adv
৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযোদ্ধার কবর উচ্ছেদের চেষ্টা, ৮ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

ডেস্ক রিপাের্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলায় এক বীর মুক্তিযোদ্ধার কবর উচ্ছেদের চেষ্টার অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) দুপুরে জেলার আশুগঞ্জ উপজেলার শরীফপুরের প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলামের ছেলে আইনজীবী সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে দ্রুত বিচার আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় শরীফপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাঈফ উদ্দিন চৌধুরী, তার ছোট ভাই ইমান উদ্দিন চৌধুরী, আলাউদ্দিন চৌধুরীসহ ৮ জনকে বিবাদী করা হয়েছে। মামলা দায়েরের পর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ সব আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে দ্রুত বিচার আদালতের বিচারক আল-আমিন। তবে সাইফুল ইসলাম নিজেই আইনজীবী হিসেবে মামলাটি পরিচালনা করছেন।

মামলার এজহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলামের পূর্ব পুরুষ আব্দুল লতিফ মসজিদের জন্যে প্রায় ৮০ বছর আগে জায়গা ওয়াকফ করে দিয়ে যান। এর পশ্চিম দিকে জায়গা কবরস্থানের জন্যে রেখে যান। কবরস্থানের পূর্ব দিকে তাদের দেওয়া জায়গায় গড়ে উঠেছে সুবিশাল মসজিদ। দীর্ঘদিন ধরে সেই কবর স্থানে স্থানীয়দের লাশ দাফন করা হচ্ছে। এরই মাঝে ২০২০ সালে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলাম মারা গেলে তাকে পারিবারিক সেই কবরস্থানে দাফন করা হয়। এরপরও সেই কবরস্থানটিতে নিয়মিত কবর দেওয়া হচ্ছে।বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলামের বড় ছেলে অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম নিজেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। সেই নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান সাঈফ উদ্দিনও মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। শেষ পর্যন্ত দুজনের কেউই দলীয় মনোনয়ন পাননি। পরে সাঈফ উদ্দিন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে জয়লাভ করেন। তবে সাইফুল ইসলাম দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। এরপর থেকেই মূলত আক্রোশ শুরু হয় বর্তমান চেয়ারম্যান সাঈফ উদ্দিনের।

প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের দান করা জায়গায় গড়ে ওঠা মসজিদ, এরপাশেই কবরস্থানে কবর দেওয়া বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলামের কবর স্থান এই জায়গা রাখা যাবে না বলে দাবি করেন ইউপি চেয়ারম্যান। অজুহাত হিসেবে গ্রামবাসীকে বুঝিয়েছেন, মসজিদের জায়গা কবর স্থানের ভেতরে রয়েছে। সেই জায়গায় কবর চলবে না। এ নিয়ে আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও ছয়জন আইনজীবী উপস্থিতিতে সালিসি সভা অনুষ্ঠিত হলে তা কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়া পণ্ড করে দেন ইউপি চেয়ারম্যান সাঈফ উদ্দিন। পরে উপায় না দেখে বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলামের ছেলে আদালতের শরণাপন্ন হলে, আদালত এই কবরস্থানের ওপর ১৪৪ ধারা নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। কিন্তু আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে গত ২৭ আগস্ট চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন তার ভাইদের নিয়ে অবৈধভাবে বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলামের কবর উচ্ছেদের পর বাউন্ডারি দেওয়াল দিয়ে দখলের চেষ্টা করেন।

এদিকে এ খবর পেয়ে প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধার ছেলে অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম থানা পুলিশ নিয়ে গিয়ে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী দেয়াল দেওয়া বন্ধ করেন। এরই জেরে একই দিন অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলামকে চেয়ারম্যান সাঈফ উদ্দিন তার ভাইদের নিয়ে, চেয়ারম্যান সাঈফ উদ্দিন তার লোকজন নিয়ে কবরস্থানের পাশে পুকুর ঘাটে দাঁড়িয়ে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। এ ঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আশুগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন আইনজীবী সাইফুল ইসলাম। তারপরও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সাঈফ উদ্দিনের অপতৎপরতা থেমে থাকেনি। পরে মঙ্গলবার দ্রুত বিচার আদালতে মামলা দায়েরের পর চেয়ারম্যানসহ সব আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

মামলা আইনজীবী ও বাদী সাইফুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি সমাধানের জন্য আমরা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদকসহ ছয়জন আইনজীবীকে উপস্থিত রেখে শালিসি সভায় বসি। কিন্তু সেই সভায় ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা, বাংলাদেশের আইন, শেখ হাসিনা ও নৌকা প্রতীক নিয়ে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে। বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সেই সভা পণ্ড করে, পেশি শক্তি দেখিয়েছেন।

এ বিষয়ে শরীফপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাঈফ উদ্দিন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তারা মসজিদের নামে জায়গা দিয়েছে। আবার সেই জায়গা থেকে ৬ শতাংশ বিএসএ তাদের নামে উঠিয়ে ফেলেছে। আমি কোন অনৈতিক কাজে জড়িত নয়। প্রয়োজনে মসজিদ কমিটির কাছে কাগজ আছে, এসে দেখে যেতে পারেন। – আরটিভি

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া