চীন নয়, করোনাভাইরাসের উৎস ভারত ও বাংলাদেশ!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : নভেল করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ মহামারির উৎস চীন নয়, বরং ভারত বা বাংলাদেশ থেকেই এটি ছড়িয়েছে, এমন প্রমাণ রয়েছে বলে দাবি করেছেন একদল চীনা বিজ্ঞানী। খবর ডেইলি মেইলের।

সম্প্রতি চীনের সায়েন্স অ্যাকাডেমি প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে দাবি করা হয়েছে, করোনাভাইরাস উহানে ছড়িয়ে পড়ার আগে ভারত-বাংলাদেশে দেখা দিয়েছিল।

চীনের ওই গবেষকরা দাবি করেছেন, গত বছর এ অঞ্চলে তীব্র তাপদাহের সময় মানুষ ও বন্যপ্রাণীরা একই উৎস থেকে পানিপানের ফলে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়তে পারে।

তাদের গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের মে থেকে জুন মাসে রেকর্ড দ্বিতীয় দীর্ঘতম তাপদাহ তাণ্ডব চালিয়েছিল উত্তর-মধ্য ভারত এবং পাকিস্তানে। এর ফলে ওই অঞ্চলে ভয়াবহ পানির সংকট সৃষ্টি হয়।

চীনা গবেষকদের কথায়, পানির অভাবে বানরের মতো বন্যপ্রাণীরা একে অপরের সঙ্গে ভয়াবহ লড়াইয়ে লিপ্ত হয়েছিল এবং অবশ্যই এটি মানুষ-বন্যপ্রাণী সংস্পর্শের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলেছিল।

চীনা গবেষক দলটি করোনাভাইরাসের উৎস খুঁজতে ফাইলোজেনেটিক বিশ্লেষণ পদ্ধতি ব্যবহার করেন। তাদের মতে, সবচেয়ে কম রূপান্তরিত রূপটাই ভাইরাসের আসল রূপ হতে পারে।

এ ধারণার ভিত্তিতেই চীনা গবেষকরা দাবি করেছেন, নভেল করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ উহানে হয়নি। এর বদলে ভারত এবং বাংলাদেশের মতো জায়গাগুলো, যেখানে কম রূপান্তরিত ভাইরাসের নমুনা পাওয়া গেছে, সেখানেই হতে পারে এর আসল উৎস।

ভারত-বাংলাদেশের পাশাপাশি করোনার সম্ভাব্য উৎস হিসেবে অস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, সার্বিয়া, ইতালি, গ্রিস, যুক্তরাষ্ট্র এবং চেক রিপাবলিকেরও নাম বলেছেন চীনের ওই গবেষকরা।

তবে চীনাদের এ দাবির সঙ্গে একমত নন অনেক বিশেষজ্ঞ। গ্লাসগো ইউনিভার্সিটির ভাইরাল জিনোমিক্স অ্যান্ড বায়োইনফরম্যাটিকস বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডেভিড রবার্টসন চীনা বিজ্ঞানীদের গবেষণাপত্রকে ‘খুবই ত্রুটিপূর্ণ’ বলে উল্লেখ করেছেন।

তিনি বলেছেন, ন্যূনতম রূপান্তরিত ভাইরাস সিকোয়েন্স শনাক্তকরণে লেখকদের দৃষ্টিভঙ্গি সহজাতভাবেই পক্ষপাতদুষ্ট। লেখকরা মহামারির বিস্তৃতি সংক্রান্ত উপাত্তগুলো এড়িয়ে গেছেন, যাতে চীনে ভাইরাসের উত্থান এবং সেখান থেকে ছড়িয়ে পড়া স্পষ্ট দেখা যায়।

এ বিশেষজ্ঞের মতে, চীনা বিজ্ঞানীদের গবেষণাপত্রটি সার্স-কভ-২ সম্পর্কে বোঝার বিষয়ে নতুন কিছুই যোগ করেনি।

