এমসি কলেজে দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় ৮ ছাত্রলীগ কর্মীকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট

ডেস্ক রিপাের্ট : সিলেটের মুরারিচাঁদ কলেজ (এমসি) ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। চার্জশিটে আট ছাত্রলীগ কর্মীকে অভিযুক্ত করেছে পুলিশ।

আজ বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) সকাল সকাল সাড়ে ১০টায় সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে বহুল আলোচিত এই সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলার চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগরের শাহপরাণ (রহ.) থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য।
চার্জশিটে অভিযুক্ত আসামিরা হলেন- মামলার এজাহারনামীয় আসামি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার উমেদনগরের রফিকুল ইসলামের ছেলে তারেকুল ইসলাম তারেক (২৮), হবিগঞ্জ সদরের বাগুনীপাড়ার মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি (২৫), জকিগঞ্জের আটগ্রামের কানু লস্করের ছেলে অর্জুন লস্কর (২৫), দিরাই উপজেলার বড়নগদীপুর (জগদল) গ্রামের বাসিন্দা ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ এমসি কলেজ শাখার সভাপতি রবিউল ইসলাম (২৫), কানাইঘাটের গাছবাড়ি গ্রামের মাহফুজুর রহমান মাসুম (২৫), মিসবাহ উর রহমান রাজন ও আইনুদ্দিন। এর মধ্যে রাজন ও আইনুদ্দিন ছাড়া অপর ছয়জন মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।

গত ১ অক্টোবর ও ৩ অক্টোবর দুদিনে এ মামলায় গ্রেপ্তার ৮ জনের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারের ডিএনএ ল্যাবে নমুনা সংগ্রহের পর পাঠানো হয় ঢাকার ল্যাবে। সেখান থেকে নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদন প্রথমে আদালতে এসে পৌঁছায়। পরবর্তীতে এ প্রতিবেদন তদন্ত কর্মকর্তার হাতে এসে পৌছে রোববার (২৯ নভেম্বর) ।

উল্লেখ্য, ২৫ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৯টার দিকে টিলাগড় এলাকার এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে আসা ওই গৃহবধূকে ক্যাম্পাস থেকে তুলে ছাত্রাবাসে নিয়ে ধর্ষণ করেন কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী।
এ ঘটনায় পরদিন সকালে সেই নববধূর স্বামী বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় ছাত্রলীগ কর্মী সাইফুর রহমানকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ২ ও ৩ জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলায় গ্রেপ্তার আট আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মুক্তিযোদ্ধা আতিক উল্লাহ চৌধুরী হত্যা মামলার রায়ে ৭ জনের ফাঁসির আদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : : বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিক উল্লাহ চৌধুরী হত্যা মামলার রায়ে ৭ আসামির মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সাথে মামলার এক আসামিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামানের আদালত এই রায় ঘোষণা দেন।

চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার আসামিরা হলো- গুলজার হোসেন, শম্পা, আশিক, শিহাব আহম্মেদ ওরফে শিবু, আহসানুল কবির ইমন, তাজুল ইসলাম তানু, জাহাঙ্গীর খাঁ ওরফে জাহাঙ্গীর এবং রফিকুল ইসলাম ওরফে আমিন ওরফে টুণ্ডা আমিন। এদের মধ্যে আসামি শম্পাকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। আর বাকি ৭ জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

এছাড়া আরেকটি ধারায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের সাত বছর করে কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ১ বছরের জেল দেওয়া হয়েছে।

এর আগে বুধবার সকালে কারাগারে আটক তিন আসামি শম্পা, জাহাঙ্গীর ও আহসানুল কবীর আদালত হাজির করা হয়। এরপর রায় পড়া শেষে বেলা ১টা ৮ মিনিটে রায় ঘোষণা করেন বিচারক।

