বাইডেনের সাথে প্রধানমন্ত্রীর জানাশোনা থাকায় লাভবান হতে পারে বাংলাদেশ

ডেস্ক রিপাের্ট : জো বাইডেন প্রশাসন দায়িত্ব নিলে বাংলাদেশের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক আরও গতিশীল হবে বলে আশা করছেন বিশ্লেষকরা। কারণ হিসেবে বাইডেনের সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জানাশোনা আর দল হিসেবে ডেমোক্র্যাট পার্টি ও আওয়ামী লীগের আদর্শিক মিল বড় প্রভাবক হবে বলে ধারণা তাদের।

এই সুযোগের সদ্ব্যবহারে দেশের রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক ফ্রন্টগুলোকে আরও দক্ষ ও গতিশীল করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্লেষকরা।

বিপুল ভোটে জিতেই ঐক্যের ডাক দিয়েছেন ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেন। বিধি অনুযায়ী ২০ জানুয়ারি দায়িত্ব নেবেন তিনি। ধারণা করা হচ্ছে, শুরুতেই জলবায়ু পরিবর্তন ও কোভিডের মত বহুপাক্ষিক ইস্যুতে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিতর্কিত অবস্থান বাতিল করতে পারেন জো বাইডেন। এরকম ইস্যু বাংলাদেশেরও অগ্রাধিকার।

বারাক ওবামার রানিং মেট থাকাকালে বিভিন্ন ফোরামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা হয়েছিল সে সময়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের। দুই নেতার এই আগাম জানাশোনা আগামী দিনের কূটনৈতিক সম্পর্কে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে আশা বিশ্লেষকদের।

গত এক দশকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বেড়েছে বাংলাদেশের গুরুত্ব। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সেই সম্পর্ক জোরদার হয়েছে আরও। আর আগে থেকেই ডেমোক্র্যাটদের সাথে ভালো যোগাযোগ ছিল বাংলাদেশের। এসব সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর তাগিদ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

যুক্তরাষ্ট্রের ইন্দোপ্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজি বাস্তবায়নেও অবস্থানগত কারণে বাংলাদেশের গুরুত্ব আরও বাড়বে বলে ধারণা তাদের।- যমুনাটিভি

ডায়াবেটিস বাড়ছে, বুঝবেন এই ১০ লক্ষণে

ডেস্ক রিপাের্ট : ডায়াবেটিস একটি নীরব ঘাতক। এতে আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকেই। এটি এমনই এক রোগ যাকে পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব নয়। তবে সচেতন থাকলে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। কিন্তু এখনও অনেকের মাঝে সেভাবে সচেতনতা বাড়েনি। চিকিৎসকদের মতে, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাত্রা, মাত্রাছাড়া খাওয়াদাওয়ার ফলে বাড়ছে ডায়াবেটিসের সমস্যা। এছাড়া মানসিক চাপ ও অনিয়ম থেকেও অনেকের শরীরে বাসা বাঁধে এই রোগটি।

তবে অনেক সময়ে ডায়াবেটিস রোগীরা বুঝে উঠতে পারেন না এই রোগটি কখন নিয়ন্ত্রণ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। কিন্তু কিছু লক্ষণ আছে তাতে বোঝা যায় শরীরে সুগারের মাত্রা বাড়ছে। এবার সেই লক্ষণ সম্পর্কে জেনে নিন-

বেশি বার বাথরুমে যাচ্ছেন
বার বার প্রস্রাব হওয়া কিন্তু ডায়াবেটিসের লক্ষণ। সুস্থ স্বাভাবিক যে কোনও মানুষ দিনে চার থেকে সাতবার বাথরুমে যান। কিন্তু ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে তা অনেক বেশি হয়। এর কারণ হল শরীর অতিরিক্ত গ্লুকোজ তৈরি করে, তা প্রস্রাবের মধ্যে দিয়েই বাইরে আসে। যে কারণে অল্প পানি খেলেও বারে বারে বাথরুমে যেতে হয়।

সবসময় তৃষ্ণা পাওয়া
১০ মিনিট আগেও পানি খেলে যেন মনে হচ্ছে আবারও গলা শুকিয়ে যাচ্ছে। মুখ আর গলার চারপাশ সবসময় শুকনো থাকছে। প্রয়োজনের থেকে বেশি পানি খেয়েও তৃষ্ণা মিটছে না। এরকম সমস্যা হলে একবার সুগার টেস্ট করিয়ে নিন।

