রােববার থেকে ছয়দিন দেশের বায়ুর মান ‘অস্বাস্থ্যকর’ থাকার পূর্বাভাস

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনাভাইরাসের ফলে যখন সবকিছু তথা কল-কারখানা বন্ধ ও যান চলাচল সীমিত ছিল তখন বিভিন্ন দেশে বায়ুর মানে যথেষ্ট উন্নতি হয়েছিল।

তবে লকডাউন উঠে যাওয়ার পরে বায়ুর মান আবারও আগের পর্যায়ে চলে আসছে। এখন বাতাসে বেড়েছে ক্ষতিকর উপাদান। অতিক্ষুদ্র এসব ক্ষতিকর উপাদানের মাত্রার ভিত্তিতে বাংলাদেশের রাজধানীসহ প্রধান প্রধান শহরের বায়ু ইতোমধ্যে অস্বাস্থ্যকর হয়ে উঠেছে।

আজ রবিবার (১৫ নভেম্বর) থেকে টানা ৬দিন বাংলাদেশের বায়ুর মান আরও খারাপ থাকার পূর্বাভাস দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান আইকিউ এয়ার।

আজ থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত এই পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে বায়ুদূষণের গড় হার বেড়ে হতে পারে ১৫১ থেকে ২০০ পিএম ২.৫, যা ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির দূষণ।

এই সময়ে বৃদ্ধ, শিশু, শ্বাস-প্রশ্বাসের রোগে ভোগা ব্যক্তিসহ সবাইকে বাড়ির বাইরে বের হওয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

কারণ, ওই মাত্রার বায়ু দূষণে যে কেউ অসুস্থ হতে পারেন, বিশেষ করে যারা শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত রোগে ভুগছেন।

প্রতিষ্ঠানটি ঢাকা মহানগরীর দূষণের চিত্র তুলে ধরেছে। তাকে দেখানো হয়েছে, আজ রবিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বায়ুর মান ১৩১ পিএম ২.৫, গুলশানের বে’স এডজওয়াটারে ১২০, ঢাকার ইউএস অ্যাম্বাসিতে ১১৭, বিটোপিতে ১১১, ওহাব বারিধারায় ১১১ ও বিটোপি গ্রুপে ৫৫ থাতে পারে। একই সময়ে সারাদেশের দূষণের চিত্রে দেখানো হয়েছে, ঢাকায় বায়ুর মান ১১৬ পিএম ২.৫, সাভারে ১১২, ত্রিশালে ১০২, মানিকগঞ্জে ৮৩, শ্রীপুরে ৮১, কুমিল্লায় ৭২ ও নারায়ণগঞ্জে ৪ থাকতে পারে।

বাতাসের একিউআই মাত্রা শূন্য থেকে ৫০ পিপিএম হলে তাকে ‘সবুজ বা স্বাস্থ্যকর’ বায়ু বলা হয় বলে জানিয়েছেন পরিবেশ বিজ্ঞানীরা। আর একিউআই মাত্রা ৫১ থেকে ১০০ পিপিএম হলে তাকে ‘মধ্যম’ বায়ু বলা হয়, যা মানুষের জন্য ক্ষতিকর নয়। মাত্রা ১০১ থেকে ১৫০ পিপিএম হলে সে বায়ুকে ‘সর্তকতামূলক’ বায়ু বলা হয়, যেটা মানুষের জন্য মৃদু ক্ষতিকর। একিউআই মাত্রা ১৫১ থেকে ২০০ পিপিএম হলে সে বায়ুকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ শ্রেণিতে ফেলা হয়। ২০১ থেকে ৩০০ পিপিএম একিউআই মাত্রার বাতাস ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ শ্রেণি এবং ৩০১ থেকে ৫০০ পিপিএম মাত্রার বাতাস ‘চরম পর্যায়ের অস্বাস্থ্যকর’ বায়ু হিসেবে চিহ্নিত।

