adv
২৮শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনা, পিস্তল ছিল জায়েদ খানের কাছে, ওমর সানিকে গুলি করার হুমকি দিয়েছিলেন

বিনোদন প্রতিবেদক : খল অভিনেতা ডিপজলের ছেলের বিয়েতে ওমর সানী ও জায়েদ খানের চড়কাণ্ড এবং পিস্তল বের করে হুমকি দেওয়ার ঘটনা নিয়ে এফডিসিপাড়া এখন সরগরম। ওমর সানী রবিবার সন্ধ্যায় চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন জায়েদ খানের নামে। কিন্তু অনুষ্ঠানে উপস্থিত ডিপজল, চিত্রনায়িকা রোজিনা বা অঞ্জনাদের কেউই এটা স্বীকার করেননি যে, জায়েদ খান পিস্তল বের করে ওমর সানীকে গুলি করার হুমকি দিয়েছেন।

এছাড়া জায়েদ খানও শুরু থেকে বিষয়টা অস্বীকার করে আসছেন। তার দাবি, ‘বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের নিরাপত্তা ব্যবস্থা অনেক কড়া। সেখানে কোনো ধরনের অস্ত্র নিয়ে ঢোকা যায় না। আমার সঙ্গে কোনো পিস্তল ছিল না। কাউকে গুলি করার হুমকি দেওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেনি।’

তবে অবশেষে পাওয়া গেল একজন প্রত্যক্ষদর্শী। যিনি বিয়ের অনুষ্ঠানে জায়েদ খানকে পকেট থেকে পিস্তল বের করতে দেখেছিলেন এবং উচ্চস্বরে বলতে শুনেছিলেন, ‘গুলি করে দেব কিন্তু’। তিনি হলেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কোষাধ্যক্ষ ও অভিনেতা যাদু আজাদ। গত শুক্রবার স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে ডিপজলের ছেলের বিয়েতে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে গিয়েছিলেন এই খল অভিনেতা।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে যাদু আজাদ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, খাওয়া শেষ করে উপহার দিয়ে আমি পান খাচ্ছিলাম। এমন সময় পাশেই খুব হইচই শুনি। এগিয়ে যেতেই জায়েদ খানের কণ্ঠ শুনলাম। তিনি ওমর সানীকে লক্ষ্য করে বলছেন, গুলি করে দেব কিন্তু। আমি একটু দূরে দাঁড়িয়ে ছিলাম। আমার কাছে মনে হচ্ছিল, পকেটে হাত দিয়ে জায়েদ পিস্তল বের করলেন। যখন কাছে গেলাম ততক্ষণে ঝামেলা মিটে গেছে।’

ঘটনার কিছুক্ষণ পরই ওমর সানী অনুষ্ঠান স্থল ত্যাগ করে বেরিয়ে যান বলে জানান যাদু আজাদ। তিনি বলেন, ‘আমি এগিয়ে গিয়ে ওমর সানীকে জিজ্ঞেস করলাম, ভাই কী হয়েছে? ওমর সানী বলেন, ‘আমি জায়েদকে কষে চড় দিয়েছি। ও আমাকে পিস্তল বের গুলি করার হুমকি দিয়েছে। আমি উল্টো বলেছি, পিস্তল তোর…(প্রকাশযোগ্য নয়) দিয়ে ঢুকায় দেব।’

 

যাদু আজাদ আরও জানান, ঘটনার পর ওমর সানী না খেয়েই বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে চলে যান। এর আধঘণ্টা পর জায়েদ খানও না খেয়ে চলে যান। যাদু আজাদের প্রশ্ন, ‘জায়েদ খানকে কেন পিস্তল দেওয়া হয়েছে? সে কি কোনো বড় ব্যবসায়ী? কোনো বিখ্যাত মানুষ? কেন তার কাছে পিস্তল থাকবে? আমি মনে করি, এসব ঘটনার প্রেক্ষিতে তার পিস্তলের লাইসেন্স বাতিল হওয়া উচিত।’

জায়েদ খান যে সারাক্ষণ সঙ্গে পিস্তল রাখেন, এ কথা এফডিসিপাড়ায়ও প্রচলিত। কোথাও আড্ডা দিতে বসলে তিনি পিস্তলটি কোমর বা পকেট থেকে বের করে সামনে থাকা টেবিলের উপরে রাখেন বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছেন, যারা এফডিসিতে সবসময় ঘোরাফেরা করেন। এছাড়া এর আগে চিত্রনায়িকা পপিও অভিযোগ করেন যে, জায়েদ খান তার বুকে পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করার হুমকি দিয়েছিলেন।

এদিকে, গত শুক্রবারের ঘটনার বিবরণ দিয়ে রবিবার সন্ধ্যায় চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে ওমর সানী যে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন, সেখানে তিনি জায়েদ খানকে সমিতি থেকে বহিষ্কার করার দাবি তুলেছেন। তার কথায়, ‘এমন একজন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী শিল্পী সমিতির সদস্য থাকতে পারে না। তার সদস্যপদ বাতিল করা হোক।’ এখন শিল্পী সমিতি বিচার বিশ্লেষণ করে জায়েদের বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নেয়, সেটাই দেখার।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
June 2022
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া