ত্বক খসখসে হয়ে যাওয়া
মুখ আর ত্বক আগের থেকে খসখসে হয়ে যাচ্ছে। চামড়া সবসময় শুকনো থাকছে। এছাড়াও কোন কারণ ছাড়াই সবসময় গা চুলকাচ্ছে। মুখের ভেতর চুলকোনো, পায়ের পাতা জ্বালা করা এসবও কিন্তু ডায়াবেটিস বাড়ার লক্ষণ।

খিদে বেড়ে যাওয়া
শরীর যখন খাবার হজম করায় তখন শক্তি উৎপন্ন করে। গ্লুকোজ ভেঙে সেই শক্তি আসে। কিন্তু ইনসুলিন যখন ঠিক মতো কাজ করে না তখন এই প্রক্রিয়া থাকে পুরোপুরি বন্ধ। ফলে রক্তে বাড়তে থাকে গ্লুকোজের মাত্রা। আর প্রয়োজনের তুলনায় বেশি খাবার খেলেও তখন মনে হয় পেট ভরেনি।

ক্লান্ত লাগা
ডায়াবেটিস বাড়লে শরীর অতিরিক্ত ক্লান্ত লাগে। থেকে থেকে ঘুম পায়। এছাড়াও কমে যায় পরিশ্রম ক্ষমতা। এমনকী পর্যাপ্ত ঘুমালেও মেটে না ঘুমের চাহিদা। ফলে তারা যেখানে-সেখানে ঘুমিয়ে পড়েন। তবে এই বিষয়টি অবহেলা করবেন না। পরিশ্রম করলে সবারই ক্লান্তি আসে, ঘুম পায়। কিন্তু শরীরে সুগারের মাত্রা বাড়লে এই ঘুম পাওয়া হল অন্যতম লক্ষণ। সব সময় মনে হবে ঘুম কম হচ্ছে।

দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হয়ে যাওয়া
চশমা ছাড়াই সব দেখতে পেতেন। কিন্তু কয়েকদিন ধরে সমস্যা হচ্ছে। সব আবছা লাগছে। দৃষ্টিশক্তি পরিস্কার হচ্ছে না, এসবই কিন্তু সুগারের লক্ষণ। কারণ সুগার বাড়লে তার প্রথম প্রভাব পড়ে চোখে আর কিডনিতে। যে কারণে কোমর ব্যথা, পায়ে ব্যথা ইউরিনের সমস্যা আসে। সেই সঙ্গে চশমা ছাড়া দেখতেও অসুবিধা হয়। চোখ সবসময় জ্বালা করে।

পায়ে ব্যথা
পেশির টান, পায়ের তলায় ব্যথা ও জ্বালা সুগার বাড়লে এই সমস্যাও আসে। বেশিক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে পারা যায় না। চামড়া ফেটে যায়। সুগার খুব বেশি বাড়লে এই সমস্যা কিন্তু আসতে বাধ্য। এছাড়াও পায়ের চামড়া মোটা হয়ে যাওয়া (কড়া পড়ে যাওয়া) সুগারের লক্ষণ।

ঘা শুকাতে সময় লাগে
সামান্য কোনও ঘা যদি শুকাতে সময় লাগে তাহলে মনে রাখবেন আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ বেশি। সুগার থাকলেই যে কোনও কাটা থেকে রস গড়ায়। ওষুধ লাগালেও ক্ষত সহজে সারতে চায় না। কাটার জায়গা লাল হয়ে ফুলেও যায়। যদি দেখেন ১০ দিনেও কোনও কাটা শুকাচ্ছে না তাহলে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন অবিলম্বে।

খুব দ্রুত ওজন কমে যাওয়া
ওজন বেড়ে যাওয়া যেমন ভালো নয়, তেমনই দ্রুত ওজন কমে যাওয়াও খুব খারাপ। যারা টাইপ-১ ডায়াবেটিসের শিকার তাদের খুব দ্রুত ওজন কমে যায়। ওটাও ডায়াবেটিসের প্রাথমিক লক্ষণ।

ইউরিন ইনফেকশন
কোন কারণ ছাড়াই ইউরিন ইনফেকশন, জ্বর হচ্ছে? তাহলে ইউরিন ইনফেকশনের ওষুধের পাশাপাশি ডায়াবেটিস চেক করয়ে নিন। আপনার অজান্তেই হয়তো শরীরে সুগারের মাত্রা বেড়ে গিয়েছে। যে কারণে বার বার ইনফেকশন হচ্ছে, বাথরুমে সমস্যা হচ্ছে। এসব হলে একদম অবহেলা করবেন না। অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

