adv
২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাকিব আল হাসান আর বিতর্ক যেনো পরস্পরের সঙ্গী

স্পোর্টস ডেস্ক : নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের ক্রিকেটে সবচেয়ে বড় নাম সাকিব আল হাসান। ক্রিকেট বিশ্বে নিজে যেমন সমীহ আদায় করেছেন, তেমনি বাধ্য করেছেন বাংলাদেশকে সমীহ করতে। একক নৈপুণ্যে অনেক ম্যাচই জিতিয়েছেন টাইগারদের। তবে, বিতর্কের ঊর্ধে থাকতে পারেননি এই অলরাউন্ডার। সাকিব আর বিতর্ক যেন পরস্পরের সঙ্গী।

সম্প্রতি, বেটউইনার নিউজ পোর্টালের সঙ্গে সাকিবের চুক্তিও সৃষ্টি করেছে বড় বিতর্ক। বেট উইনার ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত অনলাইন বেটিং কোম্পানি। ক্রিকেট ফুটবলসহ বেশ কয়েক ধরনের খেলায় বাজি ধরা যায় এই সাইটের মাধ্যমে। বেটউইনার নিউজ এই প্রতিষ্ঠানেরই সারোগেট প্রতিষ্ঠান। তাই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সাকিবের এই চুক্তি ভালোভাবে নেয়নি। বেটিং নিয়ে বিসিবির নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাছাড়া দেশীয় আইনেও বেটিং নিষিদ্ধ।
তাইতো বিসিবির কড়া বার্তা ছিল, বেটউইনার নিউজের সাথে চুক্তি বাতিল না করলে আসন্ন এশিয়া কাপে অধিনায়কত্ব তো পাবেনই না, বাদ পড়বেন দল থেকে। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানের এমন বার্তার তিন ঘণ্টার মাথায় চুক্তি বাতিল করার কথা জানান সাকিব।

তবে, এবারই প্রথম নয়। এর আগেও বহুবার নানা বিষয় নিয়ে বিতর্কে জড়িয়েছেন সাকিব। এইতো গত বছরে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে জৈব সুরক্ষাবলয় ভাঙেন তিনি। পরে অবশ্য এর জন্য ক্ষমাও চান। একই আসরে আম্পায়ারের সাথে কয়েক দফা বাজে আচরণ করে নিষিদ্ধ হন তিন ম্যাচের জন্য। জরিমানাও করা হয় তাকে। ২০২১ সালেই জাতীয় দলের হয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে না খেলে সাকিবের আইপিএল খেলা নিয়েও ওঠে নানা বিতর্ক।
২০১৯ সালে জুয়াড়ির কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়েও বোর্ডকে সেটি না জানানোয় সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ ছিলেন এক বছর। একই বছর বিশ্বকাপের আগে দলীয় ফটোসেশনে সাকিবের না থাকা জন্ম দেয় নানা আলোচনার।
২০১৮ সালে বিসিবির অনাপত্তিপত্র না নিয়েই ওয়েস্ট ইন্ডিজে সিপিএল খেলতে গিয়েছিলেন সাকিব। পরে টুর্নামেন্টের মাঝপথে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনে বোর্ড। সেইবার টেস্ট ও ওয়ানডে দল থেকে অবসরের হুমকি দিয়ে ছয় মাসের জন্য ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন এই অলরাউন্ডার।
২০২১ সালই শুধু নয়, আম্পায়ারের সাথে আগেও তর্কে জড়িয়েছেন সাকিব। ২০১৬ সালের বিপিএলে আম্পায়ারের সঙ্গে বিবাদে জড়ান। এর আগের বছরের বিপিএলে আম্পায়ার তানভীর আহমেদের সঙ্গে অসদাচরণ করে তো ১ ম্যাচ নিষিদ্ধই হন।
২০১৪ সালে সাকিবের নামের সঙ্গে কয়েকবারই বিতর্ক জড়ায়। ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে ম্যাচ চলাকালে স্ত্রীকে উত্ত্যক্তের অভিযোগে এক দর্শককে পিটিয়ে আহত করেন এই অলরাউন্ডার। একই বছরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একটি ওয়ানডে ম্যাচে আউট হওয়ার পর টিভি ক্যামেরার দিকে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি দেখান। যার ফলে নিষিদ্ধও হন তিন ম্যাচের জন্য।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া