এ দিকে জামিনে যাওয়ার পর অপর পাঁচ আসামি পলাতক থাকায় আদালতে অনুপস্থিত ছিলেন। তারা হলো- গুলজার হোসেন, আসিফ, শিহাব আহম্মেদ ওরফে শিবু, তাজুল ইসলাম তানু ও রফিকুল ইসলাম ওরফে আমিন ওরফে টুণ্ডা আমিন। এই মামলায় আসামি আসিফ ও শম্পা আদালতে দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১০ ডিসেম্বর ঢাকার কেরানীগঞ্জ উপজেলার কোণ্ডা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন আহ্বায়ক আতিক উল্লাহ চৌধুরী নিখোঁজ হন। পরদিন ১১ ডিসেম্বর দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের দোলেশ্বর এলাকার একটি হাসপাতালের পাশ থেকে তার আগুনে পোড়া বিকৃত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। আসামিরা তাকে হত্যা করে এবং মৃতদেহ গোপন করার উদ্দেশ্যে মরদেহ পুড়িয়ে ফেলে রাখে। পরে তার সঙ্গে থাকা কাগজ ও এটিএম কার্ড দেখে লাশ শনাক্ত করেন নিহতের ছেলে সাইদুর রহমান ফারুক চৌধুরী।

ওই ঘটনায় নিহতের ছেলে কোণ্ডা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান ফারুক চৌধুরী বাদী হয়ে একই বছরের ১২ ডিসেম্বর দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মামলাটি তদন্ত করে ২০১৫ সালের ৩১ জানুয়ারি ৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এরপর একই বছরের ২ জুলাই আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন।

গত ১০ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামি পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়। এ মামলা চলাকালে বিভিন্ন সময় মোট ২১ সাক্ষীর মধ্যে ১১ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন আদালত। সর্বশেষ বুধবার চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার রায় দিল আদালত।

ডাক বিভাগের মহাপরিচালক সুধাংশুর বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে চিঠি

ডেস্ক রিপাের্ট : দুর্নীতি মাধ্যমে শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বাধ্যতামূলক ছুটিতে থাকা ডাক বিভাগের মহাপরিচালক (ডিজি) সুধাংশু শেখরের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আর সেই অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে তার বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে পুলিশের বিশেষ শাখায় (এসবি) চিঠি দিয়েছে দুদক।

মঙ্গলবার দুদকের উপ-পরিচালক ও অনুসন্ধান কর্মকর্তা মো. সালাহউদ্দিন পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) বিশেষ পুলিশ সুপার (ইমিগ্রেশন) বরাবর চিঠি পাঠিয়ে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জানিয়েছেন। একই অভিযোগে ডাক অধিদপ্তরের পরিদর্শক রাবেয়া খাতুনের দেশত্যাগের ওপরেও নিষেধাজ্ঞা চেয়েছেন অনুসন্ধান কর্মকর্তা।

এই দুদক কর্মকর্তা বলেন, ‘বিভিন্ন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে কমিশন থেকে অনুসন্ধান করা হচ্ছে। আমরা জানতে পেরেছি, তিনি দেশত্যাগ করতে পারেন। আর তিনি দেশত্যাগ করলে কমিশনের অনুসন্ধান ব্যাহত হবে। এ কারণে পুলিশের বিশেষ শাখায় তার বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে দুদকের পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, ‘ডাক অধিদপ্তরের কয়েকটি প্রকল্পের কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে সুধাংশু শেখর ভদ্রের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। ভদ্র ও রাবেয়া যাতে দেশত্যাগ করতে না পারেন, সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিশেষ পুলিশ সুপারকে (ইমিগ্রেশন) পাঠানো চিঠিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।’

এর আগে গত ২ সেপ্টেম্বরে প্রকল্পের নামে শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সুধাংশু শেখরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।

দুদক সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকারভিত্তিক প্রকল্পের শত শত কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন ডাক বিভাগের এই সাবেক মহাপরিচালক এসএস ভদ্র।

