ফেসবুক লাইভে দা উঁচিয়ে সাকিবকে হত্যার হুমকি

স্পাের্টস ডেস্ক : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লাইভ ভিডিওতে দা উঁচিয়ে শীর্ষ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন এক তরুণ।

রবিবার দিবাগত রাত ১২টা ৭ মিনিটে ফেসবুক ভিডিওতে হত্যার হুমকি দেন সিলেটের সদর উপজেলার শাহপুর তালুকদারপাড়ার আজাদ বক্স তালুকদারের ছেলে মহসিন তালুকদার।

তিনি তার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ‘Mohsin Talukdar ‘ থেকে এই লাইভ ভিডিওটি প্রচার করেন। সম্প্রতি কালীপূজা এক অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণ গ্রহণ করে সাকিবের কলকাতায় যাওয়ায় বিক্ষুব্ধ হয়ে তাকে কুপিয়ে-টুকরো করে হত্যার কথা বলেন এই যুবক। এসময় অকথ্য ভাষায় সাকিবকে গালাগাল করতে থাকেন তিনি।

এ ভিডিওতে মহসিন নিজের পরিচয় প্রকাশ করে বলেন, সাকিবকে হত্যা করতে প্রয়োজনে তিনি হেঁটেই ঢাকা যাবেন।

এরপর ভোর ৬টা ৪ মিনিটে আবারো একটি লাইভ ভিডিওতে হাজির হন তিনি। তবে রাতের উত্তেজিত ভিডিওর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে সাকিব আল হাসানকে জাতির উদ্দেশ্যে ক্ষমা চাওয়ার আহবান জানান।

এ সময় তিনি বলেন, কারো চাপে এখন এ ভিডিওটি নির্মাণ করছেন না বরং সাকিবকে একটা সুযোগ দেয়ার জন্য এবং সাকিবের মতো বাকি সকল সেলিব্রেটিদের সঠিক পথে চলার বার্তা দিতে আবার লাইভ করছেন তিনি।

তার দুটি ভিডিও সোমবার (১৬ নভেম্বর) বিকেল তিনটায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ফেসবুক থেকে সরানো হয়নি।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদ আহমদ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা ছিলো না। তবে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে এভাবে প্রকাশ্যে হুমকি অবশ্যই নিন্দনীয় বিষয়’।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) বিএম আশরাফ উল্ল্যাহ তাহের দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘বিষয়টি আমরা মাত্রই অবগত হলাম। সাইবার ফরেনসিকের কাছে ভিডিও লিঙ্কটি হস্তান্তর করা হয়েছে। আমরা অনুসন্ধান শুরু করেছি। দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে’।

গত ২৯ অক্টোবর এক বছরের নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্ত হন সাকিব। ৬ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরেন বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সফলতম তারকা।

গত বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে সাকিবকে দলে নেয় জেমকন খুলনা। সেদিনই ভারতের কলকাতার কাঁকুড়গাছি সম্মিলিত সর্বজনীন শ্যামাপুজো এক অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণ পেয়ে ভারতে যান তারকা অলরাউন্ডার। পরদিন শুক্রবার দেশে ফিরে আসেন তিনি।

রোববার থেকে মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্কিল অনুশীলন শুরু করেছেন বাংলাদেশের অনেক সাফল্যের নায়ক।

দিয়াগো ফোরলানের বিশ্লেষণ, লা লিগার চেয়ে মেসি গুরুত্বপূর্ণ নন

স্পোর্টস ডেস্ক : বার্সেলোনায় থেকে যেতে সম্মত হলেও লিওনেল মেসির ভবিষ্যৎ নিয়ে ধোঁয়াশা কাটেনি। চলতি মৌসুমেই শেষ হয়ে যাচ্ছে কাতালানদের সঙ্গে তার বর্তমান চুক্তির মেয়াদ।

এরপর আর্জেন্টাইন তারকা ফরোয়ার্ড ইংলিশ পরাশক্তি ম্যানচেস্টার সিটি নাকি ফরাসি চ্যাম্পিয়ন প্যারিস সেইন্ট জার্মেইতে (পিএসজি) যোগ দেবেন? চলছে অনেক জল্পনা-কল্পনা। তাছাড়া, তিনি স্পেন ছাড়লে লা লিগার জৌলুস কমার শঙ্কাতেও আছেন অনেকে।

