জামিন পেলেন সাংবাদিক কাজল

নিজস্ব প্রতিবেদক : ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে রাজধানীর শেরে বাংলা নগর থানায় দায়ের করা মামলায় ফটোসাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।
এর আগে গত ১৯ অক্টোবর হাইকোর্টের এই বেঞ্চ সাংবাদিক কাজলকে কেন জামিন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে সাংবাদিক কাজলের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সরোয়ার হোসেন বাপ্পী।

গত ৯ মার্চ রাজধানী ঢাকার শেরে বাংলা নগর থানায় কাজলসহ ৩২ জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে প্রথম মামলাটি করেন মাগুরা-১ আসনের সরকার দলীয় সাংসদ সাইফুজ্জামান শেখর। এরপর ১০-১১ মার্চ রাজধানী হাজারীবাগ ও কামরাঙ্গীরচর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আরও দুটি মামলা হয়।

করোনায় মারা গেলেন দৈনিক সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুনীরজ্জামান

নিজস্ব প্রতিবেদক : দৈনিক সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, কলামিস্ট, রাজনৈতিক বিশ্লেষক খন্দকার মুনীরুজ্জামান করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

করোনা পজেটিভ হয়ে গত ৩১ অক্টোবর রাতে তিনি রাজধানীর মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। দুই সপ্তাহ ধরে তাকে আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়। ৪/৫ দিন আগে আইসিইউ থেকে তাকে কেবিনে দেওয়া হয়। আজ মঙ্গলবার সকাল ৭টায় তিনি ইন্তেকাল করেন।

মুনীরুজ্জমান ১৯৭০ সালে সিপিবির মুখপত্র সাপ্তাহিক একতায় সাংবাদিকতা শুরু করেন।

‘প্লিজ, মাইরেন না, আমি আর নিউজ করব না’’

ডেস্ক রিপাের্ট : ‘প্লিজ, আমি আর নিউজ করবো না। প্লিজ, প্লিজ, আমি আর নিউজ করবো না ভাই। আমাকে ছেড়ে দিন ভাই, প্লিজ, আমি আর নিউজ করবো না’- চট্টগ্রামে নিখোঁজ হওয়ার চারদিনের মাথায় সীতাকুন্ড থেকে উদ্ধার হওয়ার পরে এভাবেই প্রলাপ বকছিলেন সাংবাদিক গোলাম সরওয়ার।

রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে কুমিরা বাজার এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধারের সময়ে তিনি একটা গেঞ্জি ও হাফ প্যান্ট পরিহিত ছিলেন।

পুলিশ জানায়, বাজারের পাশে একটি ব্রীজের নিচে তাকে পাওয়া গেছে। স্থানীয় এক দোকানদার সরোয়ারকে খালি গায়ে পড়ে থাকতে দেখে আশপাশের সবাইকে ডেকে আনেন। পরে স্থানীয়রা সেখানে গেলে অর্ধচেতন অবস্থাতেই বিড়বিড় করে বলতে থাকেন ‘আমি আর নিউজ করবো না, প্লিজ… আমি নিউজ আর করব না ভাই…’। তাকে উদ্ধারের দাবিতে গত তিন দিন ধরে নানা কর্মসূচি পালন করেছে চট্টগ্রামের সাংবাদিকরা।

উদ্ধার হওয়ার পরে পুলিশের সাথে প্রাথমিকভাবে কথা হয় গোলাম সরওয়ারের। সরওয়ারের বরাতে পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে মোটরসাইকেলে চট্রগ্রাম থেকে চন্দনায় যাচ্ছিলেন তিনি। পথের কোন এক স্থানে তাকে একটি অ্যাম্বুলেন্সে তুলে নেয়া হয়। এরপরে তাকে গত তিনদিনে বিভিন্ন জায়গায় রাখা হয়।

পুলিশ আরও জানায়, তাকে বেধড়ক প্রহার করেছে অপহরণকারীরা। এসময় তাকে চামড়ার বেল্ট দিয়েও পিটিয়েছে ওই দুর্বৃত্তরা।

