adv
২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মীর জাফর বিশ্বাসঘাতক নন, দাবি বংশধরদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কৌতূহলের শুরু হয় সেখান থেকেই। ইতিহাস টেনে বলতে হয় যে, পলাশীর যুদ্ধে বাংলার শেষ নবাবের পরাজয়ের মধ্যদিয়ে ব্রিটিশদের অনুপ্রবেশ পাকা করেছিলেন। সেখানে অন্যতম ভূমিকা ছিল মীর জাফর-ঘসেটি বেগমের মতো চরিত্রের। ইতিহাস বর্ণিত চরিত্রের অন্যতমই মীর জাফর আলি বাহাদুর।
তাদের বংশধরের খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হয়।

১৭৫৭ সালে ২৩ জুন। নদীয়া জেলার পলাশীর প্রান্তরে ইংরেজদের সাথে যুদ্ধে নবাব সিরাজউদ্দৌলা পরাজিত হয়েছিলেন। নবাবের প্রধান সেনাপতি মীর জাফর আলী খান বাহাদুর নবাবের নির্দেশ উপেক্ষা করে ব্রিটিশদের সাথে হাত মিলিয়ে যুদ্ধে অংশ নেননি। ফলে, যুদ্ধে পালাতে হয়েছিল সিরাজউদ্দৌলাকে। এ ঘটনার মধ্যদিয়ে ব্রিটিশদের অনুপ্রবেশ ঘটেছিল ভারত বর্ষে। ফলে মীর জাফরকে ইতিহাস ‘বিশ্বাসঘাতক’ হিসাবে আখ্যায়িত করেছে। ব্রিটিশদের সাথে ষড়যন্ত্র করে নবাবকে পরাজিত করা এবং হত্যাকে ইতিহাস ‘কলঙ্কজনক’ অধ্যায় বলেও চিহ্নিত করে রাখা হয়েছে আজ তা অমোচনীয়।

ব্রিটিশদের আশীর্বাদে নবাব হিসাবে জায়গা পেলেও মীর জাফর আলি খান বাহাদুর, পলাশীর যুদ্ধের ৯ বছর পর ১৭৬৫ সালে ৫ ফেব্রুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন।

ঐতিহাসিক এই ঘটনার ২৬৫ বছর পর কেমন আছে বাংলার শেষ নবাব সিরাজউদ্দৌলার শহর মুর্শিদাবাদ; কেমনই বা আছেন ইতিহাসের ‘বিশ্বাসঘাতক’ নাম দেওয়া মীর জাফর আলী খান বাহাদুরের বংশধররা। সেই বিষয়টি জানতে খোঁজ শুরু হয় মীর জাফরের বংশধরদের। কিন্তু নাহ খুব বেশি কষ্ট করতে হয়নি। আত্মগোপন করে থাকা কোনও পরিবার কিংবা ব্যক্তিকে পেতে যতটা কষ্ট করতে হয় সে রকম হয়নি সময়ের টিমকে।

মীর জাফর খানের বাড়িতেই পাওয়া গেল নবম পুরুষ লিসান হায়দার আলি খানকে। বয়সে তরুণ মীর জাফরের বংশের একদম বর্তমান পুরুষ। বললেন, মীর জাফর চরিত্র নিয়ে তারা মোটেও লজ্জিত নন। বরং গর্বিত। এর কারণ হিসাবে তিনি বলেন, ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছে। মীর জাফর আসলে বিশ্বাসঘাতকই ছিলেন না। তিনি শুধু তার দায়িত্বপালন করেছেন।
লিসান আরও দাবি করে বলেন, তার বাবা ড. সৈয়দ রেজা আলি খান ইতিহাস থেকে তথ্য নিয়ে প্রমাণ করে দিয়েছেন মীর জাফর বিশ্বাস ঘাতক ছিলেন না।

লিসান হায়দারের ভাষায়, কিছু ফেসবুক ইউটিউবরাও নিজের দর্শক বাড়ানোর জন্য ভুল তথ্য পরিবেশন করেছেন। কিন্তু সঠিক তথ্য ঘাঁটলে দেখতে পারবেন, আসলে মীর জাফর ‘বিশ্বাসঘাত’ ছিলেন না। ওই সময় তিনি শুধু তার দায়িত্বপালন করেছেন।

লিসান হায়দার খান দাবি করেন, আমরা সামাজিকভাবে কোনও রকম আত্মগোপন করে নেই। আমি বিয়ে করেছি, আমার সন্তান আছে। আমি পড়াশোনা করেছি কিংবা চাকরি করছি; কোথাও আমার সমস্যা হয়নি। বরং আমি একটা ঐতিহাসিক পরিবারের সদস্য সেটাই আমার গর্বের কারণ।

শুধু মীর জাফরের পরিবারের সদস্যরাই নন, মীর জাফরকে নিয়ে গর্বিত জাফরাগঞ্জের সাধারণ বাসিন্দারাও। যেমন তাজুল হোসেন বললেন, আসলে ওই সময় ইতিহাসটা সঠিকভাবে অনেকেই লিখতে পারেননি। কারণ সে সময় ইতিহাস লেখার হতো স্থানীয় যাত্রাপালা থেকে। সেই যাত্রাপালাগুলোকে অতিরঞ্জিত করে দেখানো হতো। সেই যাত্রা থেকেই ঐতিহাসিক এই ঘটনাকে অতিরঞ্জিত করে পরে লেখা হয়েছে।

তিনি এর পক্ষে যুক্তি দিয়ে বলেন, যদি মীর জাফর বিশ্বাস ঘাতকই হবেন তবে তার স্ত্রী এত সমাজসেবা কী করে করেছেন। তার স্ত্রীর দেওয়া বহু স্কুল-কলেজ আজও অবৈতনিক রয়েছে।

ইতিহাস, ইতিহাসই! মীর জাফরের বংশের বর্তমান সদস্য কিংবা স্থানীয় মানুষের দাবি যতই জোরালো হোক না কেন- ইতিহাসের এই অধ্যায়কে কিন্তু আজও ভুল প্রমাণ করা সম্ভব হয়নি। যদিও এটা নিয়ে নতুন করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে বৈকি। মীর জাফরের চরিত্র নিয়ে দুটি পক্ষ নিজের মতো করেই যুক্তি দিয়ে দাবি করছেন যে মীর জাফর ‘বিশ্বাসঘাতক নন’ কিংবা মীর জাফর ‘বিশ্বাসঘাতী’। – সময়নিউজ

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া