের্ট : ভারতীয় নিবন্ধকার জয়িতা ভট্টাচার্য কঠিন প্রশ্ন তুলেছেন। তার দাবি, কোভিড-১৯ মোকাবেলায় বিপদে পড়া বাংলাদেশের পাশে দাড়িয়েছে চীন। কিন্তু শর্ত হলো, বাংলাদেশকে চীনের সিস্টার সিটি কূটনীতি মানতে হবে। চীন এর আওতায় ঢাকা উত্তরসহ কয়েকটি নগরকে তাদের মতো করে গড়ে তুলতে চাইছে। এতে রাজি হয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু এটা যে ভারত সুনজরে দেখবে না, তেমন দাবিই করেছেন তিনি।

এপ্রসঙ্গে তিনি বাংলাদেশের সরকারই কেবল নয়, মিডিয়া ও নাগরিক সমাজের ওপরও উষ্মা প্রকাশ করেছেন। তিনি সতর্ক করেছেন, চীনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ক্রমাগতভাবে বাড়িয়ে তুলছে বাংলাদেশ। কিন্তু এটা যে, অন্যান্য শক্তির সঙ্গে তার সম্পর্ক বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয় স্থিতিশীলতায় একটা যোগসূত্র আছে, সেটা ভুলে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

মিজ জয়িতা বাংলাদেশের বিষয়ে প্রকারান্তরে এই অভিযোগ করেছেন যে, ২০১৬ সালে বাংলাদেশ চীনের বেল্ট এন্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই) কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছিল।

তখন বৈশ্বিক এই উদ্যোগ সম্পর্কে যে সন্দেহ-সংশয় রয়েছে, সেটা কার্যত উপেক্ষা করেছিল। তিনি স্মরণ করিয়ে দেন যে বিশ্বে বিআরআই কর্মসূচির সমালোচনা রয়েছে ।

উল্লেখ্য, বিআরআইতে ভারতের অংশ গ্রহণ নিয়ে ভারতীয় নীতি নির্ধারকদের মধ্যে মতভিন্নতা রয়েছে। অনেকে এর পক্ষে আছেন।

জয়িতা ভট্টাচার্য অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন ওআরএফ এর একজন সিনিয়র ফেলো। ওআরএফতে নেইবারহুড রিজিওনাল স্টাডিজ ইনিশিয়েটিভ নামে একটি আলাদা বিভাগ আছে। তিনি এই বিভাগের একজন সিনিয়র ফেলো । ভারতের প্রতিবেশী নীতিবিষয়ক একজন বিশেষজ্ঞ মনে করা হয় তাকে।

ওআরএফ ওয়েবসাইট অবশ্য লিখেছে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি বিষয়ক’’তিনি একজন বিশেষজ্ঞ। অনলাইন উইকিপিডিয়ার মতে অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন একটি শীর্ষস্থানীয় স্বাধীন থিংক ট্যাংক। দিল্লি-কলকাতা চেন্নাইয়ে তাদের দপ্তর রয়েছে।

উইকিপিডিয়া বলেছে, যদিও তারা স্বাধীন কার্যক্রমের দাবি করে থাকে কিন্তু তাদের তহবিলের উল্লেখযোগ্য অংশ আসে ধীরুভাই আম্বানি পরিবার থেকে। কিছু রিপোর্ট অনুযায়ী ২০০৯ সাল পর্যন্ত ফাউন্ডেশনের বাজেটের ৯৫ ভাগ রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রি যোগান দিয়েছে।

চীনের ঋণ ফাঁদ
ঋণের বোঝা চাপিয়ে এবং কোন দেশ যদি ঋণ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হয়, তাহলে চীন সেটা থেকে সুযোগ নিয়ে থাকে। এই মন্তব্য করে উদাহরণ হিসেবে জয়িতা বলেছেন, শ্রীলঙ্কা তার একটি উদাহরণ । ঋণ পরিশোধ করতে না পরে তাকে তার ভূখণ্ডের একটি অংশ চীনকে ইজারা দিতে হয়েছিল এবং এটা সবারই জানা আছে। কিন্তু বাংলাদেশে বিশ্বাস করে যে একই ধরণের পরিস্থিতি মুখোমুখি তাকে হতে হবে না। এবং চীনের সঙ্গে তারা এ বিষয়ে অধিকতর ভাল দরকষাকষি করতে সক্ষম হবে ।

চলতি বছরের মে মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর সঙ্গে এক টেলিফোন আলোচনায় বি আর আই এর প্রতি তার সহযোগিতার বিষয়ে অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। জয়িতা লিখেছেন, বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় চীনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার । চীন বাংলাদেশ ২৪ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগের অফার দিয়েছে । বি আর আই কর্মসূচির অধীনে এটা অন্যতম বৃহত্তম বিনিয়োগ প্রস্তাব । এই সহায়তার একটি বড় অংশই বাংলাদেশে ঋণ হিসেবে পাবে।

চীনের এই ভাবমূর্তি রয়েছে যে, তারা কোন দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না। কিন্তু এখন তারা সম্পর্ক গড়ে তুলতে সমর্থন দিচ্ছেন প্রকাশ্যেই।

জয়িতা ভট্টাচার্য মনে করেন এসব পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে চীনা এনগেজমেন্ট বৃদ্ধি পাবে। এখন যদি তারা সিস্টার সিটি ধারণা কার্যকর করতে পারে, তাহলে তারা বাংলাদেশে সমাজে আরো ভালোভাবে ঘনিষ্ঠ হতে পারবে । অংশীদারিত্ব বাড়াতে পারবে।