গত মাসে ‘পোস্ট ই-সেন্টার ফর রুরাল কমিউনিটি’ নামের প্রকল্পে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় সুধাংশু শেখর ভদ্রকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো হয়। তবে দুদকের অনুসন্ধানে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ার পর এখন মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্পের আওতায় ডাক বিভাগের ৫৪১ কোটি টাকার ‘পোস্ট ই-সেন্টার ফর রুরাল কমিউনিটি’ প্রকল্পে কমপক্ষে ১০০ কোটি টাকা লুটপাটের অভিযোগ রয়েছে সুধাংশু শেখর ভদ্রের বিরুদ্ধে। অভিযোগ ওঠে, দেশের উপজেলা পর্যায়ে ই-পোস্ট অফিস স্থাপনের নামে তিনি এ অর্থ আত্মসাৎ করে বিদেশে পাচার করেছেন। এরই মধ্যে দুদকের অনুসন্ধানে দুর্নীতির প্রাথমিক সত্যতাও মিলেছে।

যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাস নয়, ৩০ বছর কারাদণ্ড

ডেস্ক রিপাের্ট : যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে আমৃত্যু কারাবাস- আপিল বিভাগের এমন রায় ‘অসামঞ্জস্যপূর্ণ’ দাবি করে আসামি পক্ষের পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদনের রায় ঘোষণা করা হয়েছে।

রায়ে বলা হয়, যাবজ্জীবন মানে ৩০ বছর কারাদণ্ড। তবে আদালত, ট্রাইব্যুনাল চাইলে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে ৩০ বছরের বিধান প্রযোজ্য হবে না।

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সাত বিচারকের পূর্ণাঙ্গ আপিল এ রায় ঘোষণা করেন।

ভার্চুয়াল আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে যুক্ত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। আর আসামি পক্ষে খন্দকার মাহবুব হোসেন ও আইনজীবী শিশির মনির।

এর আগে গত মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন সাত বিচারপতির ভার্চুয়াল আপিল বেঞ্চ ১ ডিসেম্বর রায়ের দিন ধার্য করেন।

এ সময় আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে যুক্ত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। আর অন্যপক্ষে ছিলেন আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন ও আইনজীবী শিশির মনির।

বিষয়টিতে রিভিউ আবেদনকারীর পক্ষের আইনজীবী শিশির মনির বলেন, ‘আপিল বিভাগ শর্ট অর্ডারে বলেছেন, বাংলাদেশের দণ্ডবিধি ও ফৌজদারি কার্যবিধি অনুযায়ী যাবজ্জীবন সাজার অর্থ হবে ত্রিশ বছর কারাদণ্ড। তবে কোনো নির্দিষ্ট আদালত বা ট্রাইব্যুনাল যদি কোনো ব্যক্তিকে আমৃত্যু কারাগারের আদেশ দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে ওই ব্যক্তির জন্য কোনো রেয়াত বা বেনিফিট প্রযোজ্য হবে না। তাকে আমৃত্যুই কারাগারে থাকতে হবে। তবে সাধারণত যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের মেয়াদ হবে ত্রিশ বছর।’

গত বছরের ১১ জুলাই আপিল বেঞ্চ এই রিভিউ শুনানি শেষে বিষয়টি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখেন। এ রিভিউ শুনানিতে আইনি মতামত তুলে ধরেন চার অ্যামিকাস কিউরি। তারা হলেন- ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, এ এফ হাসান আরিফ, অ্যাডভোকেট আবদুর রেজাক খান, মুনসুরুল হক চৌধুরী ও এ এম আমিন উদ্দিন।

প্রসঙ্গত ২০০১ সালে সাভারে জামান নামে এক ব্যক্তিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় ২০০৩ সালে তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড দেন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল। হাইকোর্টে আপিলের পর বিচারিক আদালতের দণ্ড বহাল থাকে।

এর বিরুদ্ধে আপিলের পর ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি আসামিদের মৃত্যুদণ্ড মওকুফ করে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেন সর্বোচ্চ আদালত।

