করোনা টেস্ট করালেন সাকিব

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) আয়োজনে খেলোয়াড়দের ফিটনেস পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আগামী সোমবার থেকে। শারীরিক এই পরীক্ষায় নামার আগে আজ করোনা টেস্ট করালেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান।

সাকিবের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিসিবির চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরী। তিনি জানান, আগামীকাল সাকিবের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যাবে।

আজ ডাঃ দেবাশিষ বলেন, ‘ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে করোনা পরীক্ষা করিয়েছেন সাকিব। তবে বিসিবির নিয়মানুযায়ী এখানে তাকে আরও একবার করোনা পরীক্ষা করতে হবে। তাই আজ তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিসিবির আয়োজিত ফিটনেস সেশনে উপস্থিত হবার আগে, কালই তার পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যাবে।‘

সাকিবসহ ১১৩ জন ক্রিকেটারের ফিটনেস পরীক্ষা হবে আগামী ৯ ও ১০ নভেম্বর। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে বাধ্যতামূলক দিতে হবে ক্রিকেটারদের এই ফিটনেস পরীক্ষা।

প্রসঙ্গত, নিষেধাজ্ঞা শেষে শুক্রবার ভোরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরেন সাকিব। দেশের ফিরেই গুলশানে একটি সুপার শপের উদ্বোধন করেন তিনি। যদিও ব্যাপক জনসমাগমে সেখানে সাকিবের উপস্থিতি সমালোচনার জন্ম দিয়েছে।

আমেরিকার ৪৬তম প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : তুমুল লড়াই, উত্তেজনা, উৎকণ্ঠা ও দীর্ঘ অপেক্ষার সমাপ্তি ঘটিয়ে অবশেষে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ডেমোক্র্যাটের জো বাইডেন।

বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত ১০টার পর বার্তা এসোসিয়েট প্রেস এপি এই তথ্য জানিয়েছে।

গাধা প্রতীক নিয়ে ২৮৪টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট জিতে জো বাইডেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বেশি বয়সী (৭৭) প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। এখনও কয়েকটি রাজ্যের ভোট গণনা বাকি রয়েছে। তার ইলেকটোরাল ভোটের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জো বাইডেনের নিকটতম প্রতিন্দ্বন্দ্বী হাতি প্রতীকের রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ২১৪টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন।

ডাকযোগে ভোট দেয়ার সুযোগ থাকায় কয়েক দশকের মধ্যে এবারেই সর্বোচ্চসংখ্যক ভোট পড়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ‘ডাকযোগের সিংহভাগ ভোটই পেয়েছেন বাইডেন।’ কারণ প্রথম থেকেই ডাক ভোটের বিরোধিতা করে আসছেন ট্রাম্প। তবে আদালতের সিদ্ধান্তের কাছে হেরে যান তিনি।

ভোট জালিয়াতির অভিযোগ তুলে জর্জিয়া, পেনিসিনভেনিয়া ও মিশিগানের ভোট গণনা বন্ধের জন্য মামলা করেন ট্রাম্প। প্রমাণের অভাবে রাজ্যগুলোর স্থানীয় আদালত তার এই মামলাগুলো খারিজ করে দেয়।

ভয়ে আছে ডােনাল্ড ট্রাম্প; ক্ষমতা ছাড়ার পর ধর্ষণসহ বিভিন্ন মামলায় হতে পারে জেল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্টের পদ হারানোর পর ডোনাল্ড ট্রাম্পকে জেলে যেতে হতে পারে। তার বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা চলমান রয়েছে। কিন্তু প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাহী সুবিধার আওতায় সেগুলোকে ঠেকিয়ে রেখেছেন তিনি। কিন্তু পদ হারানোর পর এই সুবিধা আর তার থাকবে না।

হোয়াইট হাউজের একটি সূত্রকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড পবিত্র মিরর জানিয়েছে, ট্রাম্প এখন যে ভোট চুরির অভিযোগ তুলছেন তার একটি কারণ হলো জেলে যাওয়ার ভয়। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফেডারেল প্রসিকিউটর হ্যারি স্যান্ডিক বলেন, ট্রাম্পের হোয়াইট হাউজ ছেড়ে যাওয়ার পর প্রসিকিউটর ও সাক্ষীদের পক্ষে মামলা চালিয়ে যাওয়া সহজ হবে। ফৌজদারি মামলায় আদালতে হাজির হওয়ার জন্য উচ্চতর সুরক্ষা দাবি করতেন ট্রাম্প। কিন্তু প্রেসিডেন্ট পদে না থাকলে এমন দাবি তিনি করতে পারবেন না।