জয়িতা আরও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন যে , চীনের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি থাকা সত্ত্বেও দু’দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের আলোচনায় এই বিষয়টি একটি বাধা হিসেবে কখনোই স্বীকৃতি পাচ্ছে না। তিনি লিখেছেন, বাংলাদেশ এবং চীন একটি অংশীদারিত্ব গড়ে তুলেছে । দুই দেশের মধ্যে একটি ঘনিষ্ঠ সামরিক এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে । চীনের অনুকূলে বাণিজ্য ভারসাম্য রেখে বাংলাদেশের তাদের অন্যতম বৃহত্তম বাণিজ্য অংশীদারে পরিণত হয়েছে । দুই দেশের মধ্যকার সাংস্কৃতিক পার্থক্যকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের পথে অন্তরায় হিসেবে দেখা হয় না বললেই চলে।

চীনের প্রতি নরম, ভারতের প্রতি গরম
জয়িতা আরও উল্লেখ করেন যে এই সম্পর্কের অনুকূলে জনমত গড়ে তোলার ক্ষেত্রে চীনের জনগণের সমর্থন একটা বিশেষ ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে। বাংলাদেশে চীনের বিরুদ্ধে খুব কমই কোন নেতিবাচক সেন্টিমেন্টের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। এমনকি গণমাধ্যম এবং সিভিল সোসাইটি গুলো পারতপক্ষে চীনের বিরুদ্ধে কোন অসন্তোষ ব্যক্ত করে না। এমনকি রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের সঙ্গে বোঝাপড়ার ক্ষেত্রেও চীন যে পর্যাপ্ত ভূমিকা রাখে না, তা নিয়েও তাদের কোনো অসন্তোষ নেই ।

জয়িতা আরও লিখেছেন, এটা খুবই কৌতুহল উদ্দীপক যে রোহিঙ্গা সংকট নিষ্পত্তি না করতে ভারত কোন ভূমিকা পালন না করার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মিডিয়া এবং জনগণের কঠোর অসন্তোষ রয়েছে । ভারতের সঙ্গে তাদের যে বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে, সেটা প্রায়ই তারা উল্লেখ করে। বাংলাদেশের নিজস্ব উদ্বেগ প্রশমনে ভারতের যে প্রচেষ্টা রয়েছে , তারও স্বীকৃতি খুব সামান্য। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, কতিপয় নারকটিক দ্রব্য ব্যতিরেকে বাংলাদেশকে যে পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা দিয়েছে, এই বাণিজ্য সুবিধার কথা উল্লেখ করা হয় না । অথচ এই পদক্ষেপের ফলে ভারতে বাংলাদেশের রপ্তানি বেড়ে গিয়েছে। ২০১৯ সালে ভারতে বাংলাদেশি রপ্তানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০০ কোটি মার্কিন ডলার।

জয়িতা আরো বলেছেন, যদি কোনো ছোটখাটো চীনা সহায়তা বাংলাদেশের অনুকূলে হয়, তাহলে সেটা বাংলাদেশি মিডিয়ায় বিরাটভাবে তুলে ধরা হয়। উল্লিখিত পর্যবেক্ষণ ও মন্তব্য তুলে দেয়ার পর জয়িতা ভট্টাচার্য এই মন্তব্য করেছেন যে, চীন আগের মত অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে নির্লিপ্ত আর থাকবে না । তারা তাদের সেই অবস্থান বদলাবে এবং কোনো দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিকে তারা ডিকটেট করতে চাইবে।

ভাবতে হবে বাংলাদেশকে
জয়িতা ভট্টাচার্য পরামর্শ দিয়েছেন যে , দুদেশের সম্পর্ক পর্যালোচনা করে বাংলাদেশের উচিত হবে চীনের প্রস্তাবগুলোর তাৎপর্য ও কি প্রভাব পড়তে পারে সেটা বিবেচনায় নেয়া। তার কথায়, বাংলাদেশ যে সকলের প্রতি বন্ধুত্বের যে নীতি অনুসরণ করে চলছে তার পররাষ্ট্রনীতিতে, সেটা ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং অন্যান্য পরাশক্তির সঙ্গে তার সম্পর্কে প্রভাব ফেলবে। এটা গুরুত্বপূর্ণ । দেশের স্থিতিশীলতা, শান্তি এবং দক্ষিণ এশিয় মাত্রাগুলোর কথা বিবেচনা করা সমিচীন।

জয়িতা ভট্টাচার্যের এই নিবন্ধে বিশেষভাবে গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে, সিস্টার সিটির পেছনে চীনের কি উদ্দেশ্য রয়েছে, সেই বিষয়ে।

তার কথায়, সাম্প্রতিককালে সিস্টার সিটি অ্যালায়েন্সকে চীন এগিয়ে নিচ্ছে, তার পিছনে কি উদ্দেশ্য রয়েছে, সে বিষয়ে বিভিন্ন মহল থেকে আশঙ্কা ব্যক্ত করা হয়েছে । তার মতে চীন যে এতদিন সাংস্কৃতিক বন্ধনের উন্নয়নের কথা বলে আসছিল, তার সীমা তারা অতিক্রম করেছে এবং এটাই ফুটে উঠেছে যে, এই পদক্ষেপের একটি বৃহত্তর ভূ-কৌশলগত লক্ষ্য রয়েছে ।

