ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর নিয়ে জাতিসংঘের আপত্তি অযৌক্তিক: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ডেস্ক রিপাের্ট : মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের থাকার পরিবেশ তৈরিতে ব্যর্থ জাতিসংঘ। তাই ভাসানচরে স্থানান্তর নিয়ে আপত্তি অযৌক্তিক। এ কথা বলেছেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

তিনি আরও বলেছেন, তিন বছরেও যেহেতু মিয়ানমারকে বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছে, সেই জাতিসংঘের মুখে এমন কিছুই মানায় না। বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এসব কথা জানিয়েছেন।

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর করা হবে, সরকারের এমন উদ্যোগে জাতিসংঘ বিরোধিতা করছে বলে দাবি করে আসছিলো পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। অবশেষে গতকাল বুধবার জাতিসংঘ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, অনেক আগেই ভাসানচরের সার্বিক মূল্যায়নের প্রস্তাব দেয়া হয় সরকারকে। তবুও এই প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘকে সম্পৃক্ত করা হয়নি।

সরকারের অনুমতি পেলে মূল্যায়নের জন্য ভাসানচর যেতে চায় জাতিসংঘ। বিবৃতিতে, ভাসানচরে রোহিঙ্গা স্থানান্তরে জাতিসংঘকে সম্পৃক্ত না করার অভিযোগে ক্ষোভ জানানো হয়।

বিবৃতিতে জাতিসংঘ জানায়, ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থান্তান্তর হতে হবে স্বেচ্ছায়। নিশ্চিত করতে হবে মৌলিক সব অধিকার। এসব কাজে সরকারকে সহায়তার কথাও জানায় জাতিসংঘ। চ্যানেল-২৪

দেশে একদিনে করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ২ হাজার ৩১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৭৪৮ জনে। এছাড়া, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ২ হাজার ৩১৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এনিয়ে দেশে করোনা শনাক্ত হলো মোট ৪ লাখ ৭১ হাজার ৭৩৯ জনের।

আজ বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিশাল বহরে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের যাত্রা

ডেস্ক রিপাের্ট : নানা জটিলতার অবসান ঘটিয়ে ভাসানচরে যাত্রা শুরু করেছে রোহিঙ্গারা। প্রথম দিন আজ কয়েকশ রোহিঙ্গা নিয়ে ২০টি বাস কক্সবাজারের উখিয়া ডিগ্রি কলেজ থেকে ভাসানচরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে।

এতে কতজন রোহিঙ্গা রয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি। তবে রোহিঙ্গাদের বহনকারি বাসগুলোর সামনে ও পেছনে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খখলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তা দিতে দেখা গেছে।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় প্রথম দফায় ১০টি বাস উখিয়া ডিগ্রী কলেজ ক্যাম্পাস থেকে নোয়াখালীর ভাসানচরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। এরপর পৌনে ১টায় রোহিঙ্গাদের বহনকারী আরো ১০টি বাস ছেড়ে যায়।

তবে এ নিয়ে কক্সবাজারস্থ শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াতসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

উখিয়া ডিগ্রী কলেজ সংলগ্ন স্থানীয় মুদির দোকানি আবুল কালাম বলেন, ‘সকাল সাড়ে ১১টায় রোহিঙ্গাদের বহনকারী ১০টি বাস উখিয়া ডিগ্রী কলেজ ক্যাম্পাস ছেড়েছে। এরপর পৌনে ১টার দিকে আরো ১০টি বাস কলেজ ক্যাম্পাস ছেড়ে যায়।’

ভাসানচনে রওনা হওয়া এসব বাসের সামনে ও পিছনে আইনশৃঙ্খখলা বাহিনীর সদস্যদের কড়া নিরাপত্তা দিতে দেখেছেন বলে জানান তিনি।

এর আগে গতরাতে ভাসানচরে স্থানান্তরের জন্য স্বেচ্ছায় যেতে আগ্রহী রোহিঙ্গাদের উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প সংলগ্ন ঘুমধুম ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে আসা হয়। অন্যদিকে রাতেই উখিয়া ডিগ্রী কলেজ ক্যাম্পাসে জড়ো করা হয় অন্তত শতাধিক বাস।