বিশ্বব্যাপী করোনা আক্রান্ত ৬ কোটি ১৯ লাখ, মৃত্যু প্রায় সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাভাইরাসের দাপটে আবারও বিপর্যস্ত বিশ্ব। শীতের মৌসুম শুরু হতেই বিশ্বে করোনায় মৃত্যু আবার বাড়তে শুরু করেছে। গত একদিনে করোনায় ১০ হাজারের বেশি মৃত্যু দেখল বিশ্ব। বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ৬ কোটি ১৯ লাখ এবং মৃত্যু ১৪ লাখ ৪৮ হাজার ছাড়িয়েছে। সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ৪ কোটি ২৭ লাখ।

গত একদিনে করোনায় নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ৮১৪ জনের এবং একই সময়ে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৬ লাখ ১২ হাজারের বেশি মানুষ। নতুন করে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশ।

করোনা নিয়ে আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, শনিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ কোটি ১৯ লাখ ৮০ হাজার ২৩ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৪ লাখ ৪৮ হাজার ৯২৮ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৪ কোটি ২৭ লাখ ৮৪ হাজার ৩১৫ জন।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু বেশি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ কোটি ৩৪ লাখ ৫৪ হাজার ২৫৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৭১ হাজার ২৬ জনের।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন ৯৩ লাখ ৫১ হাজার ২২৪ জন এবং মারা গেছে ১ লাখ ৩৬ হাজার ২৩৮ জন।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় ৬২ লাখ ৩৮ হাজারের বেশি মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার ৯৯৮ জনের।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় করোনায় সংক্রমণের সংখ্যা ২২ লাখ ১৫ হাজার ৫৩৩ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৮ হাজার ৫৫৮ জনের।

পঞ্চম স্থানে থাকা ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২১ লাখ ৯৬ হাজার ১১৯ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫১ হাজার ৯১৪ জন।

প্রাণঘাতী ভাইরাসটির সংক্রমণ বাড়ছে বাংলাদেশেও। ২৪ নম্বর অবস্থানে থাকা বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ৫৮ হাজার ৭১১ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৫৪৪ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৬৭৬ জন।

ভোটের ফল বাতিল চেয়ে করা মামলায় ট্রাম্পের হার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভোটের ফল বাতিল চেয়ে করা ট্রাম্পের মামলা খারিজ করে দিয়েছে পেনসিলভেনিয়ার আদালত। রায়ের ঘোষণায় আদালত বলেছে, প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করবে ভোটাররা, আদালত নয়। যদিও আদালতের রায়ের আগেই এই রাজ্যের ফল অনুমোদন হয়ে গেছে। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের

ট্রাম্পের আইনজীবী রুডি জুলিয়ানির পেনসিলভেনিয়া ফেডারেল আদালতে মামলা করেন। এরপর ফল অনুমোদন না দিতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করে আদালত। এছাড়া ২৭ নভেম্বর শুনানির দিন ধার্য করা হয়। এদিনই আদালত মামলা খারিজ করে দেয়।

অভিযোগের প্রমাণ উপস্থাপনে ব্যর্থতার কথা জানিয়ে বিচারক স্টিফেনোস বিবাস বলেন, এ মামলায় সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ এবং প্রমাণ নেই।

তবে এই রায়ে সন্তুষ্ট নন ট্রাম্পের আইনজীবীরা। তারা জানিয়েছেন যে, তারা এই রায় মানেন না এবং আপিল আদালতে যাবেন।

ট্রাম্পের আইনজীবী দলের অন্যতম জেনা এলিস এক টুইটবার্তায় বলেন, পেনসিলভেনিয়া অঙ্গরাজ্যের বিচার বিভাগ রাজনৈতিক কারণে রাজ্যের ব্যাপক ভোট জালিয়াতি আড়াল করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে এখন বিষয়টি প্রমাণের জন্য তারা সুযোগ পাবেন।

আইনজীবী রুডি জুলিয়ানি জানিয়েছেন, পেনসিলভেনিয়া ছাড়াও মিশিগান, নাভাদা, অ্যারিজোনা ও জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের ভোটে অনিয়ম নিয়ে একইভাবে তারা সুপ্রিম কোর্টে যাচ্ছেন।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আশা করছেন, সুপ্রিম কোর্টের নয় বিচারপতির মধ্যে তার ঘরানার সংখ্যাগরিষ্ঠতা এখন রয়েছে। যাদের মাধ্যমে তিনি সফল হতে পারেন।