গত বছর সেপ্টেম্বরে প্রেসিডেন্টের আইনজীবী দল ম্যানহাটন অ্যাটর্নি কার্যালয়ের আদালতে হাজির হওয়ার একটি আদেশ প্রত্যাহারের চেষ্টা চালায়। ট্রাম্পের আট বছরের কর প্রদান নিয়ে মামলার শুনানিতে উপস্থিত হতে বলা হয়েছিল তাকে। এছাড়া নিউ ইয়র্কের আইনজীবীরা নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা করছেন প্লেবয় মডেল কারেন ম্যাকডোগাল ও পর্নতারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসকে অর্থ প্রদানের অভিযোগের ক্ষেত্রে ট্রাম্প অর্গানাইজেশন নথি জালিয়াতি করেছে কিনা। ম্যানহাটনে ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে।

এছাড়া রয়েছে আরও একাধিক মামলা। ধর্ষণ মামলাই রয়েছে কয়েকটি। ক্ষমতা হারালে তার বিরুদ্ধে কয়েকজন নারীর যৌন নিপীড়নের মামলার পথও উন্মুক্ত হবে। এদের মধ্যে রয়েছেন লেখক ই জিন ক্যারল। তিনি অভিযোগ করেছেন, ১৯৯০ দশকের মাঝামাঝিতে ম্যানহাটনের বার্গডর্ফ গুডম্যান ডিপার্টমেন্ট স্টোরের ট্রায়াল রুমে তাকে ধর্ষণ করেছেন ট্রাম্প। এই অভিযোগের বিষয়ে ট্রাম্প বলেছেন, তিনি আমার টাইপের না। ক্যারলের ধর্ষণের মামলায় ডিএনএ নমুনা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

সামার জারভোস নামের আরেক শিক্ষানবীশের মামলাও শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে। ২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে তিনি অভিযোগ করেছেন,২০০৭ সালে ট্রাম্প তাকে যৌন নিপীড়ন করেছেন। এই অভিযোগকে কাল্পনিক বলে উড়িয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প।

তবে সবচেয়ে বড় গুরুতর ও দ্রুত বিপদ নিয়ে আসতে পারে ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা। এই মামলায় ট্রাম্প দায়িত্বে থাকা সময়ের। প্রসিকিউটররা বাণিজ্যিক লেনদেন ও করের নথি চাইলেও ট্রাম্প তা প্রদানে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছেন। অন্তত পাঁচটি ক্ষেত্রে আদালত বলেছেন, এই অনুরোধ বৈধ। আরেকবার ক্ষমতায় থাকলে এসব মামলা চালিয়ে নেওয়ার পথ হয়তো চিরতরে বন্ধ করার পরিকল্পনা ছিল ট্রাম্পের। কিন্তু সে সময় হয়তো তিনি আর পাচ্ছেন না।

পরাজিত হলেও ২০ জানুয়ারি জো বাইডেন শপথ গ্রহণের আগে শেষ দিনগুলোতে হয়তো যে কোনও ফেডারেল অপরাধ থেকে নিজেকে দায়মুক্ত করতে সর্বাত্মক চেষ্টা চালাবেন ট্রাম্প। এরপরও ক্ষমতা ছাড়ার পর অন্য কয়েকটি মামলায় বড় ধরণের জেল-জরিমানার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। এখন এটাই তার বড় ভয়! – পার্সটুডে

কুরআন শরীফ অবমাননার গুজব ছড়িয়ে পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যা, প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

ডেস্ক রিপাের্ট : কুরআন শরীফ অবমাননার গুজব ছড়িয়ে লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলায় শহীদুন্নবী জুয়েল নামে এক ব্যক্তিকে হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামি আবুল হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)।

শনিবার (৭ নভেম্বর) ভোরে রাজধানীর ভাটারা থানার কুড়িল বিশ্বরোড এলাকা থেকে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল তাকে গ্রেপ্তার করে।