রায় ঘোষণার সময় আপিল বিভাগ ‘যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে আমৃত্যু কারাবাস’ এমন মন্তব্য করেন। এর প্রতিবাদ জানান আসামিপক্ষের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন।

তবে ওই দিন অন্যান্য মামলার আসামির ক্ষেত্রেও এ সিদ্ধান্ত প্রযোজ্য হবে কিনা সে বিষয়ে প্রয়াত অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছিলেন, সবার ক্ষেত্রে এ রায় প্রযোজ্য হবে কিনা সেটি পূর্ণাঙ্গ রায় না হওয়া পর্যন্ত বলা যাবে না।

ওই দিন খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছিলেন, রায়ের সময় প্রধান বিচারপতি বলেন, যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু (ন্যাচারাল লাইফ) কারাবাস। আমি প্রতিবাদ করে বলেছিলাম, দণ্ডবিধির ৫৭ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের অর্থ ৩০ বছর। এ ছাড়া যাবজ্জীবনের আসামিরা কারাগারে রেয়াত পেয়ে দণ্ড সাড়ে ২২ বছরে নেমে আসে। যদি আমৃত্যুই হয়ে থাকে, তা হলে তাদের রেয়াতের কি হবে? আমি আরও বলেছিলাম, প্রধান বিচারপতির এ মন্তব্য যেন মূল রায়ে না থাকে। তবে যদি থাকে, তা হলে সব আসামির ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য হবে।

২০১৭ সালের ২৪ এপ্রিল সুপ্রিমকোর্টের ওয়েবসাইটে এ মামলার ৯২ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ এ রায় প্রকাশিত হয়। পরে ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর আতাউর রহমান মৃধার আইনজীবী ওই রায়ের রিভিউর কথা সাংবাদিকদের জানান।

যাবজ্জীবন মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড: আপিল বিভাগ

ডেস্ক রিপাের্ট : দণ্ডবিধি বা পেনাল কোডের ৪৫ ধারা অনুযায়ী যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড। রোববার এই নির্দেশ দিয়ে পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করেছে আপিল বিভাগ।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর এক মামলায় মোকছেদ আলী নামে এক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড থেকে সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন বিচারপতি ইমান আলীর নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ।

টুটুল এন্ড আদার ভারসাস স্টেট মামলার জেল আপিলে শুনানি হয় গত ২৯ সেপ্টেম্বর। পরদিন আপিল বিভাগ দুই আসামির মধ্যে টুটুলের সাজা মৃত্যুদণ্ড থেকে কমিয়ে দশ বছর জেল দেন এবং মোকছেদ আলীকে মৃত্যুদণ্ডের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেন।

রোববার প্রকাশিত সেই পূর্ণাঙ্গ রায়ে উল্লেখ করা হয়, দণ্ডবিধি বা পেনাল কোডের ৪৫ ধারা অনুযায়ী যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড।

রায় পর্যালোচনা করে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশগুপ্ত বলেন, যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে দণ্ডবিধির ৪৫ ধারা অনুযায়ী স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড। কোন ব্যক্তির যদি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয় তাহলে তার স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাভোগ করতে হবে। এসময় আইন অনুযায়ী তাকে কারাগেরে প্রাপ্ত সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হবে।

যদিও সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার রায় যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাদণ্ড- এই রায়ের বিরুদ্ধে করা রিভিউ আবেদনের ওপর রায়ের জন্য ১লা ডিসেম্বর তারিখ নির্ধারণ করেছে আপিল বিভাগ। ১লা ডিসেম্বর চূড়ান্তভাবে নির্ধারিত হবে যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাদণ্ড নাকি ৩০ বছরের কারাদণ্ড।

করোনায় খালেদা জিয়ার পক্ষে আদালতে হাজির হওয়া সম্ভব নয়- বললেন দুদকের আইনজীবী

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনায় আদালতে হাজির হতে পারবেন না অসুস্থ খালেদা জিয়া। তার অনুপস্থিতিতেই বিচারিক কার্যক্রম চলবে, বলছেন দুদকের আইনজীবী।