মিয়ানমারের সেনারা ৯ বাংলাদেশিকে ধরে নিয়ে গেছে

ডেস্ক রিপাের্ট : কক্সবাজারের টেকনাফে বঙ্গোপসাগরের মোহনায় মাছ ধরার সময় ৯ বাংলাদেশি জেলেকে ধরে নিয়ে গেছে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)।

মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) সকালে নাফ নদ ও বঙ্গোপসাগরের মোহনা থেকে ধরে নিয়ে যাওয়া জেলেদের ২৪ ঘণ্টায়ও ফেরত দেয়নি তারা। আটকরা সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

স্থানীয় জেলেরা জানান, মঙ্গলবার সকালে বঙ্গোপসাগরের মোহনায় টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের গুলাপাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ আমিনের মালিকানাধীন একটি নৌকায় কালা মাঝির নেতৃত্বে ৯ জন জেলে সাগরে মাছ ধরতে যান। হঠাৎ মিয়ানমারের বিজিপি এসে সাগরের মোহনা থেকে তাদের ধরে নিয়ে যায়। রাতে খবরটি এলাকায় জানাজানি হয়।

আটক জেলেরা হলেন- মো. নুরুল আলম (৩০), মো. ইসমাইল হোসেন (২০), মো. ইলিয়াছ (২২), মো. ইউনুস (১৮), মো. কালু মিয়া (১৮), মো. সাইফুল ইসলাম (১৮), মো. সলিম হোসেন (২০), মো. আফতাব হোসেন (২০) ও মো. লালু মিয়া (২৫)। তারা সকলে শাহপরীর দ্বীপ দক্ষিণপাড়া এলাকার বাসিন্দা।

সাবরাং ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নুরুল আমিন বলেন, সাগরে মাছ ধরতে যাওয়া ৯ জন জেলেকে মিয়ানমারের বিজিপি ধরে নিয়ে যাওয়ার খবর শুনেছি। তারা সবাই আমার এলাকার বাসিন্দা। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।

এ বিষয়ে টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. ফয়সল হাসান খান বলেন, সাগর থেকে জেলেদের ধরে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি শুনেছি। এ ঘটনার মিয়ানমারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। মিয়ানমার জানিয়েছে- তাদের সীমান্তে মাছ ধরার সময় বাংলাদেশি জেলেদের আটক করা হয়েছে। তবে তাদের ছেড়ে দেয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন তারা।

বাহরাইনের প্রধানমন্ত্রী শেখ খলিফা আর নেই

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বাহরাইনের প্রধানমন্ত্রী শেখ খলিফা বিন সালমান আল খলিফা মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স ছিল ৮৪ বছর।

আজ বুধবার (১১ নভেম্বর) সকালে যুক্তরাষ্ট্রের মেয়ো ক্লিনিক হাসপাতালে শেখ খলিফা মারা যান। বাহরাইনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থার বরাত দিয়ে কাতার ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা এ খবর নিশ্চিত করে।

প্রধানমন্ত্রীর মৃতুতে বাহরাইনের বাদশাহ শেখ হামাদ বিন ইসা আল খলিফা এক সপ্তাহের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেন।

তাঁর মৃতদেহ দেশে আনার পর দাফন সম্পন্ন করা হবে। দাফনকার্যে কেবল সীমিত সংখ্যক ঘনিষ্ঠরা অংশগ্রহণ করবে।

শেখ খলিফা ১৯৭০ সাল থেকে বাহরাইনের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। দায়িত্বগ্রহণের পর ১৯৭১ সালের ১৫ আগস্ট দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে। সূত্র : আল জাজিরা

হাজী সেলিমের মামলার বিচারিক আদালতের নথি তলব

ডেস্ক রিপাের্ট : সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ১৩ বছরের দন্ডের মামলার বিচারিক আদালতে থাকা যাবতীয় নথি তলব করেছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি মো. মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত একটি ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ এ আদেশ দেন। আগামী ৭ ডিসেম্বরের মধ্যে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ এ নথি হাইকোর্টে পাঠাবেন।

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।

হাজী সেলিমের পক্ষে ছিলেন, আইনজীবী সাঈদ আহমেদ রাজা। এর আগে সোমবার ৯ নভেম্বর এ মামলার শুনানির জন্য আবেদন উপস্থাপন করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এরপর হাজী সেলিমের আপিলটি কার্যতালিকায় ওঠে।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালের ২৪ অক্টোবর হাজি সেলিমের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদক মামলা করে। এ মামলায় ২০০৮ সালের ২৭ এপ্রিল তাকে ১৩ বছরের কারাদন্ড দেন বিচারিক আদালত।

