ইনিয়েস্তাকে লা লিগার শিরোপা উৎসর্গ করলেন মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক : রোববার লা লিগায় দেপোর্তিভো লা করুনার মাঠে বার্সেলোনা শিরোপার জন্য কেবল একটি পয়েন্ট দরকার ছিল। কিন্তু তাদের মাঠে লিওনেল মেসির নজরকাড়া হ্যাটট্রিকে গোটা তিন পয়েন্ট নিয়েই লা লিগার শিরোপা ঘরে তুললো বার্সেলোনা। আর এই জয়টা বার্সাকে বিদায় জানানো ইনিয়েস্তাকে উৎসর্গ করছেন লিওনেল মেসি। ম্যাচ শেষে সতীর্থের বিদায় রাঙ্গিয়ে দেওয়ার মতই উদযাপন করে মেসি-সুয়ারেজরা।

অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা ফুটবলের চলতি মৌসুম শেষ করেই বিদায় জানিয়েছেন বার্সেলোনাকে। কাতালান ক্লাবটির সঙ্গে দীর্ঘ ২২ বছরের সম্পর্ক ছিন্ন হওয়ার কারণে বেশ শোকের আবহ বিরাজ করছে বার্সা শিবিরে। তবুও পরপর দুটি লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েই মৌসুম শেষ করলো ইনিয়েস্তা।

গতকাল ম্যাচের ৮৭তম মিনিটে ইভান রাকিতিচের বদলি হয়ে মাঠে নামেন আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। তিনি মাঠে নামার পরেই মাঠে উপস্থিত বার্সেলোনা ও দেপোর্তিভো সমর্থকরা সবাই দাঁড়িয়ে সম্মান জানায় এই স্প্যানিশ মিডফিল্ডারকে।

আর ম্যাচ শেষে ইনিয়েস্তাকে নিয়ে জয়ের নায়ক মেসি বলেন,‘ আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার এই ক্লাবটি ছেড়ে যাওয়া সত্যিই দুঃখ জনক। যদিও এটা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ নয়। তুবও এই শিরোপাটা দারুণ ছিল। এই শিরোপা তার (ইনিয়েস্তার) প্রাপ্য ছিল। সে এতদিন ক্লাবের জন্য যা করেছে সবমিলিয়ে এই শিরোপার মালিক সে। আমি তার ভবিষ্যৎ জীবনের জন্য শুভকামনা জানাই। – ইয়াহু স্পোর্টস

গাইবান্ধায় পেট্রোলবোমা নিহতদের দাফন-দাহ সম্পন্ন

Gaibandha_Photo_01__07_02_15__265807550 (2)ডেস্ক রিপোর্টঃ গাইবান্ধায় যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোলবোমা হামলায় নিহত ছয়জনের দাফন-দাহ সম্পন্ন হয়েছে। এদের সবাই জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা ছিলেন।

শনিবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার আগে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চন্ডীপুর ইউনিয়নের স্থানীয় খোলা মাঠে পাঁচজনের নামাজে জানাজা ও কালীর খামার গ্রামের মাঝিপাড়ার শ্মশান ঘাটে একজনের দাহ অনুষ্ঠিত হয়। 

জানাজায় ইমামতি করেন মাওলানা শাহজালাল মিয়া। 

জানাজায় গাইবান্ধা-১ সুন্দরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ইউএনও) রাশেদুল হক প্রধান, সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  মোজাম্মেল হক, চন্ডীপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা আহমেদ, কঞ্চিবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল খায়ের হাফিজার রহমানসহ এলাকার হাজারো মানুষ অংশ নেন।

শেষে প্রত্যেকের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন ও দাহ সম্পন্ন করা হয়।  এরআগে শনিবার বিকেল ৪ টার দিকে চন্ডীপুর গ্রামের বাড়ি এসে পৌছায় নিহতের মরদেহ।

তারা হলেন, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চন্ডীপুর ইউনিয়নের পশ্চিম চন্ডীপুর সিচা গ্রামের মৃত শাহাবুদ্দিনের স্ত্রী হালিমা বেওয়া (৪০), একই গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে সুমন মিয়া (২০), তারা মিয়ার শিশু ছেলে সুজন (১০) তার স্ত্রী সোনাভান (৩০), কঞ্চিবাড়ি ইউনিয়নের দক্ষিণ কালির খামার গ্রামের রিক্সা চালক সৈয়দ আলী (৪০) এবং মধ্যপাড়া নাগের খামার গ্রামের বলরাম দাসের শিশু মেয়ে শিল্পী (৭)।  