করোনা পরিস্থিতিতে শারীরিক অসুস্থতার কারণে নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার পক্ষে আদালতে হাজির হওয়া সম্ভব নয়। এমনটাই মনে করছেন তার আইনজীবীরা। তবে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের আইনজীবী বলছেন, অসুস্থতার কারণে বিএনপি চেয়ারপার্সন আদালতে হাজির হতে না পারলেও তার অনুপস্থিতিতেই বিচারিক কার্যক্রম চলবে।

কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭ কোটি টাকা ক্ষতি ও দুর্নীতির অভিযোগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাও থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন।

মামলার প্রধান আসামী সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। ১১ বছর পর ২০১৮ সালের ৫ মে বেগম জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক।

বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, ওয়ান এলেভেন এর সময় যারা মাইনাস-টু করতে চেয়েছিল দুই নেত্রীকে। তাদেরকে দেশে থেকে বিতারিত করতে চেয়েছিল। তারা দুইটি মামলা করেছিল। একটি শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আরেকটি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসায় শেখ হাসিনার মামলা খারিজ হয়ে গেলেও, খালেদা জিয়া বিরোধী দলের হওয়ায় দুদক সুযোগ নিয়ে এই মামলা চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রধান আসামীর অসুস্থতার কারণে আবেদন করায় কয়েক দফা পিছিয়েছে অভিযোগ গঠনের শুনানি। আসছে ৫ই জানুয়ারি অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন নির্ধারিত আছে।

বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন,তার শারিরীক অবস্থা খুবই দুর্বল। ইমিউনিটি যার নেই বললেই চলে। সেই রকম একজন মানুষকে আদালতে উপস্থিত করে বিচার কাজ পরিচালনা করার মত ঝুঁকি কে নিবে। এর দায় সরকার নিবে না বলেই তাকে মুক্তি দিয়েছে। আদালতের নেয়ার প্রশ্নই আসে না। আমরাও এই ঝুঁকি নিব না। এখানে রাজনীতির কিছু নেই। যিনি মামলার অভিযুক্ত আসামি যার বিরুদ্ধে চার্জ প্রস্তাব করা হবে তিনি আদালতে উপস্থিত থাকবেন। তিনি উপস্থিত থেকে শুনার পর অভিযোগ গঠন করা হবে। কিন্তু তার অনুপস্থিতিতে চার্জ গঠন করা, শুনানি গ্রহণ করা অযৌক্তিক।

খালেদা জিয়ার পক্ষে বারবার সময়ের আবেদন করে আসামীপক্ষ মামলার বিচারিক প্রক্রিয়াকে দীর্ঘায়িত করার চেষ্টা করলেও আশাবাদী দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। তিনি বলেন, এটা মোটেও রাজনৈতিক হয়রানিমূলক মামলা না। উনি বেশ কয়েকদিন আসেনি অসুস্থতার অযুহাতে আসে নি।এই আমলার পরবর্তী তারিখ ৫ই জানুয়ারি নির্ধারণ করা হয়েছে। আমরা আশা করি উনি আসবেন। যদি উনি না আসেন,আসামির অনুপস্থিতিতে অভিযোগ গঠন করা যায়। এতে আইনে কোন বাধা নেই।

কুয়েতে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য পাপুলের বিচার শেষ, রায় ২৮ জানুয়ারি

ডেস্ক রিপাের্ট : ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার জামিন হয়নি কুয়েতে গ্রেপ্তারকৃত বাংলাদেশের সংসদ সদস্য (এমপি) শহিদ ইসলাম পাপুলের। আগামী ২৮ জানুয়ারি ২০২১ এ পূর্ণাঙ্গ রায়ের দিন ধার্য করেছেন বিচারক।

