adv
১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জো বাইডেনের ক্ষমতা গ্রহণের দিন যা হতে পারে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটল হিলে ডোনাল্ড ট্রাম্পের উন্মত্ত সমর্থকদের নজিরবিহীন হামলার পর জানুয়ারি মাসের সামনের একটি দিন নিয়ে এখন প্রচুর কথাবার্তা হচ্ছে। দিনটিকে ঘিরে যুক্তরাষ্ট্রে তো বটেই, সারা বিশ্বেও লোকজনের মধ্যে নানা ধরনের কৌতূহল, সংশয় ও অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। এই দিনটি হচ্ছে ২০শে জানুয়ারি।

সেদিন দেশটির ভবিষ্যৎ প্রেসিডেন্ট ডেমোক্র্যাট রাজনীতিক জো বাইডেনের ক্ষমতা গ্রহণের কথা রয়েছে। এরপরই তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে হোয়াইট হাউসে প্রবেশ করবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক পরিভাষায় এই দিনটিকে বলা হয় অভিষেক দিবস। এটি একটি রাজনৈতিক অনুষ্ঠান, যেখানে নব-নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস শপথ গ্রহণ করবেন।

বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তেসরা নভেম্বরের নির্বাচনের ফলাফল মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানানোর পর থেকেই মানুষের মনে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে – ট্রাম্প কি তাহলে নতুন প্রেসিডেন্টের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন? যদি তিনি রাজি না হন তাহলে কী হবে? ট্রাম্প কি সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন?

কিন্তু ৬ই জানুয়ারি বুধবার ক্যাপিটল হিলে আইন-প্রণেতাদের অধিবেশনের সময় সহিংস হামলার পর এসব প্রশ্ন ও সংশয় আরো জোরালো হয়েছে।

অনেকেই জানতে চাইছেন ২০ তারিখে কী হবে? সেদিন কি শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতার হস্তান্তর ঘটবে? ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা যদি অভিষেক অনুষ্ঠানে আবার ঝামেলা করার চেষ্টা করে? সেদিনের জন্য কী ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে ইত্যাদি ইত্যাদি।

প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠানে নিরাপত্তার জন্য এমনিতেই বিস্তারিত পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি আলাদা। ক্যাপিটল হিলে হামলার পর এর গুরুত্ব আরো বেড়েছে। তবে এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ব্যক্তিদের জন্য এবার বাড়তি নিরাপত্তার কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে সেগুলো এখনও পরিষ্কার নয়। কিন্তু মি বাইডেন যখন শপথ গ্রহণ করবেন তখনও ওয়াশিংটন ডিসিতে জরুরি অবস্থা বহাল থাকবে।

ক্যাপিটল হিলে সহিংসতার কারণে রাজধানীর মেয়র সেখানে এই জরুরি অবস্থা জারি করেছেন। পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য ৬ই জানুয়ারি যে ডিসি ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েন করা হয়েছে তারা ৩০ দিন কাজ করবে। এর অর্থ হলো প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠানে ক্যাপিটল পুলিশকে সাহায্য সহযোগিতা করবে এই ন্যাশনাল গার্ড।

বাইডেন সাংবাদিকদের বলেছেন, “আমার নিরাপত্তার বিষয়ে কিম্বা অভিষেক অনুষ্ঠান নিয়েও আমি উদ্বিগ্ন নই।”

তবে জো বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানের জন্য গঠিত কমিটির একজন সদস্য ও সেনেটর এমি ক্লবাচার, ক্যাপিটল হিলে হামলার সময় যিনি তখন ওই ভবনের ভেতরেই ছিলেন, বলেছেন তিনি আশা করছেন যে ওই অনুষ্ঠানে বড় ধরনের কিছু পরিবর্তন ঘটানো হবে।

নতুন প্রেসিডেন্টের শপথ নেওয়ার অনুষ্ঠানে বিদায়ী প্রেসিডেন্টের উপস্থিতি একটি সৌজন্যের বিষয়। এর আগে তিনজন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ছাড়া সবাই নতুন প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠানগুলোতে উপস্থিত ছিলেন।

এবারও প্রচলিত সৌজন্যের ব্যতিক্রম ঘটছে বলে মনে হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইতোমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন এই অনুষ্ঠানে তিনি থাকবেন না।

এর আগে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জানিয়েছেন যে নির্বাচনের ফলাফল মেনে না নিলেও তিনি জো বাইডেনের হাতে শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। এর কয়েক ঘণ্টা পরেই তিনি জানান যে নতুন প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠানে তিনি যোগদান করা থেকে বিরত থাকবেন।

তার কয়েকজন সমর্থক বিষয়টিকে আরো এক ধাপ নিয়ে গেছেন। তারা পরিকল্পনা করছেন জো বাইডেনের শপথ গ্রহণের সময়, পাশাপাশি ঠিক একই সময়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের জন্য ভার্চুয়াল অভিষেক অনুষ্ঠান আয়োজনের।

ফেসবুকে এরকম একটি অনুষ্ঠান আয়োজনের কথাও ঘোষণা করা হয়েছে এবং ইতোমধ্যে তাতে প্রায় ৭০ হাজার মানুষ জানিয়েছেন যে ট্রাম্পের সমর্থনে তারা অনলাইনের অভিষেক অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্প যখন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন সেসময় তার প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন তার স্বামী সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনকে নিয়ে তাতে উপস্থিত ছিলেন।

স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে এই অভিষেক অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে হাজার হাজার মানুষ ওয়াশিংটন ডিসিতে জড়ো হয়ে থাকে। সেদিন তারা উপস্থিত হয় ন্যাশনাল মলে। বারাক ওবামা ২০০৯ সালে প্রথম মেয়াদে যেবার প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন সেসময় প্রায় ২০ লাখ মানুষ সেখানে জড়ো হয়েছিলেন। তবে এবার এই উদযাপন হবে খুবই সীমিত পরিসরে। নতুন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের টিম থেকে রাজধানীতে না আসার জন্য ইতোমধ্যেই আহবান জানানো হয়েছে।

বাইডেন এবং কমলা হ্যারিস উভয়েই মলকে সামনে রেখে ক্যাপিটল হিলের সম্মুখে শপথ গ্রহণ করবেন। ১৯৮১ সালে প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রেগ্যানের আমল থেকেই এই রীতি চালু হয়েছে। এবার মহামারির কারণে শপথ অনুষ্ঠান দেখার জায়গাগুলোতে স্থাপন করা স্ট্যান্ড সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

অতীতে এই অনুষ্ঠানের জন্য দুই লাখের মতো টিকেট দেওয়া হতো। কিন্তু এবার, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যখন বেড়েই চলেছে, এক হাজার টিকেট দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

এছাড়াও পেনসিলভেনিয়া এভিনিউ থেকে হোয়াইট হাউসের অভিমুখে যে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়, বলা হচ্ছে, এবার সেটা হবে সারা দেশে এবং অনলাইনে।

শপথ গ্রহণের পর সামরিক বাহিনীর সদস্যরা নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে তার স্ত্রীসহ এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট কমালা হ্যারিসকে তার স্বামীসহ হোয়াইট হাউসে নিয়ে যাবেন। এসময় তাদের সঙ্গে থাকবে বাদ্যযন্ত্রীদের একটি দল।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
January 2021
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া