adv
৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সেনেগালকে ৩-০ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ড

স্পোর্টস ডেস্ক: বিশ্বকাপের শেষ ষোলোতে আফ্রিকান কোনো দেশের বিপক্ষে হারের রেকর্ড নেই ইংল্যান্ডের। ৪ জয়ের পাশাপাশি ৩ ড্র। বিপরীতে আফ্রিকান দেশগুলো এর আগে ৯ বারের মধ্যে ৮ বারই ইউরোপের দেশের কাছে বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে হেরেছে। শুধু ২০০২ সালে সুইডেনকে হারিয়েছিলো সেনেগাল। সমীকরণ ইংলিশদের পক্ষে, র‌্যাঙ্কিংয়েও এগিয়ে ছিল থ্রি লায়ন্স। তারপরও শুরু থেকে সমান তালে লড়াইয়ের চেষ্টা করেছে সিসের দল।
প্রথম ১৫ মিনিটে বেশ কয়েকবার সেনেগালের রক্ষণে কেইন-সাকা-ফোডেনরা ঢুকে পড়লেও ছিল না অন টার্গেটে কোন শট। স্রোতের বিপরীতে ২৩ মিনিটে হ্যারি ম্যাগুয়েরের ভুল পাস নিয়ে ইংলিশ রক্ষণে ঢুকে পড়ে সেনেগাল। এমনকি ডি বক্সে শট নেয়ার সুযোগও পান সেনেগালের স্ট্রাইকার দিয়া। কিন্তু গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে মেরে নষ্ট করেন ম্যাচে নিজেদের প্রথম গোলের সুযোগটি। তবে সেই শট নেবার আগে ইংলিশ ডিফেন্ডার স্টোনসের হাতে বল লাগলেও ভিএআর আমলে নেয়নি সেই আবেদন।

৩২ মিনিটে ম্যাচের প্রথম অন টার্গেট শট আসে সেনেগালের পক্ষ থেকে। সারের বাড়ানো বলে দিয়ার নেয়া শট পিকফোর্ড এক হাতে ফিরিয়ে রক্ষা করে ইংলিশদের। ৩৮ মিনিটে পাল্টা আক্রমণ করে ম্যাচে লিড নেয় ইংল্যান্ড। হ্যারি কেইনের বাড়ানো বল ধরে বাঁ দিক থেকে আক্রমণে ওঠেন বেলিংহাম। ডি বক্সে ফাঁকায় দাঁড়ানো হ্যান্ডারসনকে বল বাড়িয়ে দেন। বল জালে প্লেস করতে কোন ভুল করেননি লিভারপুল তারকা।
গোল পেয়েই পাল্টে যায় ইংলিশদের খেলার ধরন। একের পর এক আক্রমণে ব্যস্ত রাখে সেনেগালের রক্ষণভাগ। ৪১ মিনিটে আরও একটি সুযোগ আসে সাউথগেটের দলের সামনে। কিন্তু হ্যারি কেইন তার শট রাখতে পারেননি পোস্টে।
তবে প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে আর ভুল করেননি ইংলিশ অধিনায়ক। মাঝ মাঠ থেকে বেলিংহাম বল বাড়ান ফোডেনের উদ্দেশে। ডি বক্সের মাথায় তিনি বল বাড়ান হ্যারি কেইনের কাছে। এবারের আসরে নিজের প্রথম গোল করতে ভুল করেননি কেইন। ২-০ গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে যায় ৬৬’র চ্যাম্পিয়নরা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে আবারও আক্রমণাত্মক ইংল্যান্ড। হ্যারি কেইনের দূর পাল্লার শট সেনেগালের গোলরক্ষক মেন্ডি ঠেকালেও হাত ফস্কে যায়, যদিও এতে কোনো বিপদ হয়নি। তবে ৫৭ মিনিটে ফোডেনের ক্রস থেকে সাকা বল জালে জড়ালে বড় জয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যায় ইংল্যান্ডের। যা এবারের আসরে ৩য় গোল সাকার।
এরপর একের পর এক আক্রমণ করেও ম্যাচে ফেরা হয়নি আফ্রিকান দেশটির। লেখা হয়নি ২০০২ সালের রূপকথা। বিপরীতে ৩-০ গোলের দাপুটে জয় নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করলো ইংল্যান্ড। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ শক্তিশালী ফ্রান্স।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2022
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া