এদিকে কুয়েত সোলায়বীয়া কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে এদিন সকাল ৯ টায় কুয়েত সিটির মালিয়া কোর্টে নিয়ে আসে এমপি পাপুলকে। দুপুর ২ টায় ৪তলায় বিচারক আব্দুল্লাহ ওসমান এর এজলাসে হাজির করা হয়। বিচার কার্য চলে কুয়েত সময় রাত প্রায় ৭টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত। এই সময় তার আইনজীবীরা জামিন চাইলে বিচারক তা বাতিল করে আগামী বছরের ২৮ জানুয়ারি রায়ের তারিখ নির্ধারণ করে যুক্তি তর্ক শেষ ঘোষণা করেন বিচারক। প্রায় দুই মাস পাপুলকে কারাগারে থাকতে হবে এবং রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষায় করতে হবে জেলখানায়।

এদিকে গেলো ১৫ জুন কারাগারে পাঠানোর পর ২৫জুন ও ৯ জুলাই, ১৯ জুলাই, ২৭ জুলাই, ৯ আগস্ট, ২৩ আগস্ট, ১৭ সেপ্টম্বর, ২২ অক্টোম্বর, ৫ নভেম্বর, ১২ নভেম্বর, ১৯ নভেম্বর এবং ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার পাপুলকে মহামান্য বিচারকের সামনে হাজির করা হয়। এই নিয়ে মোট ১২ বার পাপুলকে আদালতে হাজির করা হয়েছে।

মানব পাচার ও মানি লন্ডারিং মামলায় এমপি পাপুলের সঙ্গে অভিযুক্ত স্থানীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক উপসচিব শেখ মাজন আল-জাররাহ সাবাহ, জনশক্তি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা নওয়াফ আল-মুতাইরি, এবং কর্মী বাহিনীর নেতা হাসান আল-খাদের প্রত্যেককে ২০ দিনার জামিনে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আদালত। পাপুল, রাশেদুল ও মাহবুবসহ ৫জন আসামিকে জামিন না দিয়ে জেলে পাঠিয়েছে বিচারক। এরা সবাই মারফি কোম্পানির বাংলাদেশি স্টাফ, এর মধ্যে একজন সিরিয়ান নাগরিক রয়েছেন।

আদালতে পাপুলকে বেশ বিমূর্ষ দেখা গিয়েছে। পাপুলকে হেন্ডকাপ পড়ানো ও একই সঙ্গে পাপুলকে এক কালারের জেলখানার পোশাক পরিহিত দেখা যায়। পাপুলের মামলা নং ৯২৪১/২০২০।

লক্ষ্মীপুর-২ আসন থেকে নির্বাচিত স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল কুয়েতের রেসিডেন্ট পারমিটধারী একজন ব্যবসায়ীও। তার অবৈধ ব্যবসা এবং জাল-জালিয়াতির অভিযোগ ওঠে গত ফেব্রুয়ারিতে। তখন তাকে আটকের জন্য কুয়েত সিআইডি অভিযানও চালিয়েছিল। সে সময় তার দুই সহযোগী গোয়েন্দা জালে আটকা পড়লে তিনি ঢাকায় পালিয়ে নিজেকে রক্ষা করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। পরবর্তীতে তিনি কুয়েত সিটিতে গেলে (গত ৬ জুন) সিআইডি টিম তাকে তাদের হেফাজতে নেয়। একটানা ১০দিন রিমান্ডে থাকার পর জামিন না দিয়ে ১৪ জুন তাকে আদালতে উপস্থাপন করলে বিচারক তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠায়। সেই থেকে তিনি কারাগারেই আছেন। দীর্ঘ সময় তিনি রিমাণ্ডে থাকাকালীন সময় তার সহযোগী দেশি-বিদেশি রাগব-বোয়ালদের বিষয়ে বিস্ফোরক তথ্য দিয়েছেন।

এবি ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যানসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : অস্তিত্বহীন তিনটি বিদেশি প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ দেখিয়ে ২৩৬ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আরব-বাংলাদেশ (এবি) ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান-এমডিসহ অন্তত দুই ডজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

অফশোর ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সিঙ্গাপুরের তিনটি অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে বিপুল এই টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো করে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটি। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদক সচিব দেলোয়ার বখত।