ধারণা করা হচ্ছে, নিজের অনলাইন নিউজ পোর্টালে গোলাম সরোয়ার ক্যাসিনো ব্যবসা এবং ভূমি দখল সংক্রান্ত কয়েকটি নিউজ করার কারণেই হয়তো তাকে অপহরণ করেছে প্রভাবশালী মহল।

সাংবাদিক নেতা সামসুল ইসলাম জানান, যারা অপহরণ করছে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। একইসাথে তার উদ্ধারের পরে পুলিশকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন স্বজনরা। বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন গোলাম সরওয়ার।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকাল নয়টার দিকে নগরীর ব্যাটারি গলি বাসা থেকে বের হন আজকের সূর্যোদয়ের স্টাফ রিপোর্টার ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য গোলাম সরওয়ার। এরপর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সেদিন রাতে কোতয়ালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তার সহকর্মী জোবায়ের সিদ্দিকী।

প্রথিতযশা সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ফেরদৌস আহমেদ কোরেশী আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক : না ফেরার দেশে চলে গেলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, প্রথিতযশা সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ড. ফেরদৌস আহমেদ কোরেশী। সোমবার দুপুরে তিনি রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

৬০-এর দশকের মেধাবী ছাত্রনেতা ড. কোরেশী তৎকালীন অবিভক্ত পাকিস্তান ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। এরপর তিনি ১৯৬১ সালে ডাকসুর ভিপি নির্বাচিত হন। জাতীয়তাবাদী চেতনার বিকাশে তার গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল।

২০১৫ সালের ২১ অক্টোবর ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হন এই রাজনীতিক। দীর্ঘদিন চিকিৎসার পর কিছুটা সুস্থ বোধ করলেও মারা যাওয়ার আগ পর্যন্ত বাসায়ই কেটেছে তার জীবন।

৬ দফা ও ১১ দফাভিত্তিক ছাত্র ও গণআন্দোলন, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে ফেরদৌস আহমেদ কোরেশীর ভূমিকা ছিল অবিস্মরণীয়। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মুক্তাঞ্চল থেকে মুক্তিযুদ্ধের মুখপাত্র হিসেবে দেশবাংলা পত্রিকা বের করেন ড. কোরেশী। ওই সময় থেকেই তিনি পত্রিকাটির সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন।

সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি গঠন করলে ওই দলের প্রথম যুগ্ম মহাসচিবও ছিলেন ড. কোরেশী। ২০০৭ সালে তিনি প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল (পিডিপি) দল গঠন করেন। আমৃত্যু তিনি ওই দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন।

একুশে পদকপ্রাপ্ত বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক রাহাত খান আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক : একুশে পদকপ্রাপ্ত বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক রাহাত খান মারা গেছেন। শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টায় রাজধানীর ইস্কাটনের নিজ বাসবভনে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।)

তিনি ডায়বেটিসসহ নানা বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। এর আগে অসুস্থ হয়ে বেশ কিছু দিন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

রাহাত খানের পারিবারিক সূত্র জানায়, শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টায় বাসাতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে। রাতে মরদেহ বারডেম হাসপাতালের হিমাগারে রাখা হবে।

গত ২০ জুলাই রাহাত খানকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর আগের দিন বাসায় খাট থেকে নামতে গিয়ে কোমরে ব্যথা পান তিনি। এরপর চিকিৎসকের পরামর্শে এক্স-রে করা হলে পাঁজরে গভীর ক্ষত ধরা পড়ে। এর পাশাপাশি তার শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে জরুরি ভিত্তিতে তাকে বারডেম হাসপাতালের আইসিউতে ভর্তি করা হয়।

দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগ, কিডনি, ডায়াবেটিসসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন তিনি। যার জন্য তার চিকিৎসা প্রক্রিয়াটা জটিল হয়ে পড়ায় সার্জারি করা যাচ্ছিল না বলে বাসাতেই অবস্থান করছিলেন।

