adv
১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অভিষেকেই বড় পুরস্কার

বিনোদন ডেস্ক : সালমান শাহ, মান্না, মৌসুমী, শাবনূর, রিয়াজ, পূর্ণিমা ও শাকিব খান। নব্বইয়ের দশক থেকে দাপিয়ে বেড়িয়েছেন বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগৎ। কামিয়েছেন অর্থ, যশ, খ্যাতি। কিন্তু এসব তারকাদের কেউই তাদের অভিষেক সিনেমায় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, ‘মেরিল প্রথম আলো পুরস্কার’ বা কোনো পুরস্কার জিততে পারেননি।

তবে কি অভিষেকে আর কেউ জেতেনি পুরস্কার? অবশ্যই জিতেছে। চলচ্চিত্রের বেশ কয়েকজন তারকা চলচ্চিত্রে তাদের অভিষেকেই হয়েছেন পুরস্কৃর। তারা কম-বেশি আলোচিতও। তাদের সবাই নারী, একজন কেবল পুরুষ। চলুন তবে চিনে নেই সেসব তারকাদের, যারা অভিষেকেই নিজেদের ঝুলিতে পুরেছেন বড় সব পুরস্কার।

সিমলা: ১৯৯৯ সালে স্বনামধন্য চলচ্চিত্র নির্মাতা শহীদুল ইসলাম খোকনের ‘ম্যাডাম ফুলি’ সিনেমায় অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে প্রবেশ করেন সিমলা। এই সিনেমায় ‘সিমলা’ এবং ‘ফুলি- একসঙ্গে দুটি চরিত্রে অভিনয় করে তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’ লাভ করেন। বাংলা চলচ্চিত্রের ইতিহাসে তিনিই প্রথম অভিনেত্রী, যিনি অভিষেকেই ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’ লাভ করেন।

কাজী মারুফ: ২০০২ সালে পরিচালক বাবা কাজী হায়াতের ‘ইতিহাস’ সিনেমা দিয়ে চলচ্চিত্রে এসেছিলেন কাজী মারুফ। প্রথম সিনেমাতেই শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জিতে নিয়েছিলেন ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’। পুরুষ তারকাদের মধ্যেই কাজী মারুফই একমাত্র অভিনেতা, যিনি অভিষেকেই এত বড় একটি সম্মাননা পেয়েছিলেন। পরবর্তীতে বেশ কিছু সিনেমায় অভিনয় করলেও তেমন সাফল্য পাননি। বর্তমানে মারুফ যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী।

জাকিয়া বারী মম: ২০০৬ সালে ‘লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার’ সুন্দরী প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হন এই অভিনেত্রী। পরের বছর তৌকির আহমেদ পরিচালিত ‘দারুচিনি দ্বীপ’ সিনেমার মধ্য দিয়ে পা রাখেন চলচ্চিত্রে। প্রথম সিনেমাতেই শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’ পান মম। ওই সিনেমায় তার বিপরীতে ছিলেন চিত্রনায়ক রিয়াজ। চলচ্চিত্রের পাশাপাশি বর্তমানে টিভিতেও কাজ করেন মম।

বিদ্যা সিনহা মিম: মমর মতো ২০০৭ সালের ‘লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার’ সুন্দরী প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন বিদ্যা সিনহা মিমও। একই বছর হুমায়ূন আহমেদ পরিচালিত ‘আমার আছে জল’ সিনেমার মাধ্যমে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক। সেখানে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য সমালোচকদের রায়ে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে ‘মেরিল প্রথম আলো’ পুরস্কার পান মিম। পরবর্তীতে ‘জোনাকির আলো’ সিনেমায় অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে চিত্রনায়িকা মৌসুমীর সঙ্গে যৌথভাবে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’ও জিতেছেন।

নুসরাত ফারিয়া: মডেলিং, বিজ্ঞাপনে গ্লামারাস উপস্থিতি এবং ভিন্নধর্মী উপস্থাপনার কারণে বহু আগে থেকেই পরিচিত নুসরাত ফারিয়া। ২০১৫ সালে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনার ‘আশিকী’ সিনেমার মাধ্যমে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়। সে সিনেমার নায়ক ছিলেন কলকাতার অঙ্কুশ হাজরা। অভিষেকে শ্রেষ্ঠ নবাগতা অভিনেত্রী হিসেবে ‘মেরিল প্রথম আলো পুরস্কার’ জেতেন ফারিয়া। পরবর্তীতে বেশ কিছু সিনেমায় অভিনয় করলেও তেমন কোনো পুরস্কার হাতে ওঠেনি এই নায়িকার।

শবনম বুবলী: বর্তমান সময়ের সবচেয়ে আলোচিত নায়িকা শবনম বুবলী। সাবেক এই সংবাদ পাঠিকা ২০১৬ সালে ঢালিউড কিং শাকিব খানের বিপরীতে ‘বসগিরি’ সিনেমায় অভিনয়ের মধ্যদিয়ে চলচ্চিত্রে আসেন। শ্রেষ্ঠ নবাগতা অভিনেত্রী হিসেবে ‘মেরিল প্রথম আলো পুরস্কার’ও জিতে নেন। পরবর্তীতে বিভিন্ন অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান থেকে আরও বেশি কিছু পুরস্কার পেয়েছেন সময়ের ব্যস্ত এই নায়িকা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া