২০১৯ সালে চিনা ডেইলি রিপোর্ট করেছিল যে, বিদেশি রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে গঠিত চীনা পিপলস অ্যাসোসিয়েশন ফর ফ্রেন্ডশিপ এর প্রেসিডেন্ট শাওলিন উল্লেখ করেছিলেন যে, বি আর আই ফ্রেমওয়ার্ক এর মধ্যে চিনা এবং বিদেশি নগরগুলোর মধ্যে সিস্টার সিটি সম্পর্ক একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে । জয়িতা লিখেছেন , তার এই মন্তব্যের পরই বিদেশি নগরগুলোর সঙ্গে যাদের চুক্তি রয়েছে, তাদের মধ্যে এক ধরনের গুঞ্জন শুরু হয়। বিআরআই হচ্ছে বেল্ট রোড ইনিশিয়েটিভ। চীনের বিদেশনীতির অংশ। কারণ তাদের এই বি আর আই কর্মসূচিকে একটি বৈশ্বিক স্ট্র্যাটেজিক লক্ষ্যের অংশ হিসেবে দেখা হয়।

জয়িতা ভট্টাচার্য তার নিবন্ধ লিখেছেন, বিআরআই কর্মসূচির আওতায় ইতিমধ্যেই চীন বিশ্বের প্রায় ৭০০ নগরীর সঙ্গে এই ধরনের চুক্তি করেছে।

জয়িতা আরও দাবি করেছেন, এই চুক্তিগুলো এমন সময়ে চীন এগিয়ে নিচ্ছে, যেটা অনেক সন্দেহ সংশয় বৃদ্ধি করেছে। কারণ তারা এটা করছে এমন একটা সময়, যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো পরাশক্তির নেতৃত্বে বৈশ্বিক অর্ডার নতুন করে একটা টানাপোড়েনের মুখোমুখি । বিআরআই কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত করে দেয়ার জন্য ইউরোপের অনেক দেশ এই বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে। অনেক ইউরোপীয় শহর যারা ইতিমধ্যেই চুক্তি করেছিল, তারা তা এগিয়ে নিতে এখন শিথিল মনোভাব দেখাচ্ছে।

জয়িতা তার যুক্তির স্বপক্ষে উদাহরণ দিতে গিয়ে উল্লেখ করেছেন সুইডেনের তিনটি শহর চীনের গুয়াংজু এবং বেইজিংয়ের সঙ্গে সহযোগিতামূলক চুক্তি করেছিল। তারা এর সমাপ্তি ঘটিয়েছে।

চীনা শর্ত
ওই নিবন্ধে বলা হয়, চীনের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিসি বাংলাদেশকে কোভিড ১৯ মোকাবেলায় সহায়তা দিতে একটি প্রস্তাব দিয়েছে । তারা বলেছে বাংলাদেশ যদি চীনের নির্দিষ্ট কিছু শহরের সঙ্গে সিস্টার সিটি অ্যালায়েন্স বা জোট নগরী গড়ে তুলতে সম্মত হয়, তাহলে তারা ঐ সহায়তা পাবে । চলতি বছরের মে মাসে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে এক বৈঠকে ওই প্রস্তাব দিয়েছে চীন। ঢাকার অন্যতম সিটি কর্পোরেশন ঢাকা উত্তর হবে সিস্টারদের অন্যতম। একে বন্ধুত্বপূর্ণ নিদর্শন হিসেবে দেখা হচ্ছে। আর সেটা বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে নন্দিত হয়েছে।

কোন সন্দেহ নেই কোভিড ১৯ মোকাবেলা করার প্রেক্ষাপটে সিস্টার সিটি অ্যালয়েন্স গড়ে তোলার বিষয়টি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে ।

অবশ্য একইসঙ্গে এই প্রশ্ন কেউ কেউ তুলছেন, চিনা এই উদ্যোগের নেপথ্যে আসলে তাদের মনোভাব কি ?

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এই কলাম লেখা পর্যন্ত সময়ে প্রায় ৭৪ হাজার ৮৬৫ জন মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১০১২ জন ব্যক্তি মারা গেছেন। কতিপয় বেসরকারি প্রাক্কলন অনুযায়ী, আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি । কোভিড উন্নয়নশীল দেশগুলোর অর্থনীতির উপর প্রভাব ফেলেছে এবং বৈশ্বিক প্রবনতার মতোই বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হোঁচট খেতে পারে । বাংলাদেশে এখন মরিয়া হয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন কামনা করছে । কারণ তাকে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে । একই সঙ্গে অবশ্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও তাদের সমর্থনের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে । প্রতিবেশী ভারত বাংলাদেশকে সহায়তা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে । চীন বাংলাদেশকে কারিগরি এবং অর্থনৈতিক সহায়তা প্রদানের প্রস্তাব দিয়েছে। ডেঙ্গু এবং অন্যান্য মহামারী রোধেও তারা পাশে থাকবে। কিন্তু শর্ত হলো বাংলাদেশ যদি তাদের প্রস্তাব মেনে নেয়। চীন অবশ্য আরো সুপারিশ করেছে যে বাংলাদেশ যদি তাদের প্রস্তাব নেয় তাহলে তারা তাদের শহরগুলোকে চীনা শহরের মতো গড়ে তুলতে সহায়তা দেবে।

সিস্টার সিটি কি
দুই দেশের নগরগুলোর ভিতরে চুক্তি সইয়ের মাধ্যমে সিস্টার সিটিসমূহ গঠন করা হবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট আইজেনহাওয়ারকে বলা হয়ে থাকে, তিনিই প্রথম সিস্টার সিটি সৃষ্টির ধারণা দিয়েছিলেন। এই ধারণার মূলকথা হলো সিস্টার চিঠিগুলোর নাগরিকদের মধ্যে আন্তঃসম্পর্ক এবং কানেক্টিভিটি বাড়বে। এটাই প্রকারান্তরে দুই দেশের মধ্যে তৈরি করে দেবে একটা নাগরিক কূটনীতি বা সিটিজেন ডিপ্লোমেসি । ঐতিহ্যগতভাবে এই ধারণা গভীর হয়েছে যে, সিস্টার সিটি পারস্পরিক বোঝাপড়া বৃদ্ধিতে সহায়ক হয়। এবং দুই নগরী মনে করে যে তারা মিত্র নগরের নাগরিক।