টেকনাফের আলোচিত ওসি প্রদীপের রোষের ৬ মামলায় নিঃস্ব সাংবাদিক পরিবার

ডেস্ক রিপোর্ট : সংবাদ প্রকাশের জেরে টেকনাফের আলোচিত ওসি প্রদীপ কুমার দাসের রোষের শিকার হন কক্সবাজারের সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা। একের পর এক তার বিরুদ্ধে করা হয় ছয়টি মামলা। দীর্ঘ ১১ মাস কারাভোগ শেষে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন দৈনিক জনতার বাণীর সম্পাদক ফরিদুল।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কক্সবাজার জেলা যুগ্ম দায়রা জজ ১ম আদালত ফরিদুল মোস্তফাকে জামিন দেন।এরআগে ৫টি মামলায় জামিন পান এই সাংবাদিক।

এদিকে ফরিদুলের বিরুদ্ধে করা এসব মামলা পরিচালনা করাসহ নানা কারণে চরম কষ্টে দিন পার করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। এতদিন নিরাপত্তাহীনতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে তাদের। এমনকি নানা জায়গায় প্রতিকার চেয়েও রেহাই পাননি বলে অভিযোগ ফরিদুলের পরিবারের।

তাদের অভিযোগ, ‘টাকা না দিলে ক্রসফায়ার দেন টেকনাফের ওসি’ সংবাদ প্রকাশ করায় গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর মধ্যরাতে ওসি প্রদীপের নিজস্ব বাহিনী দিয়ে ঢাকা থেকে ধরে এনে সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খানের উপর চালানো হয় লোমহর্ষক নির্যাতন। পরে অবৈধ অস্ত্র, ইয়াবা, বিদেশি মদসহ ৬টি সাজানো মামলা দেয়া হয় তার বিরুদ্ধে। পরে আদালতে হাজির করলে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয় ফরিদুলকে।

এইদিকে সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফার ওপর যে অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়েছিল সেই কথা নিজেই স্বীকার করেছেন বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ। সম্প্রতি টেকনাফের আরেক সাংবাদকর্মী রহমত উল্লাহর সঙ্গে ওসি প্রদীপের একটি কথোপকথনের অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

অডিওতে শোনা যায়, ওসি প্রদীপ সাংবাদিক রহমত উল্লাহকে বলেন, আমার বিরুদ্ধে উল্টাপাল্টা লিখলে খবর আছে। এক পা আমার বাম পায়ের নিচে রেখে আরেক পা টেনে ছিড়ে ফেলমু। আমি জেল-ফাঁস কিছু মানি না। দেখেন না, ফরিদুল মোস্তফারে কি করেছি? উল্টোপাল্টা করলে ধরে এনে রান ফাইরা ফেলব।’

এরআগে ভিন্ন ভিন্ন পাঁচ মামলায় জামিন পান ফরিদুল। সব শেষ যে মামলায় তার জামিন হয় এটি ছিল চাঁদাবাজির মামলা। গত বছরের ৬ জুলাই বহিষ্কৃত ওসি প্রদীপের নির্দেশে টেকনাফ থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন ফরিদুলের প্রধান আইনজীবী আবদুল মান্নান।

