adv
২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বিশেষ পদ্ধতিতে ফল প্রকাশ – জিপিএ-৫ পেল ১ লাখ ৬১ হাজার শিক্ষার্থী

ডেস্ক রিপাের্ট : বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়াল তাণ্ডবের মাঝে এবার পরীক্ষা ছাড়াই বিশেষ পদ্ধতিতে এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছেন এক লাখ ৬১ হাজার ৮০৭ জন। এছাড়া করোনাকালের এই পরীক্ষায় সব পরীক্ষার্থীরাই অটোপাস পেয়েছেন।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) বেলা পৌনে ১১টার দিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এই ফল ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ দিন একযোগে ১১টি শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়।

বিশেষ পদ্ধতিতে এবার মোট জিপিএ-৫ পেয়েছেন এক লাখ ৬১ হাজার ৮০৭ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে মাদরাসা বোর্ডে ৪ হাজার ৪৮ জন ও কারিগরি বোর্ডে ৪ হাজার ১৪৫ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছেন।

এছাড়া এবার ঢাকায় ৫৭ হাজার ৯২৬ জন, চট্টগ্রামে ১২ হাজার ১৪৩, যশোরে ১২ হাজার ৮৯২, ময়মনসিংহে ১০ হাজার ৪০ জন, দিনাজপুরে ১৪ হাজার ৮৭১, রাজশাহীতে ২৬ হাজার ৫৬৮, বরিশালে ৫ হাজার ৫৬৮, সিলেটে ৪ হাজার ২৪২ ও কুমিল্লায় ৯ হাজার ৩৬৪ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছেন।

এইচএসসি ও সমমানে গত বার পাসের হার ছিল ৭৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ। আর তার আগের বছর ছিল ৬৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

এ দিকে, এইচএসসিতে এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৬১ হাজার ৮০৭ জন শিক্ষার্থী। যেখানে গত বার এই সংখ্যা ছিল ৪৭ হাজার ২৮৬। আর তার আগের বছর ছিল ২৯ হাজার ২৬২।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত রয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, শিক্ষা সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান ছাড়াও বিভিন্ন বোর্ডের চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

প্রসঙ্গত, ১১টি শিক্ষা বোর্ডের ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭৮৯ শিক্ষার্থীর এবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল ১ এপ্রিল থেকে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বাড়তে শুরু করলে ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়, পঞ্চম ও অষ্টমের সমাপনীর মতো এইচএসসি পরীক্ষাও নেওয়া যাচ্ছে না।

এরপর গত ৭ অক্টোবর এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানান, অষ্টমের সমাপনী এবং এসএসসির ফলাফলের গড় করে ২০২০ সালের এইচএসসির ফল নির্ধারণ করা হবে। জেএসসি-জেডিসির ফলাফলকে ২৫ এবং এসএসসির ফলকে ৭৫ শতাংশ বিবেচনায় নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের ফল ঘোষিত হবে।

কিন্তু আইনে পরীক্ষা নিয়ে ফল প্রকাশের বিধান থাকায় তা সংশোধন করে বিশেষ পরিস্থিতিতে পরীক্ষা ছাড়াই ফল প্রকাশের বিধান যুক্ত করতে হয়েছে, যা গত সপ্তাহে জাতীয় সংসদের অনুমোদন পায়।

সংসদে পাস হওয়া তিনটি বিলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সই করার পর সোমবার (২৫ জানুয়ারি) রাতে ‘ইন্টারমিডিয়েট অ্যান্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন (অ্যামেন্ডমেন্ট) অ্যাক্ট-২০২১’ ‘বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড (সংশোধন) অ্যাক্ট-২০২১’, ‘বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড (সংশোধন) অ্যাক্ট-২০২১’ গেজেট আকারে জারি কর সরকার। এরপর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রস্তুত, ঘোষণা ও সনদ বিতরণের জন্য শিক্ষা বোর্ডগুলোকে ক্ষমতা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া