রাজনৈতিক মতাদর্শ এক হলেও সুপ্রিম কোর্টের বিচারকরা পেনসিলভেনিয়া বা অন্যান্য অঙ্গরাজ্যের ফল পাল্টে দিতে আদেশ দিবেন এমনটি অসম্ভব বলে জানিয়েছেন আইন বিশ্লেষকরা।

৩ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণের পর থেকে জালিয়াতির অভিযোগ তুলেছেন ট্রাম্প। একাধিক মামলাও করেছেন তার আইনজীবীরা। তবে কোথাও তারা এই অভিযোগের পক্ষে শক্তি প্রমাণ হাজির করতে পারেননি।

নির্বাচনের প্রাথমিক ফলে অনেক এগিয়ে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। শুরুতে ক্ষমতা না ছাড়াও জোরালো ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ট্রাম্প। নির্বাচনের ২০ দিন পর এসে তিনি ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়া শুরু করার অনুমোদন দেন এবং গত বৃহস্পতিবার নির্বাচনে হারলে হোয়াইট হাউস ছাড়তেও রাজি আছে বলে জানান ট্রাম্প।

যদিও এখনো তিনি নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ থেকে সরে আসেননি এবং আদালতে এ নিয়ে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণায় অটল রয়েছেন।

করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের প্রথম চালানের পরিবহন শুরু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের ছাড়পত্র পাওয়ার পর ফাইজার উৎপাদিত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন পরিবহন শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। আর এই কাজটি করছে ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স। খবর- ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল, ফক্স নিউজ। শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) এই উদ্দেশ্যে ফ্লাইট পরিবহন শুরু হয়।

‘আকাশপথে ভ্যাকসিনের প্রথম বড় চালানের’ অংশ হিসেবে শিকাগোর ও’হেয়ার এয়ারপোর্ট থেকে ব্রাসেলস ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে চার্টার্ড ফ্লাইট পরিচালনা করতে যাচ্ছে ইউনাইটেড।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি জানা গিয়েছিল, এফডিএ এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পাওয়ার পর ফাইজার দ্রুত ভ্যাকসিন পরিবহনের কাজ শুরু করেছে। তার পরপরই এই কাজে চার্টার্ড বিমান ব্যবহারের খবর সামনে এল।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল বলছে, ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের প্লেস্যান্ট প্রেইরি ও জার্মানির কার্লশ্রুর গুদামের সংরক্ষণ ক্ষমতা বাড়িয়েছে ফাইজার। কার্গো বিমান ও ট্রাকের ভেতরে স্যুটকেসের মতো হিমায়িত বক্সে করে বিশ্বব্যাপী ভ্যাকসিন সরবরাহের পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

তবে এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে গণমাধ্যমকে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি ফাইজার কিংবা ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স।

তবে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল বলছে, ইউনাইটেডের পাশাপাশি অন্যান্য বিমান পরিবহন সংস্থাগুলোও ভবিষ্যতে ভ্যাকসিন পরিবহনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।

উল্লেখ্য, ফাইজার উৎপাদিত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনটিকে সংরক্ষণ করতে হবে মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তারও কম তাপমাত্রায়।

গত সপ্তাহেই তাদের উৎপাদিত করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের জন্য জরুরি অনুমোদন চেয়ে আবেদন করেছিল ফাইজার ও তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান জার্মান জৈবপ্রযুক্তি কোম্পানি বায়োএনটেক।

