আমার বোনকে বাঁচাতে চাই (প্লিজ আপনারা সহযোগিতা করুন)- পার্থ সারথী

দুর্লভ এক মানবজনম নিয়ে আমাদের জন্ম। মৃত্যুক্ষণ কারোরই জানা নেই। তবুও সাবধানতার জন্য সৃষ্টিকর্তা কিছু সংকেত পাঠান। কেউ তা বুঝি, কেউ বুঝিনা আবার কেউ অবহেলা করি। মাত্র ১২ বছর বয়সে বাবাকে হারাই, এখন ৩৬ বছর বয়সে একমাত্র বোন মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে।

গত ১২/০৭/২০ইং তারিখে আমার বোন ( মুক্তা মজুমদার, বয়সঃ ৩৬, ছোট দু’টো ছেলেমেয়ের মা) এর হঠাৎ করে প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট হয়। অনেক আগে থেকে অ্যাজমা জনিত সমস্যায় ভুগছে। যার কারণে ইনহেলার সাথে ছিল এবং ইনহেলার নিয়েও শ্বাস নিতে পারছিলো না। পরবর্তীতে ডাক্তারের পরামর্শে অক্সিজেন নিয়ে শ্বাস স্বাভাবিক করে। ডাক্তার অনেকগুলো টেস্ট করে এবং রক্তে সিরাম ক্রিয়েটিনিন 6.4 পাওয়া যায় এবং আলট্রাসনোগ্রাফীতে দুটো কিডনীর সাইজ ছোট আসে।

পরবর্তীতে চট্টগ্রাম মেডিকেলের কিডনী ও নেফ্রোলজির দু’জন ডাক্তারের পরামর্শ অনুসারে ১৪ দিনের ওষুধ এবং পর্যবেক্ষন রাখা হয়। দুর্ভাগ্য যে ১৪ দিন পর ক্রিয়েটিনিন লেভেল 8.4 হয়ে যায়। জরুরী ভিত্তিতে ঢাকা কিডনী ফাউন্ডেশান এর ডাঃ হারুনুর রশীদ স্যারের সিরিয়াল নেয়া হয় এবং ৪/৮/২০ ইং তারিখে ডাক্তারের পরামর্শে কিডনী ফাউন্ডেশান হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পুনরায় সবগুলো টেস্ট করানোর পর ক্রিয়েটিনিন 9.3 পান এবং eGFR দেখে ডাক্তার দুটো কিডনীর 95% ডেমেজ বলেন এবং জরুরী ভিত্তিতে গলার পাশে ক্যাথেটারের মাধ্যমে ডায়ালাইসিস করান এবং আগামীকাল হাতে ফিসচুলা বসানোর সিদ্ধান্ত দেন। পাশাপাশি ডাঃ কিডনী ট্রান্সপ্ল্যান্টের পরামর্শ দেন।

অঙ্গ প্রতিস্থাপন আইন’২০১৮ অনুসারে বাংলাদেশে আত্মীয় সম্পর্ক ছাড়া কিডনী স্থানান্তরের বৈধতা নেই। এক রুগীর করা রিটের রায়ে গত ৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং এ মহামান্য হাইকোর্ট স্বেচ্ছায় অনাত্মীয় ব্যক্তিগণের অঙ্গ প্রতিস্থাপনের পক্ষে রায় দিয়েছেন কিন্তু গেজেট আকারে প্রকাশিত না হওয়ায় ডাঃ এটাকে অবৈধ বলে মানছেন।

আমার বোনের রক্তের গ্রুপ O+ ( ও পজিটিভ)। আমাদের মা এবং আমরা ২ ভাইয়ের রক্তের গ্রুপ O+ আমার ভগ্নিপতির B+ হওয়ায় ম্যাচিং হলে যে কেউ কিডনী দিতে আগ্রহী ছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে আমরা সবাই ডায়াবেটিক পেশেন্ট হওয়ায় ডাক্তারের মতে আমরা ৪ জনই কিডনী ডোনেট করতে পারবো না।

O+ রক্তের গ্রুপের কোন রুগী ICU তে থাকা অবস্থায় ব্রেইন ডেথ হলে মানবিক দৃষ্টিকোন বিবেচনায় রুগীর পরিবার ঐ ব্যক্তির অঙ্গ দান করতে পারেন। এই সহযোগীতাও কোন সুহৃদয়বান ও মহানুভব ব্যক্তি করতে চাইলে দয়া করে আমাদের জানাবেন।

