বাসে আগুন: পুলিশের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক : সম্প্রতি রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় বাস পোড়ানোর ঘটনায় বিএনপির শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে কয়েক শ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। যদিও শুরু থেকে এর সঙ্গে নিজেদের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করে আসছেন বিএনপি নেতারা।

এরইমধ্যে পল্টনে বাস পোড়ানোর ঘটনায় সরাসরি জড়িত থাকার অভিযোগ এনে শনিবার ছাত্রদল ও যুবদলের তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য ও গণমাধ্যমকর্মীদের ধারণ করা ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করে তাদের শনাক্ত করা হয়েছে। বাস পোড়ানোতে বিএনপি নেতাকর্মীরা জড়িত বলে পুলিশের ভাষ্য। এমন অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বিএনপি বলছে, পুলিশের এই বক্তব্য সাজানো। বিএনপি জ্বালাও পোড়াওয়ের সঙ্গে জড়িত নয়।

শনিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপির মুখপাত্র এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সংবাদ সম্মেলনে গত ১২ নভেম্বর ঢাকায় গণপরিবহনে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় বিএনপিকে জড়িয়ে যে বক্তব্য দেওয়া হয়েছে। বিএনপি এই বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার পর থেকেই বিএনপি বলে আসছে, এই ঘটনার সঙ্গে বিএনপির কোনো সম্পৃক্ততা নেই। বিএনপি জ্বালাও পোড়াওসহ অগ্নিসংযোগের মতো ধ্বংসাত্মক রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। অতীতের মতোই এর দায় বিএনপির ওপর জবরদস্তিমূলকভাবে চাপিয়ে দিতে চায় সরকার।’

প্রিন্স বলেন, ‘জনমনে বিভ্রান্তি ও বিএনপিকে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে এ ধরনের অপতৎপরতায় লিপ্ত রয়েছে সরকার। সরকারের এই ধরনের অপকৌশলে বিএনপি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। এটি সরকারের সাজানো নাটকের পুনরাবৃত্তি মাত্র।’

তিনি আরও বলেন, ‘রাজনীতি ও গণতন্ত্রের বৃহত্তর স্বার্থে সরকারকে আবারও এ ধরনের অপতৎপরতা বন্ধ করার এবং সরকারের অপপ্রচার ও মিথ্যাচারে বিভ্রান্ত না হতে জনগণের প্রতি বিএনপি আহ্বান জানাচ্ছে।’

শান্তিকালীন পদক পেল নৌবাহিনীর ৪০ সদস্য

ডেস্ক রিপাের্ট : ‘সশস্ত্র বাহিনী দিবস-২০২০’ উপলক্ষে শান্তিকালীন সময়ে বীরত্ব ও সাহসিকতাপূর্ণ কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৯ সালের জন্য বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ৪০ কর্মকর্তা ও নাবিককে শান্তিকালীন পদকে ভূষিত করা হয়েছে।

আজ শনিবার (২১-১১-২০২০) নৌসদরস্থ জুপিটার হলে শান্তিকালীন এ পদক প্রদান করা হয়।

পদকপ্রাপ্তদের মধ্যে তিন জন নৌবাহিনী পদক (এনবিপি), পাঁচ জন অসামান্য সেবা পদক (ওএসপি), পাঁচ জন বিশিষ্ট সেবা পদক (বিএসপি), সাত জন নৌ গৌরব পদক (এনজিপি), ১০ জন নৌ উৎকর্ষ পদক (এনইউপি) এবং ১০ জন নৌ পারদর্শিতা পদক (এনপিপি) অর্জন করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল শাহীন ইকবাল তিনজন কর্মকর্তাকে নৌবাহিনী পদক (এনবিপি) পরিয়ে দেন। এরা হলেন- ভাইস এডমিরাল এম আখতার হাবীব (অবঃ), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমআরএমইউ)এর ভিসি রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ খালেদ ইকবাল এবং সহকারী নৌপ্রধান (অপারেশনস) রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ আবু আশরাফ।