নিবন্ধে উল্লেখ করা হয় যে, চীন এই কূটনীতিতে ক্রমবর্ধমানহারে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে চলছে এবং তা ইতিমধ্যেই তাদের পররাষ্ট্রনীতির অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়েছে । আর এটা শুধু এই অঞ্চলেই নয়, গোটা বিশ্ব জুড়ে তাদের এই পরিকল্পনা এবং সেভাবেই তারা অগ্রসর হচ্ছে । চীনা শহরগুলোর মধ্যে বেইজিংয়ের রয়েছে সবথেকে বেশি সংখ্যক সিস্টার সিটি চুক্তি ।-শীর্ষনিউজ থেকে

জিয়ার কাছ থেকে ১০০ রিকশার লাইসেন্স নিয়েছিলেন মান্না

জাফর ওয়াজেদ : রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর ছিলেন। তাঁকে হত্যার তিনবছর দশ মাসের মাথায় ঘাতকদের পৃষ্ঠপোষক ক্ষমতাধরের সামনে দাঁড়িয়ে চ্যান্সেলর হত্যার বিচার চেয়েছিল চার সাহসী ছাত্র। বলেছিল,জাতির জনক ও চ্যান্সেলর হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ আসবে না। ছাত্র সমাজ এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ। তারা আন্দোলন গড়ে তুলবে। অতএব বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার দ্রুত করতে হবে।

কালো চশমা চোখের ঠান্ডা মাথার খুনীটির বাকী অবয়বে ক্রোধ জেগেছিলো বুঝি। ১৯৭৯ সালের ২৫জুলাই বঙ্গভবনে এই দৃশ্য রচিত হয়েছিল।

১৯৭৯ এর ৯মে ডাকসু নির্বাচন হয়। ১৯টি আসনের মধ্যে মান্না-আখতার পায় ১৫আসন,কাদের-রবিউল পর্ষদ ৪টি আসন। রাষ্ট্র ক্ষমতা দখলদার জেনারেল জিয়া চ্যান্সেলর বনে যান। ঢাবিতে এর আগে ইটাঘাত খাওয়া তার সাধ হয় ডাকসুর নির্বাচিতদের চেহারা মুবারক দেখার। আমন্ত্রণ আসে ভিসির মাধ্যমে।

মান্না-আকতার রাজি হয়। চারজন আপত্তি করে যে শিক্ষামন্ত্রী ৭১এর কোলাবরেটর শাহ আজিজ থাকতে পারবে না। ৪ জনের চাপাচাপিতে মান্নারাও তা মেনে নেয়। আওয়ামীলীগ সভাপতি আবদুল মালেক উকিলের অনুমতি পাবার পর ৪ জন বৈঠক তথা ইফতার পার্টিতে যেতে রাজি হয়।

যাবার আগে ডাকসুর বৈঠকের আলোচনায় ৪ জন প্রস্তাব করে – চ্যান্সেলার বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার সম্মিলিতভাবে চাওয়া হবে। মান্নারা রাজি হয়নি। চারজন দাবীতে অনড় থেকে জানায় তারা এই দাবীর জন্যই যাচ্ছে। মান্না বিশ্ববিদ্যালয় বহির্ভূত কর্ণেল তাহের হত্যার বিচার দাবীর প্রস্তাব চাপাতে চায়।

বঙ্গভবনে ডাকসুর সভাপতি উপাচার্য ফজলুল হালিম চৌধুরী,কোষাধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, রেজিষ্ট্রার সৈয়দ বদরুদ্দিন হুসাইন ছিলেন দলে। গণভবনে জেনারেল রাষ্ট্রপতি, শিক্ষাসচিব কাজী ফজলুর রহমান, শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আবুল বাতেন, স্বরাস্ট্রমন্ত্রী আর উর্দিপরা ক’জন ছিলেন।

ডাকসুর মান্না,আকতার, মনজুরুল ইসলাম, নুরুল আকতার, ওয়াহিদুজ্জামান পিন্টু, আলী রীয়াজ, গোলামকুদ্দুস সহ জাসদের ১৫জন এবং মুজিববাদী বলে পরিচিত দলের মন্জুর কাদের কোরাইশী, কামালশরীফ, এনায়েতউল্লাহ এবং আমি জাফর ওয়াজেদ।

সারিবদ্ধভাবে গোল হয়ে দাঁড়ানোদের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছেন জেনারেল জিয়া। পরপর দাঁড়ানো জাসদের ১৫জন কর্ণেল তাহের হত্যার বিচার চায়। মান্নারা বলে তাহেরকে কেন ফাসিঁ দেওযা হয়েছিল, রব-জলিল জেলে কেন? বাকশালীদের বিচার কেন হয না। একজন বলেন হলে থাকার সীট কম – ছাদ দিয়ে পানি পড়ে।

জিয়া মান্নাদের বলেন – তাহের আমার সাথে যুদ্ধ করেছে। সে ছিল সরল মানুষ। তাকে সামনে রেখে কিছু দৃষ্কৃতকারী দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। অফিসার ও সেনাদের হত্যা করেছে। আলী রীয়াজ প্রশ্ন করেন – তাহলের প্রকাশ্যে তার বিচার হলো না কেন?

