এএসপি আনিসুল করিম হত্যা : ১০ আসামি ৭ দিন করে রিমান্ডে

ডেস্ক রিপাের্ট : জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুল করিমকে হত্যার অভিযোগে করা মামলায় ‘মাইন্ড এইড’ হাসপাতালের মার্কেটিং ম্যানেজার আরিফ মাহমুদ জয়সহ ১০ আসামির সাতদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) বিকালে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম শহিদুল ইসলাম এই আদেশ দেন।

এর আগে গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতে হাজির করা হয়। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য প্রত্যেককে ১০ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদাবর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মোহাম্মদ ফারুক মোল্লা। শুনানি শেষে প্রত্যেকের সাতদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, আসামিরা সবাই হাসপাতালে বাবুর্চি, ওয়ার্ডবয়, মার্কেটিং অফিসার ও কো-অর্ডিনেটর হিসেবে কর্মরত। মামলার এজাহারে বর্ণিত ১১-১৫ নম্বর ক্রমিকে আসামিরা অনুমাদেন ব্যতীত হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠা করে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণার মাধ্যমে চিকিৎসার নামে অবৈধ অর্থ অর্জন করে আসছিল।

এতে আরও বলা হয়, এই মামলার ভিকটিম আনিসুল করিমকে উন্নত চিকিৎসার আশায় মামলার বাদী গত ৯ নভেম্বর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। মানসিক চিকিৎসা দিতে পারেন এমন কোনো ডাক্তার হাসপাতালে কর্তব্যরত ছিলেন না। আসামিরা চিকিৎসা দেয়ার অজুহাতে ভিকটিমকে বলপ্রয়োগ করে হাসপাতালের দোতলায় স্থাপিত একটি অবজারভেশন কক্ষে নিয়ে যায়। আসামিরা ভিকটিমকে মারতে মারতে অবজারভেশন কক্ষে ঢোকায়। তার ঘাড়, পিঠ ও মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে উপর্যুপরি আঘাত করে রুমের মধ্যে উপুড় করে ফেলে দেয়। কয়েকজন ভিকটিম পিঠে চড়ে বসে, কয়েকজন মাথার ওপর আঘাত করে, কয়েকজন দুই হাত পিঠমোড়া করে ওড়না দিয়ে বাঁধে।

‘আসামিদের এমন অমানসিক নির্যাতনে ভিকটিম আনিসুল করিমের মৃত্যু হয়। এজাহারনামীয় ১১-১৫ নম্বর ক্রমিকে বর্ণিত আসামিরা পলাতক। তাদের বর্তমান অবস্থান নির্ণয়পূর্বক গ্রেফতারের স্বার্থে পুলিশ হেফাজতে এনে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।’

এএসপি শিপনকে মারধরের ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হলেন- হাসপাতালের মার্কেটিং ম্যানেজার আরিফ মাহমুদ জয়, কো-অর্ডিনেটর রেদোয়ান সাব্বির, কিচেন সেফ মো. মাসুদ, ওয়ার্ডবয় জোবায়ের হোসেন, ফার্মাসিস্ট মো. তানভীর হাসান, ওয়ার্ডবয় মো. তানিম মোল্লা, সজীব চৌধুরী, অসীম চন্দ্র পাল, মো. লিটন আহাম্মদ ও মো. সাইফুল ইসলাম পলাশ।

সোমবার (৯ নভেম্বর) দুপুর পৌনে ১২টায় মানসিক সমস্যার কারণে হাসপাতালে আসেন এএসপি আনিসুল করিম। অসুস্থতা নিয়ে হাসপাতালটিতে ভর্তির কিছুক্ষণ পরই মারা যান তিনি। হাসপাতালের অ্যাগ্রেসিভ ম্যানেজমেন্ট রুমে তাকে মারধরের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে।

দীর্ঘক্ষণ অচেতন থাকা অবস্থায়ও তাকে ভর্তি কার্যক্রম করা হয়নি। কিছুক্ষণ পর ১২টার দিকে তাকে হাসপাতালের লোকজন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান হাসপাতালে নেয়ার আগেই মৃত্যু (ব্রট ডেথ) হয় শিপনের।

এ ঘটনায় আদাবর থানায় হত্যা একটি মামলা করা হয়েছে। মঙ্গলবার আনিসুল করিম শিপনের বাবা বাদী হয়ে ১৫ জনকে আসামি করে এ মামলা করেন। মামলা নম্বর ৯।