তবে এমন জটিল পরিস্থিতি নিয়ে মোটেও উদ্বিগ্ন নন উরুগুয়ের সাবেক স্ট্রাইকার ও ২০১০ বিশ্বকাপে গোল্ডেন বল জেতা দিয়েগো ফোরলান। ‘মার্কা স্পোর্ট উইকেন্ড’কে তার দেওয়া সাক্ষাৎকারের সারকথা হলো, মেসি লা লিগার ইতিহাস কিংবা এর ক্লাবগুলোর চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ নন।

স্প্যানিশ ক্লাব ভিয়ারিয়ালে তিন মৌসুম ও অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদে চার মৌসুম কাটানো ফোরলান স্পষ্ট করে বলেছেন, মেসিকে ছাড়াই সফলভাবে চলবে লা লিগা। আমি বলব না যে, এটা একটা উপহার (বার্সায় মেসির থেকে যাওয়া)। অবশ্যই বিভিন্ন ক্লাবে যেসব অসাধারণ খেলোয়াড় খেলেছে, তাদের কারণে লা লিগা অনেক বিস্তৃত হয়েছে। তবে লা লিগা লা লিগাই। খুব গুরুত্বপূর্ণ হলো ক্লাবগুলো ও ইতিহাস।

রেকর্ড ছয়বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী মেসির চুক্তি নবায়নের বিষয়ে অগ্রগতির কোনো খবর নেই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে। তাই ন্যু ক্যাম্পের সঙ্গে তার দুই দশকের বন্ধন ছিন্ন হওয়ার গুঞ্জন থামেনি। বার্সা অধিনায়ক ভিনদেশে নতুন ঠিকানায় চলে গেলে লা লিগা উজ্জ্বলতা হারিয়ে আরও ফিকে হয়ে যাবে না? কারণ, সময়ের অন্যতম সেরা দুই তারকা নেইমার ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ইতোমধ্যে ছেড়ে গেছেন স্পেন।

৪১ বছর বয়সী ফোরলান অবশ্য জানিয়েছেন, লা লিগার দর্শকপ্রিয়তা বা গুরুত্ব কমে যাওয়ার কোনো সুযোগ দেখছেন না তিনি। এটা খুব ভালো যে, সে (মেসি) থেকে গেছে। লিওনেল মেসি, লুইস সুয়ারেজ…অসাধারণ খেলোয়াড় হলেও… তারা পাল্টে গেছে। কিন্তু লা লিগা আগের জায়গাতেই থাকবে। এটার ইতিহাস ৯০ বছরের বেশি। অতীতে বড় বড় তারকা এখানে ছিল, ভবিষ্যতেও থাকবে। তবে শেষ পর্যন্ত লা লিগায় যা থাকে, তা হল ক্লাবগুলো। আর এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশে একদিনে করােনায় নতুন আক্রান্ত ২ হাজার ১৩৯ জন , মৃত্যু আরাে ২১

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দিন কে দিন বেড়েই চলেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে, নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ২ হাজার ১৩৯ জন। এনিয়ে কোভিড-১৯ এ মোট প্রাণহানি বেড়ে দাঁড়ালো ৬ হাজার ২১৫ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ হাজার ৭৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ২ হাজার ১৩৯ জনের। এ নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত মোট ৪ লাখ ৩৪ হাজার ৪৭২ জন কোভিড রোগী শনাক্ত হয়েছেন।সোমাবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

এদিকে, করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন আরও ১ হাজার ৬০৪ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হলেন ৩ লাখ ৫১ হাজার ১৪৬ জন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ে গত ৮ মার্চ। আর প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর ১৮ মার্চ দেশে করোনায় প্রথম মৃত্যু হয়।

মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত নামছে ঢাকায়

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকায় মাস্ক পরা নিশ্চিতে মোবাইল কোর্ট (ভ্রাম্যমাণ আদালত) পরিচালনাসহ শক্ত অবস্থানে যাওয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীগুলোকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকের ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এ কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়। গণভবন প্রান্ত থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন।

আলোচ্যসূচির বাইরে মন্ত্রিসভা বৈঠকে কোনো আলোচনা হয়েছে কি না- জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আজকে ডিজাস্টার নিয়ে একটু আলোচনা হয়েছে। কোভিড নিয়ে বলা হয়েছে, আরেকটু স্ট্রিক্ট ভিউতে যেতে হবে। (করোনা) একটু বেড়েও যাচ্ছে মনে হচ্ছে। সেজন্য আরেকটু প্রি-কশান (সতর্কতা) নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। ডিজাস্টারকে আরেকটু কম্প্রিহেনসিভ প্রেজেন্টেশনের জন্য ক্যাবিনেটে নিয়ে আসার জন্য বলা হয়েছে।’

ঢাকাতে করোনার বিষয়ে কোন সেফটি মেজার্স দেখা যাচ্ছে না- এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘অলরেডি আমরা গতকাল বলে দিয়েছি- যাতে ঢাকাতেও বিভিন্ন জায়গায় মোবাইল কোর্ট বা ল-এনফোর্সিং এজেন্সি (আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী) যাতে আরেকটু স্ট্রং (শক্ত অবস্থানে) হয়।’

কবে থেকে এটা দেখা যাবে- জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আশা করি আগামী ২/৩ তিনদিনের মধ্যে দেখা যাবে।’

সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের কাছাকাছি বাংলাদেশ

ডেস্ক রিপাের্ট : বিশ্বব্যাপী আকস্মিকভাবে বাড়তে শুরু করেছে করোনা সংক্রমণ। আক্রান্ত ও মৃত্যু হারের রেখা আবারও উপরের দিকে। করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গে বিধ্বস্ত ইউরোপ। দৈনিক সংক্রমণ হার ১০ থেকে ১৩ শতাংশে উঠানামা করছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই হার ১৫ থেকে ১৮ শতাংশ হলে দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে বলা যাবে। তারা আরও বলছেন, এ অবস্থায় প্রতিরোধের উপায় মাস্ক পরা, হাত ধোয়াসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা।

সংক্রমণ তালিকার ২৪তম দেশ বাংলাদেশ; শনাক্তের সংখ্যা ৪ লাখেরও বেশি। দৈনিক শনাক্তের হার শতকার ১০ থেকে ১৩ শতাংশ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শনাক্তের হার যদি দেড়গুণ বেড়ে যায় এবং চার সপ্তাহ চলতে থাকে তবেই বলা যাবে দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে।

আইইডিসিআরের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মোস্তাক হোসেন বলেন, সংক্রমণের হার শতকরা হার ১৫ থেকে ১৮ হয়, এভাবে প্রতিদিন যদি ১৮ থেকে ২ হাজার রোগী শনাক্ত হতে থাকে এবং সেটি অন্তত পক্ষে চার সপ্তাহ ধরে চলতে থাকে তাহলে বলা যাবে আমাদের এখানে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে।

দেশে করোনা সংক্রমণের আট মাস পেরিয়েছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলায় এসেছে শৈথিল্য, বেড়েছে জনসমাগম। স্বাস্থ্যবিধি, দুরত্ববিধির বালাই নেই। শীতে সংক্রমণ বাড়লে কি হবে? প্রতিরোধে উপায়ই বা কি?