এরপর থেকে ঘুমধুম ট্রানজিট ক্যাম্প থেকে উখিয়া ডিগ্রী কলেজ ক্যাম্পাস এলাকাজুড়ে আইনশৃঙ্খখলা বাহিনীর সদস্যদের ব্যাপক নিরাপত্তা জোরদার করতে দেখা গেছে। এতে সাধারণ মানুষের চলাচলেও কড়া বিধি-নিষেধ আরোপ করতে দেখা যায়।

দেশে করােনায় একদিনে আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ১৯৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে আরও ২ হাজার ১৯৮ জন।

বুধবার (০২ ডিসেম্বর) বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির এই সবশেষ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, সকাল ৮টা পর্যন্ত শনাক্ত ২ হাজার ১৯৮ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৬৯ হাজার ৪২৩ জন হল।

আর গত এক দিনে মারা যাওয়া ৩৮ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মোট মৃতের সংখ্যা ৬ হাজার ৭১৩ জনে দাঁড়াল।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ২ হাজার ৫৬২ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন গত এক দিনে। তাতে সুস্থ রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে ৩ লাখ ৮৫ হাজার ৭৮৬ জন হয়েছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত ৮ মার্চ, তা সাড়ে ৪ লাখ পেরিয়ে যায় ২৪ নভেম্বর। এর মধ্যে গত ২ জুলাই ৪ হাজার ১৯ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়, যা এক দিনের সর্বোচ্চ শনাক্ত।

প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ২৬ নভেম্বর তা সাড়ে ছয় হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ৩০ জুন এক দিনেই ৬৪ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়, যা এক দিনের সর্বোচ্চ মৃত্যু।

সমুদ্রে ২ লাখ ৮০ হাজার ইয়াবাসহ মিয়ানমারের ৭ নাগরিক আটক

ডেস্ক রিপাের্ট : সমুদ্র দিয়ে ইয়াবার বড় চালান পাচারের সময় টেকনাফে বঙ্গোপসাগরে ট্রলারসহ মিয়ানমারের সাত নাগরিককে আটক করেছে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড সদস্যরা। এসময় তাদের ২ লাখ ৮০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।
মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) রাত সাড়ে ১২টার দিকে টেকনাফের সাবরাংয়ের কাটাবনিয়া সংলগ্ন এলাকায় বঙ্গোপসাগরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

টেকনাফ কোস্ট গার্ড স্টেশন কর্মকর্তা লে. কমান্ডার আমিরুল হক বলেন, সাগরপথে মিয়ানমার থেকে ইয়াবার একটি বড় চালান কক্সবাজারের দিকে পাচারের খবরে কোস্ট গার্ডের একটি দল রাতে কাটাবনিয়া সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এসময় তল্লাশি চালিয়ে দুই লাখ ৮০ হাজার ইয়াবাসহ সাত মিয়ানমার রোহিঙ্গা নাগরিককে আটক করা হয়। আটকের পর তারা স্বীকার করেছে, মিয়ানমার থেকে ইয়াবার চালানটি কক্সবাজারের দিকে নিয়ে যাচ্ছিল।
এবিষয়ে দুপুরে টেকনাফ কোস্ট গার্ড স্টেশন কার্যালয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে বিস্তারিত জানানো হবে।
এসএস

নভেম্বরে দেশে ৩৫৩ নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার,এদের মধ্যে ১৮ জন দলবদ্ধধর্ষণসহ মোট ১৫৩ জন ধর্ষণের শিকার

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ জানিয়েছে, সারাদেশে নভেম্বর মাসে মোট ৩৫৩ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এরমধ্যে ১৮ জন দলবদ্ধধর্ষণসহ মোট ১৫৩ জন ধর্ষণের শিকার।

