adv
২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কলকাতাকে হারিয়ে আইপিএলে চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংস

স্পাের্টস ডেস্ক : কলকাতা নাইট রাইডার্সকে হারিয়ে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ১৪তম আসরের মুকুট মাথায় পরল চেন্নাই সুপার কিংস। ফাইনালে কেকেআরের বিপক্ষে ২৭ রানে জিতেছে মহেন্দ্র সিং ধোনির দল।
চেন্নাইয়ের দেওয়া ১৯৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে কলকাতা ৯ উইকেটে করে ১৬৫ রান। এর আগে ফাফ ডু প্লেসিসের দুর্দান্ত ফিফটির সুবাদে ধোনিরা নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে করে ১৯২ রান।

জবাব দিতে নেমে দুর্দান্ত শুরু পায় কলকাতা। ওপেনিং জুটিতেই ৯১ রানের সংগ্রহ করে তারা। দুই ওপেনার শুভমান গিল ও ভেঙ্কটেশ আয়ারের ফিফটিতে জয়ের স্বপ্ন দেখছিল কেকেআর। ইনিংসের ১০.৪ ওভারে ভয়ংকর হয়ে ওঠা এই জুটি ভাঙেন শার্দুল ঠাকুর।

৩২ বলে ৫ চার ও ৩ ছয়ে ৫০ রান করে আয়ার সাজঘরে ফেরেন রবীন্দ্র জাদেজার হাতে বন্দী হয়ে। এরপর দ্রুত ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে কেকেআর। নিতীশ রানাকে ডাক উপহার দিয়ে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান ঠাকুর। ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে জাদেজার হাতে বন্দী হন সুনীল নারাইন (২)।

২৭ রানে জীবন পেয়ে ফিফটি করা গিলকে ফেরান দীপক চাহার। তার ইনিংসটি সাজানো ছিল ৬ চারে। কেকেআরের বিপদটা আরও বাড়ে উইকেটরক্ষক দীনেশ কার্তিক (৯), সাকিব আল হাসান (০), রাহুল ত্রিপাঠি (২) ও অধিনায়ক ইয়ন মরগানকে (৪) অল্প সময়ের ব্যবধানে হারালে। দলীয় ১২৫ রানে ৮ উইকেট হারালে হাত থেকে ম্যাচ বেরিয়ে যায় কেকেআরের।

শেষদিকে এক চার ও ২ ছয়ে ১৩ বলে ২০ রানের ক্যামিও খেলেন শিভম মাভি। লোকি ফার্গুসন খেলেন ১১ বলে অপরাজিত ১৮ রানের ইনিংস। কিন্তু তাদের এই ইনিংস কেবল কলকাতার হারের ব্যবধানটুকু কমিয়েছে। শেষ ওভারে তাদের জয়ের জন্য দরকার ছিল ৩১ রান। তবে সেই সম্ভাবনাকে সফল হতে দেননি ডোয়াইন ব্রাভো।

চেন্নাইয়ের হয়ে ৪ ওভারে ৩৮ রান দিয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নিয়েছেন ঠাকুর। জশ হ্যাজলউড ও জাদেজা নিয়েছেন দুটি করে উইকেট।

এর আগে, শুক্রবার দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা দুর্দান্ত করে চেন্নাইও। ওপেনিং জুটিতেই স্কোরবোর্ডে ৬১ রান জমা করেন রুতুরাজ গাইকওয়ার্ড ও ডু প্লেসিস। তাদের এই জুটি ভাঙেন নারাইন। ২৭ বলে ৩২ রান করে সাজঘরে ফেরেন গাইকওয়ার্ড।

ওপেনিং সঙ্গীকে হারালেও চেন্নাইয়ের রানের চাকা সচল রাখেন ডু প্লেসিস। ইনিংসের শেষ বলে মাভির বলে আউট হন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটার ৫৯ বলে ৭ চার ও ৩ ছয়ে খেলেন ৮৬ রানের ঝকঝকে ইনিংস।

চেন্নাইয়ের বড় ভিত গড়ার পথে ডু প্লেসিসকে সঙ্গ দেন রবিন উথাপ্পা ও মঈন আলী। উথাপ্পা ১৫ বলে ৩ ছয়ে উপহার দেন ৩১ রানের ক্যামিও। ২০ বলে ২ চার ও ৩ ছয়ে ৩৭ রানে অপরাজিত ছিলেন মঈন।

কলকাতার হয়ে ৪ ওভারে ২৬ রানে ২ উইকেট নিয়ে সফল বোলার নারাইন। চেন্নাইয়ের বাকি উইকেটটি নিয়েছেন মাভি। ৩ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি সাকিব।

এ নিয়ে ৯ বার ফাইনাল খেলে চতুর্থবারের মতো শিরোপা জিতল চেন্নাই। অন্যদিকে এই প্রথম ফাইনালে হারল কলকাতা। এর আগে দুইবার ফাইনাল খেলে দুইবারই শিরোপা জিতেছিল কেকেআর।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া