সিএইচআরএফ নির্বাহী পরিচালক ড. সমীর কুমার সাহা বলেন, যতো আমরা স্ট্রিক থাকবো ততো আমরা ভালোই থাকবো। কেননা আমাদের ঢেউটা কখনই একদম নীচে নেমে যায়নি। যদি হাত ধুয়ে থাকি, মাস্কটা পরে থাকি, দূরত্ব বজায় রাখি তাহলে আমাদের মধ্যে কোন ঢেউ আসবে না।

শীত মৌসুমে ঠাণ্ডাজনিত রোগের প্রকোপ বাড়ে। তাই করোনাকালে শিশু ও বয়স্কদের যত্ন নেয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।- একুশেটিভি

অগ্নিসন্ত্রাস কেন, কী স্বার্থে? প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

ডেস্ক রিপাের্ট : রাজধানীতে বাসে আগুন দেয়ার ঘটনা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‌‘কোনো কথা নেই বার্তা নেই হঠাৎ করে বাসে আগুন দিয়ে অগ্নিসন্ত্রাস। কেন, কী স্বার্থে? কীসের জন্য? নির্বাচন হয়, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার নামে অংশগ্রহণ করে। টাকা-পয়সা যা পায় পকেটে নিয়ে রেখে দেয়। ইলেকশনের দিন ইলেকশনও করে না। এজেন্টও দেয় না। কিছুই করে না। মাঝ পথে ইলেকশন বয়কটের নামে বাসে আগুন দিয়ে পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়। এর উদ্দেশ্যটা কী?’

রোববার (১৫ নভেম্বর) রাতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশনে আনা সাধারণ প্রস্তাবের ওপর আলোচনার সমাপনী বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনার সময় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবন তুলে ধরেন।

করোনার প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে আমাদের উন্নয়ন কর্মকান্ড কিছুটা ব্যাহত হয়েছে। তবে এটাও আমরা মোকাবিলা করে চলছি। করোনার মধ্যেই এলো ঘূর্ণিঝড়, বন্যা। এরই মধ্যে কোনো কথা নেই বার্তা নেই হঠাৎ করে বাসে আগুন দিয়ে অগ্নিসন্ত্রাস।’

তিনি বলেন, ‘একদিকে করোনা সামলাচ্ছি, অপরদিকে অর্থনীতির গতি যাতে সচল থাকে তার ব্যবস্থা নিয়েছি। যেখানে যা দরকার আমরা দিয়ে মানুষের জীবনযাত্রা যাতে সচল থাকে সেই ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘করোনার চিকিৎসার ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি। আজকে ভ্যাকসিন আবিস্কার হচ্ছে। টাকা-পয়সা দিয়ে ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন কেনার ব্যবস্থা আমরা রেখে দিয়েছি। যেন যখনই চালু হবে আমরা এটা নিতে পারি। সেই ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছি। যখনই যা প্রয়োজন আমরা করে যাচ্ছি।’

সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আমরা অনেকগুলো কাজ করেছি। দারিদ্র্যের হার কমাতে পেরেছি। বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশ এখন আর ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে চলে না। নিজেদের অর্থে বাজেট দিতে পারছি। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মানের চ্যালেঞ্জ আমরা গ্রহণ করেছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি। বিজ্ঞান-প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন জাতি গড়ে তোলার পদক্ষেপ নিয়েছি। চিকিৎসা সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি।’

দুই আইনজীবীর আদালত অবমাননার রুল শুনলেন না হাইকোর্ট

ডেস্ক রিপাের্ট : সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন ও অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসানের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল না শুনে প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়েছেন হাইকোর্ট।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) বিচারপতি গোবিন্দ্র চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মাদ উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

দুই আইনজীবী আজ আদালতে ভার্চুয়ালি হাজির হন। এ সময়ে আদালত অবমাননার বিষয়ে ব্যাখ্যা দেওয়ার জন্য তাদের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল সময় চান। তখন আদালত বিষয়টি না শুনে প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দেন।

এর আগে গত ৮ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন ও অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসানের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

আদালত অবমাননার বিষয়ে লিখিত আদেশে বলা হয়েছে, ইশরাত হাসান যে কবিতা (সুকুমার রায়ের ‘বিচার’ কবিতা) পোস্ট করেছেন, আর যে ফেসবুকে স্ট্যাটাস (থ্রি ইডিয়ট মুভি নিয়ে) দিয়েছেন তা আদালতের জন্য অবমাননাকর। সুকুমার রায়ের কবিতা পোস্ট করে বিচার বিভাগকে চরমভাবে অবমাননা করা হয়েছে। সুকুমার রায়ের কবিতা পোস্ট করা অপরাধ না হলেও এ মামলার প্রসিডিং চলা অবস্থায় ওই কবিতা পোস্ট করে তিনি বিচারককে সরাসরি ব্যক্তিগতভাবে আঘাত এবং কলঙ্কিত করেছেন। এতে আদালত অবমাননা হয়েছে।