সিনিয়র আইনজীবী আবদুল মান্নান বলেন, সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা টেকনাফ ও কক্সবাজারের মাদক ইয়াবা কারবারীদের সঙ্গে পুলিশের সম্পৃক্ততা নিয়ে সিরিজ সংবাদ প্রকাশ করেন। এর জের ধরে ফরিদুল মোস্তফাকে নিধন মিশনে নামেন ওসি প্রদীপ দাশ। ফরিদ মোস্তফাকে যেখানে পাবে সেখানেই ক্রসফায়ারের ঘোষণা দেয়া হয়। তাই প্রাণের ভয়ে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে ঢাকায় পাড়ি জমান। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না ফরিদুল মোস্তফার। গত বছর ২১ সেপ্টেম্বর মোবাইল ট্রাকিং করে রাজধানীর মিরপুর পল্লবী এলাকার ভাড়া বাসা থেকে আটক করে তাকে টেকনাফে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ওসি প্রদীপের হেফাজতে তিনদিন আটকে রেখে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়। পানির বদলে প্রসাব আর না খাইয়ে চোখে মরিচের গুড়া দিয়ে বেয়োনেট দিয়ে খুচিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় রক্তাক্ত করা হয়েছিল। হাত পায়ের নখ প্লাস দিয়ে টেনে উঠিয়ে দেয়া হয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, ফরিদুলের চোখ দুটো প্রায় অন্ধ করে অবৈধ অস্ত্র, ইয়াবা, বিদেশি মদ উদ্ধার দেখিয়ে ৩টি মামলা দেয়া হয়। ওসি প্রদীপের দালাল হিসেবে পরিচিত মৌলভী মুফিজ ইকবাল, জহির আহমদ, আবুল কালামকে বাদী সাজিয়ে আরও ৩টি চাঁদাবাজিসহ মোট ৬টি সাজানো মামলা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

ফরিদের স্ত্রী হাসিনা আক্তার জানিয়েছেন, গত বছর ২৬ জুন ওসি প্রদীপে বিরুদ্ধে রিপোর্ট প্রকাশ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন মোস্তফার ওপর। ওসি প্রদীপের ভয়ে কক্সবাজার সমিতি পাড়ার বাড়ি বিক্রি করে আমরা ঢাকায় মিরপুরে চলে যাই। কিছুদিন পর ঢাকা থেকে তুলে নিয়ে আসে টেকনাফ থানায়। ওসি প্রদীপ নিজেই আমার স্বামী ফরিদুল মোস্তফাকে লোমহর্ষক নিপীড়ন করে। ওসি প্রদীপ ফরিদুল মোস্তফাকে উলঙ্গ করে ভিডিও করেছিলেন। এমনকি পতিতা ডেকে এনে তার সঙ্গে ছবি তুলে ভাইরাল করার হুমকি দিয়েছিলেন প্রদীপ।

সাংবাদিক ফারুক কাজী মারা গেছেন, প্রধানমন্ত্রীর শােক

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রবীণ সাংবাদিক ও ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের সাবেক সভাপতি ফারুক কাজী (৭১) আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

শুক্রবার (৩ জুলাই) সকাল ৮টায় রাজধানীর অ্যালিফ্যান্ট রোডস্থ বাসায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন বলে জানিয়েছেন ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের সভাপতি ওয়াকিল আহমেদ হিরন।

কর্মজীবনে এ প্রবীণ সাংবাদিক বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা, ইউএনবি, অবজারভারসহ বেশ কিছু সংবাদ প্রতিষ্ঠানে সাংবাদিকতা করেছেন। ফারুক কাজির মৃত্যুতে শােক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ইনকিলাব সম্পাদক বাহাউদ্দীনের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী, প্রশাসন এবং প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমামকে জড়িয়ে কটূক্তিমূলক সংবাদ প্রকাশ করায় দৈনিক ইনকিলাবের সম্পাদক বাহাউদ্দীন ও সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা (আইসিটি) আইনে মামলা করেছেন এক আইনজীবী।

শনিবার সন্ধ্যায় ব্যারিস্টার সৌমিত্র সরদার বাদী হয়ে গুলশান থানায় মামলাটি করেন।

গুলশান থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী, প্রশাসন, এবং প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমামকে নিয়ে ‘কটূক্তি’ করে সংবাদ প্রকাশ করার অভিযোগে এনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করা হয়েছে। মামলায় দৈনিক ইনকিলাবের সম্পাদক বাহাউদ্দীন ও সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদককে আসামি করা হয়েছে।

এর আগে পত্রিকাটিতে ‘এইচ টি ইমামকে সরিয়ে দিন’ শিরোনামে একটি মন্তব্য প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। ওই প্রতিবেদনে মানবপাচারে কুয়েতে আটক হওয়া লক্ষ্মীপুর-২ আসনের এমপি কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমামকে জড়ানো হয়। এতে সংক্ষুব্ধ হয়ে মামলাটি করা হয়।

