ইসলামী ব্যাংকের ১৩টি নতুন উপশাখার উদ্বোধন

ডেস্ক রিপাের্ট : ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর ১৩টি নতুন উপশাখা ঢাকার ধামরাই বাজার, চিড়িয়াখানা রোড, ফায়দাবাদ, উর্দু রোড, রায়েরবাগ ও মেরাদিয়া, চট্টগ্রামের বালুচড়া, গাজীপুরের মীরের বাজার ও সফিপুর বাজার, বরিশালের নথুল্লাবাদ ও বাংলাবাজার, খুলনার ময়লাপোতা মোড় এবং শরিয়তপুরের জাজিরায় ১৬ নভেম্বর ২০২০, সোমবার ভার্চুয়্যাল প্লাটফর্মে উদ্বোধন করা হয়েছে।

ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও সিইও মোঃ মাহবুব উল আলম প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ব্যাংকের অ্যাডিশনাল ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা, মুহাম্মদ কায়সার আলী ও মোঃ ওমর ফারুক খান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মোঃ মোশাররফ হোসাইন। স্বাগত বক্তব্য দেন সিনিয়র এক্সিকউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ মাহবুব আলম।

প্রধান কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন নির্বাহী ও সংশ্লিষ্ট উপশাখাপ্রাঙ্গনে আয়োজিত পৃথক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ব্যাংকের জোনপ্রধান, শাখাপ্রধান, নির্বাহী-কর্মকর্তা, গ্রাহক, শুভানুধ্যায়ী এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ভার্চুয়্যাল প্লাটফর্মে প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

প্রধান অতিথির ভাষণে মোঃ মাহবুব উল আলম বলেন, ইসলামী ব্যাংক গণমানুষের ব্যাংক। এই ব্যাংকের কর্মকর্তা কর্মচারীদের পেশাদারিত্ব ও দায়িত্ববোধের প্রতি মানুষের আস্থা ও ভালোবাসার ফলেই ব্যাংকটি ব্যবসায়ের সকল সূচকে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। সততার নীতি, আন্তরিকতা, নিষ্ঠা এবং প্রযুক্তিসমৃদ্ধ সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে কর্মকর্তাদের দক্ষতার ফলেই ইসলামী ব্যাংক দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্ব দরবারে স্বীকৃতি অর্জন করে চলেছে। এক তৃতীয়াংশের বেশি রেমিট্যান্স আহরণের মাধ্যমে ইসলামী ব্যাংক দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে।

তিনি আরও বলেন, ইসলামী ব্যাংক বর্তমানে ৩৬৬টি শাখা, ১৪৪টি উপশাখা, ১৭৭৩টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট ১১৭৫টি নিজস্ব ও প্রায় ১১ হাজার শেয়ারড এটিএম ও সিআরএম বুথের মাধ্যমে গ্রাহকদের সেবা প্রদান করছে। ফাইন্যান্সিয়াল টেকনোলজির ব্যবহার ও ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবায় ইসলমী ব্যাংকের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সাধিত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি এ ধারা অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। নতুন এই উপশাখাগুলোর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে অন্তর্ভুক্তিমূলক আধুনিক ব্যাংকিং সেবা প্রদানের মাধ্যমে জনগণের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করতে কর্মকর্তাদের প্রতি নির্দেশনা দেন তিনি।

জয় পরাজয় আরো খবর