হাসপাতালটির সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, সকালে আনিসুল করিম শিপন হাসপাতালে ঢোকার পরই ছয়-সাতজন তাকে টানাহেঁচড়া করে একটি কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে তাকে মাটিতে ফেলে চেপে ধরেন। এ সময় মাথার দিকে থাকা দুজন হাতের কনুই দিয়ে তাকে আঘাত করছিলেন। হাসপাতালের ব্যবস্থাপক আরিফ মাহমুদ তখন পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। একটি নীল কাপড়ের টুকরা দিয়ে শিপনের হাত পেছনে বাঁধা হয়। চার মিনিট পর তাকে যখন উপুড় করা হয়, তখনই ধীরে ধীরে নিস্তেজ হয়ে পড়েন শিপন।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেছে, উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করায় তারা পুলিশ কর্মকর্তাকে শান্ত করার চেষ্টা করেছিলেন।

আনিসুল করিম শিপন ৩১তম বিসিএসে পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান। সর্বশেষ তিনি বরিশাল মহানগর পুলিশে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি গাজীপুরের কাপাসিয়ায়। তিনি এক সন্তানের জনক। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের ৩৩ ব্যাচের ছাত্র ছিলেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।

সম্মিলিত প্রচেষ্টা থেকে বিচ্যুতি মানবজাতির জন্য বিপর্যয় নিয়ে আসবে: প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈষম্য হ্রাস, দারিদ্র্য নির্মূল ও ধরিত্রী রক্ষায় একযোগে বহুমুখী প্রচেষ্টা চালানোর জন্য বিশ্ব নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘কোভিড-১৯ মহামারি স্মরণ করিয়ে দেয়, প্রত্যেকে নিরাপদ না হওয়া পর্যন্ত কেউই নিরাপদ নয়। এ জন্য বৈষম্য হ্রাস, দারিদ্র্য বিমোচন এবং কার্বন নিঃসরণ হ্রাস করে আমাদের গ্রহকে সুরক্ষিত করতে হবে এবং আমাদের বহুমুখী প্রয়াসকে আরও জোরদার করতে হবে।’

স্পেন সরকার আয়োজিত ‘বহুপাক্ষিকতা জোরদারে পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান’ শীর্ষক উচ্চ পর্যায়ের এক অনুষ্ঠানে প্রচারিত পূর্বে ধারণকৃত ভিডিও বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী আজ এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকের গ্লোবালাইজড বিশ্বে গঠনমূলক বহুমুখিতার কোনো বিকল্প নেই, মানবজাতির অভিন্ন অগ্রগতি এবং আইন-ভিত্তিক আন্তর্জাতিক নির্দেশনার এটিই একমাত্র পথ।’

কোভিড-১৯ মহামারি আমাদের এই শিক্ষা দিয়েছে যে, সম্মিলিত কার্যক্রম, একতা এবং আন্তর্জাতিক সহযোগিতার ওপরই বৈশ্বিক সমৃদ্ধি নির্ভর করছে উল্লেখ তিনি বলেন, ‘ইতিহাস প্রমাণ করে যে, সম্মিলিত প্রচেষ্টা থেকে যেকোনো বিচ্যুতি মানবজাতির জন্য বিপর্যয় নিয়ে আসবে।’

মহামারি সংকটের মোকাবিলা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের জনগণের জীবিকার সুরক্ষায় আমরা ইতোমধ্যেই ১৪ দশমিক ১৪ বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ দিয়েছি, যা আমাদের জিডিপি’র ৪ দশমিক ৩ শতাংশ।’

তিনি বলেন, ‘মহামারির প্রভাব সত্ত্বেও সরকারের সময় উপযোগী পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশ ৫ দশমিক ২৪ শতাংশ জিডিপি অর্জন করেছে।’

তিনি বলেন, ‘বৈশ্বিক পর্যায়ে বহুমুখী প্রচেষ্টা না নিলে বৈশ্বিক পুনরুদ্ধার হবে না এবং কখনোই সেটি টেকসই হবে না।’