আজ থেকে সুন্দরবন যেতে পারবেন পর্যটকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে টানা সাত মাস বন্ধ থাকার পর আজ থেকে পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হচ্ছে বিশ্ব ঐতিহ্য ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন। তবে মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি।

ফলে দীর্ঘদিন পর প্রাণচাঞ্চল্য ফিরবে সুন্দরবনকেন্দ্রিক সকল পর্যটন শিল্পে। এর আগে বন বিভাগ সুন্দরবনকেন্দ্রিক জেলাসসমূহে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠায়।

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন সাংবাদিকদের জানান, ‘সুন্দরবনে পর্যটক প্রবেশের অনুমতি সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বনবিভাগ।’

তিনি বলেন, ‘করোনা সংক্রমণের বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে একটি জাহাজে ৫০ জনের বেশি না যাওয়া এবং সামাজিক দূরত্বসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

মুজিববর্ষে আসছে পরিবেশবান্ধব জলবায়ু বাস

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে একটি পরিবেশবান্ধব জলবায়ু বাস চালু করবে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

এ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আগামী রবিবার (১৫ মার্চ) বেলা ১১টায় এ বাসের উদ্বোধন করবেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। সচিবালয়ের দক্ষিণে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হবে।

বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট কর্তৃক পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কে অবহিতকরণ ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে ডিজিটাল এলইডি ডিসপ্লে, মোবাইল থ্রিডি সিনেমা সিস্টেম, ইন্টারএকটিভ কেআইওএসকে, সোলার প্যানেলস্ ফর গ্রিন এনার্জি, ওয়াইফাই ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক তথ্য সম্বলিত আর্কাইভসহ সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে বিশেষ এ বাসটিতে।

ঢাকা শহরে বায়ু দূষণের মাত্রা অসহনীয় পর্যায়ে : পরিবেশমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা শহরে বায়ু দূষণের মাত্রা অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। ঢাকাসহ সারাদেশে বায়ু দূষণের পেছনে তিনটি মূল কারণ রয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। সেগুলি হলো- ইটভাটা, মোটরযানের কালো ধোঁয়া এবং যথেচ্ছ নির্মাণকাজ।

সোমবার পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঢাকার বায়ু ও শব্দ দূষণ বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার শুরুতে তিনি এসব কথা বলেন।

ঢাকাসহ দেশের বাতাসে দূষণ প্রতিদিনই বাড়ছে। বিশ্বের দূষিত বায়ুর শহরে তালিকার শুরুর দিকে রয়েছে রাজধানী ঢাকা। দূষণের মাত্রা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে মাত্রাতিরিক্ত ধুলাবালি। নগরজুড়ে বিভিন্ন স্থানে খোঁড়াখুঁড়ির কারণে এই ধুলাই হয়ে উঠেছে রাজধানীবাসীর নিত্যসঙ্গী।

কীভাবে জনগণকে বায়ু দূষণ থেকে মুক্ত করা যায় সেজন্য সভা ডাকা হয়েছে উল্লেখ করে পরিবেশমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা সিটিতে বায়ু দূষণের বিভিন্ন কারণ রয়েছে। সরকারি বেসরকারি অবকাঠামো ও বিভিন্ন কাজে সমন্বয় করা প্রয়োজন। ইউটিলিটি সার্ভিসের কাজের জন্য সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় করতে হবে। এলিভেটেড এক্সপ্রেস-হাইওয়েসহ বিভিন্ন প্রকল্পের জন্য সঠিক ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে হবে।’

‘শহরের বিভিন্ন স্থানে ভবন নির্মাণের সময় পানি ছিটানো, যন্ত্রপাতি যত্রতত্র ফেলে না রাখা ও নির্মাণের ক্ষেত্র নির্ধারিত বেষ্টনীর মধ্যে আছে কি না তা দেখতে হবে। ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের বায়ু দূষণের অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে। এ সমস্যা রোধে মূল দায়িত্ব পরিবেশ অধিদপ্তরের। ইটভাটার বিরুদ্ধে অভিযান বাড়ানো হয়েছে।’