শেষ প্রান্তে দাঁড়ানো আমরা চারজন। বুকে যাদের বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতির ব্যাজ, তারা পরপর বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার দাবি করি হাত মেলাবার সময়।

চারজন পৃথকভাবে বলি – ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চ্যান্সেলর জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের হত্যার বিচার না হলে শিক্ষাঙ্গনসহ দেশে স্বাভাবিক পরিবেশ আসবে না। প্রশ্ন করি – জেল হত্যা তদন্ত কমিটির রিপোর্ট কেন প্রকাশ করা হচ্ছে না। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন রেডিও বাংলাদেশ হলো। ক্যাম্পাসে অস্ত্র নিয়ে লোকজন কী করে ঘোরা ফেরা করে?হলে পানি সংকট ইত্যাদি৷

ডাকসুর পুরো কমিটি সেদিন বিচার চাইলে পরিস্থিতি ভিন্ন হতো।
সংকীর্ণও হীনমনাদের জন্য তা হয়নি।

বগুড়ার সন্তান জিয়া বগুড়ার মান্নাকে অদূরে ডেকে নিয়ে মিনিট দশেক কথা বলেন। বেরিয়ে আসার পর মান্না উষ্মাপ্রকাশ করেছিলেন আমাদের প্রতি। ক’দিন পর ক্যাম্পাসে রটে যায় মান্না ১০০টি রিক্সার লাইসেন্স পেযেছেন। আজ অনেক বছর পর করোনাকালে মনে এলো এসব।
পরবর্তীতে এমনও শ্লোগান হতো—”বঙ্গভবন থেকে এলো গাই / সঙ্গে বাছুর মান্নাভাই”৷
আরো মনে আসে,যে মামলায় তাহেরের ফাঁসি হয়, সেই একই মামলায় সাজাপ্রাপ্ত মান্না এক বছরের মাথায়
সবার আগে ছাড়া পায়৷

ফেসবুক থেকে

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাসায় ৪ জনের করোনা শনাক্ত

ডেস্ক রিপাের্ট : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের বাসায় কর্মরত চারজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে। তবে তার পরিবারের সবার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) সন্ধ্যায় নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে দেয়া এক স্ট্যাটাসে এ ব্যাপারে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

তিনি লেখেন, ‘২০০০ সালে ডেঙ্গু হয়েছিল আমার, রোজার মাসে। তখন ডেঙ্গু মানে অবধারিত মৃত্যু। সেই সাথে হলো পক্স। এমন অবস্থা মনে হলো হাতে আর দুই একদিন সময় আছে! টানা একমাস অসুস্থতার পর সুস্থ হয়ে ওঠার একদিন আগে একজন ডাক্তার বাসায় এসে বললেন ডেঙ্গু হয়নি। কে জানে কি হয়েছিলো! আরেকবার ডেঙ্গু হয়েছিল কয়েক বছর আগে, সম্ভবত ২০১৪ সালে। হাসপাতালে ভর্তি হতে হলো, রক্ত দিলো। আল্লাহ তায়ালার অশেষ রহমতে সুস্থ হলাম। এর মাঝে ছোট, বড়, মাঝারি আরও অসুখ-বিসুখ হয়েছে। প্রতিবার আল্লাহর অশেষ রহমতে সুস্থ হয়েছি।’

তিনি আরও লেখেন, ‘করোনাকালে যতটা সম্ভব সাবধানে থাকার চেষ্টা করেছি। যদিও ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ার প্রথম দিকে মাদ্রিদ আর জেনেভা যেতে হয়েছিলো। বিশ্ব তখনও এর ভয়াবহতা বুঝে ওঠেনি। অনেকদিন থেকেই শুনছি পরিচিত মানুষের পরীক্ষা করাচ্ছেন। কেউ কেউ বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন, কেউ হাসপাতালে ভর্তি। মৃত্যুবরণ করেছেন একাধিক পরিচিত ব্যক্তি। তাই আমার বাসার সহকারী মিঠু যখন বললো বাবুর্চি মুসা আর চারজন নিরাপত্তাকর্মীর মধ্যে একজনের জ্বর তখন দেরি না করে পরীক্ষা করালাম, নিজেরসহ মোট ৯ জনের। ফলাফল এসেছে মুসা ও সেই নিরাপত্তাকর্মীসহ মোট ৪ জন পজেটিভ। মানে বাকি দুইজন পজেটিভ হয়েও কোনো লক্ষণ নেই। আমরা বাকিরা নেগেটিভ।’

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লেখেন, ‘গতকাল রাত থেকে শুরু হয়েছে প্রস্তুতি। বাড়িতে রোগী রেখেই চিকিৎসা করাতে হবে এবং নিজেদের সুস্থ রাখতে হবে। কাজটা মোটেই সহজ হবে বলে মনে হচ্ছে না। সকলকে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি আমাদের সবার জন্য দোয়া করার জন্য। অসুস্থরা যেন তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠেন এবং নতুন কেউ যেন সংক্রমিত না হন।’

তিনি লেখেন, ‘গত দুইমাস যেভাবে কাজ করেছি অবশ্যই চেষ্টা করবো সেভাবে বাসায় থেকে কাজ করতে। অজস্র মানুষের বিভিন্ন অনুরোধ আসে আমার কাছে প্রতিদিন, এই সময় মূলত সেটা প্রবাসীদের কাছ থেকে আর অন্যদেশে আটকে পড়া বাংলাদেশেদের নাগরিকদের কাছ থেকে। এলাকার দেখভালতো আছেই। এখন আর কথা না বাড়াই। সরকারি নির্দেশনাগুলো মেনে চলুন। ভালো থাকুন সবাই।’

(একটা ছোট্ট অনুরোধ, আমার বাসার কাউকে দয়াকরে শুধু খোঁজ নেবার জন্য ফোন দিবেন না। তারা সবাই মানসিকভাবে কিছুটা হলেও কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন এবং নতুন পরিস্থিতিতে খাপ খাইয়ে নেবার জন্য ব্যস্ত আছেন। আপনার কোনো বার্তা থাকলে তা নিচে লিখে দিতে পারেন অথবা যেকোনো মাধ্যমে সরাসরি আমার কাছে।)

আল্লাহ তাআলা রাব্বুল আলামিন আমাদের সকলের প্রতি সদয় হউন।

গণপরিবহনে নারীর ভোগান্তির শেষ কোথায়?