বিশ্বে সাম্প্রতিক সংরক্ষণবাদী প্রবণতা এবং কিছু দেশে বিদেশিদের ব্যাপারে আতঙ্কের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এতে নিরীহ মানুষের জন্য আরও ভোগান্তি এনে দিতে পারে এবং শান্তিপূর্ণ বহুপাক্ষিক পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘এ কারণে আমাদের সবাইকে আন্তর্জাতিক শান্তি, সুরক্ষা এবং বিশ্বব্যাপী উন্নয়নের জন্য ক্ষতিকর এই জাতীয় ক্রিয়াকলাপ থেকে বিরত থাকা উচিত।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ বহুপক্ষীয়তার পতাকা বাহক এবং জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা বাহিনীতে সর্বোচ্চ উপস্থিতি এবং শান্তি প্রতিষ্ঠায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক শান্তি ও সুরক্ষার পক্ষে জোরালোভাবে কাজ করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এসডিজি বাস্তবায়নে “গোটা সমাজ” এই নীতি অবলম্বন করেছি, আমরা প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নে সমানভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

দ্বিতীয়বারের মতো ৪৮ সদস্যের ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের নেতৃত্বের জন্য নির্বাচিত হওয়ায় বাংলাদেশ সম্মানিত বোধ করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা এলডিসি অবস্থান থেকে উন্নয়ন ঘটিয়েছি, এ ক্ষেত্রে জাতিসংঘ ব্যবস্থা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এতে বহুপাক্ষিকতার প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতি ও আস্থা প্রতিফলিত হয়েছে।’

জাতিসংঘের ৭৫তম বার্ষিকী স্মরণে বাংলাদেশে ২১ সেপ্টেম্বর রাজনৈতিক ঘোষণা গৃহীত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ঘোষণায় আমরা আমাদের একীভূত সমৃদ্ধির জন্য অংশীদারিত্বের দায়িত্ব এবং সম্মিলিত প্রচেষ্টার ওপর জোর দিয়েছি এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য সমূহের জন্য ২০৩০ সালের এজেন্ডা এগিয়ে নিতে এবং প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্ব দিয়েছি। যদিও এসব আন্তর্জাতিক উপাদান ও বোঝাপড়া থেকে সুবিধাগুলো অর্জনে বলিষ্ঠ বহুপক্ষীয়তা প্রয়োজন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বহুপাক্ষিকতা ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতার চেতনা বাংলাদেশের সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, এখানে বলা হয়েছে: ‘আমরা স্বাধীনতায় উন্নতি করতে পারি এবং মানবজাতির প্রগতিশীল আকাঙ্ক্ষাগুলো বজায় রেখে আন্তর্জাতিক শান্তি ও সহযোগিতার প্রতি আমাদের পূর্ণ অবদান রাখতে পারি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে (ইউএনজিএ) তার ভাষণে সম্মিলিত প্রচেষ্টার গুরুত্ব এবং জাতিসংঘের ভূমিকার কথাও তুলে ধরেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, জাতিসংঘ দুঃখ, দুর্দশা এবং সংঘাতের এই পৃথিবীতে ভবিষ্যৎ মানুষের আশার কেন্দ্র হয়ে থাকবে। তার মন্তব্য এখনো আমাদের বহুপাক্ষিকতার ভিত্তি হয়ে আছে।’

অনুষ্ঠানে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ বক্তব্য রাখেন। এ ছাড়া, সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন লোফভেন এবং কোস্টারিকার প্রেসিডেন্ট সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট, কানাডার প্রধানমন্ত্রী, নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী, জর্ডানের উপ-প্রধানমন্ত্রী, সেনেগালের পররাষ্ট্র মন্ত্রী, তিউনিসিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী এবং কেরিয়ার পররাষ্ট্র বিষয়ক ভাইস মিনিস্টারের পূর্ব ধারণকৃত ভিডিও ভাষণ অনুষ্ঠানে সম্প্রচার করা হয়।

জাতিসংঘের ৭৫তম বার্ষিকী উদযাপনের ভিডিও এবং জাতিসংঘ মহাসচিবের মন্তব্যের একটি ভিডিও প্রদর্শিত হয়।- বাসস

১৯৫ কোটি টাকা পাচারের মামলায় ইসমাইল হােসেন সম্রাটকে গ্রেপ্তার দেখানো হলো

নিজস্ব প্রতিবেদক : ক্যাসিনোকাণ্ডে গ্রেপ্তার বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের বিরুদ্ধে ১৯৫ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে করা মানি লন্ডারিং মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনসারী তাকে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেন।

এর আগে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) তাকে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন করেন।

আজ তার উপস্থিতিতে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদনের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। বিচারক শুনানি শেষে তাকে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেন।

গত ১৩ সেপ্টেম্বর রাজধানীর রমনা থানায় মামলাটি করেন সিআইডি।

কাকরাইলের বাসায় অবস্থান করে অবৈধ কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অর্জিত ১৯৫ কোটি টাকা সহযোগী এনামুল হক আরমানের (৫৬) সহায়তায় সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় পাচার করায় মামলাটি করা হয়েছে।

ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট রাজধানীর মতিঝিল, ফকিরাপুল, পল্টন ও কাকরাইল এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে এসব অবৈধ অর্থ উপার্জন করেছেন। তার উপার্জিত অর্থের মধ্যে ১৯৫ কোটি টাকা তার সহযোগী আরমানের সহায়তায় তিনি সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় পাচার করেছেন বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

সম্রাটের বিদেশ ভ্রমণের পর্যালোচনামূলক তথ্যও এ মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। তিনি ২০১১ সালের ২৭ ডিসেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ৯ আগস্ট পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় তিনবার, দুবাইতে দু’বার এবং হংকংয়ে একবার ভ্রমণ করেছেন। আর তার অপরাধকর্মের সহযোগী আরমান ২০১১ সালের ১২ ডিসেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ১৮ মে পর্যন্ত সিঙ্গাপুরে ২৫বার যাতায়াত করেছেন।

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরুর পর গত বছরের ৫ অক্টোবর ভোর ৫টার দিকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রাম থেকে আত্মগোপনে থাকা সম্রাট ও তার সহযোগী আরমানকে আটক করা হয়।

ওইদিন দুপুরে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি দল তাকে নিয়ে তার কার্যালয়ে তালা ভেঙে কাকরাইলে ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারে অভিযান শুরু করে।

সম্রাটের কাকরাইলের কার্যালয় থেকে একটি পিস্তল, বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ ও দুটি ক্যাঙারুর চামড়া উদ্ধার করা হয়।

বিদেশি মদ ও বন্যপ্রাণীর চামড়া রাখার দায়ে তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ওই সময় র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

বেকায়দায় পড়ে আর্মেনিয়ার চুক্তি, সংসদ ভাঙচুর করল বিক্ষুব্ধরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিতর্কিত নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে আজারবাইজানের সঙ্গে আর্মেনিয়ার গত ছয় সপ্তাহের প্রচণ্ড যুদ্ধের অবসান হয়েছে। রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আর্মেনিয়া এরই মধ্যে একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে যাতে ইয়েরেভান অধিকৃত অঞ্চল থেকে সমস্ত সেনা প্রত্যাহারের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) থেকেই বলবৎ হয়েছে চুক্তির শর্ত। যদিও বিতর্কিত অঞ্চলের জমি খুইয়ে এই চুক্তিকে অত্যন্ত ‘বেদনাদায়ক ও প্রবল ক্ষতি’ বলে উল্লেখ করেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান।

এ দিকে শান্তিচুক্তিতে আজারবাইজানের শর্ত মেনে কার্যত আত্মসমর্পণ করার অভিযোগে উঠেছে প্রধানমন্ত্রী পাশিনিয়ানের বিরুদ্ধে। দেশটির রাজধানী ইয়েরভানের রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখায় হাজার হাজার মানুষ। সরকারি দপ্তরে ভাঙচুর চালায় উত্তেজিত জনতা। আর্মেনিয়ার সংসদ ভবনে ঢুকেও বিক্ষোভ প্রদর্শন করে বিক্ষুব্ধ জনতা।

পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছে যায় যে, জনরোষে প্রবল মার খেয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন আর্মেনীয় পার্লামেন্টের স্পিকার আরারাত মিরজওয়ান। বিক্ষুব্ধদের মধ্যে ছিলেন প্রাক্তন সৈনিক থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ।

তাদের অভিযোগ, নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলে আজারবাইজানের শর্ত মেনে দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন নিকোল পাশিনিয়ান।

রবিবার কারাবাখের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর শুশা তারা দখল করে নিয়েছে বলে দাবি করে আজেরি সেনারা। আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিজেভ এই কথা ঘোষণা করার পরপরেই বাকু শহরের সড়কে নেমে উচ্ছ্বাস দেখাতে থাকেন সাধারণ মানুষ।

এ সময় তুরস্কের রাজনৈতিক নেতারাও অভিনন্দন জানান। গুরুত্বপূর্ণ এই খবরের সত্যতা স্বীকার করেছেন নাগোরনো-কারাবাখের স্বঘোষিত স্বাধীন অঞ্চলটির সামরিক বাহিনী ‘আর্টসাক ডিফেন্স আর্মি’র শীর্ষ কর্তারা। ফলে রীতিমতো বেকায়দায় পড়েই যে আর্মেনিয়া চুক্তি স্বাক্ষর করেছে তা স্পষ্ট।