ইন্ডিয়াতে ডোনারের মাধ্যমে অপারেশন করানো যায় কিন্তু সর্বনিম্ন ৩০-৩৫ লাখ টাকার প্রয়োজন হয়। অপারেশন পরবর্তী আরও ৩-৪ লাখ টাকার চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। আমরা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার। প্রাইভেট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করি আর আমার ভগ্নীপতিও প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে (গ্লাস এজেন্সী) কর্মরত ছিলো। করোনার জন্য আমরা দু’জনই বেকার। এমতবস্থায় আমরা দু’টো পরিবার প্রায় দিশেহারা।

বন্ধু , বান্ধব, আত্মীয়স্বজন, মানবতাবাদী এবং জনদরদী ব্যক্তিগনের নিকট বিনীত অনুরোধ আমাদের এই দুর্যোগে আপনারা দোয়া/আশীর্বাদ, পরামর্শ, মানবিক, আর্থিক, লজিস্টিক ও লিগাল সাপোর্টের পাশাপাশি যে কোন মতামত দিয়ে সহযোগীতা করবেন। আপনাদের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করবো।

Account no for helping:
Partha Sarathi Mazumder (Patient’s Younger Brother)
A/C No: 152.101.8013
Dutch Bangla Bank, Chowmuhani Branch.
Noakhali.
Mobile: 01717 573062 / 01842 573062

Shantu Mozumder (Patient’s Younger Brother)
Bkash- 01738000989
Rocket- 017380009895
Nogod- 01738000989

সাহায্য পাঠানোর হিসাব নম্বর:
পার্থ সারথী মজুমদার (রুগীর ছোট ভাই)
হিসাব নং: ১৫২.১০১.৮০১৩
ডাচ্ বাংলা ব্যাংক, চৌমুহনী শাখা, নোয়াখালী।
মোবাইল: ০১৭১৭ ৫৭৩০৬২ / ০১৮৪২ ৫৭৩০৬২

শান্তু মজুমদার (রুগীর ছোট ভাই)
বিকাশ – ০১৭৩৮ ০০০৯৮৯
রকেট – ০১৭৩৮ ০০০৯৮৯ ৫
নগদ – ০১৭৩৮ ০০০৯৮৯

বিশেষ দ্রষ্টব্য : ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। – সম্পাদক

একটি মানবিক আবেদন


aaajআশরাফি খানমঃ লেখক ও কবি সেলিম আল-দ্বীন ,তাঁর অমায়িক ব্যবহার, শ্রদ্ধাবোধ এবং তাঁর ক্ষুরধার লেখনীতে অত্যন্ত স্নেহভাজন হয়ে উঠেছেন অনেকের কাছে ,আমিও তাঁদের মধ্যে একজন । তিনি বর্তমানে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্স অব সায়েন্স-এ অধ্যয়নরত, বিভাগ: ফিশারীজ এন্ড মেরিন বায়োসায়েন্স।পাশাপাশি নিয়মিত লেখালেখির সাথেও নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। ইতিমধ্যে তার লেখা জোছনা-মাখা রজনী নামের একটি উপন্যাস প্রকাশিত হয়েছে ,যা বেশ আলোচিত ৷
অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাচ্ছি যে, সময়ের সম্ভাবনাময় মেধাবী ছাত্র তরুণ উদীয়মান কবি ও সাহিত্যিক সেলিম আল-দ্বীন দীর্ঘদিন যাবত হার্টের বহুমুখী সমস্যায় ভুগছেন। তার হার্টের মেসোকার্ডিয়া পোর, এটাক ও এ পি উইন্ডোজ প্রবলেম। যা একটা ব্যয়বহুল অথচ অতি জরুরী সার্জারির প্রয়োজন এবং এই অপারেশনটা ইন্ডিয়ার ভেলরে করতে হবে । সর্বসাকুল্যে ব্যয় হতে পারে আনুমানিক ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা; কিন্তু সেলিমের হত-দরিদ্র পিতার পক্ষে চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করার সামর্থ্য নেই ৷বর্তমানে তাঁর শারীরিক অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক।সবাই দোয়া করবেন ওর সুস্থতার জন্য আর যারা পারবেন তারা আর্থিক সাহায্যের হাতটি প্রসারিত করবেন ইনশাআল্লাহ! আপনাদের একটু সহানুভূতি দিতে পারে এই প্রতিভা সমৃদ্ধ ছেলেটির নতুন জীবন ৷
আর্থিক সাহায্য/অনুদান পাঠানোর জন্য :
সালিম আল-দ্বীনের বিকাশ নং ও যোগাযোগ-০১৭২১৫০৮৩১১ এবং ০১৭৮৩৯৫৩৩৬৫
সঞ্চয়ী হিসাব নং-MSA – 20502750200969007 Islami Bank.
চৌগাছা ব্রাঞ্চ, যশোর, বাংলাদেশ।
 