সাংবাদিক মাশুক চৌধুরী মারা গেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রবীণ সাংবাদিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার প্রধান বার্তা সম্পাদক কবি মাশুক চৌধুরী মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

মঙ্গলবার রাত দেড়টায় রাজধানীর মগবাজারের রাশমনো হাসপাতালে তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর।

পরিবার জানিয়েছে, করোনাভাইরাস পরীক্ষায় নেগেটিভ শনাক্ত হলেও তিনি ফুসফুসের সংক্রমণ নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

মাশুক চৌধুরী স্ত্রী, এক কন্যা ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন জাতীয় প্রেসক্লাব এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন ও বিএফইউজের দুই অংশের নেতারা।

কবি ও সাংবাদিক মাশুক চৌধুরীর জন্ম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগ থেকে শিক্ষাজীবন শেষ করেন।

এরপর ১৯৭২ সালে দৈনিক গণকণ্ঠ দিয়ে সাংবাদিকতা শুরু করেন মাশুক চৌধুরী। তিনি দৈনিক দেশ, দৈনিক খবরসহ বিভিন্ন পত্রিকায় গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন।

৭০ এর দশকের খ্যাতিমান কবি মাশুক চৌধুরীর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ হচ্ছে ‘মুক্তিযুদ্ধ প্রিয়তমা আমার’, ‘নির্বাচিত কবিতা’, ‘স্বর্গের রেপ্লিকা, ‘অত্যাগসহন’, ‘নদীর নাম দুঃসময়’।

সপরিবারে করোনাভাইরাস আক্রান্ত সাংবাদিক আবেদ খান

ডেস্ক রিপাের্ট : জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক আবেদ খান এবং তার স্ত্রী, পুত্র ও পুত্রবধূ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

শনিবার রাতে আবেদ খান নিজেই সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, “কোভিড-১৯ এর লক্ষণ দেখা দেওয়ায় চারজনেরই নমুনা পরীক্ষা করতে দিয়েছিলাম। শনিবার বিকেলে সবারই পজিটিভ ধরা পড়েছে।”

৭৫ বছর বয়সী আবেদ খান বর্তমানে দৈনিক জাগরণ পত্রিকার সম্পাদক। প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ-পিআইবির চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করছেন তিনি।

দৈনিক ইত্তেফাকে দীর্ঘদিন সাংবাদিকতা করেছেন আবেদ খান। ভোরের কাগজ, সমকাল, কালের কণ্ঠেরও সম্পাদক ছিলেন তিনি।

তার স্ত্রী সানজিদা আক্তার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারপারসন। ছেলে আসাদ কবির প্রিয় এবং ছেলের বউও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক।

আবেদ খানের জন্ম সাতক্ষীরায়, ১৯৪৫ সালের ১৬ এপ্রিল। তার সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি হয় দৈনিক ‘জেহাদ’ পত্রিকার মাধ্যমে। ১৯৬৩ সালে তিনি দৈনিক সংবাদে যোগ দেন।

১৯৬৪ সালে যোগ দেন দৈনিক ইত্তেফাকে। ইত্তেফাকে আবেদ খান পর্যায়ক্রমে শিফট-ইনচার্জ, প্রধান প্রতিবেদক ও সহকারী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি বিভিন্ন সময় কালের কণ্ঠ, দৈনিক ভোরের কাগজ, দৈনিক যুগান্তর ও সমকালের সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এছাড়া তিনি একুশে টেলিভিশনের সংবাদ ও চলতি তথ্য বিষয়ক প্রধান হিসেবে কাজ করেছেন।

বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের প্রধান নির্বাহী কর্মকতা ও প্রধান সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন আবেদ খান।]

সাংবাদিকতায় অনন্য সাধারণ অবদানের জন্য ২০১৪ সালে রাষ্ট্রপতির স্বর্ণপদক লাভ করেন আবেদ খান।- বিডিনিউজ

১০৩