adv
২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ক্রীড়া পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী , বঙ্গবন্ধু একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে গড়ে তোলার পাশাপাশি ক্রীড়াঙ্গনকেও এগিয়ে নিয়ে যান

নিজস্ব প্রতিবেদক : বুধবার (১১ মে) সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন তিনি।

সরকারপ্রধান বলেন, আমার বাবা (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান), আমার ভাই শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেলও খেলতেন। এমনকি কামাল-জামালের স্ত্রীরাও খেলাধুলার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি আরো বলেন, খেলাধুলা জাতি গঠনে বিশেষ অবদান রাখে বলে আমি বিশ্বাস করি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও সব সময় উৎসাহ দিতেন। তিনি নিজেও স্টেডিয়ামে উপস্থিত থাকতেন, খেলা দেখতেন।

১৯৭২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় রাষ্ট্রপতি একাদশ ও মুজিবনগর একাদশের মধ্যে ঢাকা স্টেডিয়ামে। সেখানে খেলোয়াড় ও সংগঠকদের উদ্দেশে তিনি যে বক্তব্য দিয়েছিলেন, সেখানেও তিনি উল্লেখ করেছিলেন একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তোলার সঙ্গে সঙ্গে ক্রীড়ার দিকে যথাযথ মনোযোগ দেওয়া দরকার।

শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে অভিভাবকদের আরও বেশি আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সব থেকে দুর্ভাগ্য হলো, ঢাকা শহরে খেলাধুলার জায়গা সব থেকে কম। ইতোমধ্যে আমরা কিছু উদ্যোগ নিয়েছি, প্রতিটি এলাকায় যেন খেলার মাঠ থেকে। যেখানে খালি জায়গা পাচ্ছি আমরা খেলার মাঠ করে দিচ্ছি।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে পুরস্কার তুলে দেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল। এদিন ২০১৩ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দেশের ক্রীড়াঙ্গনে বিশেষ অবদান রাখার জন্য ৪৬ জন ক্রীড়াবিদ এবং ৩৯ জন ক্রীড়া সংগঠককে পুরস্কার দেওয়া হয়। পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে দেওয়া হয়েছে আঠারো ক্যারেট মানের ২৫ গ্রাম ওজনের স্বর্ণপদক, এক লাখ টাকার চেক এবং একটি সম্মাননাপত্র।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
May 2022
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া