বিশেষ দ্রষ্টব্য : ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। – সম্পাদক
 

 

 
 

মৃত্যুপথযাত্রী তানভির মাহমুদকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

aajআফরিন জামান লীনা : ২০০৬ সালে আমার বাবা এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যান।তার দুটো কিডনিই অকেজো হয়ে গিয়েছিল।আজ এই কথাটি একজন কে বললাম।কথাটা শুনেই আমার সেই ভাই যে উত্তর দিলেন তাতে আমার দু চোখ গড়িয়ে পানি পড়ছিল।উত্তর গুলি হুবহু তুলে ধরলাম।
****** #আমি : আমার বাবা এই রোগে চলে গেছেন
M : Vul kotha apu…
Allah took him for good.
Diseases are blessings from him.
To shorten some sins
Allah will keep him in Jannah.
Please keep praying
And also pray so that no one is ever suffered in these disease ….*********
কথাগুলি যখন আমি কপি করছি তখনো চোখ গড়িয়ে পানি পড়ছে ।কথা গুলি কে বলে ছিল জানেন ? বেশিক্ষন আপনাদের ভোগাতে চাইনা।কারন সেই মানসিকতা নেই এখন।কথা গুলি এই ইভেন্ট টা যার নামে সেই হাসপাতালের বেডে শোয়া মৃত্যুপথযাত্রী তানভির মাহমুদের।

আমি খুলনার মেয়ে।মাহমুদ ভাই যে খুলনারই ছেলে আমি জেনেছি এই কিছুক্ষন আগে।জানার আগেই গতকাল আমার এক মেজর বন্ধুর কাছে জানতে পারি মাহমুদ কত ভালো মনের একজন মানুষ।
তানভির মাহমুদ। ঝিনাইদাহ ক্যাডেট কলেজের ৩৩ তম ব্যাচের একজন অত্যন্ত মেধাবী ছেলে।২০০২ এ এইচ এস সি পাস করার পরে বিএমএ ২০০২-২০০৫ এ যোগদান করেন।দেশের অতন্দ্র প্রহরী হিসাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে ২০১০ পর্যন্ত দেশের সেবায় নিয়োজিত ছিলেন এই মানুষ টা। ২০১০ এ ধরা পড়ে একটু একটু করেই তার ভেতরে দানা বেধেছে মরন ব্যাধি অসুখ।অকেজো করে দিয়েছে তার শরীরের এক জোড়া গুরুত্বপূর্ন অঙ্গকে।দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে গেছে মাহমুদের। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেডিকেল বোর্ডে বাতিল হয়ে যায় মাহমুদের সদস্যপদ। মাহমুদ অবসরে যান।২০১০ থেকে ২০১৬। গত ছয়টি বছর এই মরন ব্যাধির সাথে দিনের পরে দিন যুদ্ধ করে যাচ্ছেন তানভির মাহমুদ। প্রতি সপ্তাহে একাধিক ডাইলোসিসে বেচেঁ আছে তার জীবন প্রদীপ।প্রতি মুহুর্তে তার হাতে বেধে দেয়া ঘড়ির কাটা টিক টক আওয়াজ তাকে জানান দিচ্ছে এই বুঝি আওয়াজ থেমে গেল আর সেই সাথে তোমার জীবনের প্রদীপ।উফ ::::: কি দুর্বিসহ যন্ত্রনা। একজন মানুষের কাছে এর থেকে বড় যন্ত্রণা আর কিছুতে আছে বলে আমার জানা নেই।দুর্দান্ত হ্যান্ডবল খেলা এই ছেলেটার স্বভাব সুলভ আচরনের জন্যে অনেকেই তার জন্য কাদঁছে।মাহমুদ এখন বেঁচে থাকার জন্য যুদ্ধ করছে থাইল্যান্ডের বারমুন্ডগ্রাদ হসপিটালে।ওখানকার ডাক্তার রা জানিয়েছেন মাহমুদকে বাঁচাতে হলে নভেম্বর মাসের ভেতরে কিডনি ট্রান্সপারেন্ট করতে হবে।অনেকেই প্রশ্ন করতে পারেন ওপারেশন টা কেন বাংলাদেশে হচ্ছে না।বাংলাদেশে নেফরোলজি চিকিৎসার অপশন ফার্স্ট ব্লাডে এসে থেমে গেছে।ফার্স্ট ব্লাড বলতে (বাবা,মা,ভাই,বোন)।আর কিডনি যিনি দান করবেন তাকে অবশ্যই ৫০ এর নিচে বয়স হওয়া লাগবে।মাহমুদ তার বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান। তার বাবা মায়ের বয়স ৫০ এর উর্ধে।তাই একমাত্র সন্তানকে ধুকে ধুকে মৃত্যুর কোলে ঢুলে পড়তে দেখেও তাকে একটা কিডনি দিতে পারছেনা মাহমুদের বাবা মা।আর যেহেতু সেকেন্ড ব্লাডের রিলেশনের কিডনি ডোনেট করার পরে তা ট্রান্সপারেন্ট করার অপশন বাংলাদেশে অত ভালো হয়না তাই মাহমুদ কে থাইল্যান্ডের পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশের ডাক্তাররা।কিন্তু এই চিকিৎসার ব্যায়ভার বহন করা দীর্ঘসময় ধরে এই অসুখের সাথে যুদ্ধ করা মাহমুদের জন্য এখন এই শেষ মুহুর্তে আর একা সম্ভব নয়। ৭০ লক্ষ টাকা খরচ হবে মাহমুদের এই চিকিৎসায়।হাসপাতালের বেডে শুয়ে এখনো মহান সৃষ্টি কর্তার কাছে আর কিছুদিন এই পৃথিবীতে বেঁচে থাকার আবেদন করে যাচ্ছে আমাদের দেশ রক্ষার এই সাবেক অতন্দ্র প্রহরী। তার এই বেঁচে থাকার ইচ্ছার আরেকটা স্বপ্ন জল জল করে জ্বলছে তার দুচোখে।আর সেই সপ্নের মাসটা এই নভেম্বর। যেই নভেম্বরের তাগদা দিচ্ছে প্রতি মুহুর্তে তার ঘড়ির কাটার টিকটিকি আওয়াজ।আর সেই নভেম্বরই পৃথিবীর আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে মাহমুদের স্ত্রীর গর্ভে বেড়ে উঠা মাহমুদের প্রথম সন্তান। লেখাটা যখন লিখছি তখনো হাত কেপে উঠছে।গতকাল আমার মেজর বন্ধু যখন কথা গুলো বলছিল তখন সে বলেছিল লীনা আমার বুকটা জলে যাচ্ছেরে।

