adv
২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুনানি না করতে চাইলে মামলা প্রত্যাহার করে নিন : প্রধান বিচারপতি

ডেস্ক রিপাের্ট: বিএনপির ৭ আইনজীবীর আদালত অবমাননার মামলায় এবার সময় চাইলেন বাদীপক্ষ। মামলাকারীদের পক্ষে আইনজীবী সাকিলা রওশন সময় চান। এ পর্যায়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, যদি মামলা না করতে চান তাহলে প্রত্যাহার করে নেন। তখন আইনজীবী বলেন, আমাদের সিনিয়রের ব্যক্তিগত অসুবিধার কারণে আজকে শুনানি করতে চাই না। প্রধান বিচারপতি বলেন, আজকে না হলে আগামী সপ্তাহে লিস্টে আসবে।

এদিকে আদালত অবমাননার মামলায় আজ সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) আদালতে হাজিরা দিয়েছেন ৭ আইনজীবী। প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের তিন বিচারপতির বেঞ্চ ১৯ ফেব্রুয়ারি শুনানির জন্য দিন ধার্য করে দেন। ওইদিন সাত আইনজীবীকে হাজিরা দিতে হবে।

হাজিরা দেওয়া সাত আইনজীবী হলেন: জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব ও বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ফাহিমা নাসরিন মুন্নি, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট শাখার সভাপতি আব্দুল জব্বার ভূঁইয়া, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সহ-সম্পাদক মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান খান ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সুপ্রিম কোর্ট শাখার সাধারণ সম্পাদক গাজী কামরুল ইসলাম সজল।

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক দর্শন নিয়ে বক্তব্য রাখেন আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম। বঙ্গবন্ধুর এই দর্শন কীভাবে বাংলাদেশের সংবিধানে প্রতিফলিত হয়েছে সেই বিষয়ে বক্তব্য দেন তিনি।

বিচারপতি ইনায়েতুর রহিম বলেন, এ সংবিধান হলো আমাদের সর্বোচ্চ রাজনৈতিক দলিল। বঙ্গবন্ধুর যে রাষ্ট্র-দর্শন, রাজনৈতিক দর্শন, সামাজিক দর্শন—সব দর্শনের প্রতিফলন ঘটেছে এই সংবিধানে।

তিনি বলেন, ইদানিং সুষ্ঠু নির্বাচন, বিদেশি প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত—এসব নিয়ে তোলপাড় হয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, গণতন্ত্র চাই। বঙ্গবন্ধুর শোষিতের গণতন্ত্র কী? শুধু ভোট দেওয়াই একমাত্র গণতন্ত্র নয়। ভোট দিয়ে রাজা ও মন্ত্রীর পরিবর্তনই গণতন্ত্র নয়। যে গণতন্ত্র মানুষের ভাতের নিশ্চয়তা, বেকারের চাকরির সংস্থান ও দেশের মানুষের সার্বিক মুক্তি ঘটাতে না পারে—বঙ্গবন্ধু সে গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন না।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম আরও বলেন, বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা এমন হওয়া উচিত হবে না, যে ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে এ দেশের স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির উন্মেষ ঘটে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা এমন হবে না, শুধু ভোট দিয়েই এখানে জঙ্গিবাদের উত্থান হবে। সংবিধান রক্ষার যে শপথ নিয়েছি, সে অবস্থায় থেকে মুক্তিযুদ্ধের আবহ ও প্রেক্ষাপট, সংগ্রাম ও আত্মত্যাগ সবকিছু মাথায় নিয়ে বিচারিক দায়িত্ব পালন করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকী বলেন, সারা বিশ্বে নির্বাচন হয় কেউ তাকিয়েও দেখে না, নির্বাচন ঘিরে সব নজর বাংলাদেশের দিকে কেন?

এমন বক্তব্যের প্রেক্ষাপটে বিএনপিসহ সরকারবিরোধী আইনজীবীরা দুই বিচারপতির পদত্যাগের দাবিতে কয়েকদিন ধরে টানা বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে আসছিলেন।

এমতাবস্থায় আওয়ামীপন্থী আইনজীবী মো. নাজমুল হুদা বিএনপির আইন সম্পাদক কায়সার কামালসহ সাত আইনজীবী নেতার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন দাখিল করেন আপিল বিভাগে। ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে বিএনপির সাত আইনজীবীকে তলব করে আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টে মিছিল-সমাবেশ না করার রায় কঠোরভাবে অনুসরণের নির্দেশ দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালে বিচারপতি এম.এ মতিন ও বিচারপতি এএফএম আব্দুর রহমানের দ্বৈত হাইকোর্ট বেঞ্চ এক রায়ে বলেছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে প্রধান বিচারপতিসহ সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের বিরুদ্ধে কোন ধরনের সভা-সমাবেশ বা মিছিল করা যাবে না। বহন করা যাবে না কোন প্ল্যাকার্ড। এ ধরনের কর্মকাণ্ড করলে তা হবে বিচার প্রশাসনে হস্তক্ষেপের সামিল। এমনকি তা আদালত অবমাননাও বটে। এছাড়া কর্মসূচি দিয়ে কোন আইনজীবীকে মামলা পরিচালনা করতে বাধা দেওয়া যাবে না বলেও রায়ে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু এই রায় গত ১৮ বছরেও মেনে চলেনি আইনজীবীদের বিবাদমান সংগঠনগুলো। এখন আপিল বিভাগ কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলেছেন আপিল বিভাগ। – চ্যানেল২৪

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2024
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
26272829  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া