যে তিন প্রতিষ্ঠানের ঋণ দেখিয়ে ওই টাকা আত্মসাৎ করা হয়, সেগুলো হলো- ইউএইর সেমাট সিটি জেনারেল ট্রেডিং, সিঙ্গাপুরের এটিজেড কমিউনিকেশনস পিটিই লিমিটেড ও ইউরোকারস হোল্ডিংস পিটিই লিমিটেড।

যে ২৩ জনের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করা হয়েছে তারা হলেন-

এবি ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান এম ওয়াহিদুল হক, সাবেক এমডি শামীম আহমেদ চৌধুরী, সাবেক ডিএমডি মশিউর রহমান চৌধুরী ও ডিএমডি সাজ্জাদ হোসেন, অপারেশন ম্যানেজার খাতুনগঞ্জ শাখা মো. লোকমান হোসেন, চট্টগ্রাম ইপিজেড শাখার সাবেক এসএভিপি মো. শাহজাহান, সাবেক পিও মো. আরিফ নেওয়াজ, সাবেক এভিপি মো. সালাহ উদ্দিন।

এছাড়া প্রধান কার্যালয়ের সাবেক ইভিপি মো. শাহজাহান, ইভিপি মো. আমিনুর রহমান, সাবেক ইভিপি সরফুদ্দিন আহমেদ, বিজনেস ডিভিশনের এভিপি কাজী আশিকুর রহমান, সাবেক ইভিপি কাজী নাসিম আহমেদ, সাবেক এসইভিপি আবু হেনা মোস্তফা কামাল, সাবেক এসইভিপি ও সদস্য ক্রেডিট কমিটি সালমা আক্তারের নামও এসেছে।

তালিকায় আরও আছেন সাবেক পরিচালক এমএ আউয়াল, ফাহিম উল হক, ফিরোজ আহমেদ, সৈয়দ আফজাল হাসান উদ্দিন, শিশির রঞ্জন বোস, বিবি সাহা রায়, মো. মেজবাউল হক ও ড. মো. ইমতিয়াজ হোসেন।
দুদকের অনুসন্ধানসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, অর্থ আত্মসাতের উদ্দেশ্যে কিছু অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ ছাড় করা হয়। এছাড়া নামসর্বস্ব এসব প্রতিষ্ঠানের নামে ব্যাংকিং হিসাব খোলার আগেই ঋণ অনুমোদনের প্রমাণ উঠে আসে প্রাথমিক অনুসন্ধানে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দুদকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, এসব কাগুজে প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছে ব্যাংকের অর্থ আত্মসাৎ করতেই। সে কারণেই তড়িঘড়ি করে এসব অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠাণের নামে ঋণ ছাড় করা হয়। ব্যাংকটির ঊর্ধ্বতন ২৩ কর্মকর্তা পরস্পর যোগসাজশে এ কাজে সহযোগিতা করেছেন বলে দুদকের অনুসন্ধানে প্রমাণ পায়। এজন্য দুদকের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে মামলা তিনটি করা হয়।

দুদক সূত্র জানিয়েছে, তিন ধাপে এ টাকা বিদেশে পাচার করা হয়। এর মধ্যে প্রথম ধাপে ১৬০ কোটি ৮০ লাখ টাকা, দ্বিতীয় ধাপে ৬০ কোটি ও তৃতীয় ধাপে ১৪ কোটি ৮৮ লাখ টাকা পাচার করা হয়। এর মধ্যে প্রথম দুই দফা পাচারের ঘটনায় দুই মামলায় ২৩ জন ও তৃতীয় পর্যায়ে ২১ জনকে আসামি করে মামলার জন্য সুপারিশ করা হয়।

শরীয়তপুরে গণধর্ষণের পর হত্যা : ৩ জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ

ডেস্ক রিপাের্ট : শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলায় এক গৃহবধূকে দলবেঁধে ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিনজনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। শরীয়তপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আব্দুস ছালাম খান বুধবার (২৫ নভেম্বর) দুপুরে এ আদেশ দেন। প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানাও করেছেন আদালত।