ajমাহমুদের এই বিপুল পরিমান অর্থের যোগান দিতে মাঠে নেমেছে মাহমুদের সহপাঠী ক্যাডেটরা।একজন অনাগত শিশুকে জন্ম নিয়ে, তার বাবার কোলে উঠে বাবা ডাক শোনার তৃপ্তিময় সুখের এই স্বাদ নিতে মাহমুদের পাসে আমরাও কি আসতে পারিনা।যে মানুষ টা একদিন আমার দেশ, আমার জাতিকে বাচাঁনোর জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনির সদস্য হয়েছিলেন।হয়েছিলেন আমার দেশের অতন্দ্র প্রহরী। আজ তার সন্তানকে জন্ম নিয়ে তার বাবার কোলে আসার অধিকারের নিশ্চয়তা কি আমরা সবাই মিলে মাহমুদকে দিতে পারি না?
আমরা দেশে বিদেশে লক্ষ কোটি বাঙালী । আসুন সবাই মিলে মাহমুদের সন্তানকে এই পৃথিবীতে এসে তার বাবার আদর পাওয়ার অধিকার টুকু এনে দেই।মহান রাব্বুল আল আমিন প্রতিটা ভালো কাজে আমাদের সাথে থাকেন।একবার ভেবে দেখেন আমাকে বলা মাহমুদের কথাগুলি। *** Diseases are blessings from him. Please keep praying…. And also pray so that no one is ever suffered in these disease ….*****।
মাহমুদের সন্তানকে এই পৃথিবীতে এসে তার বাবার স্নেহ পাইয়ে দেবার অধিকার আর মাহমুদকে এই সুন্দর পৃথিবীতে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সৃষ্টি কর্তার কাছে আরো কিছুদিন ধার করে আনার জন্য মাহমুদের সহপাঠী ঝিনাইদাহ ক্যাডেট কলেজের এক্স ক্যাডেটদের সাথে আমি ও আছি।আপনারাও আসবেন কি??
মহান করুনাময় সবসময় ভালো কাজের প্রশংসা করেন।এবং তাদেরকে অালিঙ্গন করে নেন যারা এই কাজে যুক্ত থাকেন।
মাহমুদ কে এই পৃথিবীতে আর কিছুদিন বেচেঁ থেকে তার সন্তানের মুখ দেখার সুযোগ করে দেবার এই মহতি
উদ্যোগে আমাদের সবার সাথে আপনাদের অংশগ্রহন করার ঠিকানা নিচে দেওয়া হলো।
১:
AC NAME: Mr.Hasan MD Tanvir Mahmud,
Account No- 2251473777001(saving),City Bank Ltd, Gulshan Avenue Branch, Dhaka
SWIFT NO: CIBLBDDH
২:
bKash account: 01848382050 (merchant account);please use reference 1792
3:
DBBL (Rocket) mobile money: Samia Jahan (ac no: 19310333350), Gulshan Branch
4:
দেশের বাইরে থেকে paypal কিংবা ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড দিয়ে পাঠাতে পারবেন নিমোক্ত লিংক দিয়ে: http://www.ankurintl.org/test/tanvir_mahmud.html
দেশের বাইরে আপনারা যোগাযোগ করতে পারেন নিম্নোক্ত দের সাথে:_
USA: Fahad (JCC, 33) : +14094544725
UK: Reza (JCC, 33) : +447886481355
Canada and Dubai: Sina (JCC, 33) : +16472215032
Australia: Junayed (JCC, 31) : +61412687550
দেশের ভিতরে:-
Major Faisal (01717458373); Farhan (01833181961); Ahammad (01786505553)