তিন ধাপের ট্রায়ালে এটি ৯০ শতাংশেরও বেশি কার্যকর বলে দেখা গেছে।

ব্রাজিলে করােনা বেড়েই চলেছ, মৃত্যু ১ লাখ ৭২ হাজার,আক্রান্তের সংখ্যা ৬২ লাখ ৩৮ হাজার ছাড়িয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে আরও কমেছে সুস্থতার হার। অন্যদিকে আগের মতোই সংক্রমণের গতি। এতে করে আক্রান্তের সংখ্যা ৬২ লাখ ৩৮ হাজার ছাড়িয়েছে। নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ৫০১ জনের। ফলে প্রাণহানি বেড়ে ১ লাখ ৭২ হাজারে দাঁড়িয়েছে।

ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের নিয়মিত পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৩ হাজার ৭৮০ জন মানুষের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৬২ লাখ ৩৮ হাজার ৩৫০ জনে দাঁড়িয়েছে। নতুন করে প্রাণ হারিয়েছেন ৫০১ জন। এতে করে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১ লাখ ৭১ হাজার ৯৯৮ জনে ঠেকেছে।

অপরদিকে, এখন পর্যন্ত সেখানে করোনামুক্ত হয়েছেন ৫৫ লাখ ৩৬ হাজার ৫২৪ জন রোগী। এর মধ্যে গত একদিনেই সুস্থতা লাভ করেছেন ৭ হাজার ৯২৫ জন।।

চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারিতে দেশটির সাও পাওলো শহরে ৬১ বছর বয়সী ইতালি ফেরত এক জনের শরীরে ভাইরাসটি প্রথম শনাক্ত হয়। এরপর থেকেই অবস্থা ক্রমেই সংকটাপন্ন হতে থাকে। যেখানে আক্রান্ত ও প্রাণহানির তালিকায় অনেক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন।

তবে শুধু ব্রাজিলই নয়, করোনার ভয়াবহতা ছড়িয়ে পড়েছে গোটা লাতিন আমেরিকার অন্যান্য দেশগুলোতেও। যেখানে পূর্বের তুলনায় ভাইরাসটির দাপট অনেকটা বেড়েছে। এমন অবস্থায় করোনাকে বাগে আনতে দেশগুলোর সরকার মানুষকে ঘরে রাখতে চেষ্টা করছেন। কিন্তু অর্থনীতির চাকা সচল থাকা নিয়ে রয়েছে যত দুশ্চিন্তা। ফলে সংকটাবস্থার মধ্য দিয়ে ব্রাজিল, পেরু, চিলি, ইকুয়েডর ও আর্জেন্টিনার মতো দেশগুলোতে অনেক কিছুই চালু রয়েছে।

এর মধ্যে ব্রাজিলে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা। দেশটিতে আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে বেশ বিপাকে পড়তে হচ্ছে চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোকে। অপরদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দ্বিতীয় দফায় করোনা আরও ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপে ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর পর ব্রাজিল ভাইরাসটির প্রধানকেন্দ্রে পরিণত হয়। একই সঙ্গে এ অঞ্চলের অন্যান্য দেশগুলোতে দ্রুত বিস্তার লাভ করায় কলম্বিয়া, পেরু ও আর্জেন্টিনার মতো দেশগুলোর প্রত্যেকটিতে আক্রান্ত ৯ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

এর মধ্যে আর্জেন্টিনায় সংক্রমিতের সংখ্যা ১৪ লাখ বেড়ে ৭ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৩৮ হাজার ২১৬ জনের।

কলম্বিয়ায় করোনাক্রান্ত রোগী আজ ১২ লাখ ৯০ হাজার ৫১০ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৬ হাজার ২১৪ জনের।

পেরুতে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ লাখ ৫৮ হাজারের অধিক। যেখানে মৃতের সংখ্যা ৩৫ হাজার ৮৩৯ জনে ঠেকেছে।

এছাড়া চিলিতে সংক্রমিত ৫ লাখ ৪৭ হাজার ২২৩ জন মানুষ। এর মধ্যে ১৫ হাজার ২৭৮ জনের প্রাণ কেড়েছে করোনা।

ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী আততায়ী হামলায় নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফখরিজাদাহ রাজধানী তেহরানের কাছে আততায়ী হামলায় নিহত হয়েছেন।

দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে আজ শুক্রবার রাতে বিবিসি এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