ডিএমপির মিডিয়া ও পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার (ডিসি) ওয়ালিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আবুল হোসেন দীর্ঘদিন ধরে পুলিশের নজরদারিতে ছিল। গোয়েন্দা পুলিশের মিরপুর বিভাগের এক টিমের কাছ থেকে গোপন সংবাদ আসে যে সে কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় থাকবে। পরে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের মিরপুর বিভাগের একটি টিম কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় অবস্থান নেয়। একপর্যায়ে ভোরে বাস থেকে কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় নামলে ডিবি পুলিশের টিম তাকে গ্রেপ্তার করে।

লালমনিরহাটের ওই চাঞ্চল্যকর ঘটনায় বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) দ্বিতীয় দফায় গ্রেপ্তার চারজনের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ২৯ অক্টোবর লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের ভেতরে আবু ইউনুস মো. শহিদুন্নবী জুয়েলকে হত্যার পরে লাশ টেনে নিয়ে লালমনিরহাট-বুড়িমারী জাতীয় মহাসড়কে পেট্রোল, কাঠখড়ি ও টায়ার দিয়ে পুড়িয়ে ছাই করে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় রুজু হওয়া তিনটি মামলায় এজাহার নামীয় ১১৪ জন আসামি ও অজ্ঞাত শত শত আসামির মধ্যে এখন পর্যন্ত ২৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হলো।

দেশে একদিনে করোনাভাইরাসে আরও ১৩ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১ হাজার ২৮৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আরও ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেছেন ৬ হাজার ৪৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ২৮৯ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ১৮ হাজার ৭৬৪ জন।

শনিবার (৭ নভেম্বর) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ হাজার ৪১৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ২৮৯ জনের দেহে কোভিড-১৯ সংক্রমণ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ১৮ হাজার ৭৬৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনায় এ পর্যন্ত ৬ হাজার ৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ সংক্রমণ থেকে মুক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৫৪১ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৫৬৮ জন।

এদিকে সারা বিশ্বে এখন পর্যন্ত ৪ কোটি ৯৭ লাখ ৫ হাজার ৭০৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ১২ লাখ ৪৯ হাজার ৩৯৪ জন। বিপরীতে সেরে উঠেছেন ৩ কোটি ৫২ লাখ ৮৫ হাজার ৭৪০ জন। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৪৯ জনের। মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ১৮ হাজার ৭৬৪ জন।

জেনারেল জিয়া বিপ্লব ও সংহতির মোড়কে ষড়যন্ত্র করে অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করেছিলেন – ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নিজস্ব বলয় শক্তিশালী করতে নিজের লোক দিয়ে কমিটি করা যাবে না। ত্যাগী কর্মীদের দূরে না রেখে কাছে টেনে নিতে হবে, তাদের রাজনীতির পথ মসৃণ করতে হবে। কারণ তারাই দলের দুঃসময়ে দলের পাশে থাকবে।

আজ শনিবার (৭ নভেম্বর) মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন ওবায়দুল কাদের।
ওবায়দুল কাদের বলেন, শক্তিশালী এবং গণমুখী সংগঠনের জন্য সাংগঠনিক ঐক্যের বিকল্প নেই। সংগঠনের মজবুত জনভিত্তি তৈরি করতে ঐক্যবদ্ধ হলে থাকতে হবে। সাম্প্রদায়িক অপশক্তি, মাদকসেবী ও চিহ্নিত অপরাধীদের বিষয় থেকে আগেভাগেই সতর্ক থাকতে হবে।
৭ নভেম্বরের বিষয়ে তিনি বলেন, সরাসরি বেনিফিশিয়ারি ছিলেন জেনারেল জিয়া। জেনারেল জিয়া বিপ্লব ও সংহতির মোড়কে সেদিন ষড়যন্ত্র করে অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের মহান অর্জন ও চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করতে, দেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যেতে ১৯৭৫ এর ৩ নভেম্বর থেকে ৭ নভেম্বরের মধ্যে অনেক ঘটনাই ঘটেছিল।
তিনি আরও বলেন, এদেশে আওয়ামী লীগের শেকড় মাটির অনেক গভীরে, জনগণই আওয়ামী লীগের অস্তিত্বের শেকড়।

মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট গোলাম মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহেদ মালেক এবং এমপি নাইমুর রহমান দুর্জয়, মমতাজ বেগম ও মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম।

সমবায় দিবসে প্রধানমন্ত্রী -নারীরা সমবায় কার্যক্রমে এগিয়ে এলে দুর্নীতি কমে আসবে

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নারীরা সমবায় কার্যক্রমে এগিয়ে এলে দুর্নীতি অনেকটা কমে যাবে। পাশাপাশি তাদের পরিবারও অনেক লাভবান হবে।

আজ শনিবার (৭ নভেম্বর) ‘৪৯তম জাতীয় সমবায় দিবস-২০২০’ উদযাপন এবং ‘জাতীয় সমবায় পুরস্কার-২০১৯’ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা সংবিধানে সমবায়ের কথা বলে গেছেন। বহুমাত্রিক সমবায়ের কথা বলেছেন। একা খাবো- এই মানসিকতা পরিহার করে নিজে খাবো সকলকে নিয়ে খাবো এই মানসিকতা নিয়ে কাজ করুন আপনারা।

শীতে করোনার প্রকোপ বাড়ে জানিয়ে সেখান থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, শীত আসছে। শীতে করোনার প্রকোপ কিছুটা বাড়ে, নিজেদের সেখান থেকে সুরক্ষিত রাখতে হবে। আমরা যে স্বাস্থ্য নির্দেশনা দিয়েছি সেগুলো মেনে চলতে হবে। ইউরোপের অনেক দেশ কিন্তু লকডাউন ঘোষণা করেছে, আমরা এখনো করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি।

৮ মৌসুম শিরোপাহীন, প্রশ্নবিদ্ধ কোহলির অধিনায়কত্ব

স্পোর্টস ডেস্ক : ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি যতটা সফল, ঠিক ততটাই যেন ব্যর্থ অধিনায়ক কোহলি। গত আট মৌসুম ধরে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর নেতৃত্বে থাকলেও কোন শিরোপা এনে দিতে পারেননি দলকে। যে কারণে কোহলিকে বেঙ্গালুরুর নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া উচিত বলে মনে করেন সাবেক ভারতীয় ওপেনার গৌতম গম্ভীর ও ধারাভাষ্যকার সঞ্জয় মাঞ্জারেকার।

কোহলির নেতৃত্বে তৃতীয়বারের মতো প্লে অফ খেলেছে বেঙ্গালুরু। যেখানে মাত্র একবার ফাইনাল খেলেছে তারা। যেখানে কি-না কোহলি অধিনায়ক না থাকাকালীন প্রথম পাঁচ মৌসুমে দুইবার ফাইনালে খেলেছে দলটি। প্রতিবার ব্যয়বহুল দল সাজালেও শিরোপা জেতা হয় না দলটির। যা অব্যাহত রেখেছে আইপিএলের চলতি মৌসুমেও।

এলিমিনেটরে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছে বেঙ্গালুরু। ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইট ইসপিএন ক্রিকইনফোকে গম্ভীর জানিয়েছেন, কোহলিকে এই ব্যর্থতার দায় নিতে হবে।

গম্ভীর বলেন, অবশ্যই সমস্যাটি দায়বদ্ধতার। ৮ বছরেও কোন ট্রফি নেই। আমাকে বলুন, অন্য কোনো অধিনায়কের কথা বাদই দিলাম, অন্য কোনো খেলোয়াড়ের কথা বলুন, ৮ বছর খেলেও যদি শিরোপা না জিতে তাহলে তাকে কি রাখা হতো? সুতরাং জবাবদিহিতা থাকা দরকার। অধিনায়কের জবাবদিহি করা দরকার। এটি কেবল এই বছরের ব্যাপার নয়। কোহলির সঙ্গে আমার কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু বাস্তবতা হলো, তার এগিয়ে এসে বলা উচিত, ‘হ্যাঁ, দায় আমারই।