উল্লেখ্য, গত সেপ্টেম্বর মাসের ২৭ তারিখ থেকে আর্মেনীয় অধ্যুষিত বিতর্কিত নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলের দখল নিয়ে জোর লড়াই শুরু করছে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান। রুশ পৌরহিত্যে দু’বার সংঘর্ষবিরতি চুক্তি হলে তা ক্ষণস্থায়ী হয়।

তাই ককেশাসে শান্তি ফেরাতে কয়েকদিন আগে দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে আলাদাভাবে ওয়াশিংটনে বৈঠকে বসেন মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব মাইক পম্পেও। তবে সেই চেষ্টায় ব্যর্থ হয়। ফলে দুই দেশের মধ্যে লড়াই আরও তীব্র হয়েছে। যুদ্ধে এ পর্যন্ত পাঁচ হাজারের অধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

মিলিন্দের সঙ্গে নাগা সন্ন্যাসীদের নগ্নতার তুলনা!

বিনােদন ডেস্ক : মিলিন্দ সুমনের ‘শিল্পরুচিসম্মত’ নগ্ন ছবি নিয়ে বিতর্ক ও পুলিশে অভিযোগ মানতে পারছেন না এক সময়ের অভিনেত্রী ও লেখিকা পূজা বেদি। প্রতিবাদের পাশাপাশি নাগা সন্ন্যাসীদের নিয়ে মন্তব্য করলেন।

২ নভেম্বর নিজের ৫৫তম জন্মদিনে দক্ষিণ গোয়ার সমুদ্র সৈকতে নগ্ন হয়ে ছুটেছিলেন মিলিন্দ। ক্যাপশনে লেখেন, “হ্যাপি বার্থডে টু মি। ৫৫ অ্যান্ড রানিং।” ছবিটি তুলে দিয়েছিলেন তার স্ত্রী অঙ্কিতা কোনওয়ার।

সেই সূত্রে অশ্লীলতাকে ‘উৎসাহ’ দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। প্রথম ভারতীয় সুপারমডেল মিলিন্দ সুমনের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৯৪ ধারা (অশ্লীল কর্মকাণ্ড) এবং ৬৭ ধারায় (অশ্লীল ছবি প্রকাশ) মামলা গ্রহণ করা হয়।

এ প্রসঙ্গে পূজা টুইটে লেখেন, “ছবিটায় কোনো অশ্লীলতা নেই। এটি খুবই শিল্পরুচিসম্মত। অশ্লীলতা রয়েছে যিনি দেখছেন তার মনে। ওর দোষটা কী? দেখতে সুন্দর হওয়া, জনপ্রিয় হওয়া ও বেঞ্চমার্ক তৈরি করা? যদি নগ্নতা অপরাধ হয় তাহলে সব নাগা সন্ন্যাসীকে গ্রেপ্তার করা উচিত। গায়ে ছাই মাখলেই সেটা শ্লীল হয়ে যায় না।” সঙ্গে বেশ কয়েকটি ছবিও পোস্ট করেন তিনি।

অবশ্য মিলিন্দের বিরুদ্ধে মামলার পেছনে অন্য একটি ঘটনার যোগ রয়েছে। কয়েক দিন আগেই গোয়ার কানাকোনা শহরের একটি বাঁধে ‘অশ্লীল’ ভিডিও শুট গ্রেপ্তার হন অভিনেত্রী-মডেল পুনম পাণ্ডে ও তার স্বামী স্যাম বম্বে। পরে তাদের শর্তসাপেক্ষে জামিন মেলে। এর পর মিলিন্দের ঘটনা আবার সামনে আনেন অনেকে।

এ দিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় নতুন ছবি দিয়ে আরও একবার ভাইরাল লিস্টে উঠে এল মিলিন্দের নাম।

সম্প্রতি একটি ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন তিনি। যেখানে মিলিন্দের মুখের একপাশে লাল আবির, নাকে নথ, চোখে কাজল পরেছেন। ক্যাপশনে লেখেন, “আমি জানি এখন হোলি নয়, কিন্তু মুম্বাইয়ের খুব কাছে কারাটে বেশ কয়েক দিন সময় কাটিয়ে বেশ আনন্দ উপভোগ করেছি। ক্রমশ প্রকাশ্য। এখন চেন্নাইয়ে।”