এছাড়া নৌপ্রধান চার জনকে অসামান্য সেবা পদক, দুই জনকে বিশিষ্ট সেবা পদক, চার জনকে নৌ গৌরব পদক, দুই জনকে নৌ উৎকর্ষ পদক এবং একজনকে নৌ পারদর্শীতা পদক পরিয়ে দেন।

এসময় নৌসদরের অন্যান্য পিএসও ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। পদকপ্রাপ্ত অন্যান্য কর্মকর্তা ও নাবিকদের ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনা নৌঅঞ্চলের স্ব স্ব নৌ প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ কর্তৃক পদক প্রদান করা হয়।

সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তিন বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে ‘সশস্ত্র বাহিনী দিবস-২০২০’উপলক্ষে তিনবাহিনী প্রধানগণ সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব (ডিপিএস) হাসান জাহিদ তুষার আজ বিকেলে এই সাক্ষাতের বিষয়ে গণমাধ্যমকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী এ উপলক্ষে সশস্ত্র বাহিনীর সকল সদস্য এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু করার পর থেকে সশস্ত্র বাহিনী বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় অনেক প্রশংসনীয় অবদান রেখেছে এবং চলমান কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব মোকাবেলার জন্যও কাজ করছে।

করোনা মোকাবেলাসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর গৌরবময় ভূমিকা রয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী করোনাকালীন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিটি সদস্যকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়েরও দায়িত্বে নিয়োজিত প্রধানমন্ত্রী সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশ করোনা বিপর্যয়ের মুখোমুখি হওয়ার পর বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী, বিশেষ করে সেনা, বিমান ও নৌবাহিনীর সদস্যরা যেভাবে বিভিন্ন জরুরি রোগী অথবা বিদেশ ফেরত লোকদের স্থানান্তর করার ক্ষেত্রে সেবা প্রদান এবং মানবিক কাজ করেছে সেজন্য তাদেরকে ধন্যবাদ দেন।

তিন বাহিনীর উন্নয়নে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একুশ শতকের ভূ-রাজনৈতিক ও সামরিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সক্ষম বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে গত ১২ বছরে সরকার সব ধরণের পদক্ষেপ নিয়েছে এবং ভবিষ্যতেও প্রয়োজনীয় সকল সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার প্রতিরক্ষা নীতি অনুসরণ করে ‘ফোর্সেস গোল ২০৩০’এর আলোকে তিন বাহিনীর পুনর্গঠন ও আধুনিকায়নে কার্যক্রমসমূহ বাস্তবায়ন করছে সরকার।

গত প্রায় ১২ বছরে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে সরকারের ভূমিকার জন্য তিন বাহিনীর প্রধানগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এ সময় ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল এবং বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবত সাক্ষাতকালে নিজ নিজ বাহিনীর বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পর্কেও প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন।

এসময় তিন বাহিনীর প্রধান ছাড়া অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব:) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের পিএসও লে: জেনারেল মো. মাহফুজুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল নকীব আহমেদ চৌধুরী। (সূত্রঃ বাসস)

যেকোনো আগ্রাসী আক্রমণ থেকে সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সদাপ্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রতিবেশী সব দেশের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে তার সরকার বিশ্বাসী। তবে, যেকোনো আগ্রাসী আক্রমণ থেকে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য সদা-প্রস্তুত ও দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। এ জন্য সশ্রস্ত্র বাহিনীর প্রতিটি শাখাকে আধুনিক সমরাস্ত্র এবং উপকরণে সমৃদ্ধ এবং উন্নত প্রশিক্ষণ ও বিশেষায়িত সামরিক সজ্জায় সজ্জিত করা হচ্ছে।

সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে আজ শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় জাতির উদ্দেশে দেওয়া এক ভাষণে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রতি বছর ২১ নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপিত হয়। এদিন সাধারণত সেনাকুঞ্জের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে থাকেন প্রধানমন্ত্রী। করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে স্বাস্থ্যঝুঁকি বিবেচনায় এবার সেনাকুঞ্জে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়নি। তবে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাহিনীগুলো নিজেদের মতো করে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনীর সদস্যসহ দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে আজকের এই দিনটি এক বিশেষ গৌরবময় স্থান দখল করে আছে। ১৯৭১ সালের এই দিনে সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর অকুতোভয় সদস্যরা যৌথভাবে দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে সমন্বিত আক্রমণের সূচনা করেন। সম্মিলিত আক্রমণের মুখে শত্রুবাহিনী আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়। ১৬ ডিসেম্বর অর্জিত হয় চূড়ান্ত বিজয়। মুক্তিযুদ্ধে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের মহান আত্মত্যাগ ও বীরত্বগাথা জাতি চিরদিন গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে।’

