adv
১১ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

উল্কার মধ্যে কী থাকে জানা গেলো গবেষণায়

ডেস্ক রিপাের্ট : গত বছরের নভেম্বরে সুইডেনের উপাসলা গ্রামে আছড়ে পড়েছিল একটি বড় আকারের উল্কাপিণ্ড। এতদিন ধরে সেই উল্কাপিণ্ড পর্যালোচনার পরে বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, উল্কাপিণ্ডে রয়েছে শুধুই লোহা। সুইডিশ মিউজিয়াম অফ ন্যাচরাল হিস্ট্রি এই তথ্য প্রকাশ করেছে। একই সঙ্গে কীভাবে এই উল্কাপিণ্ড সুইডেনে পড়ল ও এটি আসলে কোন গ্রহ বা তারার অংশ তাও জানানো হয়েছে।

সুইডিশ মিউজিয়াম অব ন্যাচরাল হিস্ট্রি বলছে, মাটিতে পড়া এই উল্কাপিণ্ডের আকার আসলে একটি বড় আকারের রুটির মতো। যার ওজন প্রায় ৩১ পাউন্ড। কেজি হিসেবে ১৪ কেজি। আগে এটি মহাকাশে অন্য একটি বড় উল্কাপিণ্ডের অংশ ছিল। বিজ্ঞানীদের বক্তব্য, যে পাথর থেকে এটি পড়েছিল সেটির ওজন হতে পারে ৯ টনেরও বেশি।

সুইডিশ মিউজিয়াম অব ন্যাচরাল হিস্ট্রি যেখানে উল্কাটি যেখানে পড়েছে সেই জায়গাটিতেও অনুসন্ধান চালান। সেখানে পাওয়া যায় উল্কাখণ্ডের ছোট ছোট টুকরো। মিউজিয়ামের বিবৃতি অনুযায়ী, ওডেলন গ্রামের কাছেই এই ছোট্ট উল্কাখণ্ড উদ্ধার করা হয়েছে।

স্টকহোমের জিওলজিস্ট আন্ড্রেয়াস ফোর্সবার্গ এবং অ্যান্ডার্স অবশ্য সেখানে আবার এসে একটি বড় মাপের টুকরো খুঁজে পায়। এটি আকারে এতই বড় ছিল, যে দেখে মনে হচ্ছিল বুঝি কোনও বোল্ডারকে ভেঙে ফেলে রাখা হয়েছে। প্রচণ্ড সংঘর্ষের জেরে ওই পাথরের একটি দিক চ্যাপ্টা হয়ে গিয়েছিল।

সুইডিশ মিউজিয়াম বলছে, নয়া উল্কাপিণ্ডের পড়া সেদেশে এই প্রথম। ৬৬ বছরের মধ্যে প্রথমবার ফায়ারবল সম্পর্কিত কোনও উল্কাপিণ্ড পড়েছে। বিজ্ঞানীরা জানতে পেরেছেন, ওই উল্কাপিণ্ডটি পুরোপুরি লোহা দিয়ে তৈরি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি নাসার তরফে জানানো হয়েছিল এমন বেশ কিছু উল্কাপিণ্ড রয়েছে, যা পেলে মানুষ কোটিপতি হয়ে যেতে পারে। এব্যাপারে সামনে এসেছিল ১৬-সাইকী-র নাম এটিও একটি লৌহ উল্কাপিণ্ড। নাসার তরফে বলা হয়েছে, এটি পুরোটাই লোহা, নিকেল এবং সিলিকা দিয়ে তৈরি। এতে উপস্থিত এই ধাতুগুলো যদি বিক্রি হয় তবে পৃথিবীতে বসবাসকারী প্রতিটি মানুষ প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা পাবেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া