অবশ্য পূজার মন্তব্যের পর অনেকেই পুরোনো একটি ঘটনা স্মরণ করছেন। কয়েক দশক আগে তার মাও নগ্ন দৌড় দিয়ে আলোচনার ঝড় তোলেন। মডেল-অভিনেত্রী ও নৃত্যশিল্পী প্রতিমা বেদি ১৯৭৪ সালে সিনে ব্লিৎজের একটা প্রোমোর জন্য একেবারে নগ্ন হয়ে সমুদ্র সৈকতে শুটিং করেছিলেন।

শুটিং শেষে ‘বর্ডার’

বিনােদন ডেস্ক : ‘বর্ডার’ সিনেমার শুটিং শেষের ঘোষণা দিলেন পরিচালক সৈকত নাসির। মঙ্গলবার সকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় জানালেন, ক্যামেরা ক্লোজ করেছেন।

করোনার নিউ নরমালে বেশ কিছু সিনেমার দৃশ্যায়ন শুরু ও শেষ হয়েছে। সেই তালিকায় এবার যুক্ত হয়েছে ‘দেশা দ্য লিডার’ নির্মাতার এই ছবি।

কয়েক দিন আগে সৈকত নাসির জানান, টানা ১৯ দিন আউটডোরে শুটিং করেছেন। আর একদিন শুটিং হবে এফডিসিতে। সেই শুটিং শেষে প্যাকআপের ঘোষণা আসলো।

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের মানুষদের জীবনযাত্রা ও ওই অঞ্চলের চোরাচালান নিয়ে নির্মিত হচ্ছে ‘বর্ডার’।

সৈকত নাসির বলেন, সীমান্ত অঞ্চলে এমন কিছু ঘটনা যা দর্শকদের সামনে তুলে ধরেছি যা লুফে নেবে। কাজটি করার আগে বিভিন্ন লোকেশনে গিয়ে সীমান্তবর্তী এলাকায় গিয়েছি। বিভিন্ন কিছু স্টাডি করেছি।

ম্যাক্সিমাম এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে নির্মিতব্য এ ছবিতে অভিনয় করেছেন আশীষ খন্দকার, সাঞ্জ জন, অধরা খান, মৌমিতা মৌ, ফারুক সুমন প্রমুখ।

এবার স্ত্রীসহ কােভিড আক্রান্ত ক্রিকেটার মুমিনুল হক

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের পর এবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক।

মুমিনুল জানিয়েছেন, তার স্ত্রী ফারিহা বাশার করোনায় পজিটিভ। সোমবার কভিড পরীক্ষার পর এ বিষয়ে নিশ্চিত হন তারা।

পজিটিভ হওয়ার কারণে আসন্ন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি খেলতে পারবেন কি না, তা নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন মুমিনুল। তারকা ক্রিকেটার অবশ্য বলেছেন, যেকোনো মূল্যে মাঠে ফিরতে চান।

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের করোনা ধরা পড়ে দুদিন আগে। পাকিস্তান যাওয়ার উদ্দেশ্যে কভিড পরীক্ষা করতে হয়েছিল তাকে। সেখানেই করোনার বিষয়টি বুঝতে পারেন।

ক্রিকেটারদের মধ্যে এখন পর্যন্ত করোনা সবচেয়ে ভুগিয়েছে মাশরাফীকে। দীর্ঘদিন পজিটিভ ছিলেন। তার গোটা পরিবারকেই রোগটির বিরুদ্ধে লড়াই করতে হয়েছে।

মাশরাফীর করোনা ধরা পড়ে ২০ জুন। তখন ঢাকা থেকে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এ বি এম আব্দুল্লাহ তার জন্য প্রেসক্রিপশন পাঠান।

পরিবারের অন্যরা দ্রুত সেরে উঠলেও মাশরাফীকে ভুগতে হয়। শেষ পর্যন্ত মুক্তি পান ১৪ জুলাই।

যৌনতার চেয়েও দামি তিন জিনিসের কথা জানালেন কিয়ারা আদভানি

বিনোদন ডেস্ক : ‘লাস্ট স্টোরিজ’-এ স্বমেহনের দৃশ্যে অভিনয় করে ঝড় তুলেছিলেন কিয়ারা আদভানি। জোয়া আখতার, কারণ জোহর, অনুরাগ কাশ্যপ এবং দিবাকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিচালনায় চারটি শর্ট ফিল্মের সমন্বয় ছিল এই ‘লাস্ট স্টোরিজ’। এর মধ্যে কারণের গল্পটিতে কিয়ারা এক নববধূর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। যিনি স্বামীর সঙ্গে যৌন মিলনে অখুশি ছিলেন। সেখানেই ছিল স্বমেহনের দৃশ্যটি। খবর- আনন্দবাজার পত্রিকা।

