adv
২৫শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মানবাধিকার কর্মী আদিলুর ও এলানের অবিলম্বে মুক্তির দাবি ২৭ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: এশিয়ান ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ফোরাম-এশিয়া) এবং এর সদস্য সংস্থাগুলি বাংলাদেশের বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মি আদিলুর রহমান খান এবং নাসির উদ্দিন এলানের মুক্তি দাবি করে বিবৃতি দিয়েছে। এক বিবৃতিতে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলেছে, আমরা সম্প্রতি ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনাল তাদের দোষী সাব্যস্ত করে দুই বছরের কারাদণ্ড ও জরিমানা করায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। ওই বিবৃতিতে আন্তর্জাতিক ২৭টি মানবাধিকার সংস্থা স্বাক্ষর করেছে। সূত্র: ফোরাম-এশিয়াডটওআরজি/?পি=৩৮৬৪৪

বিবৃতিতে আদিলুর ও এলানের প্রতি সংহতি প্রকাশ করে বলা হয়েছে, তারা দুজন বাংলাদেশে নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার লংঘন বিষয়ক সংস্থা অধিকারের সদস্য। তারা বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনাগুলি নিষ্ঠার সাথে নথিভুক্ত করেছেন। এসব মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনার মধ্যে রয়েছে বিচারবহির্ভূত হত্যা, নির্যাতন, জোরপূর্বক গুম এবং নারী ও সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে সহিংসতা।

২০১৩ সাল থেকে অধিকার এবং এর কর্মীরা – বিশেষ করে আদিলুর এবং এলান টানা বিচারিক হয়রানির সম্মুখীন হয়েছেন। রাতব্যাপি একটি বিক্ষোভ দমনকালে ৬১ জনকে বিচারবহির্ভূতভাবে হত্যার ঘটনা প্রকাশ্যে আনার পরই তাদেরকে হয়রানি শুরু হয়। ২০০৬ সালে প্রণীত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার অধীনে আদিলুর রহমান এবং নাসির উদ্দিন এলানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে কর্তৃপক্ষ। তাদের বিরুদ্ধে ভুয়া, অশ্লীল ও মানহানিকর তথ্য প্রকাশ করার অভিযোগ আনা হয়। পরবর্তীকালে জামিনে মুক্তি পাওয়ার আগে আদিলুর এবং এলানকে যথাক্রমে ৬২ এবং ২৫ দিন ডিটেনসনে রাখা হয়।

অধিকার দৃঢ়ভাবে তাদের বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে। তারা বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের শিকার ব্যক্তিদের ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য একটি স্বাধীন তদন্ত কমিশন গঠনের আহ্বান জানিয়েছে।

মানবাধিকার নিয়ে কাজ করে যাওয়ায় বছরের পর বছর ধরে অধিকার, আদিলুর এবং এলানকে টার্গেট করে নানা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। ২০২২ সালে এনজিও অ্যাফেয়ার্স ব্যুরো (এনজিওএবি) বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং গুমের বিষয়ে ‘বিভ্রান্তিকর তথ্য’ প্রকাশের অভিযোগে অধিকারের নিবন্ধন পুনর্নবীকরণ করতে অস্বীকৃতি জানায়। তাদের দাবি, অধিকারের এসব কর্মকাণ্ড আন্তর্জাতিক পর্যায়ে রাষ্ট্রের সুনাম নষ্ট করেছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ও এই সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছিল।

ফোরাম-এশিয়ার নির্বাহী পরিচালক মেরি আইলিন ডিজ-বাকালসো বলেন, ‘ফোরাম-এশিয়া’ আদিলুর এবং এলানের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করছে। তারা বাংলাদেশে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা এবং মানবাধিকার রক্ষায় তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। এক দশকের অযৌক্তিক হয়রানির পর তাদের সাজা প্রদানের ঘটনা বাংলাদেশ এবং বিশ্বের সকল মানবাধিকার কর্মীদের কাছে একটি শীতল বার্তা পাঠায়।

ফোরাম-এশিয়া আদিলুর ও এলানের বিরুদ্ধে থাকা সকল অভিযোগ প্রত্যাহার করে তাদের অবিলম্বে মুক্তি দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে। এই দুই মানবাধিকারকর্মীকে আটকে রাখা বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক সুনামকে আরও কলঙ্কিত করবে। আমরা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি মানবাধিকারকর্মীদের অধিকার রক্ষার জন্য তার আন্তর্জাতিক প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের আহ্বান জানাই।

ফোরাম এশিয়া এবং এর সদস্য সংস্থাগুলি বাংলাদেশ সরকারের কাছে আদিলুর ও এলানকে অবিলম্বে এবং নিঃশর্ত মুক্তি দেয়ার পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে থাকা সকল অভিযোগ বাতিল করার আহ্বান জানায়। আমরা কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করছি, মানবাধিকারকর্মীদের অধিকারকে যেন সম্মান করা হয় এবং তারা যাতে নিপীড়ন ও প্রতিশোধের ভয় ছাড়াই তাদের কাজ চালিয়ে যেতে পারে তা নিশ্চিত করা হয়। আমরা মানবাধিকার নিয়ে কাজ করাকে অপরাধী কর্মকাণ্ড করা থেকে বিরত থেকে নাগরিকদের মৌলিক অধিকার- যেমন, মত প্রকাশের স্বাধীনতা ও শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকারগুলি সমুন্নত রাখতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

[১০] ওই বিবৃতিতে স্বাক্ষর করা মানবাধিকার সংস্থাগুলো হচ্ছে, কম্বোডিয়ান হিউম্যান রাইটস এন্ড ডেভেলপমেন্ট এ্যাসোসিয়েশন, আওয়াজ ফাউন্ডেশন পাকিস্তান: সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট সার্ভিস, বালাওদ মিন্দানাউ- ফিলিপাইন, বাংলার মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চ ভারত, বীর দুইনো- কিরগিজস্তান, বাইটস ফর অল, সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, সিভিল সোসাইটি এবং হিউম্যান রাইটস নেটওয়ার্ক, ডিফেন্স অফ হিউম্যান রাইটস, এশিয়ান ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, হিউম্যান রাইটস মেজারমেন্ট ইনিশিয়েটিভ, ইন্টারন্যাশনাল লিগ্যাল ইনিশিয়েটিভ পাবলিক ফাউন্ডেশন, ইনফর্মাল সেক্টর সার্ভিস সেন্টার, কারাপাটান অ্যালায়েন্স ফিলিপাইন, কাজাখস্তান ইন্টারন্যাশনাল ব্যুরো ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড রুল অফ ল, কম্বোডিয়ান লীগ ফর দ্য প্রমোশন অ্যান্ড ডিফেন্স অফ হিউম্যান রাইটস, মালদ্বীপস ডেমোক্রেসি নেটওয়ার্ক, ন্যাশনাল সেন্টার অ্যাগেইনস্ট ভায়োলেন্স, ফিলিপাইন অ্যালায়েন্স অফ হিউম্যান রাইটস অ্যাডভোকেটস, পিপলস ওয়াচ, ফিলরাইটস, পিপলস সলিডারিটি ফর পার্টিসিপেটরি ডেমোক্রেসি, পাবলিক অ্যাসোসিয়েশন ‘ডিগনিটি’, পুসাত কোমাস, টাস্ক ফোর্স ডিটেনিস অফ ফিলিপাইন্স, থিংক সেন্টার এবং ওমেনস রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টার।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2023
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া