adv
২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভোজ্যতেলের বাজার আবার অস্থির

নিজস্ব প্রতিবেদক : ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে আবার অস্থির হয়ে উঠছে ভোজ্যতেলের বাজার। ইন্দোনেশিয়া সরকার পাম অয়েল রপ্তানি নিষিদ্ধ করার অজুহাতে বাজারে খোলা পাম বা সয়াবিন তেল প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা। মঙ্গলবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাইকারি বাজারে ভোজ্যতেলের দাম বেশি। আবার চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহও কম। সেজন্য বেশি দামে তাদের বিক্রি করতে হচ্ছে। আর পাইকারি ব্যবসায়ীরা তেলের দাম নিয়ে কোনো কথা বলতে আগ্রহী নন।

আমদানিকারকদের দাবি, ইন্দোনেশিয়া পাম তেলের রপ্তানি বন্ধ ঘোষণায় বিশ্ব বাজারে দাম বাড়ছে। বাংলাদেশের বাজারেও যার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। তবে আন্তর্জাতিত বাজার পরিস্থিতি বিবেচনায় ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে শুল্ক কমানোর জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

পাম ওয়েলের সবচেয়ে বড় সরবরাহকারী ইন্দোনেশিয়ার রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের ভোজ্যতেলের বাজারে বড় ধরনের সরবরাহ সংকট তৈরির শঙ্কার কথা বলছে ভোজ্যতেল পরিশোধন ও বাজারজাতকারী কোম্পানিগুলো। তারা বলছে, আমদানি নির্ভর এ পণ্যটির বিশ্ববাজার থেকে সরবরাহ পাওয়া না গেলে স্থানীয় বাজারেও এর ঘাটতি দেখা দেবে।

রোজার শুরুতে ভোক্তা অধিদপ্তরে বৈঠকে আমদানিকারকরা বলেছিলেন, আগামী কয়েক মাসের জন্য অভ্যন্তরীণ বাজারে ভোজ্যতেলের কোনো ঘাটতি হবে না। তবে বাড়তি ডলারে তেল কিনতে হচ্ছে বলে দাম বাড়ছে বলে তারা সেই সময়ে দাবি করেন। যদিও বিশ্ববাজারে দাম বাড়ার কারণে ব্যবসায়ীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ৩০ জুন পর্যন্ত ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে ১০ শতাংশ, উৎপাদন পর্যায়ে ১৫ ও ভোক্তা পর্যায়ের ৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করেছে সরকার। এতে লিটার প্রতি কমপক্ষে ১৮ টাকা দাম কমার সম্ভাবনা তৈরি হয়। পরে ২০ মার্চ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক সিদ্ধান্ত হয় এক লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৬০ টাকা, পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেল ৭৬০ টাকা এবং প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল ১৩৬ টাকা দরে বিক্রি হবে। এর দুই দিন পর ২২ মার্চ পাম তেলের দাম লিটার প্রতি ১৩০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। এর ফলে দাম কিছুটা কমলেও ভোক্তাদের অভিযোগ রয়েছে, সরকার ঘোষিত দামে বাজারে সয়াবিন বা পাম তেল পাওয়া যাচ্ছে না।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, দেশে প্রায় ২০ লাখ টন ভোজ্যতেলের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে রমজানের চাহিদা ২ দশমিক ৫ থেকে ৩ লাখ টন। স্থানীয়ভাবে উৎপাদন হয় ২ দশমিক ০৩ লাখ টন। আমদানি প্রায় ১৮ লাখ টন। অপরিশোধিত সয়াবিন তেলর আমদানি প্রায় ৫ লাখ টন। সয়াবিন বীজের আমদানি প্রায় ২৪ লাখ টন (যা থেকে ৪ লাখ টন অপরিশোধিত তেল হয়)। অপরিশোধিত পাম অলিনের আমদানি প্রায় ১১ লাখ টন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, আমদানিনির্ভর ভোজ্যতেলের বাজারে ৪৬ দশমিক ৩ শতাংশ সয়াবিন ও ৫৩ দশমিক ৭ শতাংশ পাম ওয়েলের ব্যবহার হয়। পাম ওয়েলের আমদানির প্রায় ৭০ থেকে ৮০ শতাংশেই আসে ইন্দোনেশিয়া এবং বাকি ২০ বা ৩০ শতাংশ আসে মালয়েশিয়া থেকে। ইন্দোনেশিয়া সরবরাহ বন্ধ করে দিলে বিশ্বব্যাপী একটা সংকট তৈরি হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
April 2022
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া