adv
১৭ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্র বলছে আমার, ইংল্যান্ড বলছে আমার, মুসা তুমি কার?

স্পাের্টস ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে জম্ম ইউনুস মুসার। তার বাবা-মা ঘানাইয়ান। বেড়ে উঠেছেন ইতালিতে। ফুটবল ক্যারিয়ারের শুরুটা সেখানেই জর্জিওনি কালচো ২০০০ নামের ক্লাবে। ২০১২ সালে ভর্তি হন ইংল্যান্ডের আর্সেনাল ফুটবল একাডেমিতে। ইংল্যান্ডের অনূর্ধ্ব-১৫ ও ১৮ দলে খেলেছেন। ২০১৯ সালে যোগ দেন স্প্যানিশ ক্লাব ভ্যালেন্সিয়ার ‘বি’ দলে। গত সেপ্টেম্বরে লা লিগায় ভ্যালেন্সিয়ার সিনিয়র দলে অভিষেক।

বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের জার্সি গায়ে অভিষেক হয়ে গেল। সোয়ানসিতে খেলেছেন গ্যারেথ বেলদের ওয়েলসের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে। কিন্তু কেউ নিশ্চিত নন যে ইউনুস মুসার গায়ে যুক্তরাষ্ট্রের জার্সিটাই থাকবে স্থায়ীভাবে।

১৭ বছর বয়সী প্রতিভাদীপ্ত এই ফরোয়ার্ড ঘানা, যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও ইংল্যান্ড এই চার দেশের হয়েই খেলার যোগ্য। যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে ওয়েলসের সঙ্গে গোলশূন্য ম্যাচটিতে তো খেলেই ফেললেন। তবে জাতীয় দলের হয়ে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ খেলে কোনো খেলোয়াড় সেই দলে স্থায়ী হয়ে যায় না। প্রতিযোগিতামূলক ফুটবল খেলেই স্থায়ী হতে হয়। আর সে কারণেই মুসার এখনও সুযোগ আছে ঘানা, ইংল্যান্ড ও ইতালির হয়ে খেলার। – দ্য সান

ইংল্যান্ড ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এ্ফএ) তাকে প্রলুব্ধ করেই চলেছে। ইংল্যান্ড কোচ গ্যারেথ সাউথগেট তাকে চাইছেন ভীষণ করে। মুসা শুধু যে রাইট উইংয়ে খেলেন তা তো নয়। খেলতে পারেন সেন্ট্রাল মিডফিল্ডে, বক্স-টু-বক্স মিডফিল্ডার হিসেবে। এরকম প্রতিভাদীপ্ত একজন ফুটবলার ইংলিশদের চাই-ই চাই।

মুসার জন্ম ২০০২ সালের ২৯ নভেম্বর। তবে এই অল্প বয়সেই পেশাদার ফুটবলে পা রাখায় নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবতে পারেন। সেজন্যই ইংল্যান্ডের ডাক উপেক্ষা করতে পারছেন না মুসা। আমেরিকার চেয়ে ইংল্যান্ডের ফুটবল-সংস্কৃতি যে অনেক উঁচুমানের।
আবার এটাও ঠিক, আমেরিকা উচ্চাভিলাষী প্রকল্প নিয়ে এগোতে চাইছে বিশ্ব ফুটবলে। একগুচ্ছ প্রতিভাবান তরুণ ফুটবলার দাপটের সঙ্গে খেলছেন নামিদামি সব পেশাদার লিগগুলোতে। এদের একসূত্রে গেঁথে নিতে পারলে বিশ্বকাপ জিততে বেশি পথ পাড়ি দিতে হবে না বলেই বিশ্বাস যুক্তরাষ্ট্রের কোচ গ্রেগ বারহল্টারের।

উদীয়মান এই তারকা মুসাকে খসিয়ে নেওয়ারই চেষ্টা করছে ইংল্যান্ড। যুক্তরাষ্ট্র অবশ্য সতর্ক। কোচ বারহল্টার মুসার দিকে ইগলচোখে তাকিয়ে আছেন। যুক্তরাষ্ট্রের এই কোচ বার বারই ইংল্যান্ডের দিকে আঙুল তুলে বলছেন, মুসা আমাদের খেলোয়াড়। ইংল্যান্ড তো আগেই হুংকার দিয়ে রেখেছে, মুসা আমাদের আর্সেনাল ফুটবল একাডেমির খেলোয়াড়। ফুটবলে ইংল্যান্ডই ওর (মুসা) ঘর। – দ্য সান/ নিউয়র্ক টাইমস

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2020
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া