২০০৯ সালের ২৫ অক্টোবর এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন হাজী সেলিম। ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি হাইকোর্ট এক রায়ে তার সাজা বাতিল করেন। পরবর্তীতে হাইকোর্টে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে দুদক। ওই আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি হাইকোর্টের রায় বাতিল করে পুনরায় হাইকোর্টে শুনানির নির্দেশ দেয় আপিল বিভাগ।

২৪ ঘণ্টায় দেশে করােনাভাইরাসে মৃত্যু ১৯, শনাক্ত ১ হাজার ৭৩৩ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ১৯ জন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ছয় হাজার ১২৭ জন।

একই সময়ে ১৪ হাজার ৫২৪টি নমুনা পরীক্ষা করে এক হাজার ৭৩৩ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১১ দশমিক ৯৩ শতাংশ। এ নিয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে চার লাখ ২৫ হাজার ৩৫৩ জনে দাঁড়াল।

আজ বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১৯ জনের মধ্যে ১৬ জন পুরুষ ও তিন জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে সাত জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন ১২ জন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৭১৫ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন তিন লাখ ৪৩ হাজার ১৩১ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ২৪ লাখ ৮৪ হাজার ৬৮৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ১২ শতাংশ। আর মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮০ দশমিক ৬৭ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৪ শতাংশ।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয় বলে জানায় সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। আর ১৮ মার্চ প্রথম একজনের মৃত্যুর সংবাদ জানানো হয়।

সেতুমন্ত্রী বললেন – বিরোধিতাই বিএনপির একমাত্র রাজনৈতিক কৌশল

ডেস্ক রিপাের্ট : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘সকল বিষয়ে সরকারের বিরোধিতা করাই বিএনপির একমাত্র রাজনৈতিক কৌশল।’

আজ বুধবার সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

গণতন্ত্রকে এগিয়ে নেওয়ার পথে বিরোধীদল হিসেবে বিএনপি এ পর্যন্ত কী ভূমিকা রেখেছে, বিএনপি নেতাদের প্রতি এমন প্রশ্ন রেখে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সবকিছুতেই সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার আর সমালোচনা করা ছাড়া বিএনপির আর কিছু নেই। সরকারের কোনো একটা ভালো কাজের প্রশংসা তাদের মুখ দিয়ে বের হয় না,তারা সাদাকে সাদা আর সত্যকে সত্য বলতে পারেনা।’

তিনি বলেন, ‘বিরোধীতাই তাদের একমাত্র রাজনৈতিক কৌশল। তাহলে বিএনপি কিভাবে গণতন্ত্রের বিকাশমান রংধনুতে রং যুক্ত করবে? গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করতে বিএনপির যেই দলগত ভূমিকা জণগণ প্রত্যাশা করে তা থেকে তারা বহুদূরে অবস্থান করছে।’

বিএনপির রাজনীতির পথ ষড়যন্ত্রের, গণতন্ত্রের নয় জানিয়ে কাদের বলেন এ দলটি জন্ম থেকেই এ পর্যন্ত তা প্রমাণ করেছে বারবার।

আমেরিকার নির্বাচন শুধু নির্বাচন কমিশনের নয়, বিরোধী দলেরও শেখার অনেক কিছু আছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘দেশের নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। সাংবিধানিক প্রক্রিয়ার আওতায় থেকেই কমিশন কাজ করছে। বিএনপিকে জয়ী হওয়ার নিশ্চয়তা দিলেই নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ও ভালো।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বিচার বিভাগ নিয়ে কথা বলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন এবং চাপমুক্ত হয়ে কাজ করছে। সাম্প্রতিক নানান ঘটনায় আমাদের দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে রায় এসেছে এবং শাস্তি ভোগ করছে,সরকার কোন কিছুতেই হস্তক্ষেপ করেনি। এ থেকেই প্রমাণ হয় বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবেই কাজ করছে।’

সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির পক্ষে রায় গেলে তারা বিচার বিভাগকে ধন্যবাদ জানায়, আর বিপক্ষে গেলে বলে সরকার হস্তক্ষেপ করেছে।’

