adv
৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনন্ত জলিলের ক্ষােভ – এতদিন যা করেছি, ভুল করেছি

বিনােদন ডেস্ক : বাংলাদেশ ও ইরানের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছে অনন্ত-বর্ষার ‘দিন: দ্য ডে’। শুরু থেকেই জানা গেছে, সিনেমাটির বাজেট ১০০ কোটি টাকা। বিগ বাজেটের কারণে মুক্তির বহু আগে থেকেই আলোচনার কেন্দ্রে ছিল সিনেমাটি। কিন্তু ইরানি নির্মাতা মোর্তেজা অতাশ জমজম জানিয়েছেন, ‘দিন: দ্য ডের প্রকৃত বাজেট পাঁচ লাখ মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪ কোটি ৭৪ লাখ ৯৭ হাজার ৩৩০ টাকা। বাজেটের চুক্তিপত্রটি নিজের ইনস্টাগ্রামে প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে নির্মাতার এমন তথ্যে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন অনন্ত জলিল। বাজেট বিতর্ক ও ইরানি নির্মাতা মোর্তেজা অতাশ জমজমের বেশ কিছু অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিবৃতি দিয়েছেন অনন্ত জলিল। লিখিত বিবৃতির পাশাপাশি দেশের মানুষের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এ নায়ক।

অনন্ত জলিলের ক্ষোভ প্রকাশের অংশটুকু তুলে ধরা হলো-

কিছুদিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়াতে ‘দিন: দ্য ডে’র বাজেট নিয়ে বেশ আলোচনা হচ্ছে। মিস্টার মোর্তেজা অতাশ জমজম বাংলায় একটি এগ্রিমেন্ট পোস্ট করেন। যাতে দেখানো হয়েছে, তাকে আমার ৪-৫ লাখ ডলার দেওয়ার কথা; তা থেকেই আপনারা নিউজ করে যাচ্ছেন মুভিটির বাজেট ৪ কোটি টাকা। আপনাদের কোনো যাচাইয়ের সময় নেই। কে কতটুকু আলোচনা-সমালোচনা করতে পারেন, সেটা নিয়ে প্রতিযোগিতা লেগে গেছে। এ কারণেই আমি কয়েক দিন চুপ ছিলাম।

আসলে দেশের জন্য আমার এতকিছু করার কারণটাই কি? যেকোনো জায়গায় দুর্যোগ হলে অনন্ত জলিল ঝাঁপিয়ে পড়ে। একটা গরিব মানুষের জন্য অনন্ত জলিল ঝাঁপিয়ে পড়বে। মানুষের সহযোগিতায় ঝাঁপিয়ে পড়বে। কিন্তু বাংলাদেশে আমার জন্য কে ঝাঁপিয়ে পড়ল?

আমি একটা ফ্যান ক্লাব করেছি। যাদেরকে ঈদের সময় ২৫ লাখ টাকা দিয়েছি। কিছুদিন আগে সিলেটেও ৩০ লাখ টাকা দিয়ে সাহায্য করেছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্যার্তদের জন্য ৫ লাখ টাকা দিয়েছি। এই কয়েক দিন আমি চুপ ছিলাম, দেখছিলাম তারা কি আমার জন্য কোনো আন্দোলন করেন কি না। কিন্তু তেমন কিছুই হয়নি। আপনারা আমাকে সিনেমার স্টারই বানিয়ে দিলেন। ব্যক্তি অনন্ত জলিল যে একজন ভালো মানুষ সেটা আপনারা অনুভব করেননি। আজ থেকে আমাকে আমার পরিবর্তন করতে হবে।

আমার বাসায় প্রতিদিন ১০-১৫ জন লোক সাহায্যের জন্য এসে দাঁড়িয়ে থাকে। সেটা আপনাদের কখনোই দেখাই না। এই যে প্রতিটি মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করি, আমার মনে হয় সেটা আমার ভুল হচ্ছে। দেশের মানুষকে সাহায্য করার জন্য আমি কোন জায়গায় না ছুটে যাই।

করোনার সময়েও আমার ভয় ছিল না। আমি বিভিন্ন এলাকায়, বস্তিতে, বিভিন্ন জায়গায় ছুটে গিয়েছি। কখনও চিন্তা করি নাই, আমি মরে যাব কি না! হায়াৎ না থাকলে মরে যাব। আমি চিন্তা করেছি, আল্লাহ আমাকে যতটুকু দিয়েছে, ততোটুকু দিয়েই মানুষের পাশে দাঁড়াব। এতদিন যা করেছি, ভুল করেছি। আপনারা আমাকে বদলে দিয়েছেন। এখন থেকে আমিও অন্যান্য সেলিব্রিটির মতো থাকার চেষ্টা করব। অনন্ত জলিলকে আপনারা মেরে ফেলেছেন এবার। আমার চোখ খুলে দেওয়ার জন্য আপনাদের অনেক ধন্যবাদ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া