বাংলাদেশে বায়ু দূষণের উৎস নিয়ে গত মার্চে পরিবেশ অধিদপ্তর ও বিশ্বব্যাংক প্রকাশিত একটি গবেষণা উদ্ধৃত করে মন্ত্রী বলেন, ‘দেশে বায়ু দূষণের প্রধান তিনটি উৎস হচ্ছে- ইটভাটা, যানবাহনের কালো ধোঁয়া ও নির্মাণকাজ। আট বছর ধরে এ তিন উৎস ক্রমেই বাড়ছে।’

খালে বিষ প্রয়োগে মাছ শিকার, হুমকির মুখে পরিবেশ ও জনজীবন

ডেস্ক রিপাের্ট : ঝালকাঠির রাজাপুরের বিভিন্ন খালে বিষ প্রয়োগে মাছ শিকারের ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এর ফলে মাছের সাথে সাথে অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ জলজ প্রাণী মারা গিয়ে একদিকে যেমন পরিবেশের উপর পড়ছে বিরূপ প্রভাব পড়ছে, অন্যদিকে বিষ প্রয়োগে শিকার করা মাছ খেয়ে মানুষসহ অন্যান্য প্রাণী স্বাস্থ্যগতভাবে মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়ছে।

এ ব্যাপারে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলেও অবস্থার কোন উন্নতি হচ্ছে না। এতে পরিবেশ ও মৎস্য সম্পদ বিপন্ন হয়ে পড়েছে। কম পরিশ্রমে অধিক মুনাফা লাভের আশায় তাঁরা বিভিন্ন কীটনাশক সঙ্গে নিয়ে যান। জোয়ার আসার কিছু আগে ওই কীটনাশক চিঁড়া, ভাত বা অন্য কিছুর সঙ্গে মিশিয়ে খালের পানিতে ছিটিয়ে দেয়। এতে একপর্যায়ে ওই এলাকায় থাকা বিভিন্ন প্রজাতির মাছ মরে ভেসে ওঠে। পরে ওই মাছ বিভিন্ন আহরণ করে বাজারে সরবরাহ করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঝালকাঠির রাজাপুরের কেওতা, শুক্তাগড়, কাঠিপাড়া, বড়ইয়া, গালুয়া, মঠবাড়িয়া, সাতুরিয়া, নৈকাঠি, বারবাকপুর, ফুলহার, কৈবর্তখালী, সদর উপজেলার কির্ত্তিপাশা, বেশাইনখান, শেখেরহাট, নথুলাবাদ, কেওড়া, বাসন্ডা, নবগ্রাম, বিনয়কাঠি, আশিয়ার, পোনাবালিয়া, গাভারামচন্দ্রপুর, গাবখান, নলছিটি উপজেলার কুলকাঠি, মোল্লারহাট, কুশঙ্গল, রানাপাশা, নাচনমহল, সিদ্ধকাঠি, দপদপিয়া, সুবিদপুর, কাঠালিয়ার আমুয়া, কৈখালী, শৌলজালিয়া, চেচরীরামপুরসহ বিভিন্ন এলাকার খালে বিষাক্ত রোটেনন (পাউডার) অথবা সাইবারমেথিং (লিকুইড) প্রয়োগ করে মাছ নিধন করা হয়। মাসখানেক ধরে জেলা জুড়েই এভাবে মৎস্য শিকার করা হচ্ছে।

জানা গেছে, জোয়ারের সময় খালে যখন পানিতে থৈ থৈ করে তখন খালের পাশের ঝোপে মাছ লুকিয়ে থাকে। ঘন ফাঁসের জাল এবং চরগড়া দিয়ে ঝোপ আটকিয়ে দেয়া হয়। এরপর চক্রটি বিষ প্রয়োগ করে। বিষ প্রয়োগের ফলে পানি কমে যাওয়ার সাথে সাথেই মাছ মরে ভেসে উঠতে শুরু করে। চক্রটি জাল ফেলে সেই মাছ ধরে বাজারে বিক্রি করছে। শুধু মাছই মারা যাচ্ছে না, বিষাক্ত কেমিকেল প্রয়োগের ফলে সব ধরনের জলজ প্রাণিই মারা যাচ্ছে।