কাজী নুসরাত শরমীন

এই বার্তাটি দিতে গিয়ে আমাদের পুলিশ বাহিনী ভুলেই গেছে, রাষ্ট্র তার সব নাগরিকের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করবে, যা একজন নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার। বাসে উঠে একজন নারী তার চারপাশে শুধু গোয়েন্দাগিরি করতে থাকবেন? হারাধনের দশটি ছেলের মতো প্রতিটি স্টপেজে তিনি গুনতে থাকবেন, রইলো বাকি নয়, রইলো বাকি আট?

গণপরিবহনে নারীর যাতায়াত মোটেও স্বস্তিদায়ক অবস্থানে নেই। গণপরিবহনে নারীরা পরিবহন সংশ্লিষ্ট লোকজন কিংবা পুরুষ যাত্রীদের দ্বারা শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। ৯৪ শতাংশ নারী গণপরিবহনে নানাভাবে যৌন হয়রানির শিকার। এই ৯৪ শতাংশ সংখ্যাটি আমাদের হতাশ করে। জীবনমান ও অধিকারের ক্ষেত্রেও নারী একচোখা সমাজ রীতির সঙ্গে যুদ্ধ করেন স্রেতের বিপরীতে। এই যুদ্ধে পুরুষের কোনো অংশগ্রহণ নেই বললেই চলে। নারীর প্রতি অবমাননা, ইভটিজিং অথবা ধর্ষণের শিকার হলে ধর্ষকের পরিবর্তে এর শিকার হলেন যে নারী, তার জীবনাচরণই বিবেচ্য বিষয় হয়।

সম্প্রতি বাংলাদেশ পুলিশ সদর দপ্তরের মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের পক্ষ থেকে গণপরিবহনে নারীর জন্য অনুসরণীয় একটি গাইডলাইন দেয়া হয়। যখন একজন নারী গণপরিবহনে ভ্রমণ করবেন, তিনি কী ধরনের সাবধানতা অবলম্বন করবেন, পুলিশের বার্তাটিতে সে বিষয়ে পয়েন্ট আউট করা হয়েছে।

এই বার্তাটি দিতে গিয়ে আমাদের পুলিশ বাহিনী ভুলেই গেছে, রাষ্ট্র তার সব নাগরিকের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করবে, যা একজন নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার। বাসে উঠে একজন নারী তার চারপাশে শুধু গোয়েন্দাগিরি করতে থাকবেন? হারাধনের দশটি ছেলের মতো প্রতিটি স্টপেজে তিনি গুনতে থাকবেন, রইলো বাকি নয়, রইলো বাকি আট? গণপরিবহনে চলাচলের সময় তাকে সারাক্ষণ অভিনয়ের ভেতর দিয়ে যেতে হবে? ফোনে অভিনয় করে গলা উঁচিয়ে কথা বলতে হবে? প্রচণ্ড ক্লান্তিতে তার ঘুম চলে এলেও একদম চোখ বন্ধ করা যাবে না! তার গন্তব্যে পৌঁছার আগেই যাত্রী সংখ্যা গুনে কম দেখলেই নেমে পড়তে হবে ইত্যাদি ইত্যাদি। বার্তাটির প্রত্যেকটি বাক্য অত্যন্ত পুরুষতান্ত্রিক এবং সংবিধানের পরিপন্থী, কারণ রাষ্ট্রে সব নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমঅধিকার (অনুচ্ছেদ-২৭) এবং ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদে সবার আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারের কথা বলা হয়েছে (অনুচ্ছেদ-৩১ এবং ৩৩)। পুলিশ একটি রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা। এই বার্তার পেছনের উদ্দেশ্য অত্যন্ত সৎ হলেও বার্তাটির সারাংশ ক্রমবর্ধমান যৌন নিপীড়নের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণই প্রকাশ পেয়েছে। পুলিশের এই বার্তা অনুযায়ী নিজের নিরাপত্তার দায়ও নারীর কাঁধেই চাপিয়ে দেয়া হয়েছে অত্যন্ত সুকৌশলে। ধর্ষণে যেমন নারীর পোশাক, আচরণ, স্বাধীনভাবে চলাকে দায়ী করা হয়, পুলিশের এই বার্তাটিও যেন তার সঙ্গে এক সুতোয় গাঁথা।

সম্প্রতি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকও কিছু গাইড লাইন দিয়েছেন, একজন নারী সাংবাদিককে চলনে-বলনে কী কী বিষয় মেনে চলা উচিত। সেখানে ওই শিক্ষক উল্লেখ করেছেন, ফ্ল্যাট স্যান্ডেল পরতে হবে। (বিয়ে হোক বা না হোক) সব নারী সাংবাদিককে বিয়ের চিহ্নস্বরূপ আংটি পরে থাকতে হবে। যেন বিবাহিত নারীরা ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন না! তিনি বলেছেন, ভেজা চুলে বাইরে যাওয়া যাবে না। নারীর ভেজা চুল যেন যৌনতার উপকরণ! কোনো কোনো সংস্কৃতিতে এটি যৌন সংকেত! শুধু তাই নয়, ওই শিক্ষক একটি অনলাইন পোর্টালকে তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘আমি নারী সাংবাদিকদের বোঝাতে চেষ্টা করেছি, তাদের নিরাপত্তার বিষয়টি তাদেরই নিশ্চিত করতে হবে।’