তেহরানের দামাবন্দ এলাকায় ফখরিজাদাহর ওপর হামলার পর তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ এই হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে একে কোনো ‘রাষ্ট্রের মদদে’ হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

আন্তর্জাতিক কূটনীতিকরা তাকে ‘ইরানি বোমার জনক’ হিসেবে অভিহিত করতেন।

ফখরিজাদাহ ইরানের সর্বাধিক খ্যাতিমান পরমাণু বিজ্ঞানী এবং অভিজাত ইসলামিক রেভ্যুলেশনারি গার্ড কোরের সিনিয়র কর্মকর্তা।

তিনি দীর্ঘকাল ধরে ইরানের অস্ত্র কর্মসূচিতে প্রধান ভূমিকা পালন করেছেন।

২০১৮ সালে ইসরাইলের প্রকাশিত একটি গোপন নথি থেকে জানা যায়, ইরানের পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির নেতৃত্ব দিতেন ফখরিজাদাহ।

২০১৫ সালে নিউইয়র্ক টাইমস ম্যানহাটন প্রকল্পের পরিচালক জে রবার্ট ওপেনহাইমারের সঙ্গে তার তুলনা করেছিল। এ প্রকল্প থেকেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় প্রথম পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি হয়েছিল।

ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী নারীদের ‘জানোয়ারের’ সঙ্গে তুলনা করলেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : নারীদের ‘জানোয়ারের’ সঙ্গে তুলনা করেছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। নারীদের বিরুদ্ধে সহিংসতার প্রতিবাদ সমাবেশে বুধবার তিনি ওই বিতর্কিত বক্তব্য দেন। এ নিয়ে দেশটিতে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। খবর হারেৎজ ও টাইমস অব ইসরাইল।
খবরে বলা হয়, বুধবার ২৫ নভেম্বর ছিল ‘নারীদের বিরুদ্ধে সহিংসা দূরীকরণ’ (ইন্টারন্যাশনাল ডে ফর দ্য এলিমিনেশন অব ভায়োলেন্স এগেইনস্ট উইমেন) বিষয়ক আন্তর্জাতিক দিবস। সেই উপলক্ষেই ইসরাইলের আইনসভা নেসেটে বক্তব্য রাখেন নেতানিয়াহু।

স্ত্রী সারা এবং নারী সংগঠনের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে নেতানিয়াহু বলেন, ‘নারীরা আপনার আমার সম্পদ নয়। কোনো পশু নয় যে তাদের ওপর অত্যাচার করা যাবে। নারীরা কোনো জানোয়ার নয় যে, তাকে আপনি পেটাতে পারেন। ইদানীং আমরা বলে থাকি, জানোয়ারদেরও আঘাত করো না। আমরা জানি যে, পশুদেরও বোধবুদ্ধি, চেতনা, অনুভূতি রয়েছে। সুতরাং পশুদের প্রতি যদি আমাদের সমবেদনা থাকে-সব নারীই পশু, সব শিশুও পশু, তবে তাদের প্রত্যেকেরই অধিকার রয়েছে।’

নেতানিয়াহুর এই মন্তব্য নিয়ে শুধু দেশেই নয়, আন্তর্জাতিক স্তরেও সমালোচনার ঝড় উঠেছে। একটি দেশের প্রধানমন্ত্রী কীভাবে জন্তু-জানোয়ারের সঙ্গে কীভাবে নারীদের তুলনা করলেন, সেই প্রশ্ন তুলে নেতানিয়াহুকে তুলোধোনাও করছেন অনেকে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রীর অফিস এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, ‘নারী সুরক্ষা ও নারীদের অধিকার নিয়ে মন খুলে কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। নারীদের বিরুদ্ধে সহিংসতার প্রতিবাদেও সরব হয়েছেন। তার বক্তৃতার একটা ছোট অংশে হেনস্তার উদাহরণ দিতে গিয়ে পশুর প্রসঙ্গ টেনে এনেছেন। কিন্তু তিনি কোনোভাবেই জন্তু-জানোয়ারের সঙ্গে নারীদের তুলনা করেননি।’

