adv
৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বহুল আলোচিত চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে ভােট গ্রহণ চলছে

ডেস্ক রিপাের্ট : নানা উদ্বেগের মধ্যে আজ (বুধবার) শুরু হলাে বহুল আলোচিত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে ভোটগ্রহণ।

সবকটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করে ভোট গ্রহণ করা হচ্ছে। এ নির্বাচনকে ঘিরে একদিকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থীর অনুসারীদের মারামারি, সংঘাত-সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে; অপরদিকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের অনুসারীদের মধ্যেও ঘটেছে খুনোখুনির ঘটনাও। নির্বাচনি সহিংসতায় এরই মধ্যে তিনজন খুন হয়েছেন।

সর্বশেষ রোববার আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউলের পক্ষে যুবলীগের প্রচারণায় অভ্যন্তরীণ বিরোধে ছুরিকাহত হয়েছেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের এক নেতা। এমন পরিস্থিতির মধ্যে সোমবার মধ্যরাতে শেষ হয়েছে আনুষ্ঠানিক প্রচার। মাঠে নেমেছেন পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যরাও।

এ নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থী বাদে আরও চারটি রাজনৈতিক দলের প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এদিকে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সহিংসতার আশঙ্কা ও উদ্বেগের যথেষ্ট কারণ রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। তিনি বলেছেন, পরিবেশ সুষ্ঠু না হলে অবাধ, নিরপেক্ষ, আইনানুগ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্ভব নয়। সোমবার ঢাকায় নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

নির্বাচনি পরিবেশ নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীরা পালটাপালটি অভিযোগ করেছেন। ভোটগ্রহণ সামনে রেখে শেষ মুহূর্তে পুলিশের বিরুদ্ধে নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতারের অভিযোগ করেছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন। তিনি বলেছেন, পুলিশ ঘরে ঘরে গিয়ে অভিযান চালানোর কারণে সম্ভাব্য পোলিং এজেন্টরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তবে ভিন্ন কথা বলেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। তিনি বলেন, ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু হবে। পরিবেশ ভালো রয়েছে। সবাইকে নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে আসার আহ্বান জানান তিনি।

গত বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী একই বছরের ২৯ মার্চ চট্টগ্রাম সিটিতে ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা ছিল। করোনাভাইরাসের কারণে নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগে গত ২১ মার্চ প্রথম দফায় চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন স্থগিত করা হয়।

দ্বিতীয় দফায় ১৪ জুলাই পুনরায় চসিক নির্বাচন স্থগিত করা হয়। এই সময়ে চসিকের প্রশাসক হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হয় নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম সুজনকে। প্রশাসকের মেয়াদের শেষ পর্যায়ে ২৭ জানুয়ারি ভোটের নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া