adv
৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশের মানুষ খেতে পারছে, তাদের গায়ে জামা-কাপড় আছে খারাপ নেই কেউই :সমবায়মন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, দেশের প্রত্যেকটি মানুষ খেতে পারছে, তাদের গায়ে জামা-কাপড় আছে। আমরা খুব খারাপ অবস্থায় আছি বলে মনে করি না।

বুধবার (১০ আগস্ট) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) ‘নিত্যপণ্য ও জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি: জনজীবনের চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এক সংলাপে তিনি এসব কথা বলেন। এ সংলাপের আয়োজন করে নগর উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরাম, বাংলাদেশ।

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, গ্রামের প্রায় সব রাস্তাঘাটই পাকা হয়ে গেছে। প্রত্যেক গ্রামে প্রাইমারি স্কুল করা হয়েছে, ঘর না থাকলে ঘর করে দেওয়া হচ্ছে। আমি মনে করি না আমরা খুব খারাপ অবস্থায় আছি। ভ্রান্ত ধারণা থেকে আমাদের বের হতে হবে।

তিনি বলেন, জার্মানির বহু শপিংমলে জিনিসপত্র নেই। কেউ ধারণা করে বলতে পারে না পৃথিবীর অবস্থা কোথায় যাবে। এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকসহ অনেকেই আমাদের এখানে অর্থায়ন করতে চায়, দেশের অবস্থা এত খারাপ হলে তাদের তো মাথা খারাপ হয়নি আমাকে টাকা দিতে। বিশ্বব্যাংক এসে ঘুরছে, বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে আলোচনা করছে। ভয়ের কোনো কারণ নেই, আগাম কিছু আমি বলতে পারি না।

তাজুল ইসলাম বলেন, চলমান করোনার মধ্যে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরু হয়েছে, সেখানে নিশ্চয়ই বাংলাদেশের হাত নেই। এই যুদ্ধের কারণে সারাবিশ্বেই এখন টালমাটাল অবস্থা। অর্থনীতি, সামাজিক অবস্থা এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসহ সবকিছু নিয়ে সবাই আতঙ্কিত। এখন তাইওয়ানের সঙ্গে চায়নার উত্তপ্ত পরিস্থিতি দেখা যাচ্ছে। সেটির প্রভাব কিন্তু সারাবিশ্বে পড়বে।

তিনি বলেন, আমাদের সবারই একত্রিত হয়ে দুর্দিনে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে অথবা একসঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলার চেষ্টা করতে হবে। স্বাধীনতা যুদ্ধে জাতির পিতার ডাকে সাড়া দিয়ে তখন সবাই অংশ নেন। আমাদের ৯০ শতাংশ মানুষ একাত্ম থাকলে আমরা বিজয় অর্জন করবো। পরিস্থিতি যা আসে সেটি মোকাবিলা করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা আমদানি করছি বেশি। বাংলাদেশ প্রতি মাসে ৮ বিলিয়ন ডলার সমপরিমাণের আমদানি করে। এতে একদিকে আমাদের ওপর চাপ আসছে, আরেক দিকে খুশিও লাগছে যে বাংলাদেশ মাসে ৮ বিলিয়ন ডলার আমদানি করে। একসময় আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৯ বিলিয়ন ডলার। আমরা তো এখন এটা হ্যান্ডেল করতে (সামাল দিতে) পারছি।

দেশের মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে দাবি করে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, এখন গ্রামগঞ্জের কোনো মানুষ আর না খেয়ে নেই। প্রত্যেক মানুষ খেতে পারছে। প্রত্যেক মানুষের গায়ে জামাকাপড় আছে।…আমি মনে করি না, আমরা খুব খারাপ অবস্থায় আছি। একটা প্যানিক (আতঙ্ক) সৃষ্টি করে ভয় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে তিনি বলেন, কেউ বলতে পারবে না পৃথিবীর অবস্থা কোন দিকে যাবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া