এই মহৎ দিনে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে বাঙালি জাতি প্রাণপণ যুদ্ধ করে স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছিল। শ্রদ্ধাভরে স¥রণ করছি জাতীয় চার নেতাকে। স¥রণ করছি মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ এবং ২-লাখ নির্যাতিত মা বোনকে। মুক্তিযোদ্ধাদের আমার সালাম।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে যে সশস্ত্র বাহিনীর জন্ম হয়েছিল, তা আজ মহীরূহ হয়ে বিশাল প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। স্বাধীনতার পরপরই জাতির পিতা একটি উন্নত ও পেশাদার সশস্ত্র বাহিনীর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেছিলেন। সে লক্ষ্যে তিনি ১৯৭৪ সালে প্রণয়ন করেছিলেন প্রতিরক্ষা নীতি। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে সীমিত সম্পদ নিয়ে বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালেই গড়ে তোলেন বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি, কম্বাইন্ড আর্মস স্কুল এবং সেনাবাহিনীর প্রতিটি কোরের জন্য স্বতন্ত্র ট্রেনিং সেন্টার।’

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী লগ্নে জাতির পিতা প্রণীত জাতীয় প্রতিরক্ষা নীতির শক্ত ভিতের ওপর দেশ আজ দাঁড়িয়ে আছে বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর পেশাদারিত্ব ও কর্মদক্ষতা দেশের গণ্ডি পেরিয়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা প্রর্বতিত “সকলের সাথে বন্ধুত্ব¡, কারও সাথে বৈরিতা নয়”- এই মূলমন্ত্র দ্বারা আমাদের বৈদেশিক নীতিমালা পরিচালিত। প্রতিবেশী সকল রাষ্ট্রের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে আমরা বিশ্বাসী। তবে, যেকোনো আগ্রাসী আক্রমণ থেকে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য আমরা সদা-প্রস্তুত ও দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ।’

সেই লক্ষ্য সামনে রেখে বঙ্গবন্ধুর প্রতিরক্ষানীতি ১৯৭৪-এর আলোকে বর্তমান সরকার ফোর্সেস গোল-২০৩০ প্রণয়ন করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারই ধারাবাহিকতায় সশস্ত্র বাহিনীকে সাংগঠনিকভাবে পুনর্গঠন, উন্নত প্রশিক্ষণ প্রদান এবং বিশেষায়িত সামরিক সজ্জায় সজ্জিত করা হচ্ছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিগত এক দশকে আমরা সশ্রস্ত্র বাহিনীর প্রতিটি শাখাকে আধুনিক সমরাস্ত্র এবং উপকরণ দ্বারা সমৃদ্ধ করেছি। আমি দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে চাই আমাদের সরকারের আমলে সশস্ত্র বাহিনী যে পরিমাণ আধুনিকায়ন হয়েছে অতীতে কোন সময়েই তা হয়নি।’

