adv
১১ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কোভিড হানায় ৬ মাসে ক্ষতি ১১৩ মিলিয়ন ইউরো, রোনালদোকে ছেড়ে দিবে জুভেন্টাস

স্পোর্টস ডেস্ক : অনেক স্বপ্ন আর প্রত্যাশা নিয়ে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে কিনোছিলো ইতালির ক্লাব জুভেন্টাস।
দুই মওসুম অতিক্রান্ত হলেও প্রত্যাশার ছিটেফোটাও পূরণ হয়নি দলটির। শুধু খরচের খাতাই ভারী হয়েছে। এবার শেষ দেখা, চ্যাম্পিয়ন্স লিগে কাঙ্খিত সাফল্য না আসলে, আসছে গ্রীষ্মেই জুভেন্টাসের সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে যেতে পারে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। ইতালির ক্লাব পাড়া জুড়েই এই গুঞ্জণ। তবে কোচ আন্দ্রে পিরলো যেনো নীরব নিথর হয়ে বসে আছেন।
এই মুহূর্তে জুভেন্টাসের বাস্তবতা, ক্লাবের ক্যাশবাক্স যেনো খালি। রোনালদোকে পুষবার মতো অবস্থা আর নেই দলটির। সেক্ষেত্রে, এটাই হয়তো হতে যাচ্ছে ইতালিতে সিআর সেভেনের শেষ মৌসুম।
সেই ম্যানচেস্টার থেকে রোনালদোর শুরু। যেখানেই গেছেন সঙ্গে নিয়ে গেছেন নিজের ভাগ্যটাকেও। যা তাকে, দিয়েছে দু’হাত ভরে। কোন ক্লাবকেই খালি হাতে ফিরতে হয়নি তাকে নিয়ে। ইউনাইটেডে লিগ শিরোপা, ক্লাব বিশ্বকাপের সঙ্গে চ্যাম্পিয়ন্স লিগটাকেও নিজের দখলে এনেছিলেন পুঁচকে রোনালদো।
এরপর সময়ের সঙ্গে রিয়াল মাদ্রিদে যা করেছেন তা তো রীতিমতো কিংবদন্তির উপাখ্যান। অনেক ক্লাবের শোকেসেও নেই যত শিরোপা, তার চেয়েও বেশি আছে এক সিআর সেভেনের ব্যক্তিগত ঝুলিতে। যার মাঝে ৫টি আবার ইউসিএল ট্রফি। সোনার ডিম পাড়া হাঁসটাকে তাই চিনতে ভুল করেনি জুভেন্টাস। নানা জায়গা থেকে ধার দেনা করে, টাকার বস্তা নিয়ে সেদিন তারা স্পেন থেকে ইতালিতে নিয়ে গিয়েছিলেন পর্তুগীজ রাজপুত্রকে। আশা ছিলো তার পায়ের জাদুতে, তুরিনে ফিরে আসবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা।
ইতালিয়ান সাবেক ফুটবলার অ্যান্টোনিও কাসানো তো বলেই দিলেন, এভাবে রোনালদোকে পোষার না কি কোন মানেই হয় না। শুধু কি তাই, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফিতে এ মৌসুমেও যদি ব্যর্থতার ধারাবাহিকতা ধরে রাখে জুভেন্টাস, তাহলে যেন সিআর সেভেনকে পত্রপাঠ বিদায় জানিয়ে দেয়া হয়, সে দাবিও জানিয়ে রাখলেন তিনি।
জুভেন্টাসে রোনালদো আসার পর থেকে স্পনসার আর জার্সি বিক্রি থেকে মিলিয়ন মিলিয়ন ইউরো ঘরে তুলেছে ক্লাবটি। নিজেদের শেয়ারের অবস্থাও এখন তুঙ্গে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলোয়ারও বেড়েছে দ্বিগুণের চেয়ে বেশি। কিন্তু, বছর বছর রোনালদোর ৩১ মিলিয়ন ইউরো বেতন গুণতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে ক্লাব কর্তৃপক্ষ।
কিছুদিন আগেও এগুলো নিয়ে খুব একটা সমস্যায় ছিলো না ক্লাবটি। কিন্তু কোভিড পরিস্থিতিতে দর্শকশুন্য গ্যালারি বড় ক্ষতির মুখে ফেলেছে ক্লাব রেভিনিউকে। ফলে, খালি হতে বসেছে কোষাগার। ইতোমধ্যে অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসেই ১১৩ মিলিয়ন ইউরো লস দেখাচ্ছে ক্লাবটি।
সেক্ষেত্রে, এ বিশাল ক্ষতি থেকে ঘুরে দাঁড়াতে হলে হয় ইউসিএল শিরোপা জিততে হবে জুভেন্টাসকে। অথবা চুক্তি শেষ হওয়ার আগেই রোনালদোকে বিক্রি করতে হবে বড় অঙ্কের অর্থে। তাই বলাই যায়, আসছে গ্রীষ্মেই হয়তো নতুন ঠিকানায় দেখা যাবে সি আর সেভেনকে। – সময়নিউজ/ রোমটাইমস

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া