এছাড়া ব্যারিস্টার সুমন এ বিষয়টিকে সমর্থন করেছেন এবং আদালতের আদেশ সত্ত্বেও নিজের আগের সব পোস্ট সরিয়ে নেননি। তাই তাদের ওপর আদালত অবমাননার রুল ইস্যু করা হলো।

আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ হওয়ার পরও একজন বিচারপতির ছেলে ব্যারিস্টার জুম্মন সিদ্দিকীকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে গেজেট প্রকাশের বৈধতা চ্যালেঞ্জের রিটের রুল শুনানিতে আদালত অবমাননার রুল জারি করেন আদালত।

গত বছরেরে ১৮ ডিসেম্বর ওই বিচারপতির ছেলেকে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে জারি করা গেজেটের কার্যক্রম স্থগিত করেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে সরাসরি হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে গেজেট প্রকাশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত। বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

বরিশালে আ.লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ

ডেস্ক রিপাের্ট : আওয়াম লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী-সর্থকদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে। পরে খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে যাওয়া পুলিশের একটি মোটরসাইকেল আগুনে পুড়িয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা।

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ উলানিয়া ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটেছে। এ সময় উভয় পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৭ জন আহত হয়।

রোবাবর সন্ধার পর উলানিয়া বাজারের কাছে আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী আবদুল হালিম বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সন্ধ্যার পর স্বতন্ত্র প্রার্থী রুমা সরদারের কর্মী-সমর্থকরা উলানিয়া বাজারের কাছে আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী আবদুল হালিমের বাড়ির সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের উপর হামলা চালায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে নাছির উদ্দিন চুন্নু (৩০), মো. তাহের (২৬), মো. বাকের (২৪), মো. জাহের (৩২) ও জহিরুল ইসলামসহ (৩৫) উভয় পক্ষের সাত জন আহত হয়।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এ সময় দুর্বৃত্তরা পুলিশের একটি মোটরসাইকেল আগুনে পুড়িয়ে দেয়।

এ বিষয়ে বরিশাল জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. নাইমুল হক জানান,সংঘর্ষে উভয় পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। এ সময় কে বা কারা পুলিশের একটি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়। এ ঘটনা তদন্ত করে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন তিনি।

স্পেসএক্সের নতুন অভিযানে ‘মহাকাশে নতুন যুগের সূচনা’

ডেস্ক রিপাের্ট : চার নভোচারী নিয়ে ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন (আইএসএস)-এর উদ্দেশে রবিবার স্পেসএক্সের একটি রকেট সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে এ অভিযান পরিচালিত হয়। একে মহাকাশ অভিযানে নতুন যুগের সূচনা বলে উল্লেখ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ সংস্থা নাসা।

এটি উদ্যোক্তা ইলন মাস্কের অর্থায়নে গড়ে ওঠা প্রাইভেট কোম্পানি স্পেসএক্সের মনুষ্যবাহী দ্বিতীয় ফ্লাইট, যা এখন থেকে নাসার নভোচারীদের মহাকাশে প্রেরণ করবে।

রাশিয়ার সুয়োজ রকেটের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নির্ভরতার নয় বছর পর এটি চালু হলো।

নাসা বলছে, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালনায় লো-আর্থ অরবিটে নভোচারীদের রুটিন যাত্রায় নতুন যুগের সূচনা হলো।

এ অভিযানে অংশ নেওয়া চার নভোচারীর তিনজন আমেরিকান ও একজন জাপানের।

জাপানিজ স্পেস এজেন্সি (জাক্সা)-র সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে জাপানি নভোচারী সোইচি নোগুচির। নতুন এ অভিযানের মাধ্যমে তিনি বিরল রেকর্ড গড়লেন। পৃথিবী থেকে মহাশূন্যে ভ্রমণে তিনটি ভিন্ন ধরনের মহাকাশযান ব্যবহার করলেন তিনি। এর আগে সুয়োজ ও শাটলযানে ভ্রমণ করেন নোগুচি।