আওয়ামী লীগ সরকারের সময় ২টি পদাতিক ব্রিগেড, রামুতে ১০ পদাতিক ডিভিশন, সিলেটে ১৭ পদাতিক ডিভিশন, পদ্মা সেতু প্রকল্পের নিরাপত্তা ও তদারকির জন্য ১টি কম্পোজিট ব্রিগেড, স্পেশাল ওয়ার্কস অর্গানাইজেশন ছাড়াও ১০টি ব্যাটালিয়ন, এনডিসি, বিপসট, এএফএমসি, এমআইএসটি, এনসিও’স একাডেমি ও বাংলাদেশ ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্টাল সেন্টারের মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করতে দেশের সামরিক হাসপাতালগুলোতে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অংশ হিসেবে এবং আধুনিক যুদ্ধক্ষেত্রে নিজেদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে সেনাবাহিনীতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে আর্মি ইনফরমেশন টেকনোলজি সাপোর্ট অর্গানাইজেশন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আইএফএফ প্রস্তুতকরণ প্রকল্প, মাইন-টর্পেডো ডেভেলপমেন্ট, গান ডেভেলপমেন্টসহ বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ক্রমাগত প্রচেষ্টা ও নিজস্ব বিশেষজ্ঞ দ্বারা উন্নত প্রযুক্তির সফট্ওয়্যার তৈরি করে সাইবার নিরাপত্তা ও নেটওয়ার্ক-কেন্দ্রিক ওয়ারফেয়ারের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের পেশাগত ও জীবনমান উন্নয়নে তার সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ ও তার বাস্তবায়নের চিত্র তুলে ধরেন।

আর্থ-সামজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ আজ বিশে^ একটি সুপরিচিত নাম। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যে অনেক উন্নত এবং উদীয়মান অর্থনীতির দেশ যখন ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধির মুখে পড়েছে, তখনো আমাদের প্রবৃদ্ধি ৫.২৪ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। আমাদের প্রবাসী আয়, কৃষি উৎপাদন এবং রপ্তানি বাণিজ্য ঘুরে দাঁড়িয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এমতাবস্থায়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমাদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড এগিয়ে নিতে হবে। ইনশাআল্লাহ, আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্য-নিরক্ষরতামুক্ত অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করবই।’

সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সততা, নিষ্ঠা, দেশপ্রেম এবং পেশাগত দক্ষতায় বলীয়ান হয়ে দেশের প্রতিরক্ষা এবং দেশ গড়ার কাজে আরও বেশি অবদান রাখবেন- পরম করুণাময় আল্লাহ্তায়ালার কাছে এই প্রার্থনা করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি সশস্ত্র বাহিনীর সব সদস্য ও তাদের পরিবারবর্গের সুখ, শান্তি ও কল্যাণ কামনা করেন।

করোনা মোকাবিলায় সশস্ত্র বাহিনী

এর আগে প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে করোনাকালে সম্মুখসারির যোদ্ধা হিসেবে সেনাসদস্যদের নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি অঞ্চলে ‘লক-ডাউন কার্যক্রম’ বাস্তবায়ন, সাধারণ জনগণের মধ্যে মহামারি প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টি এবং বিদেশ থেকে আগত ব্যক্তিবর্গের জন্য কোয়ারেন্টাইন সেন্টার স্থাপন ও পরিচালনা করে যাচ্ছেন সেনাসদস্যরা। সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল, ঢাকার সমন্বিত করোনাভাইরাস চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে। করোনাকালে দুঃস্থ ও অসহায় মানুষের সাহায্যার্থে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নানাবিধ কার্যক্রম অত্যন্ত প্রশংসা কুড়িয়েছে।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলার বাংলাদেশ নৌবাহিনী সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা এবং দুঃস্থ ও অসহায় পরিবারদের মানবিক সহায়তা প্রদানে কাজ করে যাচ্ছে। মালদ্বীপের করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাংলাদেশ সরকারের প্রদত্ত চিকিৎসা সামগ্রী নৌবাহিনীর জাহাজ যোগে সেখানে পাঠানো হয়। এছাড়াও জাতিসংঘে নিয়োজিত বাংলাদেশ নৌবাহিনী জাহাজ ‘বিজয়’ লেবাননের বৈরুতে বসবাসরত বাংলাদেশি পরিবারগুলোর মধ্যে খাদ্য ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করে।

বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত জনপ্রতিনিধি, চিকিৎসক, শিক্ষক, বিশিষ্টজনসহ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করেছে। করোনা পরিস্থিতিতে আটকে পড়া দেশি-বিদেশি নাগরিকদের স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের জন্য বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ১৭টি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে। এছাড়াও বাংলাদেশ বিমানবাহিনী মালদ্বীপে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের করোনা চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর একটি মেডিকেল টিম মালদ্বীপে প্রেরণ এবং লেবাননে সংঘটিত ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর সেখানে মানবিক কার্যক্রম পরিচালনা করে।

সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা অতীতে যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগে উদ্ধার ও ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনায় দক্ষতা দেখিয়েছেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের অবকাঠামো উন্নয়নেও সশ্রস্ত্র বাহিনী গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে।

করোনাভাইরাস মোকাবিলা করতে গিয়ে সশস্ত্র বাহিনীর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন এবং বেশ কয়েকজন মৃত্যুবরণ করছেন। তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে অসুস্থদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন তিনি।

যেসব পাসওয়ার্ড হ্যাক করা সহজ

ডেস্ক রিপোর্ট : ‘পাসওয়ার্ড’ নিয়ে আমরা অনেকেই বিশেষ মাথা ঘামাই না। যে পাসওয়ার্ড সহজে মনে রাখা যায়, সেটিকেই আমরা সাধারণত বেছে নিয়ে থাকি। আর এতেই অনেকক্ষেত্রে লুকিয়ে থাকে বিপদ। আমরা এমনকিছু পাসওয়ার্ড দিয়ে বসি, যা সহজেই হ্যাকাররা ব্রেক করে ফেলে।

পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ‘নর্ডপাস’-এর প্রতিবেদনে সম্প্রতি এবছর ব্যবহৃত এমনই ২০০টি পাসওয়ার্ডের কথা প্রকাশ্যে আনা হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে সর্বপ্রথম ‘123456’, এটি ২৩ মিলিয়ন বার ব্যবহৃত হয়েছে। ব্যবহারের দিক থেকে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ‘123456789’ পাসওয়ার্ডটি। তৃতীয় স্থানে রয়েছে ‘picture1’।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালেও ‘123456’ পাসওয়ার্ডটি শীর্ষস্থানে ছিল। এর থেকেই বোঝা যাচ্ছে, গত ৫ বছরে বিশেষ কিছু পরিবর্তন হয়নি। চলুন দেখে নেওয়া যায় এবছর (2020) সবথেকে ব্যবহৃত ২০টি পাসওয়ার্ড। ‘123456′, ‘123456789′, ‘picture1′, ‘password’, ‘12345678′, ‘111111′, ‘123123′, ‘12345′, ‘1234567890′, ‘senha’, ‘1234567′, ‘qwerty’, ‘abc123′, ‘Million2′, ‘000000′, ‘1234′, ‘iloveyou’, ‘aaron431′, ‘password1′, এবং ‘qqww1122’।

এছাড়াও প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ‘aaron431′ পাসওয়ার্ডটি ৯০ হাজার বার, chocolate পাসওয়ার্ডটি ২১ ৪০৯বার, pokemon পাসওয়ার্ডটি ৩৭হাজার বার ব্যবহৃত হয়েছে।

চলচ্চিত্রের ভিলেন মোশাররফ করিম

বিনোদন প্রতিবেদক : নাট্য জগতের তুমুল জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিম তার দীর্ঘ ক্যারিয়ারে বহু বৈচিত্র্যময় চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদের মনে স্থায়ী আসন গেড়ে বসেছেন। ছোট পর্দার পাশাপাশি তিনি কাজ করেছেন কয়েকটি চলচ্চিত্রেও। বড় পর্দায়ও তাকে ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে দেখা গেছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবার একটি চলচ্চিত্রে ভিলেন রূপে হাজির হচ্ছেন লাখো ভক্তের প্রিয় তারকা মোশাররফ করিম।

এই অভিনেতা নতুন যে চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন সেটির নাম হচ্ছে ‘গাঙকুমারী’। সাধনা আহমেদের রচনায় ছবিটি পরিচালনা করছেন ফজলুল কবীর তুহিন। ছবিটি ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে সরকারি অনুদান পেয়েছে। সেখানে মোশাররফ করিমের সঙ্গে তার স্ত্রী অভিনেত্রী রোবেনা রেজা জুঁইও আছেন। ক্যারিয়ারে প্রথমবার সরকারি অনুদানের ছবিতে অভিনয় করছেন এই তারকা দম্পতি। সেখানে আরও আছেন তারিক আনাম খান।