অন্য দলের অধিনায়কদের উদাহরণ টেনেছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে দুইবার শিরোপা জেতা এই অধিনায়ক। অন্য দলগুলো যখন শিরোপা জিততে না পাারায় অধিনায়ককে সরিয়ে দিয়েছেন, সেখানে বেঙ্গালুরু কোহলিকেই আট বছর ধরে অধিনায়ক হিসেবে রেখেছে। তাই একেকজনের জন্য একেক রকম মানদ- থাকা উচিত নয় বলে মনে করেন ভারতের সাবেক এই ক্রিকেটার।

গম্ভীরের ভাষ্যমতে, ৮ বছর লম্বা একটা সময়। রবিচন্দ্রন অশ্বিনের দিকে খেয়াল করে দেখুন, দুই বছরের নেতৃত্বে (কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবে) সাফল্য এনে দিতে না পারায় তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। রোহিত শর্মা মুম্বাইকে চারটি ট্রফি এনে দিয়েছে, ধোনি চেন্নাইকে এনে দিয়েছে তিনটি। এজন্যই এত লম্বা সময় ধরে তারা নেতৃত্বে আছে। আমি নিশ্চিত, রোহিত সাফল্য এনে দিতে না পারলে তাকে সরিয়ে দিত। একেক জনের জন্য একেকরকম মানদ- থাকা উচিত নয়।

গম্ভীরের সঙ্গে সুর মিলিয়ে মাঞ্জারেকার অবশ্য মালিকপক্ষকে দায় দিচ্ছেন। তিনি জানিয়েছেন, কোহলি কখনও নিজে থেকে এসে বলবে না আমি অধিনায়কত্ব করব না। যে কারণে ট্রফি জিততে হলে মালিকপক্ষকে এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন ভারতের সাবেক এই ব্যাটসম্যান।

মাঞ্জারেকার বলেন, দৃশ্যপট আর ফলাফল বদলাতে চাইলে আপনাকে অধিনায়ক বদলাতে হবে। আমি এমনটা আশা করছি না যে কোহলি নিজে থেকেই বলবে, আমি পারিনি। আমি চাই কাজটি মালিকপক্ষ করুক। বেঙ্গালুরুর ট্রফি জিততে না পারার পেছনে আমি প্রথমে মালিকপক্ষকেই দায় দেব। প্রত্যাশিত ফল এনে দেওয়ার মতো সঠিক কাউকে অধিনায়কের দাযিত্ব দিতে পারেনি তারা। – ক্রিকইনফো/ ক্রিকফ্রেঞ্জি

ডেস্টকে আলভেজের উপদেশ, যতো পারো মেসিকে বল যোগান দাও

স্পোর্টস ডেস্ক : দানি আলভেজ দল ছাড়ার থেকে রাইটব্যাক পজিশনের শূন্যতা পূরণ করতে পারেনি বার্সেলোনা। গত চার বছরে সের্জিও রোবার্তো ও নেলসন সেমেদোরা কেবল হাবুডুবুই খেয়েছেন। তবে চলতি মৌসুমে যোগ দেওয়া সের্জিনো ডেস্ট অবশ্য আশা দেখাচ্ছেন। এরমধ্যে অনেকেই তার মধ্যে আলভেজের ছায়া দেখতে পাচ্ছেন। এ তরুণে মুগ্ধ হয়েছেন স্বয়ং আলভেজও। বার্সায় ভালো করার জন্য তাই তাকে কিছু উপদেশ দিয়েছেন এ ব্রাজিলিয়ান তারকা।

আর সে উপদেশটা খুব বড় কিছু নয়। বল পেলেই অধিনায়ক লিওনেল মেসিকে পাস দিতে বলেছেন আলভেজ, আমার যদি ডেস্টকে কোনো উপদেশ দিতে হয়, তাহলে এটা খুব সহজ। বলব মেসিকে বল পাস দাও।
তবে ডেস্টকে নিজের সঙ্গে তুলনা করতে নারাজ এ ব্রাজিলিয়ান। বার্সেলোনার হয়ে সের্জিনো ডেস্টের সফল হওয়ার মতো সামর্থ্য ও অনেক সুযোগ রয়েছে। তবে আমি কারও সঙ্গে তুলনা করা পছন্দ করি না। এটা কাফুর সঙ্গে আমার হয়েছিল। অনেকেই করেছিল… কিন্তু এসবের কোনো ভিত্তি নেই।

আর আলভেজকে বেশ সম্মান করেন ডেস্ট। কিছু দিন আগে এক সাক্ষাৎকারে এ ব্রাজিলিয়ানের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে এ তরুণ বলেছিলেন, দানি আলভেজ আমার আদর্শ। সে আমার পজিশনেই খেলত এবং ইউটিউবে আমি তার অনেক ভিডিও দেখেছি এবং অনেক শিখেছিও। সে না থাকলেও তার সতীর্থরা বার্সায় রয়েছে। আমি তাদের কাছে পরামর্শ চাই। আমি তার (আলভেজ) মতো খেলোয়াড় হতে চাই।

তা হলে সাকিব কেন না ?

