adv
২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কিছু পুরুষরা মসজিদে যায় যেনো নারী পাহারা দিতে

মেরী জােবাইদা : নারীদের মুখ দেখা গেলো কি না, পায়ের পাতা বের হলো কি না- আরো কত কি। এদের একটা গুরুপ বসবে ঠিক নারীদের দরজা বরাবর। যে কোন নারী যে কোন প্রয়োজনে দরজার কাছাকাছি আসলেও তারা খবরদারী করে উঠবে- নারী দেখা যাচ্ছে কেনো?
উত্তর হচ্ছে – নিশ্চয় তার কোন প্রয়োজন আছে বলেই সে দরকারে আসছে।
আর সঠিক উত্তর হচ্ছে- আপনি কোন প্রয়োজনে নারীদের দরজার দিকে তাকিয়েছিলেন? আপনার তো কোরআনের নির্দশ অনুযায়ী চোখের দৃষ্টি আনত রাখার কথা। আপনি এত বিশাল মসজিদের ঠিক নারীদের দরজা বরাবর বসছেন কেনো যখন আপনি জানেনই এই মসজিদে সবাই আল্লাহর টানে আসলেও যেকোন নারীর উপস্থিতি টের পেলেই আপনার আল্লাহর ধ্যান ভঙ্গ হয়ে যায়?
আমি বার বার বলছি- আবারো বলি। আল্লাহর রাসুলের মসজিদে কোন পর্দা বা বেড়া ছিলো না।

সেটাই নিরাপদ মসজিদ ছিলো। আগেও বলেছি। এখন আরো বেশি বলি। আগে বলেছি ইতিহাস পড়ার কারনে। এখন বলি অভিজ্ঞতা থেকে। সেই মসজিদের জামায়াতে আগে পুরুষরা দাঁড়াতেন, তারপর শিশুরা, তারপর নারীরা। আপনারা হয়তো বলবেন যে নারীদের পিছনে রাখার জন্য তাদের শেষে রাখা হতো। আজ আমি নিজে এক শিশু ছেলের মা হিসাবে বলব, শিশুদের নিরাপত্তার জন্য এটা করা হয়েছে, নারীদের পিছনে দেয়ার জন্য না।

যেহেতু নারীরা পুরুষদের কাতারে দাঁড়াবে না বা পারবে না, সে কারনেই নারীদের শিশুদের পিছনে দেয়া হয়েছে যাতে কোন শিশু কোথাও চলে না যায় বা নামাজের সময়ে মসজিদ থেকে একা একা বের না হয়ে হারিয়ে না যায়। পাশাপাশি এই কম্প্লেইন করা পুরুষরাও বেচে যেতো। যেহেতু নারীরা সরাসরি পিছনের কাতারে তাদের দিকে চোখ পরার ভয়ও আপ থাকলো না। আর শিশুরা মাঝখানে থাকার কারনে নারীরাও সেজদায় যাওয়া আসার সময় সরাসরি পুরুষদের শরীরের পিছন দিকে চোখ পরা থেকে বেচে গেলো।
আমার এক মেয়ে ও এক ছেলে নিয়ে আমি মসজিদে যাই আরবী শেখাতে। ছেলেটিকে ছেলেদের দিকে আর মেয়েটিকে মেয়েদের দিকে দিতে হয়। সাধারনত নারীরা মেয়েদের দিকে থাকে আর পুরুষরা ছেলেদের দিকে। আমার মতো মায়েদের জন্য বিষয়টা জটিল। ছোট্ট ছেলেকে ওই প্রান্তে পাঠিয়ে একবারের জন্য হলেও আমাকে তাকিয়ে দেখতে হয় সেখানে আর কেউ আছে নাকি আমার ছোট্ট ছেলেটি একা। মাঝে মাঝে মেয়েদের দল আগে চলে আসলেও ছেলেদের দল দেরী করে আসে।