 শুক্রবার দিবাগত রাত পৌনে ১১টার দিকে গাইবান্ধা-পলাশবাড়ী সড়কের তুলসীঘাট এলাকায় বোমা হামলায় শিকার হন তারা।  

এদের মধ্যে সৈয়দ আলী, সুমন, শিল্পী ও হালিমা ঘটনাস্থলে ও রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে পরদিন সকালে শিশু সুজন এবং বিকেলে তার মা সোনাভান মারা যান।  

শুক্রবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার পাঁচপীর থেকে নাপু এন্টারপ্রাইজের একটি বাস অর্ধশত যাত্রী নিয়ে ঢাকা উদ্দেশে যাচ্ছিলো। তুলসিঘাট এলাকায় পৌছালে বাসটি লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা ছোড়ে দুর্বৃত্তরা। এতে ওই হতাহতের ঘটনা ঘটে। 

‘ধর্ষণ করিয়া স্যার এখন জেল খাটিতেছেন’

ডেস্ক রিপোর্ট :বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণের অভিযোগে লালমনিরহাটের পাটগ্রাম সরকারী ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আ: মোতালেব এরশাদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে কলেজ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।
পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, হাতীবান্ধা উপজেলার পশ্চিম বেজগ্রাম এলাকার আ: ছাত্তারের পুত্র প্রভাষক আ: মোতালেব এরশাদ অনেক মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন ভাবে ধর্ষণ করে আসছে।
গত ২ আগষ্ট ওই এলাকার শিরিন নামে এক মেয়েকে বিয়ের কথা বলে ধর্ষণ করে লম্পট প্রভাষক এরশাদ। পরে শিরিনকে বিয়ে না করে পাটগ্রাম উপজেলার ডাকঘর পাড়ায় সুমি নামে এক মেয়েকে বিয়ে করার প্রস্তুতি নেয় লম্পট এ প্রভাষক।
শিরিনের অভিযোগের ভিক্তিতে হাতীবান্ধা থানা পুলিশ পাটগ্রাম থানা পুলিশের সহযোগিতায় লম্পট প্রভাষক এরশাদকে গ্রেফতার করেন।
এ ঘটনায় শিরিনের পিতা লোকমান হোসেন বাদী হয়ে হাতীবান্ধা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ শুক্রবার দুপুরে প্রভাষক আ: মোতালেব এরশাদকে জেল-হাজতে প্রেরণ করেছে। এলাকায় এ খবর ছড়িয়ে পড়ার পর জসিম নামে এক ব্যক্তি ব্যঙ্গ করে বললেন, ‘ধর্ষণ করিয়া স্যার এখন জেল খাটিতেছেন’। হাতীবান্ধা থানার ওসি আনোয়ার হোসেন এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 

ইনজেকশনে অচেতন করে ফেলা হয় – কাঁচপুর ব্রিজের নিচে হত্যা করা হয় ৭ জনকে

*ঘটনার সময় মেজর আরিফের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ ছিল নূর হোসেনের *