মহিলা পরিষদের লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদের এক প্রতিবেদনে মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) এই তথ্য জানানো হয়। এই প্রতিবেদন দেশের জাতীয় ১৩টি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, নভেম্বর মাসে মোট ৩৫৩ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে ১৮ জন দলবদ্ধধর্ষণসহ মোট ১৫৩ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ৯৪ জন কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার এবং ৭ জন কন্যাশিশু দলবদ্ধধর্ষণের শিকার হয়েছে। এছাড়া ৭ জন শিশুসহ ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে ১৫ জনকে। শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছে ৫ জন। এর মধ্যে শিশু ৩ জন। ৬ জন শিশুসহ ৭ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে। এসিডদগ্ধের শিকার হয়েছে ৪ জন শিশু এবং এসিডদগ্ধের কারণে মৃত্যু হয়েছে ১ জনের।

উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে ৭ জন। শিশু অপহরণের ঘটনা ঘটেছে মোট ১১ জনের সাথে। পাচারের শিকার হয়েছে ৫ জন। বিভিন্ন কারণে ১২ জন শিশুসহ ৩৮ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া ৫ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছে ৪ জন, তার মধ্যে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। যৌতুকের কারণে নির্যাতন হয়েছে ৯ জনের উপর, এদের মধ্যে ৪ জনকে যৌতুকের কারণে হত্যা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত অক্টোবর মাসে মোট ৪৩৬ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছিল। এরমধ্যে ৪৪ জন দলবদ্ধধর্ষণসহ মোট ২১৬ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছিল।

ডাক বিভাগের মহাপরিচালক সুধাংশুর বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে চিঠি

ডেস্ক রিপাের্ট : দুর্নীতি মাধ্যমে শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বাধ্যতামূলক ছুটিতে থাকা ডাক বিভাগের মহাপরিচালক (ডিজি) সুধাংশু শেখরের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আর সেই অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে তার বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে পুলিশের বিশেষ শাখায় (এসবি) চিঠি দিয়েছে দুদক।

মঙ্গলবার দুদকের উপ-পরিচালক ও অনুসন্ধান কর্মকর্তা মো. সালাহউদ্দিন পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) বিশেষ পুলিশ সুপার (ইমিগ্রেশন) বরাবর চিঠি পাঠিয়ে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জানিয়েছেন। একই অভিযোগে ডাক অধিদপ্তরের পরিদর্শক রাবেয়া খাতুনের দেশত্যাগের ওপরেও নিষেধাজ্ঞা চেয়েছেন অনুসন্ধান কর্মকর্তা।

এই দুদক কর্মকর্তা বলেন, ‘বিভিন্ন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে কমিশন থেকে অনুসন্ধান করা হচ্ছে। আমরা জানতে পেরেছি, তিনি দেশত্যাগ করতে পারেন। আর তিনি দেশত্যাগ করলে কমিশনের অনুসন্ধান ব্যাহত হবে। এ কারণে পুলিশের বিশেষ শাখায় তার বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে দুদকের পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, ‘ডাক অধিদপ্তরের কয়েকটি প্রকল্পের কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে সুধাংশু শেখর ভদ্রের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। ভদ্র ও রাবেয়া যাতে দেশত্যাগ করতে না পারেন, সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিশেষ পুলিশ সুপারকে (ইমিগ্রেশন) পাঠানো চিঠিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।’

এর আগে গত ২ সেপ্টেম্বরে প্রকল্পের নামে শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সুধাংশু শেখরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।

দুদক সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকারভিত্তিক প্রকল্পের শত শত কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন ডাক বিভাগের এই সাবেক মহাপরিচালক এসএস ভদ্র।

গত মাসে ‘পোস্ট ই-সেন্টার ফর রুরাল কমিউনিটি’ নামের প্রকল্পে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় সুধাংশু শেখর ভদ্রকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো হয়। তবে দুদকের অনুসন্ধানে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ার পর এখন মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্পের আওতায় ডাক বিভাগের ৫৪১ কোটি টাকার ‘পোস্ট ই-সেন্টার ফর রুরাল কমিউনিটি’ প্রকল্পে কমপক্ষে ১০০ কোটি টাকা লুটপাটের অভিযোগ রয়েছে সুধাংশু শেখর ভদ্রের বিরুদ্ধে। অভিযোগ ওঠে, দেশের উপজেলা পর্যায়ে ই-পোস্ট অফিস স্থাপনের নামে তিনি এ অর্থ আত্মসাৎ করে বিদেশে পাচার করেছেন। এরই মধ্যে দুদকের অনুসন্ধানে দুর্নীতির প্রাথমিক সত্যতাও মিলেছে।