ইতোমধ্যে সুনামগঞ্জের হাসাউড়া এলাকায় ছবির প্রথম ভাগের দৃশ্যধারণ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন এটির পরিচালক ফজলুল কবীর তুহিন। তিনি বলেন, আগামী ১৫ ডিসেম্বর থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত হবে দ্বিতীয় লটের শুটিং।

পরিচালক আরও জানান, ভাটি অঞ্চলের জেলেজীবন নিয়ে নির্মিত হচ্ছে ‘গাঙকুমারী’। এতে নেতিবাচক দুটি চরিত্রে দেখা যাবে তারিক আনাম খান ও মোশাররফ করিমকে। জুঁইও রয়েছেন গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রে। তবে ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রটি করছেন একজন নবাগতা। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্বিবিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থী তুরা। এ ছবির মাধ্যমেই তার বড় পর্দায় অভিষেক হচ্ছে।

ছবিটি নিয়ে মোশাররফ করিম বলেন, ‘বেশ কিছুদিন আগেই চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। শুটিং শুরু হয়েছে সম্প্রতি। বাংলাদেশের ভাটি অঞ্চলের গল্প। যেখানে ভাটি অঞ্চলের নদী, পানি, গাছ, পাখি ও আকাশের সঙ্গে মানুষের নানা সম্পর্কের গল্প বলবে। ছবিটিতে অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকদের প্রত্যাশা কতটা পূরণ করতে পারব জানি না। তবে আমরা ভালো কিছুর দেয়ার চেষ্টা করব।’

মোশাররফ করিমকে সর্বপ্রথম বড় পর্দায় দেখা যায় তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘জয়যাত্রা’ ছবিতে। এরপর তিনি একে একে ‘রূপকথার গল্প’, ‘দারুচিনি দ্বীপ’, ‘থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার’, ‘প্রজাপতি’, ‘টেলিভিশন’, ‘জালালের গল্প’, ‘অজ্ঞাতনামা’, ‘হালদা’ ও ‘দি ডিরেক্টর’ ছবিগুলোতে অভিনয় করেন। প্রতিটি ছবিতেই এই অভিনেতা তার প্রতিভার ছাপ রেখেছেন।

টলিউড সুপারস্টার জিৎকে লেখা অমিতাভের পুরনো চিঠি ভাইরাল

বিনোদন ডেস্ক : টলিউড সুপারস্টার জিতের কাছে বলিউড মেগাস্টার অমিতাভ বচ্চনের চিঠি৷ সবার সামনে তা প্রকাশ করলেন জিৎ! অমিতাভের ভক্ত জিৎ ‘বোল বচ্চন’ নামের ছবিতে অভিনয় করেছেন৷ এ ছবিতে কাজ করার কারণই ছিল অমিতাভের ভক্ত হিসেবে গুরুর প্রতি তার শ্রদ্ধা জানানো৷ অমিতাভ নিজেও জানেন সে কথা৷

জিতের ৫০তম ছবি ‘শেষ থেকে শুরু’র জন্য বিগ বি শুভেচ্ছাও পাঠিয়েছিলেন। তাই বলা যায়, জিতের সঙ্গে অমিতাভের সম্পর্ক যেন ঠিক গুরু-শিষ্যের মতো৷ জিতের বেশ কিছু ছবিও তিনি দেখেছেন বলে জানিয়েছেন স্বয়ং অমিতাভ৷ তবে তাদের এই সম্পর্ক বহু বছর আগের৷ যখন জিৎকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন অমিতাভ বচ্চন! সেই পুরনো চিঠি নিজের ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন জিৎ৷ মুহূর্তেই তা ভাইরাল।

বছরটা ১৯৯৬৷ তখন অভিনেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চলছে জিতের লড়াই৷ কলকাতা থেকে মুম্বাই অভিনয়ের টানে ছুটে বেড়াচ্ছেন তিনি৷ সেই সময় তার কাছে চিঠি আসে এবিসিএলের পক্ষ থেকে৷ সেই সময় অমিতাভ বচ্চন করপোরেশন লিমিটেড একটি প্রতিযোগিতা শুরু করেছিল৷ নাম ছিল স্টারট্র্যাক৷ নতুন অভিনেতাদের কাজের সুযোগ করে দেয়াই ছিল এই প্রতিযোগিতার মূল উদ্দ্যেশ্য৷ সেখানে অংশগ্রহণ করেন জিৎ৷ নিজের নাম নথিভুক্ত করেন। ডাকও পেয়ে যান৷