ডােনাল্ড ট্রাম্পের হোয়াইট হাউজ ছাড়ার ইঙ্গিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হোয়াইট হাউজ ছাড়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, জো বাইডেন যদি আনুষ্ঠানিকভাবে ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়ে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী হন, তাহলে তিনি হোয়াইট হাউজ ছাড়বেন।

গত ৩ নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরাজয় এখনও মেনে মেননি ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, পরাজয় মেনে নেয়াটা ‘কঠিন’ হবে। এসময় তিনি আরও একবার নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তোলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সবমিলিয়ে ৫৩৮টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট রয়েছে। দেশটির গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বাইডেন এ পর্যন্ত ৩০৬টি ও ট্রাম্প ২৩২টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে হলে ২৭০টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট প্রয়োজন। বাইডেন প্রয়োজনীয় সংখ্যার চেয়ে অনেক বেশি ভোট পেয়েছেন। এমনকি তিনি ট্রাম্পের চেয়ে ৬০ লাখেরও বেশি পপুলার ভোট পেয়েছেন।

ফলাফল আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণার জন্য আগামী মাসে বসবেন ইলেকটোরালরা। আগামী ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার কথা রয়েছে জো বাইডেনের। যদিও নির্বাচনের ফল পরিবর্তন করতে আইনি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলেন ট্রাম্প। তবে সেগুলো খারিজ করে দেয়া হয়েছে।

এর আগে এ সপ্তাহের শুরুতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত বাইডেনের টিমের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের ব্যাপারে সম্মত হন ট্রাম্প। কয়েক সপ্তাহের অনিশ্চিয়তার পর ট্রাম্প তার অবস্থান থেকে সরে আসতে রাজি হন।

সূত্র : আলজাজিরা

বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত ছাড়াল ৬ কোটি ১৩ লাখে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দ্বিতীয় ওয়েবের আভাস দিয়ে বিশ্বজুড়ে ফের ভয়ঙ্কর হতে শুরু করছে মহামারি করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯। এমন পরিস্থিতিতে বিশ্বজুড়ে এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬ কোটি ১৩ লাখে। এই মহামারিতে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৪ লাখ ৩৭ হাজার।

করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের সংখ্যা ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, আজ শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সকাল পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১৪ লাখ ৩৭ হাজার ৬৩৫ জনের এবং আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬ কোটি ১৩ লাখ ২ হাজার ৩৭ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪ কোটি ২৩ লাখ ৯৩ হাজার ১২৩ জন।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে, ২ লাখ ৬৯ হাজার ৫৫৫ জন। বিশ্বে সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যাও এই দেশটিতে। বিশ্বের ক্ষমতাধর এ দেশটিতে এখন পর্যন্ত এক কোটি ৩২ লাখ ৪৮ হাজার ৬৭৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন।

করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় দ্বিতীয় এবং মৃতের সংখ্যায় তৃতীয় অবস্থানে আছে ভারত। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৯৩ লাখ ৯ হাজার ৮৭১ জন। এখন পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ লাখ ৩৫ হাজার ৭৫২ জন।
করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় তৃতীয় এবং মৃতের সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬২ লাখ ৪ হাজার ৫৭০ জন। এখন পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন এক লাখ ৭১ হাজার ৪৯৭ জন।

করোনায় মৃতের সংখ্যার দিক থেকে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে মেক্সিকো। দেশটিতে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ লাখ ৪ হাজার ২৪২ জন। আর এ পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ১০ লাখ ৭৮ হাজার ৫৯৪ জন।
আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ অবস্থানে উঠে এসেছে রাশিয়া। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২১ লাখ ৮৭ হাজার ৯৯০ জন। আর মৃতের সংখ্যা ৩৮ হাজার ৬২ জন।

সুস্থতার দিক থেকে প্রথম অবস্থানে আছে ভারত (৮৭ লাখ ১৭ হাজার ৭০৯ জন), দ্বিতীয় অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র (৭৮ লাখ ৪৬ হাজার ৮৭২ জন) এবং তৃতীয় অবস্থানে আছে ব্রাজিল (৫৫ লাখ ২৮ হাজার ৫৯৯ জন)।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এই মহামারি ভাইরাসটি।