এতে একদিকে বিলুপ্তির মূখে পড়ছে দেশের মৎস্য সম্পদ অন্যদিকে হুমকির মুখে বিরূপ প্রভাবে রয়েছে জীব বৈচিত্র। কীটনাশক প্রয়োগের ফলে পানির মধ্যে থাকা বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, পোনা ও অন্যান্য জলজ প্রাণী নির্বিচারে মারা পড়ছে। এতে মাছের প্রজনন-প্রক্রিয়া ব্যাহত হচ্ছে। এ ছাড়া বিষ মেশানো পানি পান করে গরু, মহিষসহ বিভিন্ন প্রাণী বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। তিনি আরও জানান, অধিক মুনাফার আশায় জেলে নামধারী একটি চক্র দিনের পর দিন এই অমার্জনীয় অপরাধ করে যাচ্ছে। বন্য প্রাণী ও পরিবেশের জন্য এটা চরম হুমকি। বন বিভাগের উচিত আইনের সঠিক প্রয়োগ, সার্বক্ষণিক মনিটরিং এবং জনসচেতনতা সৃষ্টি করে এ ধরনের অপতৎপরতা রোধ করা।

সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. শাহাদাত হোসেন হাজরা জানান, বিষ দিয়ে শিকার করা মাছ মানব স্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ। বিষক্রিয়ার ফলে মানবদেহ নানা ধরনের জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বাবুল কৃষ্ণ ওঝা জানান, বিষ দিয়ে মাছ শিকার করলে মাছসহ অন্যান্য জলজ প্রাণী ধ্বংস হওয়ার পাশাপাশি পরিবেশ দূষণের ঘটনা ঘটে।

পরিবেশ দূষণে বছরে ২ লাখ ৩৪ হাজার মানুষের মৃত্যু

ডেস্ক রিপাের্ট : বাংলাদেশে পরিবেশ দূষণ অনেক মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পরিবেশ দূষণজনিত কারণে শুধু ২০১৫ সালে বাংলাদেশে ২ লাখ ৩৪ হাজার মানুষ মারা গেছে।

আজ শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ শিশুকল্যাণ পরিষদ কনফারেন্স রুমে বাপার উদ্যোগে ‘পরিবেশ দূষণে বাংলাদেশে বছরের ২ লাখ ৩৪ হাজার মানুষ মারা যাচ্ছে, দূষণ বন্ধে অবিলম্বে কার্যকর ও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ’-এর দাবিতে এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ তথ্য জানান সংগঠনের নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে পরিবেশ দূষণ জ্যামিতিক হারে বেড়েই চলেছে। সম্প্রতি এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ২০১৫ সালে পরিবেশ দূষণজনিত কারণে ২ লাখ ৩৪ হাজার মানুষ মারা গেছে। এর মধ্যে ৮০ হাজার মানুষ মারা গেছে শহরে। এ ছাড়া, নানা রোগব্যাধিতে মোট মৃতের সংখ্যা ছিলো ৮ লাখ ৪৩ হাজার। পরিবেশ দূষণের মধ্যে বায়ূদূষণে মৃত্যুর সংখ্যা অন্যান্য দূষণ জনিত মৃত্যু থেকে বেশি।

এছাড়াও বাংলাদেশের নদী, নালা, খাল, বিল দূষণ ও দখল হয়ে যাচ্ছে। ঢাকার চারপাশের ইটভাটা, তীব্র যানজট, পুরোনো মোটরগাড়ি থেকে নির্গত কালো ধোঁয়া এবং ধুলা, কার্বন ডাই অক্সাইড ঢাকার বাতাসকে ভারি করে তুলছে বলেও উল্লেখ করে বাপা।