বিশেষ দ্রষ্টব্য : ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। – সম্পাদক

Share Button

 

 

বাঁচতে চায় প্রান্তি, হাত বাড়ালেন তাসকিন

TASKINনিজস্ব প্রতিবেদক : ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত তরুণী সোভিয়া সামরিন চৌধুরীকে (প্রান্তি) বাঁচাতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন তারকা ক্রিকেটার তাসকিন আহমেদ।

সোমবার প্রান্তির চিকিৎসার জন্য ৫০ হাজার টাকা দিয়েছেন রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ছেলে তাসকিন।

প্রান্তি রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী (দশম ব্যাচ)। বেশ কিছুদিন আগে তার ব্রেন টিউমার ধরে পড়ে। চিকিৎসার জন্য খরচ হবে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা। নিতে হবে থাইল্যান্ডে। এক মাস হলো প্রান্তির বাবা পরলোক গমন করেছেন।

এই অবস্থায় প্রান্তির বন্ধুরা সমাজের বিত্তবানদের দ্বারে দ্বারে অর্থের জন্য ঘুরছেন। সালমা আজাদ নামের আরেক মেডিকেল শিক্ষার্থী ফেসবুকে তাসকিনের সঙ্গে প্রান্তির ছবি পোস্ট করে খবরটি জানিয়েছেন। তিনিও সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন।

‘আমাদের মাঝে এমন অনেকেই আছেন যাদের সাহায্য করার সামর্থ্য আছে। আসুন আমরা যে যা পারি সাহায্য করি। আমাদের সবার সম্মিলিত সাহায্যের হাতটি পারে আমাদের ছোট বোনটিকে দ্রুত সুস্থ করে তুলতে…ইনশাআল্লাহ,’ মৃত্যুর হাত থেকে প্রান্তিকে বাঁচাতে সবার প্রতি অনুরোধ সালমার।


প্রান্তির জন্য টাকা পাঠানো যাবে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকে (গুলশান শাখায়)

একাউন্ট নং: ১-৮১২-১৬২-২৭০১

বিকাশ নং: ০১৭১১০৮২৫৪৩

নাম: সোভিয়া আফরিন চৌধুরী

 

অদ্ভূত রোগে আক্রান্ত বীথি- পুরো শরীর পশমে ঢাকা

bithiডেস্ক রিপোর্ট : অদ্ভূত রোগে আক্রান্ত মেয়েটি। পুরো শরীর পশমে আবৃত। স্তনের ভারে সোজা হয়ে হাঁটতে পারে না। অদ্ভুত এ সমস্যায় কিশোরী বীথির স্বাভাবিক জীবন যাপনের সকল পথ যেন রুদ্ধ হয়ে পড়েছে।

বীথি বয়স ১২ বছর। টাঙ্গাইলের স্থানীয় জয়ভোগ উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। শরীরে হরমোনের ভারসাম্যহীনতায় মুখমণ্ডলসহ বীথির পুরো শরীর বড় বড় পশমে ঢেকে যায়। স্তনের আকার বাড়তে বাড়তে এখন তা বহন অযোগ্য।