তখন বার বার দেখতে হয়- কেউ এলো নাকি সে এখনো একা। এমন সময় যদি এদিক থেকে নারীরা ও ওদিক থেকে পুরুষরা সমস্যা করেন যে মেয়ে মানুষরা দরজার কাছে দাঁড়াবে কেনো বা ছেলেদের এড়িয়ার দিকে তাকাবে কেনো- তখন আপনাদের মনে রাখতে হবে যে সব মেয়ে মানুষ কেবল মেয়ে মানুষ না তারা ছোটো মেয়ে এবং ছোট ছেলেদের অবিভাবকও। এবং তাদের দেখাশুনা করা ও নিরাপত্তার এই দায়ীত্ব আলেলাহর পক্ষ থেকেই অবতীর্ন।

কম্প্লেইন করা এই দলেরা আর কোথাও নারীদের নিয়ে কম্প্লেইন করে না। রাতের পার্টি, বাজার হাট কোথাও না। কেবল মসজিদে এলে করে। অথচ মসজিদে আমাদের সবচেয়ে বেশি নিরাপদ বোধ করার কথা কারন এখানে সবাই হয় আলেলাহর টানে আসে নয়তো আল্লাহর ভয়ে আসে। এদের কারো মনে আল্লাহর চেয়ে কোন নারী বা পুরুষের টান বা ভয় বেশি হওয়ার কথা না। কিন্তু উল্টোটা হয়। গান, নাচ সিনেমা, বাজার সবখানে নারীদের অতিথির মতো স্বাগতম জানালেও মসজিদে আসলেই যত বাঁধা বিপত্তি। যেনো নারীরা মসজিদে ঘোন্নার জিনিস।

কি যে চলে উনাদের অন্তরে কেবল আল্লাহপাক বলতে পারবেন। সমাজের সব ধর্মের ও সরেবস্তরের পুরুষদের কাছে থেকে দেখা হয়েছে। কোন কাউকে কোনরকম সমস্যাপূর্ন ব্যবহার করতে দেখিনি। কখনো ধূর্নাক্ষরেও টের পাইনি। কেবল মসজিদে এই বৃদ্ধ মুসুল্লী ও হাইপার নারী মুসিল্লীদের ছাড়া। তাহলে কেনো অপমানিত হতে যাবে নারীরা মসজিদে? ঘরে বসে সিনেমা দেখলেইতো ভালো, ভালো না?

তাও যেতে হয়। আমার মতো অবিভাবকদের যেতে হয় যারা তাদের সন্তান- মেয়ে কি ছেলে সবার অবিভাবক। একজন বৃদ্ধ যে তার ঈমানের চেতনায় একজন নারী অবিভাবকের মসজিদের দরজায় দাঁড়ানো নিয়ে বিরক্ত হয়, কথা বলে, সেই মানুষটি মসজিদে না এসে ঘরে বসে নামায পড়লে কোনই সমস্যা হবে না। তিনি এক জীবনে সব সূরা কেরাত জানেন এবং যথেষ্ট ইবাদত করেছেন কিন্তু একজন ছোট্ট ছেলে যার নামায শেখা প্রয়োজন, মুসলমানদের সৌন্দর্যপূর্ন সহাবস্থান দেখার প্রয়োজন, আরবী শেখা প্রয়োজন সেই ছেলে

মসজিদের না আসলে হয়তো সে তা আর শেখার সুযোগ পাবে না। হয়তো তার মধ্যে নামায রোজা বা ইসলাম ধর্মের প্রতি ভালোবাসাও জন্মাবে না। এমন করে যদি মায়েদের সাথে শিশু ছেলেদের নিরুৎসাহিত করে বিতাড়িত করে মসজিদ বিমূখ করা হয়- এই মুসলিম জনগোষ্ঠী অনেক সম্ভাবনাময় ভবিষ্যৎ মুসলিম স্কলারকে হারাবে যারা হতে পারত একজন আল গাজালী, বা ইমাম বুখারী। তখন সেই শিশুরা বরং খুঁজে নিবে আনন্দ আড্ডাখানা যেখানে তাদের কখনো বিতারিত বা অসম্মান করা হয় না।
দয়া করে মসজিদকে আবারো রাসুলের মসজিদের মতো পুরো পরিবার বান্ধব করুন। – ফেসবুক থেকে

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া