এরপর পরিবেশ দূষণ রোধে বেশকিছু পরামর্শ দেয় বাপা। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে, ইটের বিকল্প জ্বালানি হিসাবে কংক্রিট ব্লকের ব্যবহার বাড়ানো, কাঠ পোড়ানো বন্ধ করা, ১৬ বছর ও তার বেশি ব্যবহৃত যানবাহন ব্যবহার বন্ধ করা,সব বড় সড়কের পাশে ফুটপাত দখলমুক্ত করা, মাটিবাহী ট্রাক ও গরুর গাড়ি থেকে বালি ও মাটি পড়া বন্ধ করা, সারাদেশে গাছ লাগানো জোরদার করা ও ধুমপান কমানো।

বাপার সহসভাপতি অধ্যাপক এম ফিরোজ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. আব্দুল মতিন, যুগ্ম সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম মোল্লাহ, মিহির বিশ্বাসসহ অনেকেই অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

কম খরচে কাঁকড়া চাষ

ডেস্ক রিপাের্ট : বাংলাদেশের উপকূলীয় ও প্লাবন সংলগ্ন অঞ্চল কাঁকড়া চাষের জন্য উপযোগী। নদী বা মোহনায় খাঁচা বসিয়ে কাঁকড়া পালন করা হয় বলে কাঁকড়া প্রাকৃতিক পরিবেশেই তাড়াতাড়ি বেড়ে ওঠে। কম খরচে ভাসমান বাঁশের খাঁচায় কাঁকড়া পালন গরিব চাষীদের ভাগ্য খুলে দেয়।

খাঁচা তৈরি –
প্রথমেই লাগবে বাঁশ। সঙ্গে লাগবে প্লাস্টিক ড্রাম আর সুতা। খাঁচার আয়তন অনুযায়ী এক বা ১.৫ সেন্টিমিটার মোটা করে ফালি করতে হবে বাঁশ। এরপর এগুলোকে শক্ত চিকন সুতা দিয়ে পাশাপাশি গেঁথে বানা তৈরি করতে হবে। বানাগুলোকে এবার খাঁচার আকৃতি (দৈর্ঘ-প্রস্থ-উচ্চতা) বুঝে পাশাপাশি সংযুক্ত করে বানাতে হবে খাঁচা। খাঁচাটি (৭-৩-১) ফুট আকৃতির হলেই সবচেয়ে ভালো হয়। এতে থাকবে ৬০টি প্রকোষ্ঠ। প্রত্যেক প্রকোষ্ঠের আয়তন (৭-৭-১০) ইঞ্চি করে হবে। ওপরের ঢাকনাটাও এমন বাঁধতে হবে যেন খাবার দেওয়া, পরিচর্যা আর স্থানান্তরে সুবিধা হয়।

পানিতে খাঁচা –
পানিতে খাঁচা বসানোর ক্ষেত্রে জোয়ার-ভাটা ভালোভাবে হয় এমন খাল বা মোহনায় লোনা পানি বাছতে হবে। খাঁচাটাও বসাতে হবে এমন করে যেন ভাটার সময় নদীর তলায় লেগে না যায়। খাঁচার উপরের চার কোণায় চারটি প্লাস্টিকের ছোট ড্রাম বেঁধে দিতে হবে। যাতে এক বা দেড় ইঞ্চি ভাসিয়ে রাখতে পারে খাঁচাটিকে। নদীর তলদেশে শক্ত খুঁটি পুঁতে তার সঙ্গে সর্বোচ্চ জোয়ারের উচ্চতা মাথায় রেখে খাঁচাটিকে বেঁধে দিতে হবে। তাতে জোয়ার-ভাটায় ওঠা-নামা করবে খাঁচাটি।

কাঁকড়া মজুদ –
১৮০ বা ২০০ গ্রাম ওজনের নরম খোলস আর গোরাল অপরিপক্ব এমন কাঁকড়াই মজুদ করতে হবে। এটি অভিজ্ঞ চাষীর পরামর্শ নিয়ে করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ। বছরের যে কোনো সময়ে কাঁকড়া মজুদ করা যায়, তবে বর্ষাকালই সবচেয়ে ভালো। আহত বা পা নেই এমন কাঁকড়া মজুদ করাটা ঠিক হবে না।

