adv
২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অবৈধ টাকায় ভোগ-বিলাস এখন ফ্যাশন, এর উৎস কেউ জানতে চায় না: প্রধান বিচারপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সোমবার বিকেলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেছেন, দুর্নীতি যে আমাদের সব সুফল থেকে বঞ্চিত করছে তা নয়, দুর্নীতি আমাদের সুন্দর মূল্যবোধগুলোকেও ধ্বংস করে দিচ্ছে। কেউ জানতেই চাচ্ছে না ভোগ-বিলাসের অর্থের উৎস কী। উল্টো অনেকে ঈর্ষান্বিত হচ্ছে যে এই অর্থ এই চাকচিক্য যদি তার হতো।

তিনি বলেন, দুর্নীতি আমাদের সততার অহংকারকে নিঃশেষ করে দিয়েছে। আমাদের গ্রামবাংলায় যে ওয়াজ মাহফিল হয়, সেখানে আমি যাই না। কারণ সেখানে মাহফিল শেষ হলে বলে অমুক সাহেব আমাদের এখানে ৫০ হাজার টাকা দিয়েছেন, অমুক এক লাখ টাকা দিয়েছেন। ৫০ হাজার টাকা দেয় কাস্টমস ইনস্পেক্টর, এক লাখ টাকা দেয় পুলিশের সাব-ইনস্পেক্টর। কয় টাকা বেতন পায় তারা?

তিনি আরো বলেন, শুধু আইন দিয়ে সব সমস্যার সমাধান হয় না, দুর্নীতিরও হয় না। এর জন্য দরকার সচেতনতা, সামাজিক আন্দোলন। তরুণদের প্রশ্ন করতে হবে, তাদের পিতা-মাতার অর্জিত অর্থ ন্যায়সঙ্গত পথে এসেছে তো? স্ত্রীদের কৌতূহল থাকতে হবে, স্বামীর বিত্ত-বৈভবে অবৈধ অর্থের অংশ নেই তো?

প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, শপথ নেওয়ার পরপর আমি দীর্ঘমেয়াদী বিচার বিভাগীয় পরিকল্পনার গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে বিচার বিভাগ হতে দুর্নীতি প্রতিরোধ অন্তর্ভুক্ত করেছিলাম। স্বীকার করতে দ্বিধা নেই, আদালতের বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে দুর্নীতি প্রবণতার নানা তথ্য ক্রমে আমাদের উদ্বেগ বাড়িয়ে দিচ্ছে, শঙ্কিত করে তুলছে। মামলা হওয়ার পর বিচারকের সামনে তা উপস্থাপন করার জন্যে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঘুষ নেওয়ার প্রবণতা দীর্ঘদিন ধরেই আমাদের আইন অঙ্গনকে দূষিত করে চলেছে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করে প্রধান বিচারপতি বলেন, ১৯৭৩ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি নীলফামারী জেলায় বঙ্গবন্ধু সমবেত জনতার উদ্দেশে আবেদন জানিয়ে বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রীত্ব তার ভালো লাগে না, তিনি কেবল ভালোবাসা নিয়েই মরতে চান, কিন্তু দুর্নীতিবাজদের নির্মূল করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর এই আকুতি এই আবেগ লক্ষ করলে বোঝা যায়, কতটা উদ্বিগ্ন ছিলেন তিনি দুর্নীতি নিয়ে।

বঙ্গবন্ধুর দেওয়া অগণিত ভাষণ বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে, সেগুলোতে তিনি বারবার আহ্বান জানাচ্ছেন দুর্নীতি নিবারণের, সে লক্ষ্যে জনগণের সক্রিয় সমর্থন চেয়েছেন। স্বাধীন বাংলাদেশে দুর্নীতি ছিল তার আশাভঙ্গের কারণ, মনোবেদনার কারণ।
তিনি বলেন, কয়েকদিন আগে জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর সাবধানবাণী শুনিয়েছেন। দুর্নীতি দমনে তার আপোষহীন মনোভাব আমাদের শুধু বঙ্গবন্ধুই নয়, বঙ্গমাতার কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছে। অর্থাভাবে অনেক দিন তিনি বাজার করতে পারেননি, ভাতের পরিবর্তে সন্তানদের খিচুড়ি খাইয়েছেন, কিন্তু নীতির প্রশ্নে ছাড় দেননি।
পরিমিতিবোধ ও সংযমের মাধ্যমে জীবনযাপন করে তিনি সন্তানদের যে শিক্ষা দিয়েছেন, আমাদের যে শিক্ষা দিয়েছেন, তার মধ্যেই অসংখ্য প্রেরণা লুকিয়ে আছে দুর্নীতি মোকাবিলার।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
July 2024
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া