দূর্নীতি দমন কমিশনও স্বাধীন ভাবে কাজ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সরকারি দলের বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করছে, শাস্তি হয়েছে-এ থেকে স্পষ্ট যে দুদকের উপরও সরকারের কোন হস্তক্ষেপনেই।’

ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচন বিষয়ে বিএনপির অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নিজেদের ভরাডুবি টের পেয়ে বরাবরের মতো নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে তারা নানান অপপ্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।’

‘সরকার না কি জণগণের মনের ভাষা বুঝতে পারে না’ মির্জা ফখরুল ইসলামের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবস্থান জণগণের মণিকোঠায়। এদেশের রাজনীতিতে ৭৫ পরবর্তী সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং জনঘণিষ্ঠ রাজনীতিবীদের নাম শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগ মাটি ও মানুষের রাজনীতি করে বলেই জনগণের মনের ভাষা বুঝতে পারে। পক্ষান্তরে বিএনপি জণগণের মনের ভাষা বুঝতে পারাতো দুরের কথা, নিজ দলের নেতাকর্মীদেরই মনের ভাষা ও বুঝতে পারে না।’
সূত্র : বাসস

করোনাকে জয় করলেন অভিনেতা অপূর্ব

বিনােদন রিপাের্ট : করোনাকে জয় করলেন অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। টানা নয় দিন হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে আজ বুধবার বাসায় ফিরেছেন তিনি।

নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে জ্বর আসে অপূর্বর। তিন দিনের জ্বরে শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়লে চিকিৎসকের পরামর্শে করোনা পরীক্ষা করান এই তারকা। ফল হাতে পেলে জানা যায়, তিনি করোনা পজিটিভ। এরপর শারীরিক অবস্থা বেশি খারাপ হলে ৩ নভেম্বর তাঁকে রাজধানী ঢাকার শ্যামলীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

এদিকে হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরার পথে অপূর্ব তাঁর ফেসবুকে একটি স্থিরচিত্র পোস্ট করেছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে আমি এখন বাসার পথে। ভালোবাসা, সহযোগিতা ও দোয়ার জন্য সবার কাছে আমি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

এর আগে একটি শুটিংস্পটে দুজন কুশলী করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় কোয়ারেন্টিনে ছিলেন অপূর্বসহ ওই ইউনিটের সবাই। পরে দুবার করোনা পরীক্ষার পর নেগেটিভ ফল নিয়ে শুটিংয়ে ফিরেছিলেন অপূর্ব।

সে সময় পরিচালক মিজানুর রহমান জানিয়েছিলেন, শুটিংয়ের আগে ২৭ জনের টিমের প্রত্যেকের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। এর মধ্যে একজনের করোনা পজিটিভ এসেছিল। তাঁকে বাদ দিয়ে শুটিং শুরু করেন পরিচালক। ইউনিটের সবার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ নিয়ে নাটকের শুটিং শুরু হয় গত ৭ জুলাই। ৮ জুলাই নাটকটির সেটে দুজনের কোভিড-১৯ পজিটিভ ধরা পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে নাটকের টিমের সবাই শুটিং বন্ধ করে কোয়ারেন্টিনে চলে যান। সেই দলে ছিলেন অপূর্বও।

বিয়ে করছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দীর্ঘদিনের সঙ্গী টেলিভিশন উপস্থাপক ক্লার্ক গেফোর্ডের সঙ্গে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নে অ্যাঙ্গেজমেন্ট হয় বছর খানেক আগে। তারপর তাদের বিয়ে কথা থাকলেও নানা কারণে তা পিছিয়ে যায়।

সম্প্রতি তারা দুইজন বিয়ের পরিকল্পনা করছেন বলে জানিয়েছেন জাসিন্ডা আরডার্ন। তবে বিয়ের দিন নির্ধারণের বিষয়ে কিছু জানাননি তিনি।

নিউ প্লেমাউথ শহরে বিয়ে নিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের এক প্রশ্নের জবাবে জেসিন্ডা বলেন, আমি আপনাদের অবশ্য এটা বলতে পারি যে, আমাদের কিছু পরিকল্পনা আছে। তবে তা আরেকটু সামনে গিয়ে। বিয়ের কাজটি বৃহৎ পরিসরে সম্পন্নের জন্য আমাদের কিছু পরিকল্পনা কথা পরিবার ও বন্ধুদের জানিয়েছি।

এর আগে জাসিন্ডা আরডার্ন বলেছিলেন, দেশের সাধারণ নির্বাচনের আগে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করতে চান না তারা।