প্রেমিক আক্তার মিয়াকে কাছে পেতে ৩ সন্তানের মুখে বিষ! ১ জনের মৃত্যু

ডেস্ক রিপাের্ট : পরকীয়া করতেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রাজিউড়া ইউনিয়নের উচাইল-চারিনাও গ্রামের গৃহবধূ ফাহিমা খাতুন। কিন্তু বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল তার তিন সন্তান। প্রেমিককে কাছে পেতে তাই জুসের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে সন্তাদের পান করিয়ে দেন তিনি। শিশু তিনটির মধ্যে একজন মারা গেছে।

মঙ্গলবার হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন ফাহিমা খাতুন। তার স্বামী সিরাজুল ইসলাম একজন ইজিবাইক চালক। আদালতে স্বীকারোক্তি প্রদান শেষে ফাহিমাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এসব তথ্য নিশ্চিত করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম।

গতকাল রাতে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রবিউল ইসলাম জানান, একই গ্রামের পাশের বাড়ির আক্তার মিয়ার সঙ্গে পরকীয়া করতেন ফাহিমা খাতুন। একপর্যায়ে তারা ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু এতে বাধা হয়ে দাঁড়ায় ফাহিমার তিন সন্তান। ১৮ নভেম্বর সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের দোকান থেকে ফাহিমা ২টি লিচুর জুস কিনে এনে প্রেমিক আক্তার মিয়ার হাতে দেন। আক্তার মিয়া জুসে বিষ মেশান। পরে আক্তার মিয়া ও ফাহিমা খাতুন তিন সন্তানকে উঠান থেকে ডেকে এনে জুস খাওয়ান।

জুস খাওয়ার পরই বিষক্রিয়ায় ফাহিমার তিন শিশু সন্তান ছটফট করতে থাকে। পরে এলাকাবাসীর সহায়তায় তিন শিশুকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে ৭ বছরের মেয়ে সাথী আক্তারকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। অপর দুই সন্তান তোফাজ্জল ইসলাম ও রবিউল ইসলাম সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পর সুস্থ হয়।

এরপরই ফাহিমা ও আক্তারের পরকীয়া প্রেমের বিষয়টি প্রকাশ পায়। এ ঘটনায় ফাহিমার স্বামী সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে স্ত্রী ফাহিমাসহ তিনজনের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

দেশে একদিনে করোনাভাইরাসে আরও ৩১ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ২৯৩ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আরও ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেছেন ৬ হাজার ৬৭৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ২৯৩ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৬৭ হাজার ২২৫ জন।

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন দুই হাজার ৫১৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন তিন লাখ ৮৩ হাজার ২২৪ জন। সারাদেশে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১১৮টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১৫ হাজার ৯৬৯টি। মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৫ হাজার ৫০১টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৭ লাখ ৮৮ হাজার ২০২টি।

এতে আরও বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার হার ১৪ দশমিক ৭৯ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৭৬ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮১ দশমিক শূন্য ৯ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৩ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে নাসিমা সুলতানা জানান, ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৩১ জনের মধ্যে ১৭ জন পুরুষ ও নারী ১৪ জন। এদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিভাগে ২৩ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে পাঁচ জন। এছাড়া রাজশাহী, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগে এক জন করে তিন জন রয়েছেন। এদের মধ্যে হাসপাতালেই মারা গেছেন ৩১ জন।

মৃতদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে ১৯ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে সাত জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে এক জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুই জন ও ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে দুই জন রয়েছেন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ২৬১ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ১৯৮ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ৯১ হাজার ৫০৬ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৭৮ হাজার ৫৭৭ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১২ হাজার ৯২৯ জন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন- ঘরোয়াভাবে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানেও পুলিশের অনুমতি লাগবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঘরোয়াভাবে অনুষ্ঠান করতে চাইলে যে কেউ করতে পারবে। তবে সেজন্য আগেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানাতে হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