নারীর প্রতি বাংলাদেশ পুলিশ সদর দপ্তরের বার্তা এবং বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ওই শিক্ষকের নসিহতনামা যেন একসূত্রে গাঁথা। জীবনের নিরাপত্তার যুদ্ধেও নারী একা। তাকেই তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। নারীকে নানা করম কসরতের ভেতর দিয়ে, লুকিয়ে, চুপি চুপি বেঁচে থেকে ধর্ষণ প্রতিরোধ করতে হবে। সম্প্রতি বেসরকারি সংস্থা জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরাম প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত মোট ১ হাজার ২৫৩ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে, এর মধ্যে ৬০ শতাংশই শিশু। প্রায় ৯৮ শতাংশ নারী এবং কন্যাশিশু কখনো না কখনো পাবলিক প্লেসে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে যাত্রীকল্যাণ সমিতি কর্তৃক এক প্রতিবেদনে গণপরিবহনে ১৩ মাসে মোট ২১ জন নারীর ধর্ষণ কিংবা গণধর্ষণের ভয়াবহ তথ্য উঠে আসে। ২০১৮ সালে ব্র্যাক পরিচালিত এক গবেষণায় বলা হয়, বাংলাদেশের গণপরিবহনে যাতায়াতকালে ৯৪ শতাংশ নারী কোনো না কোনো সময় মৌখিক, শারীরিক এবং অন্যান্যভাবে যৌন হয়রানির শিকার হন। এই ৯৪ শতাংশ সংখ্যাটি কী এলার্মিং নয়? আমাদের পুলিশ এই ভয়াবহ অপরাধ প্রবণতা থেকে ধর্ষকামী অপরাধীদের সংযত হওয়ার দিকনির্দেশনা দিতে পারতেন, গণপরিবহনে একজন নারীর প্রতি আচরণ কী হবে সে বিষয় সংবলিত বার্তা কিন্তু অনুপস্থিত, তা না করে যারা অপরাধের শিকার হচ্ছেন এই ৯৪ শতাংশ নারীকেই তারা সতর্ক থাকতে বলেছেন। ধর্ষণের ঘটনা দিনকে দিন বেড়ে যাওয়ার পরও কিন্তু আমরা বিচার ব্যবস্থায়ও তেমন উল্লেখযোগ্য সংস্কার দেখতে পাইনি। এ বছর মাত্র ১০ মাসে ১ হাজার ২৫৩ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছেন, যার ৬০ শতাংশই শিশু। এখনো ধর্ষণ একটি জামিনযোগ্য অপরাধ।

রাষ্ট্র উন্নত হচ্ছে, দুর্নীতি, অপরাধপ্রবণতাও বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। সমাজ ব্যবস্থা দিন দিন পরিবর্তিত হয়, পরিবর্তন হয় দৃষ্টিভঙ্গির, বদলে যায় অপরাধের ধরন। তাই নিয়ত রাষ্ট্রব্যবস্থাকে সংস্কারের ভেতর দিয়ে যেতে হয়। অপরাধের মাত্রা ও ধরন পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে আইনের যথাযথ সংস্কার জরুরি হয়ে পড়ে। বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনের মাধ্যমেও রাষ্ট্র দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে পারে। কিন্তু কার্যত আমাদের চোখের সামনে খুব ভালো উদাহরণ নেই। অপরাধ মাত্রাতিরিক্তভাবে বেড়েই চলেছে। ধর্ষণ এখন আমাদের রোজকার দুর্ঘটনা। কোলের শিশুটি থেকে শুরু করে অশীতিপর বৃদ্ধা পর্যন্ত জীবনযাপনের কোনো ক্ষেত্রে আমরা নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারিনি। বরঞ্চ দিন দিন নারীর অবমাননা, ধর্ষণ, অধিকার বঞ্চনার দায়ও নারীর ঘাড়েই চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে।

জন্মের পর থেকে পুরুষতান্ত্রিকতা নারীর জীবনাচরণের প্রত্যেকটি বিষয় নিয়ন্ত্রণ করতে থাকে। খাওয়া ঘুম থেকে শুরু করে হাঁটাচলা, এমনকি কতটুকু শব্দে হাসা যাবে, সেটাও নিয়ন্ত্রণ করে এই পুরুষতন্ত্র। এটা জরুরি না যে, এই বৈষম্য সবসময় পুরুষ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। একজন নারীও ভীষণ রকম পুরুষতান্ত্রিক ধ্যান-ধারণাপ্রবণ হতে পারেন। কারণ পুরুষতন্ত্র একটি ব্যবস্থা, যা দীর্ঘদিন ধরে নারীকে অবদমন করতে করতে তৈরি হয়েছে।

পরিশেষে একটি খবর সবার চোখের সামনে রাখতে চাই, ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ বনানীর ‘দ্য রেইন ট্রি’ হোটেলে ধর্ষণের শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া দুই তরুণী। ঘটনাটি বেশ আলোচিত ছিল। ৪০ দিন পর ৬ মে রাজধানীর বনানী থানায় আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন এক তরুণী। সম্প্রতি সাফাত আহমেদের বিদেশ গমনে বাধা না দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এই ধর্ষকামী সমাজ দুই বিল্ডিংয়ের মাঝে মুখ থুবড়ে পড়ে থাকা স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ছাত্রী রুম্পার গোঙানির শব্দ শুনতে পাচ্ছে কি? তনুর আলোচনা আমাদের বিব্রত করে, তাই সে কথা অনুচ্চারিতই থাকুক। -পূর্বপশ্চিম