বীথির বাবা জানান, জন্মের পর থেকেই বীথির শরীরে বড় বড় পশম দেখা দেয়। সেই অবস্থায়ই লেখাপড়া চালিয়ে যায় মেয়েটি। গত এক বছরে বীথির শরীরে দেখা দেয় নতুন সমস্যা। তার স্তন অস্বাভাবিকভাবে বড় হতে থাকে। এখন তা নেমে গেছে পেটের নিচ পর্যন্ত। স্তনের ভারে সোজা হয়ে হাঁটতে পারে না। প্রচণ্ড যন্ত্রণায় চিৎকার করে সবসময় কান্নাকাটি করে।

দিনমজুর বাবা মেয়ের কষ্ট আর সহ্য করতে না পেরে ঋণ করে মেয়েকে নিয়ে আসেন ঢাকায়। কিন্তু, ডাক্তার জানালেন, টাকা দরকার আরও অনেক বেশি। অসহায় বাবা এখন টাকার জন্য হন্যে হয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে বীথি বর্তমানে হরমোন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. ফরিদ উদ্দিনের অধীনে চিকিতসাধীন। চিকিতসকরা বলেছেন-হরমোনজনিত কারণে তার এ সমস্যা হচ্ছে।  চিকিতসায় এ সমস্যা কিছুটা দূর হবে। কিন্তু প্রচুর টাকার প্রয়োজন।

বীথির বাবা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‌‌‘বীথিকে নিয়ে খুবই বিপদের মধ্যে দিনাতিপাত করছি। বীথি আমার বড় মেয়ে। জন্ম থেকে পশমের সমস্যা ছিল। অনেক ডাক্তার দেখিয়েছি। কিন্তু কাজ হয়নি। এ অবস্থায় সে পড়ালেখা চালিয়ে গেছে। কিন্তু গত বছর থেকে তার স্তন অস্বাভাবিকভাবে বড় হতে থাকে। এখন এর ব্যথায় সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘টাঙ্গাইলে ভাড়ায় মোটরসাইকেল (অন্যের) চালিয়ে যা রোজগার হয় তা দিয়ে কোনোমতে সংসার চলে যায়। বীথির চিকিতসার জন্য ব্যাংক থেকে ২০ হাজার ও মানুষের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছেন। সে টাকাও শেষ। সহায়-সম্বল বলতে আছে মাত্র বাড়ির জমিটুকু।’

আব্দুর রাজ্জাক তার মেয়ের চিকিতসার জন্য সমাজের বিত্তবান ও বড় মনের মানুষদের সহায়তা কামনা করেছেন। বীথির জন্য সহায়তা পাঠানো যাবে এই বিকাশ নম্বরে: 01720366783

দরিদ্র হারুনের কন্যা সুমাকে বাঁচান

SUMIদরিদ্র হারুন অর রশিদের কন্যা সুমা ১৯৮৭ সাল থেকে মরণব্যাধি থেলা সিমিয়া ব্লাড ক্যান্সার রোগে ভুগছেন। বাবা মিরপুর ১২ নং সেকশনের, সি ব্লকের ১৯ নং লাইনের একজন গরীব বস্তিবাসী। মেয়ের সু-চিকিতসার জন্য বিপুল পরিমান টাকা ব্যয় করার সামর্থ্য তার নেই।সে কারণে সমাজের বিত্তবান ও সুহৃদয় ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে তার পিতা মেয়ের চিকিতসা ও জীবন রক্ষার্থে আর্থিক সাহয্যের আবেদন জানিয়েছেন। 
সাহায্য পাঠাবার ঠিকানা- হারুন অর রশিদ, সঞ্চয়ী হিসাব নং- ২১১১০১৫৮৮০৩ ডাচ বাংলা ব্যাংক লিঃ পল্লবী শাখা, মিরপুর ঢাকা। বিকাশ নম্বর – ০১৭৬২১৭৪৪০৪  ফোন নং ০১৫৫৩৩৫১৬২৬
বিশেষ দ্রষ্টব্য : ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। – সম্পাদক

