adv
২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

খুলেছে পোষাক কারখানা, কর্মস্থলে যোগ দিয়েছে শ্রমিকরা, স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই অনেক কারখানায়

ডেস্ক রিপাের্ট : চলমান বিধিনিষেধের মধ্যেই খুলে দেওয়া হয়েছে পোষাক কারখানাগুলো। রবিবার (১ আগস্ট) সকাল ৮ টার মধ্যে যে যার কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন শ্রমিকরা। এদিকে বড় কয়েকটি কারখানায় কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মানা হলেও অধিকাংশ জায়গায় এসবের বালাই নেই। সকল তৈরি পোষাক কারখানায় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হলেও অধিকাংশ কারখানায় রাখা হয়নি তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার।

রাজধানীর বাড্ডা এলাকার আর টেক্সট ফ্যাশন, জান কম্পোজিট ইউনিট লিমিটেড, ড্রেস ফাই নেটোয়ার্ক, ইনিজেক্ট ফ্যাশনসহ বিভিন্ন কারখানা ঘুরে দেখা যায়, কোনো কোনো যায়গায় তাপমাত্রা দেখে শ্রমিকদের সেখানে ডোকানো হচ্ছে। আবার কোথাও নেই তাপমাত্রা মাপার কোনো যন্ত্র। তবে অধিকাংশ যায়গায় শ্রমিকদের মাস্ক পরে থাকতে দেখা গেছে।

সকালে রাজধানীর বাড্ডার সাতারকুল এলাকার এ কে এম রহমতুল্লা গার্মেন্টসে গিয়ে দেখা যায়, সকাল ৮ টার দিকে দলে দলে শ্রমিকরা কাজে যোগ দিচ্ছেন। এদের বেশিরভাগই নারী শ্রমিক। তাদের অনেকেই জানান, হঠাৎ গার্মেন্টস খোলার কথা শুনে অনেক কষ্ট করে দূর-দূরান্তে থেকে এসেছেন। আবার কেউ কেউ ঢাকাতেই অবস্থান করেছিলেন তারা।

এ বিষয়ে এ কে এম রহমতুল্লাহ মোবাইলে বলেন, ‘সাতারকুল রোডের ওই ফ্যাক্টরিতে প্রায় এক হাজার ২০০ জন শ্রমিক-কর্মকর্তা-কর্মচারী আছেন। আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছি।’

বাড্ডার আলীর মোড়ের আর টেক্স ফ্যাশনের সুপার ভাইজার মো. মহসিন বলেন, ‘আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফ্যাক্টরিতে প্রবেশ করতে দিচ্ছি। তবে আজ মনে হয় সবাই যোগ দিতে পারবে না। কারণ এখনো অনেকে গ্রাম থেকে আসতে পারেনি।’

জান কম্পোজিট ইউনিট লিমিটেড (ইউনিট-২) এর সামনে অনেক নারী-পুরুষ ভিড় করে আছে। তবে তাদের কাউকে ভেতরে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। সেখানকার একজন আমেনা বেগম জানান, তারা নতুন চাকরির জন্য এসেছেন। কিন্তু অভিজ্ঞতা না থাকায় গেট থেকে সরিয়ে দিচ্ছেন। তবে ওই তৈরি পোশাক কারখানায় সকাল ৮টার আগে থেকেই মেশিন চলছে। তবে ছবি তুলতে চাইলে সুপারভাইজার পরিচয়দানকারী একজন বাধা দেন।

ইনজেক্ট ফ্যাশন কারখানায় ঢোকার সময় কথা হয় রাজিয়া বেগমের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল জেলায়। হঠাৎ করে কারখানা খোলার ঘোষণায় অনেক কষ্ট করে ঢাকায় আসতে হয়েছে।’ অন্যদিকে মফিদুল নামে এক যুবক বলেন, ‘আমি ঢাকাতেই ছিলাম।’

প্রসঙ্গত, ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে দাবি জানানোর পরিপ্রেক্ষিতে আজ রবিবার থেকে রফতানিমুখী শিল্পকারখানা খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এজন্য করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চলমান বিধিনিষেধে গ্রামে থাকা শ্রমিকদের কাজে না ফিরতে অনুরোধ জানিয়েছে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ)।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া