adv
১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের বছর পার : সরকারের ভূমিকা ও বাস্তবতা

ডেস্ক রিপাের্ট : বিশ্বে প্রথমবারের মতো করোনা শনাক্তের প্রায় ৩ মাস পর ২০২০ সালের ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী ধরা পড়ে। সেদিন রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট (আইইডিসিআর) দেশে তিনজন করোনা আক্রান্ত হয়েছে বলে জানায়। তার মধ্যে একজন নারী ও দুইজন পুরুষ। তারপর পেরিয়ে গেছে এক বছর। এ এক বছরে মানুষের জীবন হয়ে পড়ে বিপর্যস্ত। শুরুতে আজানা আতঙ্কে আর উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় দিশেহারা হয়ে পড়েছিল সবাই। খবর: বিবিসির।

ভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানত করণীয় বার বার হাত ধোয়া, মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। বাংলাদেশ সরকার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে ১৭ মার্চ থেকে। এক বছরের বেশি সময় পর এবার সেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার। সরকারের দাবি অন্যান্য যেকোনও দেশের তুলনায় বাংলাদেশ এই এক বছরে করোনা মোকাবেলায় সফলতা দেখিয়েছে।

সর্বোচ্চ আক্রান্তের সময়

গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা শনাক্তের পরবর্তী দুই মাস দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা তিন অংকের মধ্যে থাকলেও সেটা বাড়তে বাড়তে জুলাই মাসে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছায়। ২ জুলাই সর্বোচ্চ ৪০১৯ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। ধারণা করা হচ্ছিল শীতকালে ভাইরাসের প্রকোপ আরও বাড়বে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায় উল্টো। নভেম্বরে সংক্রমণের গ্রাফ কিছুটা ওপরে উঠলেও ডিসেম্বর থেকে সেটা দ্রুত পড়তে থাকে। ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সংক্রমণের হার তিন শতাংশের নিচে নেমে আসে, দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা ছিল ৩০০ জনেরও কম।

সরকারের প্রস্তুতি

সরকার বলছে চীনের উহানে এই রোগটি শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই তারা প্রস্তুতি নিতে থাকে। আইইডিসিআর-এর ড. আলমগীর হোসেন বলেন, আঞ্চলিকভাবে সরকার এই ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণ করতে সফল হয়েছে। তার দাবি, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোকে বিবেচনায় ধরলে বাংলাদেশের অবস্থান অনেক ভালো।

জাতীয় প্রস্তুতি পরিকল্পনা

রাজধানী ঢাকা থেকে একেবারে উপজেলা পর্যায়ে কমিটি গঠন করা, হাসপাতাল প্রস্তুত করা, প্রচার-প্রচারণা চালানো এ ধরনের নানা কাজের জন্য পরিকল্পনা করা হয়।

তবে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সরকারের দাবিকে ঢালাওভাবে মানতে রাজি নন। তারা বলছেন, কয়েকটি বিষয় এখানে কাজ করেছে যাতে করে মানুষের মৃত্যু এবং আক্রান্তের সংখ্যা কম হয়েছে। এর মধ্যে একটি হল বাংলাদেশের আবহাওয়া। অন্যান্য শীত প্রধান দেশে করোনা যতোটা বিস্তার লাভ করেছে বাংলাদেশ গ্রীষ্মপ্রধান দেশ হওয়াতে আবহাওয়াগতভাবে বড় সুবিধা পেয়েছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্তের দিক থেকে বেশি আক্রান্ত হয়েছে বয়স্ক ব্যক্তিরা। ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলোতে মানুষের গড় আয়ু বেশি। সেখানে বয়স্ক জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বেশি। তাই আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যাও বেশি হয়েছে। কিন্তু সেই তুলনায় বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু কম। তাই যে জনগোষ্ঠীর মানুষ আক্রান্ত হওয়ার কথা সেই জনগোষ্ঠীর মানুষ তুলনামূলক কম। আক্রান্তের সংখ্যাও কম।

করোনাভাইরাস পরীক্ষার ক্ষেত্রে দুর্বলতা রয়েছে। যেমন একটা বাসায় যদি একজনের করোনাভাইরাস হয় সেই বাসার সবাইকে সরকারিভাবে করোনা পরীক্ষা করা হয়নি। অনেক রোগীর ক্ষেত্রে করোনাভাইরাসের কোনো উপসর্গ দেখা যায়নি। এই সব রোগীরা হিসেবের বাইরে রয়ে গেছে। – আরটিভি

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া