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত ৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টা ১০ মিনিটে বাংলাদেশ ক্রিকেটের পেস্টার বয় সাকিব আল হাসান যুক্তরাস্ট্র থেকে দেশে ফিরেছেন। তবে সকাল হতেই চলে যান গুলশানে একটি সুপার শপের উদ্বোধন করতে। ‘জয়’ নামের ওই সুপার শপের ফিতা কাটতে সাকিব পৌঁছান সকাল ১১টার দিকে।

ফিতা কেটে উদ্বোধন শেষে ফটো সেশনে অংশ নেন সুপার শপের মালিক পক্ষের সঙ্গেও। সেখানে সাকিবকে দেখা যায় মাস্ক খুলে ছবি তুলতে। অথচ সাকিব আল হাসানের থাকার কথা ছিল স্বেচ্ছায় আইসোলেশনে।

গত বুধবার (৪ নভেম্বর) কোভিড-১৯ সংক্রমণের সম্ভাব্য দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দপ্তর, সংস্থা, প্রতিষ্ঠান এবং মাঠ পর্যায়ে সবার মাস্ক ব্যবহারসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে যে নির্দেশনা প্রদান করা হয় সেখানে মাস্ক বাধ্যতামূলক করার কথা বলা হয়।

তথ্য বিবরণীতে বলা হয়, আসন্ন শীত মৌসুমে দেশে কোভিড-১৯ সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ প্রেক্ষিতে সকল মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দপ্তর, সংস্থা, প্রতিষ্ঠান এবং মাঠ পর্যায়ে সকল দপ্তরে ‘মাস্ক ব্যবহার ব্যতীত প্রবেশ নিষেধ’ ‘মাস্ক পরিধান করুন, সেবা নিন’ ইত্যাদি বার্তা ব্যাপকভাবে প্রচারের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।
সাকিবের মাস্ক না পরা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বেশকিছু মন্তব্য এসেছে।

রাকিবুল হাসান নামে একজন লিখেছেন, বিদেশ থেকে কোভিড নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে এলে কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক না। এটাই আমাদের রাষ্ট্রীয় নীতিমালা। সেই বিবেচনায় সমস্যা নেই। কিন্তু অনুষ্ঠানের গিজগিজ করা মানুষের যা অবস্থা শুনলাম, তাকে সাকিবের উপস্থিতি কতটা ঠিক সে প্রশ্ন ওঠে।

একুশ তফাদার নামে একজন লিখেছেন, এসব স্বাস্থ্যবিধি সবার জন্য না। এই দেশে কোনো নিয়ম নীতিই সবার জন্য না।
বেসরকারি টিভি চ্যানেল এনটিভির ক্রীড়া সাংবাদিক সুব্রত দেব লিখেছেন, সাকিব একটা সুপার শপ উদ্বোধন করতে গেলেন গুলশানে। এর থেকে এলাকার মুদি দোকানের উদ্বোধন আরো গোছালো হয়। মাথায় ঢুকছে না দেশে এসেই কেন সাকিব এই ধরণের ঝুঁকিপূর্ণ একটা অনুষ্ঠানে গেলেন।

এমন অনেক মন্তব্য এসেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সরকারের দেয়া স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি সাকিবেরও নিশ্চয় অজানা নয়। অনুষ্ঠানস্থল দ্রুত ত্যাগ করলেও কথা উঠেছে, বিদেশ ফেরত জাতীয় দলের কোচিং স্টাফদের সবাইকে রাখা হয়েছিল কোয়ারেন্টিনে। বেশ কয়েকবার করোনা পরীক্ষাও করানো হয়েছে। তাহলে সাকিব কেন না?