দণ্ডপ্রাপ্তব্যক্তিরা হলেন-শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার মধ্যকোদালপুর গ্রামের মৃত লুৎফুল খবিরের ছেলে মো. মোর্শেদ উকিল (৫৬), ডামুড্যা উপজেলার চর ঘরোয়া গ্রামের মৃত খোরশেদ মুতাইতের ছেলে আব্দুল হক মুতাইত (৪২) ও দাইমী চর ভয়রা গ্রামের মৃত মজিত মুতাইতের ছেলে মো. জাকির হোসেন মুতাইত (৩৩)।

রায় ঘোষণার পর তাদের কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। অন্য নয়জন আসামি দোষী প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের বেকসুর খালাস দেয়া হয়।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) ফিরোজ আহমেদ বলেন, ২০১৯ সালের ২০ জানুয়ারি রাত ৯টার দিকে ডামুড্যা উপজেলার চরভয়রা উকিলপাড়া গ্রামের খোকন উকিলের স্ত্রী হাওয়া বেগম (৪০) পাশের বাড়ি মোবাইল চার্জ দিতে যান। ওই রাতে মোর্শেদ, আব্দুল হক ও জাকির একা পেয়ে তাকে পর্যায়ক্রমে ধর্ষণ করেন। পরে মাথায় আঘাত করেন এবং শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। হত্যার পর ওই গ্রামের মজিবর চোকদারের দোচালা টিনের ঘরে তাকে ফেলে যান।

পরের দিন ২১ জানুয়ারি সকালে পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তর জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। ওইদিন হাওয়ার স্বামী খোকন উকিল বাদী হয়ে ডামুড্যা থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলা দায়েরের পর পর্যায়ক্রমে পুলিশ আসামিদেরকে গ্রেফতার করে। মোর্শেদ, আব্দুল হক ও জাকির ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন।

তদন্ত শেষে ডামুড্যা থানার পুলিশ নয়জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। ২০১৯ সালের ৭ অক্টোবর নয়জনসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ গঠন করা হয়।

অপরদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী আব্দুল আউয়ালসহ অন্যান্য আইনজীবীরা জানান, তারা রায়ে সন্তুষ্ট হতে পারেননি। এ রায়ের বিরুদ্ধে তারা উচ্চ আদালতে আপিল করবেন।

সংসদ সদস‌্য পাপুলের স্ত্রী ও তার মেয়ের সম্পদের হিসাব চেয়ে নোটিশ

ডেস্ক রিপাের্ট : দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস‌্য কাজী সহিদ ইসলাম পাপুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম ও তার মেয়ে ওয়াইফা ইসলামের সম্পদের হিসাব চেয়ে নোটিশ ইস্যু করেছে।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে এই নোটিশ ইস্যু করা হয়েছে বলে সংস্থাটির পরিচালক ও জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য নিশ্চিত করেছেন।

দুদক পরিচালক আকতার হোসেন আজাদ স্বাক্ষরিত নোটিশে তাদের নিজের এবং তাদের ওপর নির্ভরশীল ব্যক্তিবর্গের স্বনামে/বেনামে অর্জিত যাবতীয় স্থাবর/অস্থাবর সম্পত্তি, দায়-দেনা, আয়ের উৎস ও তা অর্জনের বিস্তারিত বিবরণী এ আদেশ পাওয়ার ২১ কার্যদিবসের মধ্যে নির্ধারিত ছকে দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গত ১১ নভেম্বর ২ কোটি ৩১ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ আর ১৪৮ কোটি টাকার অর্থপাচারের অভিযোগে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুল, তার স্ত্রী, মেয়ে ও শ্যালিকার বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

এর আগে মানব ও অর্থ পাচারের অভিযোগে চলতি বছরের জুনে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের এমপি পাপুলকে গ্রেফতার করে কুয়েতের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তিনি বর্তমানে দেশটির কারাগারে আছেন।

২৭৮