প্রতিযোগিতার প্রথম দফা পরীক্ষার জন্য তার কাছে আসে চিঠি৷ যাতে জানানো হয় যে, ইন্টারভিউ এবং অডিশন হবে তার৷ নিজের প্রতিভা মেলে ধরতে তার সামনে থাকবে কিছুটা সময়৷ তাতেই বুঝিয়ে দিতে হবে নিজের গুরুত্ব৷ সেখানে নির্বাচিত হলে তিনি স্টারট্র্যাক স্কুলে যেতে পারবেন৷ সেখানে থেকে টিভি, ম্যাগাজিন, সংবাদপত্রে কাজের সুযোগ পাবেন৷ সেই ইন্টারভিউয়ের তারিখ ছিল ৮ জানুয়ারি, ১৯৯৬৷ ইন্টারভিউয়ের স্থান ছিল কলকাতার তাজ বেঙ্গল হোটেল৷

পুরনো সেই চিঠির দেখা মিলল জিতের ইনস্টাগ্রামের পেজে৷ ‘যাকে ভরসা করবে, তিনিই ভরসা জোগাবেন৷’ চিঠির ছবি পোস্ট করে ক্যাপশনে এমনটাই লিখলেন জিৎ৷

এই চিঠি পাওয়ার পর কেটে গেছে অনেকগুলো বছর৷ জিতের জীবনে তারপর এসেছে বিশাল পরিবর্তন৷ তিনি এখন সুপারস্টার৷ তার কাজের প্রসংশা করেন বিগ-বিও৷ কোনও কিছুর প্রতি বিশ্বাস রাখলে সেই বিশ্বাস ফিরে আসে, এটাই যেন বোঝাতে চেয়েছেন জিৎ৷

সংগীতশিল্পী বেবী নাজনীন যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত, হাসপাতালে ভর্তি

বিনোদন প্রতিবেদক : বাংলাদেশের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত সংগীতশিল্পী বেবী নাজনীন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রচন্ড জ্বর নিয়ে বর্তমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সির সিটি মেডিকেল সেন্টারের নেফ্রোলজি বিভাগে ভর্তি আছেন। এই খবর নিশ্চিত করেছেন নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজক আলমগীর খান আলম।

তিনি জানান, শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টায় বেবী নাজনীনের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। ওই সময় বেবী নাজনীনের সঙ্গে তার ফোনে কথা হয়। তখনই জানতে পারেন এই খবর। বর্তমানে ‘কালো কোকিল’ খ্যাত এই নায়িকার শারীরিক অবস্থা আগের থেকে ভালো আছে বলেও জানান আলমগীর।

গত ১৮ নভেম্বর শরীরে ১০৫ ডিগ্রি জ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বেবী নাজনীন। এরপর সেখানে তার করোনা টেস্ট হয় এবং ফলাফল পজিটিভ আসে। যদিও এর আগে শিল্পীর ভাই এনাম সরকার জানান, বেবী নাজনীন করোনায় আক্রান্ত নন। এনাম সরকার বাংলাদেশে থাকেন। তিনি বোনের সুস্থতার জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

এদিকে, হাসপাতালে বেবী নাজনীনের সঙ্গে রয়েছেন তার ছেলে মহারাজ অমিতাভ ও মেয়ে রিনি সাবরিন। তারা জানান, করোনার পাশাপাশি তাদের মায়ের কিডনিতে কিছু জটিলতা আছে। তারা এও জানান, কয়েকদিন আগে বেবী নাজনীন অনলাইনে একটি রাজনৈতিক সভায় যোগ দেন। সে সময় ব্যস্ততার কারণে সময়মতো খাওয়ার সুযোগ পাননি। ওই নিয়মের কারণেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন পড়ে জানান গায়িকার দুই সন্তান।