কাজী নুসরাত শরমীন: লেখক, সাংবাদিক। [email protected]

লোকমান ছাতাটা সরিয়ে জিল্লুর রহমানের পুত্রের মাথায় ধরেছেন

পীর হাবিবুর রহমান : সদ্য দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে আটক বহুল বিতর্কিত লোকমানের এই ছবিটি ভাইরাল হয়েছে। এ ছবিতে লোকমানের কোন অপরাধ আমি দেখি না। লোকমান কারাবন্দী সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার দেহরক্ষী ছিলেন। তিনি বিএনপির রাজনীতিতে যুক্ত ছিলেন। মোসাদ্দেক আলী ফালুর কর্মী ছিলেন। মোসাদ্দেক আলী ফালু জাতির পিতাকে কটাক্ষ করে কখনো বক্তব্য দেননি। খালেদা জিয়ার ডান হাত হলেও সব দল মতের সাথে সৌহার্দ্যের সম্পর্ক রাখতেন। দু’জনের সাথে কখনো আমার দেখা হয়নি।

ফালু দেশান্তরী হলেও লোকমানকে হতে হয়নি। লোকমান ছাতাটা সরিয়েছেন। খালেদা জিয়ার মাথা থেকে সরিয়ে আমাদের পরম শ্রদ্ধার মানুষ অজাতশত্রু মরহুম রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের পুত্রের মাথায় ধরেছেন। এটা সুবিধাবাদী নীতিহীনদের নষ্টযুগে আমি অপরাধ মনে করি না। লোকমানের অপরাধ বেআইনিভাবে মোহামেডান ক্লাবে ক্যাসিনো ব্যবসা চালিয়ে বিদেশে বিপুল অর্থ পাচার করেছেন।

যে লোকমান বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুর করেছেন, যে লোকমান খালেদা জিয়ার কর্মচারী ও ফালুর কর্মী হয়েও আওয়ামী লীগের ১০ বছরে দাপটের সাথে মোহামেডানকে শেষ করে বাণিজ্য করেছে রমরমা, সেই লোকমানকে যারা আশ্রয়-প্রশ্রয় ও পৃষ্টপোষকতা দিয়েছেন তারা কি বড় অপরাধী নয়? বিএনপি দমনের জমানায় কারা লোকমানকে এতো শক্তি ও সুযোগ দিলেন?
শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আত্মস্বীকৃত খুনির পরিবারের আরেক সদস্য কিভাবে মোহামেডান ক্লাবেই নয়, লোকমানের হাত ধরে আজ বিসিবির পরিচালক? স্বাধীন দেশে বাড়িতে পাকিস্তানের পতাকা উড়ানো রাজাকারপুত্র হকি ফেডারেশনের নেতা? মুজিব কন্যা শেখ হাসিনার বিশ্বাস আস্থার সাথে কারা ব্যক্তি স্বার্থে বেইমানিটা করছেন এভাবে নানাদিকে? এসব অপরাধীদেরও ঠিক করা দরকার।

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন

তোর বাবাদের নাম এবার বল…

পীর হাবিবুর রহমান : তুই কোন বৃহৎ শিল্পগোষ্ঠীর মালিক যে তোকে সশস্ত্র দেহরক্ষী নিয়ে চলতে হয়? তোর ঘরে পাওয়া যায় নগদ ১০ কোটি টাকা ও ২শ’ কোটির চেক? এফডিআর, অস্ত্র-গোলাবারুদ! পথের দুই টাকার যুবদল কর্মী থেকে এক টাকার যুবলীগ কর্মী হয়ে আজ তোর কোন বাবার শক্তিতে বঙ্গবন্ধুর নাম বিক্রি করে তিন টাকার ঠিকাদার এতো বড় লুটেরা হলি? তোর বাবাদের নাম এবার বল। একটাতো ফ্রিডম পার্টি থেকে এসে যুবলীগ নেতা হয়ে ক্যাসিনো মালিক, চাঁদাবাজ হয়েছিলো।

মুজিব কন্যা বলেছেন একে একে সব ধরা হবে। সারাদেশে অবৈধ লুটের টাকায় যারা অঢেল অর্থ-বিত্ত আলিশান বাড়ি, জৌলুসময় ফ্লাট ভোগে মত্ত জীবনযাপন করেছিলেন, তাদের এবার আইনের শাস্তি ভোগ করতে হবেই। ছাত্রলীগ দিয়ে যার শুরু, যুবলীগ দিয়ে যার ঝড়, ভিসি-ডিসি-এসপি-আমলা-মন্ত্রী-এমপি-নেতা, বিভিন্ন পেশার যারা অপরাধী, সে যেই হোক, যে দলের হোক অবশ্যই তাকে আজ পাকড়াও করে, মুজিব কন্যার যুদ্ধে জিততে হবে।

এ বিজয় হবে দেশের, জনগণের, সুশাসনের, আইনের, আদর্শের। নষ্টদের আজ কবরের আজাবে রাখার সূবর্ণ সময়।
যারা ঘুষ, দুর্নীতি, কমিশন, নিয়োগ বাণিজ্য, চাঁদাবাজি, ব্যাংক লুট, শেয়ার লুট, অর্থপাচার করেছে, তাদের সাম্রাজ্যের পতন, তাদের কারাজীবন এখন অনিবার্য। জনগণকে আজ সমর্থনে এগিয়ে আসতে হবে, জিকে শামীম, খালেদের মতো পুটিমাছের যদি এ অবস্থা হয়, রাঘব-বোয়ালদের কি অবস্থা?

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন

৩২