imagesdfডেস্ক রিপোর্ট : তদন্তে কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ও এ্যাডভোকেট চন্দন সরকারসহ সাত জনকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনা সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসছে। ঘটনার ভয়াবহতায় চমকে উঠছেন তদন্তের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারাও। রহস্য উন্মোচনের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে পুলিশ। র‌্যাব-১১’র সাবেক ৩ কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্তে প্রাপ্ত তথ্য প্রমাণে পুলিশ মোটামুটি নিশ্চিত সাত জনকে কাঁচপুর ব্রিজের নিচে শীতলক্ষ্যা নদী দখল করে অবৈধভাবে গড়ে তোলা নূর হোসেনের বালু ও পাথরের ব্যবসা কেন্দ্রে হত্যা করা হয়েছে। 
এখান থেকে লাশ ট্রলারে করে নিয়ে ফেলা হয় বন্দর উপজেলা কলাগাছিয়া শান্তিনগর এলাকায়। ২৭ এপ্রিল দুপুরে অপহরণের পর গাড়িতে তোলার সঙ্গে সঙ্গে ইনজেকশন দিয়ে অচেতন করা হয় সাত জনকে। নিয়ে যাওয়া হয় নরসিংদীতে। সেখান থেকে রাতে আনা হয় কাঁচপুর ব্রিজের নিচে। এখানে আগে থেকেই ছিল ইট, দড়ি, বস্তাসহ লাশ ফেলার যাবতীয় আয়োজন। অপহরণের পর থেকে লাশ ফেলা পর্যন্ত মোবাইলে সেনাবাহিনী থেকে অবসরে পাঠানো র‌্যাব-১১-এর সাবেক কর্মকর্তা মেজর আরিফের সর্বক্ষণিক যোগাযোগ ছিল নূর হোসেনের সঙ্গে। মেজর আরিফ ও নূর হোসেনের মধ্যকার মোবাইলে কথোপকথনের রেকর্ড এখন তদন্তকারী কর্তৃপক্ষের হাতে। সূত্র দাবি করেছে, নূর হোসেন এক পর্যায়ে মোবাইলে মেজর আরিফকে তাগিদ দেয়, ‘কেমুন মেজর হইলেন, মারতে এতক্ষণ লাগে?’ সূত্র জানিয়েছে, মেজর আরিফের সঙ্গে নূর হোসেনের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। 
মেজর আরিফকে ঢাকায় ফ্ল্যাট কিনে দিয়েছে নূর হোসেন। কুমিল্লায় আরিফের ভগ্নিপতির ধানের ব্যবসায় টাকাও দিয়েছে নূর হোসেন। মেজর আরিফ ছাড়াও ঘটনার সঙ্গে র‌্যাব-১১-এর সাবেক অধিনায়ক লে. কর্নেল (অব) তারেক সাঈদ ও র‌্যাব-১১ নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সাবেক প্রধান লে. কমান্ডার এমএম রানার সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ মিলেছে। র‌্যাবের যে সব সদস্য এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত শনাক্ত হয়েছে তারাও। এর আগে অনেকের ধারণা ছিল, র‌্যাব-১১’র শহরের পুরনো কোর্ট ক্যাম্পে হত্যা করা হয়েছে তাদের। কিন্তু এখন তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে, কাঁচপুর ব্রিজের নিচে নিয়ে এসেই অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে নৃশংস এই হত্যাকা-।
সূত্র জানিয়েছে, তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে। কিছু প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে পুলিশ। সংগ্রহ করা হচ্ছে সুনির্দিষ্ট প্রমাণ। সব তথ্য প্রমাণ হাতে পাওয়ার পর দৃশ্যমান হবে পুলিশী তদন্ত। এ কারণে এখন কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করা হচ্ছে।
নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মহিদ উদ্দিন বরাবরই বলেছেন, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। তাড়াহুড়ো করে এত বড় ঘটনার তদন্ত করলে ভুলভ্রান্তির সম্ভাবনা থাকে। তাই আমরা অত্যন্ত পরিকল্পিত ভাবে তদন্ত কাজ করছি। তদন্তের স্বার্থে কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সব কিছু দৃশ্যমান করা সম্ভব নয়। এতে তদন্ত ব্যাহত হবে।
নূর হোসেনকে ভারতে পালিয়ে যেতে সহায়তাকারী মশিউর ৪ দিনের রিমাণ্ডে – নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনকে ভারতে পালিয়ে যেতে সহযোগিতার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত মশিউর রহমানকে (৪০) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৪ দিনের রিমাণ্ডে নিয়েছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত মশিউরকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমা- চেয়ে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মনোয়ারা বেগমের আদালতে পাঠানো হয়। আদালত ৪ দিনের রিমা- মঞ্জুর করে। মঙ্গলবার বিকেলে যশোরের শার্শা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মশিউর যশোরের শার্শা থানার শ্যামলাগাছি গ্রামের সিফাদত হোসেনের ছেলে। 
এর আগে গত ১৫ মে শার্শা থেকে কামাল হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে একই অভিযোগে গ্রেফতার করে পুলিশ। কামালকে রিমা-ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ নূর হোসেনকে পালিয়ে যেতে সহায়তাকারী হিসেবে মশিউরের নাম জানতে পারে।
জানা গেছে, মশিউর যশোর থেকে নূর হোসেনকে ফেনসিডিল সরবরাহ করত। এর সুবাদে সে সিদ্ধিরগঞ্জে বসবাস শুরু করে। প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর সে দ্বিতীয় বিয়ে করে সিদ্ধিরগঞ্জে। সেই বিয়ের সূত্রে নূর হোসেনের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ হয়।
আইনজীবীদের বিক্ষোভ অব্যাহত
নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবিতে আইনজীবীদের বুধবারও বিভক্ত হয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করেছে। জেলা আইনজীবী সমিতি ও আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ পৃথক ভাবে তাদের কর্মসূচী পালন করে।
জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান জানিয়েছেন, তদন্ত দৃশ্যমান ও জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় না নেয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। জনকণ্ঠ