গত বছর আরডার্ন জাসিন্ডার সঙ্গে বাগদান সম্পন্ন করেন ক্লার্ক গেফোর্ড। জাসিন্ডাকে অবাক করে দিতে অভিনব বিয়ের প্রস্তাব দেন তিনি। কূটনীতিক সুরক্ষা স্কোয়াড অফিসারদের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী পাহাড়ের চূড়ায় উঠে গেফোর্ড তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন।

দুই বছর বয়সী একটা কন্যা সন্তান রয়েছে জাসিন্ড-গেফোর্ডের। তার নাম নেভ তে আরোহা। সন্তান জন্মের পর জাসিন্ডা বলেছিলেন, ‘আমি এমন একজন সঙ্গী পেয়েছি যে সবসময় পাশে থাকবে। সন্তান লালন-পালনে মা-বাবার যে দায়িত্ব, তার বড় অংশটাই সে কাঁধে তুলে নিয়েছে।’

২০১২ সালে একটি অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে আরডার্ন ও গেফোর্ডের প্রথম দেখা হয়েছিল। আরডার্ন রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে থাকা অবস্থায় সন্তানের জন্ম দেয়া দ্বিতীয় কোনো বিশ্ব নেতা।

তবে জাসিন্ডার আগেও একজন প্রধানমন্ত্রী দায়িত্বে থাকাকালীন মা হয়েছেন। তিনি হলেন পাকিস্তানের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো। ১৯৯০ সালে তিনি সন্তানের জন্ম দেন।

মাইকেল ভনের টুইট, কোহলি না থাকায় সহজেই টেস্ট সিরিজ জিতবে অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক : ২০১৮ সালের পুণরাবৃত্তি হবে না, অর্থাৎ ওই বছর অস্ট্রেলিয়া সফরে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছিল বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন ভারত। চলতি মাসে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে আবারও সে দেশে যাচ্ছে কোহলিরা। তবে এবারের সফরে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ভারতীয় অধিনায়ককে পাওয়া গেলেও পাওয়া যাবে না পুরো টেস্ট সিরিজে।

সন্তানসম্ভাবা স্ত্রীর পাশে থাকতে অস্ট্রেলিয়া সফরে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজে একটি মাত্র টেস্ট খেলে দেশে ফিরবেন সময়ের অন্যতম সেরা এই ক্রিকেটার। পুরো টেস্ট সিরিজে কোহলি না থাকায় অস্ট্রেলিয়া সহজেই সিরিজ জিতবে বলে মন্তব্য করেছেন ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার মাইকেল ভন। এক টুইটবার্তায় তিনি এমন মন্তব্য করেন।

কোহলির ছুটির বিষয়টি ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন ইংল্যান্ডের সাবেক এই অধিনায়ক। ভন বলেন, অস্ট্রেলিয়া সফরে কোহলি তিন টেস্টের জন্য নেই। প্রথম সন্তানের জন্মের সময়টার জন্য এটা সঠিক সিদ্ধান্ত। তার মানে অস্ট্রেলিয়া খুব সহজেই সিরিজটি জিতবে।

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ শেষে গোলাপি বলের টেস্ট দিয়ে শুরু হবে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। ১৭ ডিসেম্বর অ্যাডিলেড ওভালে হবে দিবারাত্রির ম্যাচটি। দ্বিতীয় টেস্ট হবে ২৬ ডিসেম্বর, মেলবোর্নে। তৃতীয় টেস্ট ৭ জানুয়ারি, সিডনিতে। সিরিজের চতুর্থ ও শেষ টেস্ট হবে ১৫ জানুয়ারি, গ্যাবাতে।

টেস্ট স্কোয়াড: বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), রোহিত শর্মা, মায়াঙ্ক আগারওয়াল, পৃথ্বী শ্বো, লোকেশ রাহুল, চেতেশ্বর পুজারা, আজিঙ্কা রাহানে (সহ-অধিনায়ক), হনুমান বিহারি, শুভমান গিল, ঋদ্ধিমান সাহা (উইকেটরক্ষক), রিষভ পন্ত (উইকেটরক্ষক), জসপ্রিত বুমরাহ, মোহাম্মদ শামি, উমেশ যাদব, নবদীপ সাইনি, কুলদীপ যাদব, রবীন্দ্র জাদেজা, রবিচন্দ্র অশ্বিন এবং মোহাম্মদ সিরাজ। – ক্রিকফ্রেঞ্জি/ ক্রিকইনফো