চার নভোচারীকে নিয়ে ফ্যালকন রকেট ও ড্রাগন ক্যাপসুল কেনেডি স্পেস সেন্টার ত্যাগ করে রবিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টা ২৭ মিনিটে। মহাকাশ স্টেশনে পৌঁছতে সময় লাগবে একদিনেরও বেশি। চার নভোচারী সেখানে আগে থাকা এক মার্কিন ও দুই রাশিয়ান নভোচারীর সঙ্গে যোগ দেবেন।

নাসার সঙ্গে মহাকাশ গবেষণায় ৩০০ কোটি ডলারের উচ্চাভিলাষী চুক্তি রয়েছে স্পেসএক্সের। এর আওতায় নভোচারীদের জন্য ট্যাক্সি সেবার উন্নয়ন, পরীক্ষা ও উড্ডয়নের পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে ইলন মাস্কের প্রতিষ্ঠানটি।

পিএসএলের ফাইনালে তামিমের লাহোর

স্পাের্টস ডেস্ক : পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে তামিম ইকবালদের দল লাহোর কালান্দার্স। এলিমিনেটর-২ ম্যাচে মুলতান সুলতানসকে ২৫ রানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো টুর্নামেন্টের ফাইনাল নিশ্চিত করেছে লাহোর। মঙ্গলবার ফাইনালে করাচি কিংসের বিপক্ষে খেলবে তারা।

রোববার করাচি ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা লাহোর নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৮২ রান তুলে। জবাব দিতে নেমে মুলতান ১৯.১ ওভারে ১৫৭ রানে গুটিয়ে যায়। শান মাসুদের নেতৃত্বাধীন যে দলে ছিলেন শহিদ আফ্রিদির মতো তারকা।

লাহোরের এমন জয়ে অসাধারণ অলরাউন্ড নৈপূণ্য প্রদর্শন করেছেন ডেভিড উইস। লোয়ার অর্ডারে ব্যাট হাতে ২১ বলে ৫ চার ও ৩ ছক্কায় সর্বোচ্চ অপরাজিত ৪৮ রান করেন তিনি। এরপর বল হাতে ৪ ওভারে ২৭ রান দিয়ে নেন ৩টি উইকেট। বাউন্ডারি লাইনে লাফিয়ে রাইলি রুশোকে ফেরান। সব মিলিয়ে দিনটি ছিল তার।

উইস ছাড়া ব্যাট হাতে ফখর জামান করেন ৩৬ বলে ৪৮ রান করেন। আর তামিম ইকবাল ২০ বলে ৫ চারে করেন তৃতীয় সর্বোচ্চ ৩০ রান। ২৬টি রান আসে সামিত প্যাটেলের ব্যাট থেকে।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো করেছিল মুলতান। টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা রান তুলছিলেন প্রয়োজনীয় রেটেই। কিন্তু এরপর তাদের ব্যাটিং লাইনআপে ধস নামে। অ্যাডাম লিথ ২৯ বলে ৪ চার ও ৩ ছক্কায় ৫০ রান করে আউট হন। ১২ রান করেন জিশান আশরাফ। ২৭টি রান আসে অধিনায়ক শান মাসুদের ব্যাট থেকে।

শেষ দিকে খুশদিল শাহ ১৯ বলে ২ চার সমান সংখ্যক ছক্কায় ৩০ রান করে লড়াই করেন। কিন্তু কালান্ডার্সের বোলিং তোপে শেষ পর্যন্ত জয় পাওয়া হয়নি তাদের।

বল হাতে ডেভিড উইস নেন ৩ উইকেট। তার সমান ৩ উইকেট নিয়েছেন হারিস রউফ। এ ছাড়া ২টি করে উইকেট নেন শাহিন শাহ আফ্রিদি ও দিলবার হুসাইন।

ম্যাচসেরা নির্বাচিত হয়েছেন ডেভিড উইস।