adv
২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সাজাপ্রাপ্ত বিদেশিদের তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট

ডেস্ক রিপাের্ট: কোনো অপরাধে সাজা খেটে ফেলার পরও প্রত্যাবাসনের ব্যবস্থা না করে কারাবন্দি রাখা হয়েছে, এমন সাজাপ্রাপ্ত বিদেশিদের তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ১০ মার্চ তারিখ রেখেছেন আদালত। এ সময়ের মধ্যে কারা মহাপরিদর্শককে তালিকা দিতে বলা হয়েছে।

আজ সোমবার এসংক্রান্ত এক রিটে প্রাথমিক শুনানির পর বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ আদেশ দেন।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী বিভূতি তরফদার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাসগুপ্ত।
রিট আবেদন থেকে জানা যায়, মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল দিয়ে অনুপ্রবেশের দায়ে ২০২২ সালের ১৯ জানুয়ারি ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের কমলপুর থানার বাসিন্দা গোবিন্দ উড়িয়াকে (২৬) আটক করেন বাংলাদেশ সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিজিবি) সদস্যরা। ওই দিনই আটক ব্যক্তিকে শ্রীমঙ্গল থানায় সোপর্দ করে তাঁর নামে মামলা করেন বিজিবির হাবিলদার মো. রশিদ প্রধান।

তদন্তের পর ওই বছর ৪ ফেব্রুয়ারি অভিযোগপত্র দেন তদন্ত কর্মকর্তা শ্রীমঙ্গল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) কামরুল হাসান। ওই দিনই গোবিন্দ উড়িয়ার বিরুদ্ধে ফৌজদারি কার্যবিধি, ১৮৯৮-এর ২৪২ ধারা এবং দ্য কন্ট্রোল অব এন্ট্রি অ্যাক্ট, ১৯৫২ আইনের ৪ ধারায় অভিযোগ গঠন করেন মৌলভীবাজারের চতুর্থ বিচারিক হাকিম এম মিজবাহ উর রহমান। অভিযোগ গঠনের সময় অনুপ্রবেশের দোষ স্বীকার করে নেন অভিযুক্ত গোবিন্দ উড়িয়া। ফলে অভিযোগ গঠনের দিনই মামলার রায় দিয়ে দেন বিচারক।

দোষ স্বীকার এবং অতীতে অনুপ্রবেশের অভিযোগ না থাকায় আদালত গোবিন্দ উড়িয়াকে দুই মাস ১০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন। সাজাপ্রাপ্ত আসামি ইতিপূর্বে মামলা সংশ্লিষ্টতায় হাজতবাস করে থাকলে উক্ত হাজতবাসকালীন সময় ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৫ক ধারা অনুসারে বাদ যাবে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়।
সে অনুসারে রায়ের দিন অর্থাৎ ২০২২ সালের ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত গোবিন্দ উড়িয়া চার দিন বেশি হাজতবাস করে ফেলেছেন।

রায়ে বলা হয়, যেহেতু আসামি সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন এবং ইতিমধ্যে সাজার মেয়াদ ভোগ করে ফেলেছেন, সেহেতু ভারতীয় নাগরিক হিসেবে আসামিকে বিধি মোতাবেক প্রত্যাবাসনসংক্রান্ত পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মৌলভীবাজার জেলা কারাগারের জেল সুপারকে নির্দেশ দেওয়া হলো।

এ রায়ের পর দুই বছর কেটে গেলেও কারাগার থেকে ছাড়া না পাওয়ায় গোবিন্দ উড়িয়াকে নিয়ে প্রতিবেদন করে একটি টেলিভিশন চ্যানেল।

ওই প্রতিবেদনটি যুক্ত করে গত ১১ জানুয়ারি হাইকোর্টে রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী বিভূতি তরফদার। সাজা ভোগ করা কারাবন্দি গোবিন্দ উড়িয়ার কারামুক্তি ও তাঁর প্রত্যাবাসনের সংশ্লিষ্টদের নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করা হয় রিটে।
রিটকারী এই আইনজীবী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অন্তর্বর্তী আদেশে গোবিন্দ উড়িয়াকে কারামুক্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আদালতের আদেশর পরও দুই বছর ধরে একজন বিদেশিকে তাঁর দেশে ফেরত না পাঠিয়ে কারাবন্দি রাখা সংবিধানের ৩২ এবং মানবাধিকার সংক্রান্ত সর্বজনীন ঘোষণার লঙ্ঘন।’

অনুবেশের দায়ে দণ্ডিত ভারতের গোবিন্দ উড়িয়া সাজা খেটে ফেলার পরও কারাবন্দি রাখা কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, আদালতের নির্দেশমতো গোবিন্দ উড়িয়াসহ সাজাপ্রাপ্ত বিদেশি কারাবন্দিদের প্রত্যাবাসনের ব্যবস্থা না করার নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইন ঘোষণা করা হবে না এবং বিদেশি কারাবন্দিদের সাজার মেয়াদ শেষে তাদের প্রত্যাবাসনের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আলাদা একটি বিভাগ করার নিষ্ক্রিয়তা কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। স্বরাষ্ট্রসচিব, পররাষ্ট্রসচিব, আইনসচিব, কারা মহাপরিদর্শক, মৌলভীবাজার জেল কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
January 2024
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া