করানো মহামারিতে শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যের জন্যে ব্যায়াম জরুরি

আন্তর্জাতকি ডস্কে : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে দুনিয়াজুড়েই স্থবিরতা নেমেছে। যদিও স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বাভাবিক জীবন-যাত্রায় ফিরছে মানুষ। তারপরও শারীরিক নিষ্ক্রিয়তার কারণে ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনতে পারে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

সংস্থাটি বলছে, যথেষ্ট ব্যায়াম না করার জন্যে করোনা মহামারি কোনো অজুহাত হতে পারে না। মহামারি থাকুক আর নাই থাকুক লোকজনকে অবশ্যই সক্রিয় থাকতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বুধবার এ কথা বলেছে।

জাতিসংঘের স্বাস্থ্য বিষয়ক সংস্থাটি তার শারীরিক কর্মকান্ডের আপডেটে জোর দিয়ে বলেছে, শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যের জন্যে ব্যায়াম জরুরি। নিষ্ক্রিয়তার পরিণাম হতে পারে ভয়াবহ।

সংস্থার স্বাস্থ্য প্রচার বিভাগের প্রধান রুডিগার ক্রেচ সাংবাদিকদের বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির এ সময়ে সক্রিয় থাকতে ডব্লিউএইচও সবার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা সক্রিয় না থেকে অসুস্থতার আরেক মহামারি তৈরি করতে পারি।

মহামারি করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে দেশে দেশে লকডাউন, চলাফেরা নিয়ন্ত্রণসহ ব্যায়ামাগারগুলো বন্ধ রাখা হচ্ছে। এর ফলে বহু লোককে বাড়িতে অবস্থান করতে হচ্ছে এবং তাদের নিত্যদিনের জীবন যাপনে পরিবর্তন এসেছে। তবে শরীরিক কর্মকান্ডের ওপর এর প্রভাব নিয়ে স্পষ্ট কোনো তথ্য নেই।

এদিকে সংস্থার প্রধান টেডরস আধানম গেব্রিয়াসিস এক বিবৃতিতে বলেছেন, স্বাস্থ্য এবং ভালো থাকার জন্যে শারীরিক কর্মকান্ড খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি জীবনের সাথে বছরের পর বছর এবং বছরের সাথে জীবনকে যুক্ত করতে সহায়ক হবে।

নিয়মিত ব্যায়াম হার্ট ডিজিজ, টাইপ টু ডায়াবেটিস ও ক্যানসার নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। এছাড়া অবসাদ, উদ্বেগ কমায় এবং মস্তিষ্ককে উজ্জীবিত রাখে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ কোটি ৭ লাখ ১৫ হাজার ৭১৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৪ লাখ ২৬ হাজার ৭৩৪ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৪ কোটি ২০ লাখ ২৮ হাজার ২৪১ জন।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু বেশি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ কোটি ৩১ লাখ ৩৭ হাজার ৯৬২ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৬৮ হাজার ২১৯ জনের।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন ৯২ লাখ ৬৬ হাজার ৬৯৭ জন এবং মারা গেছে ১ লাখ ৩৫ হাজার ২৬১ জন। তৃতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় ৬১ লাখ ৬৬ হাজারের বেশি মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৭০ হাজার ৭৯৯ জনের।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২১ লাখ ৭০ হাজার ৯৭ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫০ হাজার ৬১৮ জন।

পঞ্চম স্থানে থাকা রাশিয়ায় করোনায় সংক্রমণের সংখ্যা ২১ লাখ ৬২ হাজার ৫০৩ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৭ হাজার ৫৩৮ জনের।

প্রাণঘাতী ভাইরাসটির সংক্রমণ বাড়ছে বাংলাদেশেও। ২৪ নম্বর অবস্থানে থাকা বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ৫৪ হাজার ১৪৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৪৮৭ জনের। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লাখ ৬৯ হাজার ১৭৯ জন।

১,০৫৬