২০১৪ সালে অভিনয় জগতে পা দেন কিয়ারা। কিন্তু ২০১৮ সালে ‘লাস্ট স্টোরিজ’-এরপরই মূলত কিয়ারা জনপ্রিয়তা পান। তারপর থেকে যে কোনো শোয়ে ‘সেক্স’ নিয়ে তাকে প্রশ্ন করাটা যেন সাধারণ একটা বিষয় হয়ে গিয়েছে। সম্প্রতি টুইঙ্কেল খান্নার অনলাইন চ্যানেল ‘টুইক ইন্ডিয়া’র জন্য ভিডিও শুট করেন কিয়ারা। সেখানে তাকে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পরপর অনেকগুলো প্রশ্ন করা হয়। কিয়ারাকে সেগুলোর চটজলদি উত্তর দিতে হয়েছে।

কিয়ারাকে এমন তিনটি জিনিসের নাম বলতে বলা হয় যা তার কাছে সেক্সের চেয়েও অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

উত্তরে কোন তিনটি জিনিস কিয়ারা বলেছেন জানেন?

দারুণ সুস্বাদু পিৎজা, শপিং এবং ভালো সিনেমা। তালিকার ১ নম্বরে পিৎজা রেখেছেন তিনি।

কলেজ জীবনের এক ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথাও বলেন কিয়ারা। কলেজ থেকে বেড়াতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাদের। ঠাণ্ডায় হোটেলের ঘরে রুমহিটার চলছিল। সেই হিটার থেকে আগুন লেগে যায় ঘরে। তবে কেউই আহত হননি।

কিয়ারা আবার চান শুঁয়োপোকা হতে। কেন?

যাতে প্রজাপতি হয়ে উড়ে যেতে পারেন।

১৯৯২ সালে মুম্বাইয়ে জন্ম কিয়ারার। তার আসল নাম আলিয়া আদভানি। অভিনয়ে আসার পর সালমান খানের কথাতে তিনি নিজের নাম বদলে নেন। কারণ আগে থেকেই ইন্ডাস্ট্রিতে জায়গা করে নিয়েছিলেন আলিয়া ভাট।

তার বাবা জগদীপ আদভানি ব্যবসায়ী এবং মা জেনেভিয়েভ পেশায় শিক্ষিকা। কিয়ারার দাদা লখনৌয়ের জাভেরি পরিবারের সদস্য। দাদি ইউরোপীয় বংশোদ্ভূত। ফলে শৈশব মিশ্র সংস্কৃতির অংশ কিয়ারা।

মুম্বাইয়ের জয় হিন্দ কলেজ ফর মাস কমিউনিকেশনের প্রাক্তন ছাত্রী আলিয়া তথা কিয়ারার বলিউডে আত্মপ্রকাশ ২০১৪ সালে ‘ফুগলী’ ছবিতে। এরপর ‘এম এস ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ ছবিতে তিনি নজর কাড়েন। এছাড়া মেশিন, কলঙ্ক, গুড নিউজ, কবির সিং ছবিতেও তার কাজ প্রশংসিত হয়েছে।

অজয়ের পরিচালনায় অমিতাভ বচ্চন

বিনোদন ডেস্ক : অভিনয়ের পাশাপাশি চুটিয়ে প্রযোজনার দায়িত্ব সামলে চলেছেন অজয় দেবগন। এবার ফিরলেন পরিচালনায়। চার বছর পর পরিচালকের দায়িত্ব নিজের কাঁধে নিলেন অজয়। তৈরি করবেন নতুন ছবি ‘মে ডে’। আর তাতে মুখ্য ভূমিকায় দেখা যাবে অজয়ের প্রিয় অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনকে। খবর সংবাদ প্রতিদিনের।

নিজের অভিনয়ের অন্যতম অনুপ্রেরণা হিসেবে একাধিকবার অমিতাভ বচ্চনের নাম উল্লেখ করেছেন অজয়। খাকি, হিন্দুস্তান কি কসম, সত্যাগ্রহ, আগ ইত্যাদির মতো ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করেছেন দুই তারকা।

