দুই আইনজীবীর আদালত অবমাননার রুল শুনলেন না হাইকোর্ট

ডেস্ক রিপাের্ট : সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন ও অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসানের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল না শুনে প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়েছেন হাইকোর্ট।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) বিচারপতি গোবিন্দ্র চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মাদ উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

দুই আইনজীবী আজ আদালতে ভার্চুয়ালি হাজির হন। এ সময়ে আদালত অবমাননার বিষয়ে ব্যাখ্যা দেওয়ার জন্য তাদের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল সময় চান। তখন আদালত বিষয়টি না শুনে প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দেন।

এর আগে গত ৮ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন ও অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসানের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

আদালত অবমাননার বিষয়ে লিখিত আদেশে বলা হয়েছে, ইশরাত হাসান যে কবিতা (সুকুমার রায়ের ‘বিচার’ কবিতা) পোস্ট করেছেন, আর যে ফেসবুকে স্ট্যাটাস (থ্রি ইডিয়ট মুভি নিয়ে) দিয়েছেন তা আদালতের জন্য অবমাননাকর। সুকুমার রায়ের কবিতা পোস্ট করে বিচার বিভাগকে চরমভাবে অবমাননা করা হয়েছে। সুকুমার রায়ের কবিতা পোস্ট করা অপরাধ না হলেও এ মামলার প্রসিডিং চলা অবস্থায় ওই কবিতা পোস্ট করে তিনি বিচারককে সরাসরি ব্যক্তিগতভাবে আঘাত এবং কলঙ্কিত করেছেন। এতে আদালত অবমাননা হয়েছে।

এছাড়া ব্যারিস্টার সুমন এ বিষয়টিকে সমর্থন করেছেন এবং আদালতের আদেশ সত্ত্বেও নিজের আগের সব পোস্ট সরিয়ে নেননি। তাই তাদের ওপর আদালত অবমাননার রুল ইস্যু করা হলো।

আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ হওয়ার পরও একজন বিচারপতির ছেলে ব্যারিস্টার জুম্মন সিদ্দিকীকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে গেজেট প্রকাশের বৈধতা চ্যালেঞ্জের রিটের রুল শুনানিতে আদালত অবমাননার রুল জারি করেন আদালত।

গত বছরেরে ১৮ ডিসেম্বর ওই বিচারপতির ছেলেকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে জারি করা গেজেটের কার্যক্রম স্থগিত করেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে গেজেট প্রকাশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত। বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

জয় পরাজয় আরো খবর