পরিচর্যা –
প্রতিদিন সকাল আর বিকেলে কাঁকড়ার দেহের ওজনের ৫ ভাগ পরিমাণ খাবার দিতে হবে। কুইচ্যা বা ইলমাছ, তেলাপিয়া, ছোট মাছ, হাঙ্গরের মাংস, চিংড়ির মাথা ছোট ছোট টুকরা করে দেওয়া যেতে পারে খাঁচার একেকটি প্রকোষ্ঠে।

বাজারজাত –
সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে দুই বা তিন সপ্তাহের মধ্যেই কাকড়াগুলো বাজারজাত করার উপযোগী হয়ে যাবে। পুরো খাঁচা তুলে এনে চিমটি দিয়ে কাঁকড়া ধরতে হবে। খুব সাবধানে। কোনো অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নষ্ট হয়ে গেলে কিন্তু দাম কমে যাবে। ধরার সঙ্গে সঙ্গে পা বেঁধে ফেলতে হবে রশি দিয়ে।

সুবিধা –
ভাসমান বাঁশের খাঁচায় কাঁকড়া পালন সহজ, কম ঝুঁকিপূর্ণ, স্থানান্তর যোগ্য, পরিবেশ অনুকূল আর লাভজনকও। তেমন বিনিয়োগ করতে হয় না বলে কম পুঁজিতেই অনেক লাভ করা যায়। কাঁকড়ার মৃত্যুর হারও কম, রোগ সংক্রমণের ভয়ও নেই। মাটি ও পানি দূষিত হয় না। কম জায়গায় অনেক বেশি কাঁকড়া পালন করা যায়।

বন্যপ্রাণী পাচারের তালিকায় বাংলাদেশের নাম!

TIGERআন্তর্জাতিক ডেস্ক  : বন্যপ্রাণী পাচারে বিশ্বজুড়ে ২৬টি 'ফোকাস' দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।  

স্থানীয় সময় শুক্রবার মার্কিন কংগ্রেসে এ তালিকা সম্বলিত একটি প্রতিবেদন উত্থাপন করেছে দেশটির পররাষ্ট্র দফতর।

 
যেসব দেশে থেকে বন্যপ্রাণী পাচার, বন্যপ্রাণী পাচারের পথ বা রুট হিসেবে ভূখণ্ড ব্যবহার অথবা যে দেশে পাচার হওয়া বন্যপ্রাণী ব্যবহৃত হচ্ছে তাদের নিয়ে ফোকাস দেশের তালিকা করে যুক্তরাষ্ট্র। এর মধ্যে কঙ্গো, লাওস ও মাদাগাস্কারের বন্য প্রাণী পাচার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।  
 
দেশটির কংগ্রেসের ওয়েবসাইটে ওই প্রতিবেদনটি শুক্রবার বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশ করা হয়। সেখানে বলা হয়, আগামী চার বছর ২৬টি দেশের বন্য প্রাণী পাচার পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করবে।
 
২৬টি দেশে ফোকাস তালিকায় বাংলাদেশ ছাড়াও রয়েছে ব্রাজিল, মিয়ানমার, কম্বোডিয়া, ক্যামেরুন, চীন, কঙ্গো প্রজাতন্ত্র, গ্যাবন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, কেনিয়া, লাওস, মাদাগাস্কার, মালয়েশিয়া, মেক্সিকো, মোজাম্বিক, নাইজেরিয়া, ফিলিপাইন, দক্ষিণ আফ্রিকা, তানজানিয়া, থাইল্যান্ড, টোগো, উগান্ডা, আরব আমিরাত ও ভিয়েতনাম।
 
যুক্তরাষ্ট্রে বন্যপ্রাণী পাচার রোধ আইন-২০১৬ অনুযায়ী এই প্রথম মার্কিন কংগ্রেসে বার্ষিক প্রতিবেদন জমা দিয়েছে পররাষ্ট্র দফতর। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত ফেব্রুয়ারি মাসে এ বিষয়ে একটি নির্বাহী আদেশ জারি করেন। নির্বাহী আদেশে প্রধান চারটি বিষয়ের একটি হলো বন্যপ্রাণী পাচার রোধ।
 