ছোট আফরিনের পৃথিবীর রং আমরা ফিরিয়ে আনবোই

12729235_453142991548944_2697074018229537941_nডেস্ক রিপোর্টঃ  আফরিন হোসেন । পরীর মত সাত বছরের ছোট্ট মেয়ে । আপনি কিছু বললেই ড্যাব ড্যাব করে তাকিয়ে থাকবে ।কত কিউট মেয়েটি ।কেমন মায়া কাড়া চেহারা! আদর করতে ইচ্ছে হবে আপনার। আপনি ভাবছেন সে বুঝি আপনাকে দেখছে? না। সে আপনাকে দেখতে পাচ্ছে না। তার দুইটা চোখই নষ্ট। ২০০৯ সালে যখন তার বয়স দেড় বছর তখনই চোখে ক্যান্সার (Ratina Biastima) ধরা পড়ে। সেই থেকে চিকিৎসা শুরু হয়। বাংলাদেশের বিভিন্ন চক্ষু রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া হয়। অবশেষে ইন্ডিয়ার সংকর নেত্রালয়ের (Dr. Vikas Khetan) তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা করানো হয়। ২০১০ সালের জানুয়ারী থেকে ২০১৪ পর্যন্ত জমি বিক্রয় করে ও বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণ করে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করে ব্যয় করা হয়েছে। কিন্তু কিচ্ছু লাভ হয়নি। বাম চোখটি তুলে সেখানে পাথর বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। ডান চোখটিও যায় যায় অবস্থা। সেটি ভালো রাখতে আরো ২০ লক্ষ টাকা প্রয়োজন ।
.
আফরিনের বাবা একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। সমান্য চাকুরী দিয়ে তিনি অনেক দুর এগিয়েছেন কিন্তু সফল হতে পারেননি। এখন একরাশ কান্না নিয়ে আপনাদের কাছে সহযোগিতার জন্য হাত পেতেছেন। তার মেয়ের ডান চোখের আলোর জন্য। সবার সহযোগিতাই এখন শেষ ভরসা। আফরিনের চোখের আলো ফিরিয়ে দিতে এদেশের ১৬কোটি মানুষের কাছে ২০ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করা কি খুবই কঠিন হবে???
.
আসুন মানবতার ডাকে সাড়া দিয়ে আমাদের ছোট ছোট সাহায্যের হাতগুলো বাড়িয়ে দিই…..আমি শুরু করেছি। আপনিও শুরু করুন।

কিভাবে শুরু করবেন? আগে আপনি দান করুন। সেটা হতে পারে ১০,২০ অথবা ৫০ টাকা। তারপর প্রিয় বন্ধুর কাছ থেকে নিন, তারপর বড় ভাইয়ের কাছ থেকে তারপর অন্যকোন পরিচিত জনের কাছে । দেখবেন এই ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সংগ্রহ একটা বড় এমাউন্ট হয়ে দাড়াবে। আমরা সবাই মিলে যদি চাই আফরিনের চোখে আলো ফিরবেই!!!!!!
.
যে কোন তথ্যের জন্য যোগাযোগঃ
আরিফ বিল্লাহ- 01718-813831
AB Siddique Chowdhury – 01976-006014
01757401623 (আফরিনের বাবা)

সাহায্য পাঠাতে পারবেনঃ
বিকাশ (পার্সোনাল)- 01718-813831

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। সম্পাদক

রিফাত বাঁচতে চায়

12048824_429541217246015_423535009_nডেস্ক রিপোর্টঃ ময়মনসিংহ জেলার আউটার স্টেডিয়ামের বাসিন্দা এক আট বছরের ছেলের নাম সানজাম হোসেন রিফাত। তার বয়স যখন মাত্র ২ মাস তখনই তার হার্টে একটি ছিদ্র ধরা পরে। বয়স কম বলে ঐ সময় ডাক্তার অপারেশন করানো থেকে বিরত ছিলেন। বেশ কয়েকবার করেই রিফাতকে ডাক্তার দেখানো হয়েছে। কিন্তু অপারেশনের জন্যে আর্থিক সঙ্গতি না আসার কারণে এতদিন সেটা সম্ভব হয়নি। কিন্তু এখন যে অবস্থা দাঁড়িয়েছে তাতে তাকে খুব দ্রুত অপারেশন করানো প্রয়োজন। আর সেটা সম্ভব না হলে একজন মা'কে অকালেই তার সন্তান হারাতে হবে…

আপাতত অপারেশন বাবদ ১,৪০,০০০/- (এক লক্ষ চল্লিশ হাজার) টাকা এবং অপারেশনের পর ঔষধ এবং আনুষঙ্গিক সকল খরচ মিলিয়ে ২,০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকার মতো প্রয়োজন। ইউনাইটেড হাসপাতালের কার্ডিও সার্জন ডা: জাহাঙ্গীর কবীর  ব্যাপারটা দেখেছেন। এবং রিফাতের জন্য বেশকিছু টাকা ছাড় দিয়েছেন। এ জন্যই মূলত ইউনাইটেডে অল্প টাকাতে অপারেশনটা সম্ভব হবে। আপনারা সব সময়ই মানবিক আবেদন রক্ষা করে এসেছেন। আশা করছি এবারেও নিরাশ হতে হবে না। হারাতে হবে না কোন মা'কে তার সন্তান…