তিনি বলেন, এছাড়া নিজেরা কিছু করতে চাইলে নিরাপত্তাবাহিনীকে জানিয়ে করতে হবে। আমরা সবাইকে অনুরোধ করবো, স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাযোগ্য মর্যাদায় বিজয় দিবসটি পালন করতে। আজ সবার সঙ্গে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (০১ ডিসেম্বর) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে মহান বিজয় দিবস ২০২০ যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত জাতীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নকল্পে যথাযথ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় ভার্চ্যুয়াল সভায় তিনি এ কথা বলেন।

সভায় জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তপন কান্তি ঘোষ, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. শফিকুল ইসলামসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মহামারি কোভিড-১৯ এর কারণে সারা বিশ্ব আতঙ্কিত। তারপরও বাংলাদেশের জনগণ কোনো কিছু হলেই রাস্তায় বেরিয়ে আসে, এটা আমাদের স্বভাব। আমরা শত চেষ্টা করেও তাদের ঘরমুখি করতে পারছি না। সেজন্য আমাদের আশঙ্কা মহান বিজয় দিবসের দিন লোকজন ঘরে থাকবেন না। লোকজন বেরিয়ে আসবে। তখন তাদের কীভাবে নিরাপত্তা দেবো, সেটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে যারা ঘরোয়া অনুষ্ঠান করতে চান, তারা করতে পারবেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, তবে সে বিষয়ে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আগেই জানাতে হবে। অনুষ্ঠানটি কারা, কোথায়, কীভাবে, কতজনকে নিয়ে করছে এবং কারা কারা সে অনুষ্ঠানে থাকবে এসব আগেই জানাতে হবে। অনুষ্ঠানগুলোতে যাতে কেউ কোনো ধরনের নাশকতা বা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে, সেজন্য সারাদেশে আমাদের গোয়েন্দারা সক্রিয় থাকবে, পাশাপাশি নিরাপত্তার জন্য আমাদের নিরাপত্তাবাহিনী কাজ করবে। বিজয় দিবস উপলক্ষে সরকারি-আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং ভবনে মন্ত্রিপরিষদের নির্দেশনা অনুযায়ী সঠিক মাপ ও নিয়ম অনুযায়ী জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে হবে। পতাকার রঙ, মাপটা যেন সঠিক হয়, সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে ঢাকাসহ দেশের সব জেলা-উপজেলায় তোপধ্বনি হবে নিয়ম অনুযায়ী। বিভিন্ন স্থাপনায় আলোকসজ্জা হবে, যে যেভাবে চায়, করতে পারবে। অনুষ্ঠান সফল করার জন্য ইউটিলিটি সহযোগিতাকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ইউনিট আকারে সহযোগিতা করবে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে জাতীয় স্মৃতিসৌধে যাতায়াত ও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর ক্ষেত্রে যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হচ্ছে। প্রতিবার যেভাবে নেওয়া হয়, সেভাবেই আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। এছাড়া বাংলাদেশে অবস্থিত বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের যারা যারা স্মৃতিসৌধে যাবেন, তাদের জন্য প্রতিবারের মতো এবারও যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হবে, যোগ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, জাতীয় স্মৃতিসৌধ এলাকায় নিরাপত্তার জন্য পর্যাপ্ত সিসি ক্যামেরা বসানোসহ আলোকসজ্জা থাকবে। ঢাকা থেকে সাভার যাওয়ার সব রাস্তায় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হবে। পাশাপাশি রাস্তাঘাট পরিষ্কার পরিছন্ন রাখার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সারাদেশের যে কোনো উপাসনালয় যেমন মন্দির, মসজিদ, গির্জা ও পেগোডাতে বিশেষ প্রার্থনা ও মোনাজাত হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার শান্তি ও সমৃদ্ধি কমনা করা হবে। একই সঙ্গে বিজয় দিবস উপলক্ষে বৃদ্ধাশ্রম, এতিমখানা, কারাগার, হাসপাতালগুলোতে বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা করা হবে।

২,০২৬