২০০৮ সালে প্রথম পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন অজয়। তৈরি করেছিলেন রোমান্টিক ড্রামা ছবি ‘ইউ মি অউর হাম’ (U Me Aur Hum)। ছবিতে অভিনয়ও করেছিলেন অজয় দেবগন। নায়িকা ছিলেন কাজল। অ্যালজেইমার্স রোগীর ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল তাকে। বক্স অফিসে বাজেটের অর্থ তুলতে সক্ষম হলেও সমালোচক মহলে তেমন প্রশংসা পায়নি ছবিটি। তারপর আর সেভাবে পরিচালনায় হাত দেননি অজয়।

পরে ২০১৬ সালে তৈরি করেন ‘শিবায়’। সে ছবিও বক্স অফিসে সাফল্য পায়নি। তাতে অবশ্য দমবার পাত্র নন বলিউডের ‘তানহাজি’। আবারও পরিচালনার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, বিপদের মুখে দাঁড়িয়ে মানুষের লড়াইয়ের কাহিনী নিজের এই নতুন ছবিতে তুলে ধরবেন অজয় দেবগন। মুখ্য চরিত্রে অমিতাভ বচ্চনের পাশাপাশি তাকেও দেখা যাবে ক্যামেরার সামনে। পাইলটের ভূমিকায় অভিনয় করবেন অজয়। তবে অমিতাভ বচ্চনের চরিত্র সম্পর্কে এখনও পর্যন্ত কিছু জানা যায়নি। ঠিক হয়নি ছবির বাকি অভিনেতা-অভিনেত্রীও। চিত্রনাট্যের চূড়ান্ত পর্বের কাজ চলছে বলেই জানা গিয়েছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ডিসেম্বর শুরু হবে ছবির শুটিং।

‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ নাটকে আর দেখা যাবে না শামীম ও তৌসিফকে

বিনোদন ডেস্ক : শুরু থেকেই দর্শকমনে জায়গা করে নিয়েছে হালের জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’। ভিন্ন ভিন্ন আঞ্চলিক ভাষার সংমিশ্রণ ও ভিন্ন চরিত্র থাকায় নাটকটি দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে খুব দ্রুত। কাজল আরেফিন অমির রচনা ও পরিচালনায় নাটকটির দুই সিরিজ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। এবার প্রচার শুরু হয়েছে তৃতীয় সিরিজ। তবে তৃতীয় সিরিজে থাকছে না নাটকের অন্যতম দুটি জনপ্রিয় চরিত্র ‘নেহাল’ ও ‘আরিফিন’। যেখানে নেহালের চরিত্রে দেখা যায় তৌসিফ মাহবুবকে এবং আরেফিন চরিত্রে থাকেন শামিম হাসান সরকার।

ব্যাচেলর পয়েন্ট প্রথম সিজন শুরু হয় ২০১৮ সালে। প্রথম পর্ব থেকেই ‘নেহাল’ ও ‘আরিফিন’ চরিত্রে অভিনয় করে আসছিলেন তৌসিফ মাহবুব ও শামীম হাসান সরকার। তবে হঠাৎ করেই এই দুজন না থাকায় ভক্তকুলের মধ্যেই কিছুটা হলেও নাড়া লেগেছে। কারণ ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’-এ ৫ জন বন্ধুর একটি বন্ধন ছিল, যা এবারের সিরিজে পাওয়া যাচ্ছে না।

তবে নাটক থেকে সরে দাঁড়ানোর উত্তর পাওয়া গেছে শামীমের ভেরিফাউড পেজ থেকেই। সেখানে তিনি লিখেছেন, তিনি নিজেকে আর স্ক্রিনে দেখতে চান না। শুধু যে ব্যাচেলর পয়েন্ট থেকে সরে এসেছেন তা নয়, তিনি সামনের মাস থেকে কোনো ধরনের ধারাবাহিকের নাটকে কাজই করবেন না। একমাস তিনি নিজেকে ফিট রাখবেন, এরপরেই কাজে যোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন। নিজের ইউটিউব চ্যানেল ‘ম্যাঙ্গো স্কোয়াড’ এ সময় দিতে চান তিনি।

তৌসিফ মাহবুব ও শামীম হাসান সরকার ‘ব্যাচেলর পয়েন্টে’ নাটক থেকে সরে দাঁড়ানোর পর এখন একটি প্রশ্ন ঘুরে ফিরে আসছে। ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ আগের মত সমান জনপ্রিয় থাকবে কিনা। দর্শকমনে ব্যাচেলর পয়েন্ট কতটা সাড়া ফেলতে পারবে তা নিয়েও সংশয় একাংশের।