এখন পর্যন্ত রিফাতের মোট সংগ্রহ ৩৭,৩২০/- টাকা। বিস্তারিত দেখতে লিঙ্ক এখানেঃ

সাহায্য পাঠানোর ঠিকানাঃ
বিকাশ পার্সোনালঃ
+8801741648548 (ছেলের মা)
+8801956664882 (ছেলের মা)

ব্যাংকের মাধ্যমে সাহায্য করতে চাইলে
Jasmin Akter Some
A/C No: 27244
Islami Bank, Mymensingh Branch।

দেশের বাহির থেকে কেউ সাহায্য পাঠাতে চাইলে
National ID:
Jesmin Akter Sume
ID No: 6125202109917
.
বিস্তারিত জানতে
+8801741648548 (ছেলের মা)

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। সম্পাদক

দেবাশীষকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

দেবাসিশনিজস্ব প্রতিবেদকঃ দেবাশীষ মজুমদার জন্ম ১৯৬১ গোপালগঞ্জ জেলার সোনাকুড় গ্রামে। ছাত্রজীবন থেকে তিনি রাজনীতির সঙ্গে গভীর ভাবে জড়িত। সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজে ৭৬ এর দশকে তিনি ছিলেন সেই সমায়ের তুখোর ছাত্রনেতা । জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর এই দেশে যখন রাজনীতি নিষিদ্ব ছিল তিনি তখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সংগঠনকে ঐক্যবদ্ব করতে চেষ্টা করতেন।মিছিল মিটিং বক্তৃতায় তখন গোপালগঞ্জ ফিরে পেত নতুন রাজনীতি। মানুষের উপকার মানুষের ভালবাসায় এক সমায়ে দেবাশীষ মজুমদার সকলের কাছে খুবই প্রিয় একজন মানুষ ছিলেন। জীবনের শেষ সন্ধিক্ষনেও তিনি গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগরে দফতর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।
কিন্ত তিনি আজ জীবন মরনের সন্ধিক্ষনে। টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না। ঘাতক মরন ব্যধি প্রোস্টেট ক্যান্সারে আক্রান্ত। তার চিকিৎসা করতে অনেক টাকার প্রয়োজন। ভারতের রুবি হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। তিনি ও তার পরিবার এই চিকিৎসার ব্যয় বহন করতে হিমশীম খাচ্ছেন। তাই, মানবিক সাহায্যের জন্য হাত বাড়িয়েছেন। তাঁর  স্ত্রী ঝর্না মজুমদার দেবাশীষকে বাঁচাতে সকলের সাহায্য ও সহযোগীতা প্রার্থনা করছেন।

সাহায্য পাঠাবার ঠিকানা। 
ঝর্না মজুমদার
এ্যাকউন্ট নং- ৩৪১০৮৩২৭
সোনালী ব্যাংক, পাচুড়িয়া শাখা।
গোপালগঞ্জ।
ডাচ বাংলা মবোইল ব্যঙ্ক এ্যাকাউন্টঃ ০১৭২৭৭-৩৯৭৩১

 মোবাইল নং- ০১৮২৮-১৩৫১৫৪

সুুমাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

SUMIদরিদ্র হারুন অর রশিদের কন্যা সুমা ১৯৮৭ সাল থেকে মরণব্যাধি থেলা সিমিয়া ব্লাড ক্যান্সার রোগে ভুগছেন। বাবা মিরপুর ১২ নং সেকশনের, সি ব্লকের ১৯ নং লাইনের একজন গরীব বস্তিবাসী। মেয়ের সু-চিকিতসার জন্য বিপুল পরিমান টাকা ব্যয় করার সামর্থ্য তার নেই।সে কারণে সমাজের বিত্তবান ও সুহৃদয় ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে তার পিতা মেয়ের চিকিতসা ও জীবন রক্ষার্থে আর্থিক সাহয্যের আবেদন জানিয়েছেন। 
সাহায্য পাঠাবার ঠিকানা- হারুন অর রশিদ, সঞ্চয়ী হিসাব নং- ২১১১০১৫৮৮০৩ ডাচ বাংলা ব্যাংক লিঃ পল্লবী শাখা, মিরপুর ঢাকা। ফোন নং ০১৫৫৩৩৫১৬২৬, ০১৭৬ ২১৭৪৪০৪   
 বিশেষ দ্রষ্টব্য : ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। – সম্পাদক