বেবী নাজনীনের ছেলে মহারাজ অমিতাভ যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছেন। তাই ছেলের সঙ্গে সেখানেই তাকে থাকতে হয়। এছাড়া বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার জন্য প্রায়ই তাকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যেতে হয়। ভাই এনাম সরকার জানান, মার্চে বেবীর দেশে আসার কথা ছিল। কিন্তু বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারির সংক্রমণের কারণে আসতে পারেননি।

দেশে স্বাধীনতার মূল চেতনা গণতন্ত্র অনুপস্থিত: মির্জা ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের স্বাধীনতা এখন বিপন্ন মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন দেশে স্বাধীনতার মূল চেতনা গণতন্ত্র অনুপস্থিত।

শনিবার দুপুরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূর্বণ জয়ন্তী উপলক্ষে বিএনপির উদযাপন কেন্দ্রীয় কমিটির প্রথম সভায় এমন মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব। এসময় তিনি বলেন সরকার সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার নির্যাতন চালাচ্ছে। এমন এক কঠিন পরিস্থিতিতে সূর্বণ জয়ন্তীকে সফল করতে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের আহবান জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম।

এছাড়া নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানাতে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়ার কথা জানান বিএনপির সিনিয়র নেতারা।

প্রতিশোধের রাজনীতি গণতন্ত্রের জন্য সুখকর নয় : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রতিশোধের রাজনীতি গণতন্ত্রের জন্য সুখকর নয়, আওয়ামী লীগ কখনও প্রতিশোধের রাজনীতি করে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, গণতন্ত্র একটি বিকাশমান প্রক্রিয়া, সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ এবং পরিচর্যায় গণতন্ত্র বিকশিত হয়।

শনিবার (২১ নভেম্বর) সকালে মিরপুর-নারায়ণগঞ্জ রুটে বিআরটিসির দ্বিতল বাস সার্ভিস উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপি একদিকে গণতন্ত্রের কথা বলে অপরদিকে নির্বাচন প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপপ্রয়াস চালায়।

কাদের বলেন, ‘কিন্তু দুঃখজনকভাবে বিএনপি গণতন্ত্রের কথা বললেও গণতন্ত্রকে এগিয়ে নিতে যে ভূমিকা দরকার তা থেকে তারা অনেক দূরে অবস্থান করছে।’

আওয়ামী লীগ দেশের সবচেয়ে সহিষ্ণু রাজনৈতিক দল উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ ৭৫’ এর ১৫ আগস্টের নির্মমতা দেখেছে, ৩ নভেম্বরের অমানবিকতা দেখেছে, গ্রেনেড হামলাসহ ২০ বারের মতো শেখ হাসিনাকে হত্যার অপপ্রয়াস চালাতেও দেখেছে।

‘এ দেশের রাজনীতিতে সন্ত্রাসনির্ভরতা, ষড়যন্ত্র আর হত্যার জনক বিএনপি, তারা সেটাই চর্চা করে চলেছে।’

আওয়ামী লীগ জনগণের সংগঠন বলেই জনগণের সঙ্গে ছিল এবং আছে বলেও জানান তিনি।

সমালোচনা রুখতে বিরোধীদের সরকার গুম করছে- বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, এটা তাদের চিরাচরিত মিথ্যাচার।

তিনি বলেন, সমালোচনা করলে গুম করা হয় এমন কোনো তথ্য কি বিএনপির কাছে আছে? এ ধরনের তথ্য পরিহার করার জন্য বিএনপিকে অনুরোধ করেন ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগ সমালোচনাকে ভয় পায় না জানিয়ে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ গঠনমূলক সমালোচনা থেকে শিক্ষা নেয়ার সৎসাহস রাখে। অনুষ্ঠানে কোয়ারেন্টিনে থাকা বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সুস্বাস্থ্য ও রোগমুক্তি কামনাও করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

অদক্ষ গাড়িচালক যেন কোনোভাবেই চালকের আসনে না বসতে পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন, বাসের চালকসহ সব স্টাফদের বাধ্যতামূলক নির্ধারিত পোশাক পরতে হবে।