এর আগে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে বাংলাদেশে বাঘ হত্যা ও পাচার নিয়ে পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারপোলের পক্ষ থেকে দুটি প্রতিবেদন বাংলাদেশ সরকারের কাছে তুলে দেয়। সেখানে বাঘ হত্যা ও পাচারের সঙ্গে প্রভাবশালী চক্র জড়িত বলে উল্লেখ করা হয়।
 
'বাংলাদেশ সুন্দরবনে বাঘের বাণিজ্য' শীর্ষক ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০০৪ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে সুন্দরবনের বাঘের সংখ্যা ৭৬ শতাংশ কমে গেছে। পেশাদার বন্যপ্রাণী শিকারি একটি চক্র বাঘ হত্যা করে তা ভারতে পাচার করছে।

পোকামাকড় দূর করতে যেসব গাছ বাড়িতে রাখবেন

যেসব গাছ রাখলে বাড়ি থেকে দূর হবে পোকামাকড়ডেস্ক রিপাের্ট : শীতকাল হোক কিংবা গরমকাল অথবা বর্ষাকাল, পোকামাকড়ের কারণে আমাদের সবাইকেই বেশ ভুগতে হয়। মশার কারণে জ্বর, এছাড়া বিভিন্ন পোকামাকড়ের কারণে আমাদের বিভিন্ন রোগ দেখা যায়।

অনেক চেষ্টা করেও বাড়ি থেকে কিছুতেই পোকামাকড়ের উপদ্রব কমাতে পারছেন না।  
তাহলে আমাদের আজকের এই প্রতিবেদন থেকে জেনে নিন, বাড়িতে কোন কোন গাছ রাখলে পোকামাকড় আপনার ধারেকাছেও ঘেঁষবে না-

১) গাঁদা ফুলের গাছ-

শীতকাল আসলে প্রায় প্রত্যেকেই বাড়িতে গাঁদা ফুলের গাছ থাকে। গাঁদা ফুল দিয়ে ঘর সাজাই। কিন্তু আপনার যদি মনে হয় যে, গাঁদা ফুল শুধুমাত্র সৌন্দর্যের কারণেই ব্যবহার করা হয়, তাহলে ভুল ভাবছেন। গাঁদা ফুল গাছের উপকারিতা অনেক। এই গাছে এমন কিছু উপাদান থাকে, যার ফলে এই গাছের কাছে মশা এবং অন্যান্য পোকামাকড় আসতে পারে না। তাহলে বাড়ি থেকে মশা এবং অন্যান্য পোকামাকড় দূর করতে অবশ্যই গাঁদা গাছ বসান।

২) বেসিল পাতা- 

খাবারে স্বাদ বাড়াতে আমরা বেসিল পাতা ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু শুধুমাত্র খাবারের স্বাদ বাড়ানোই নয়, মশা-মাছি দূর করতেও সাহায্য করে এই গাছ।

৩) পুদিনা পাতা- খাবারে নিশ্চয় কখনও কখনও পুদিনা পাতা ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু খাবারের বাইরেও এর আরও অনেক গুণাগুণ রয়েছে। পুদিনা পাতার গন্ধ মশা দূর করতে সাহায্য করে।

১ টাকায় ১ মরিচ

Image result for pic green chiliডেস্ক রিপাের্ট : সারাদেশের মতো কাঁচা মরিচের দাম বেশ চড়া রংপুরের বদরগঞ্জের বাজার গুলোতেও। বদরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার খুচরা বাজারগুলোতে কাঁচা মরিচের দাম দুইশ টাকা ছাড়িয়েছে অনেক আগেই।

