adv
১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপি কি পাকিস্তানে থাকে, তাদেরকে নির্বাচনের জন্য হাত ধরে ডেকে আনতে হবেঃ আইনমন্ত্রী

ডেস্ক রিপাের্ট : আইন মন্ত্রী আনিসুল হক সংসদে বলেছেন, কেয়ারটেকার প্রশ্নে সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের বাইরে এক সুতাও ছাড় হবে না। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় সকল উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বিএনপি কি পাকিস্তানে থাকে, তাদেরকে নির্বাচনের জন্য হাত ধরে ডেকে আনতে হবে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে বাজেট পাসের প্রক্রিয়ায় অংশ নিয়ে এ সব কথা বলেন আইনমন্ত্রী । স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী অধিবেশনে নির্বাচন কমিশনের জন্য প্রস্তাবিত বরাদ্দের উপর আনীত ছাটাই প্রস্তাব নিয়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি, গণফোরাম ও বিএনপির সংসদ সদস্যরা আলোচনা করেন। তারা নির্বাচন কমিশন (ইসি) ও ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়ে প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি আগামী নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না বলে দাবি করেন।

বিরোধী দলীয় সদস্যদের বক্তব্যের জবাবে নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইন মন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, বিএনপি কি পাকিস্তানে থাকে, তাদেরকে নির্বাচনের জন্য হাত ধরে ডেকে আনতে হবে। তাদের দাবি অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন আইন হয়েছে। এখন কেয়ারটেকার সরকারের দাবি করছেন। কিন্তু এই প্রশ্নে সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের বাইরে এক সুতাও ছাড় দেওয়া হবে না। দেশের সর্বোচ্চ আদালত কেয়ারটেকার সরকারকে অবৈধ ঘোষণা করেছে। তবে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রয়োজনীয় সকল উদ্যোগ নিয়েছেন। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরির জন্য নির্বাচন কমিশন আইন প্রণয়নের মাধ্যমে সিইসি ও চারজন কমিশনার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, বিএনপি দলীয় দুইজন সংসদ সদস্য বিগত নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। অথচ তারাই ওই নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে এই সংসদে এসেছেন। তারা এই সংসদে নিয়মিত কথা বলেছেন। তিনি বলেন, আমোরিকাসহ বিশে^র কোথাও বলার সুযোগ নেই শতভাগ সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। কিন্তু বাংলাদেশে ১৯৯৬, ২০০৮, ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচন সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার পর অনুষ্ঠিত নির্বাচনগুলো সম্পর্কে বিস্তরিত তথ্য তুলে ধরে আনিসুল হক বলেন, জিয়াউর রহমানের আমলে হা-না ভোট দেখেছি। প্রেসিডেন্ট পদে ৯৯ শতাংশ ভোট পড়েছে। কিন্তু কাউকে ভোট কেন্দ্রে যেতে হয়নি। বিএনপি আমলে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের কথা সকলেই জানেন। মাগুরার উপ-নির্বাচনেও কি হয়ে তা সকলের জানা আছে। তাদের সময়ে জাস্টিস আজিজ মার্কা নির্বাচন কমিশন আমরা দেখেছি। এই সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচনও সুষ্ঠু হবে বলে তিনি দাবি করেন।

জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, নির্বাচন করে কারা? নির্বাচন করে রাজনৈতিক দল। স্টেকহোল্ডার হচ্ছি আমরা যারা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করি। আমরা যদি সুষ্ঠু সুন্দর নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি না করি তাহলে ঘরে বসে নির্বাচন কমিশন কোন দিন কোন কিছু করতে পারবে না। সব কিছু স্বাধীন। প্রকান্তরে কোনো নির্বাচন কমিশন কোন দিন স্বাধীন না। সমস্ত কমিশনই সরকার দ্বারা গঠিত হয়, সরকারের অধিনে কাজ করে। এটা আয়ুব খানের আমলে হয়েছে জিয়াউর রহমানের আমলে হয়েছে আমাদের আমলে হয়েছে, এখনও হচ্ছে। এটা চলতেই থাকবে। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনে যদি সক্ষমতা নিয়ে না দাড়াতে পারে, প্রতিদ্বন্দ্বিরা যদি সমকক্ষ না হয়, তাহলে জয়ী হবে কিভাবে?

তিনি বলেন, নির্বাচনে কেউ হারতে চায়না। নির্বাচন হচ্ছে যুদ্ধ ক্ষেত্র। স্থানীয় প্রশাসন যে দিকে শক্তি দেখে, যার লোক দেখে সেন্টারে, তার দিকে চলে যায়। কিচ্ছু করার থাকে না। যারা ক্ষমতায় আছে, জনগণ তাকে সমর্থন করে। দুর্বল নেতৃত্বে কেউ কিছু করতে পারে না। সমকক্ষ লোক নির্বাচনে আসলে ভোট সঠিক হবে। ইভিএম বলেন, আর ব্যালট বলেন লোক যার বেশি সেই বিজয়ী হবে।

জাতীয় পার্টির ডা. রস্তুম আলী ফরাজী বলেন, ইলেকশন কমিশনের দায়িত্বই হচ্ছে নির্বাচন পরিচালনা করা। নির্বাচন সঠিক হতে হবে, ফেয়ার হতে হবে। প্রশ্ন থাকতেই পারে নানা ব্যাপারে। ভারতে নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হয়, সেখানে কোন প্রশ্ন তোলা হয় না। আমাদের দেশের নির্বাচন নিয়ে ওই ধরণের পরিবেশ আসা দরকার। ডিজিটাল যুগে ইভিএম’র কোন দোষ নাই। ইভিএম-এ সমস্যা থাকলে সেটা পরিবর্তন করতে হবে। পেছনে যেন কেউ না থাকে, সেটা দেখতে হবে। ইভিএম-এ না হয়ে যদি ব্যালটে হয়, সেখানেও তো কেউ, না কেউ প্রভাব ফেলতে পারে। অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে নির্বাচনে প্রভাব খাটানো বন্ধ করার আহ্বান জানান তিনি।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
June 2022
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া