adv
২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Inovation Index-এ বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার তলানিতে

কামরুল হাসান মামুন, ফেসবুক থেকে, এবারও ১৩২ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান গতবারের জায়গা অর্থাৎ ১১৬তম স্থানেই আছে। যেখানে ভারত দুই ধাপ এগিয়ে বিশ্ব রেঙ্কিং-এ ৪৬ তম, শ্রীলংকা ৬ ধাপ এগিয়ে ৯৫তম, পাকিস্তান ৮ ধাপ এগিয়ে ৯৯তম আর নেপাল ১৬ স্পট সাজিয়ে ১১১তম। অর্থাৎ অন্যরা এগিয়েছে কিন্তু আমরা আগাইনি এবং যথারীতি দক্ষিণ এশিয়ায় সবার নিচে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে বাংলাদেশের শিক্ষার মান ২.৮%, ভারত ও শ্রীলঙ্কার শিক্ষার মান যথাক্রমে ২০.৮% এবং পাকিস্তানের শিক্ষার মান ১১.৩%! আবার ২০২০ সালে CEOWORLD magazine-এর তৈরী পৃথিবীর সেরা এডুকেশন সিস্টেমের একটি ইনডেক্স প্রকাশ করে। সেই ইনডেক্সে ভারতের অবস্থান ৩৩, শ্রীলংকার অবস্থান ৭৭, পাকিস্তানের অবস্থান ৮৩, মায়ানমারের অবস্থান ৯২ আর আমার প্রাণের বাংলাদেশকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।
এছাড়া ওয়ার্ল্ড নলেজ ইনডেক্সে দক্ষিণ এশিয়ার তলানিতে বাংলাদেশ। আবার রিসার্চ ও ইনোভেশন ইন্ডেক্সেও দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ তলানিতে। অথচ আমাদের কি ভাব? আমরা নাকি উন্নয়নের মহাসড়কে। পৃথিবী নাকি অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে দেখে আর আরো বেশি করে অবাক হয়। Bragging কাকে বলে বিশ্বকে আমরা দেখিয়ে দিচ্ছি!

তাছাড়া বাংলাদেশের কত মানুষ প্রতিদিন কেবল চিকিৎসার জন্য ভারত যান? শুধু চিকিৎসা বাবত বাংলাদেশ কত বৈদেশিক মুদ্রা হারাচ্ছে? বাংলাদেশে শিক্ষিত যোগ্য বাংলাদেশী না পাওয়ার কারণে কত ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশে উচ্চ বেতনে চাকুরী করে? একমাত্র টয়লেট এবং শিশু ও মাতৃমৃত্য এইরকম দুইকেকটি ক্ষেত্রে নাকি আমরা এগিয়ে। এইসব এগিয়ে থাকার পেছনে কতটা সরকারের অবদান আর কতটা আমাদের এনজিওর অবদান সেইটাও ভেবে দেখবেন। বাংলাদেশের এনজিওদের অবদান সবচেয়ে বেশি হাইজাক হয়েছে।

হবে না কেন? যেই দেশে শিক্ষায় বাজেট বরাদ্দ জিডিপির মাত্র ২.২%! যেখানে এইটা হওয়ার কথা ন্যূনতম জিডিপির ৫.৫%! তারপরও সবাই চুপ। শিক্ষায় অবহেলাই হলো সকল সমস্যার মূল।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া