সরেজমিনে দেখা যায়, বড় সাইজের ২০টি মরিচ ২০ টাকায় বিক্রি করছেন বদরগঞ্জ সদর উপজেলার এক দোকানি। অর্থাৎ প্রতিটি মরিচের দাম পড়ছে ১ টাকা। কাঁচা মরিচের এমন আকাশছোঁয়া দামে অস্বস্তি নেমেছে বদরগঞ্জের ক্রেতাদের মাঝে। অন্যদিকে ভালো দাম পাওয়ায় ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অনেক কৃষক মরিচ চাষ করে ক্ষতি অনেকটাই পুষিয়ে নিয়েছেন।
বদরগঞ্জ উপজেলায় বিভিন্ন বাজার ও কৃষকদের মরিচ ক্ষেত ঘুরে জানা যায়, উঁচু জমিগুলোর যেখানে সচরাচর পানি জমে না সেসব জমিতে মরিচ চাষ করেছেন কৃষকরা। আর জেলার প্রায় সব নিচু জমির মরিচ গাছ পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে। যারা উঁচু জমিতে মরিচের চাষ করেছেন তারা চড়া দাম পেয়ে বন্যায় ক্ষতি অনেকটাই কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হচ্ছেন।
বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের ঝাকুয়াপাড়া গ্রামের মরিচ চাষি বদন আলী জানান, আমি তিন বিঘা জমিতে মরিচ চাষ করেছিলাম। বন্যায় দুই বিঘা জমির মরিচ গাছ সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বাকি এক বিঘা জমি উঁচু স্থানে থাকায় সেই জমির মরিচ গাছগুলো ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পায়। বর্তমানে সেই জমির মরিচ বিক্রি করে আমার সংসার চলছে। অন্যদিকে সাম্প্রতি বন্যায় নিজের ক্ষতিও কাটিয়ে ওঠা সম্বব হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি মরিচ দেড়শ টাকা দরে বিক্রি করছি। খুচরা বাজারে মরিচ দুইশ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
একই গ্রামের মরিচ চাষি এমারুল হক বলেন, বদরগঞ্জের ৮০ ভাগ মাটি পলি ও উর্বর দো-আঁশ হওয়ায় মরিচ চাষ এখানে ভালো হয়। আমি এ বছর তিনবিঘা জমিতে মরিচ চাষ করেছি। বন্যায় বেশির ভাই জমির কাঁচা মরিচ নষ্ট হয়ে গেছে। মরিচের দাম বেশি হওয়ার কারণে বাকি ১০ কাঠা জমির মরিচ বিক্রি করেই ক্ষতি অনেকটা কাটিয়ে উঠতে পেরেছি।
বদরগঞ্জ বাজারের কাঁচামাল ব্যবসায়ী শাহিন মিয়া বলেন, গত কয়েকদিন ধরে কাঁচা মরিচ প্রতি কেজি দুইশ টাকায় বিক্রি করছি। বিক্রেতাদের মুখে স্বস্তির কথা শোনা গেলেও বিরক্তি প্রকাশ পেলো ক্রেতাদের চোখে-মুখে।
উপজেলার সদরে বাজার করতে আসা বদরগঞ্জের স্থায়ী বাসিন্দা ফজলে রাব্বি বলেন, যে হারে মরিচের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে তাতে ১টি মরিচ ১ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে। এভাবে দাম বৃদ্ধি পেলে আমাদের মত নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারের জন্য মরিচ ক্রয় কষ্টকর হয়ে দাঁড়াবে। একইভাবে এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন, উপজেলার বাসিন্দা মনিকা ইয়াসমিন।
বদরগঞ্জ উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কনক চন্দ্র রায় বলেন, বদরগঞ্জ উপজেলায় বন্যার কারণে সবজি ক্ষেত নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। যার প্রভাব পড়েছে কাঁচা বাজারে। তবে কাঁচা মরিচে এর প্রভাব অনেকটাই বেশী। কাঁচা সবজির যোগান ও উৎপাদন বৃদ্ধি পেলে খুব শীঘ্রই সবজির সাথে সাথে কাঁচা মরিচের দামও নিয়ন্ত্রণে আসবে।

 

২১