যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হওয়ার দ্বারপ্রান্তে বাইডেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ক্ষণ গণনা মাত্র। যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হতে চলছেন ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন। দোদুল্যমান রাজ্য জর্জিয়ার পর পেনসিলভেনিয়া ও নেভাদাতেও ট্রাম্পকে পেছনে ফেলেছেন তিনি।

১৬ ইলেকটোরাল কলেজের রাজ্য জর্জিয়ায় ১০৯৬ ভোটের ব্যবধানে, এবং পিতৃভূমি পেনসিলভেনিয়ায় ৫ হাজার ভোটে ট্রাম্পকে পেছনে ফেলে জয়ের দ্বারপ্রান্তে ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন। কেবল পেনসিলভেনিয়াতেই রয়েছে ২০ ইলেকটোরাল কলেজ। এগিয়ে থাকা অ্যারিজোনার ১১ টিসহ ৫৩৮ ইলেকটোরাল কলেজের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬৪ টির নিয়ন্ত্রণ ডেমোক্রেট প্রার্থীর।

আর রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের দখলে ২১৪ টি। হোয়াইট হাউসে বসতে দরকার ২৭০ ইলেকটোরাল ভোট।

নেভাদা ও আলাস্কাতেও চলছে গণনা। বাংলাদেশ সময় আজ রাতেই আসতে পারে চূড়ান্ত ফল।

সমবায় ভিত্তিক সমাজ গঠন করে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘সমবায়ের যাদুস্পর্শে সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে মূল্যবোধের চর্চা ও সমবায় ভিত্তিক সমাজ গঠন করে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন’।

তিনি আগামীকাল জাতীয় সমবায় দিবস উপলক্ষ্যে আজ দেয়া বাণীতে বলেন, “আসুন, জাতির পিতার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ‘সমবায়ের যাদুস্পর্শে সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে মূল্যবোধের চর্চা ও সমবায় ভিত্তিক সমাজ গঠন করে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন নিশ্চিত করি।”

শেখ হাসিনা জানান , ‘বঙ্গবন্ধুর দর্শন, সমবায়ে উন্নয়ন’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারাদেশে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে যথাযোগ্য মর্যাদায় ৪৯তম ‘জাতীয় সমবায় দিবস’ উদযাপিত হচ্ছে জেনে প্রধানমন্ত্রী আনন্দিত। এ উপলক্ষ্যে দেশের সকল সমবায়ী ও সমবায়বান্ধব জনগণকে তিনি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকারের দৃঢ় প্রত্যয়, সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও জনগণের সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও বিভিন্ন ধরনের গণমুখী কর্মকান্ড বাস্তবায়নের ফলে করোনা-মহামারি থেকে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা করা সম্ভব হয়েছে।

এজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট সবাইকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায়, ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার লক্ষ্যে সমবায় সংগঠন অগ্রণী ভূমিকা রাখবে। শ্রেষ্ঠ সমবায় সমিতি ও সমবায়ীগণকে ২০১৯ সালের জাতীয় সমবায় পুরস্কার প্রদান নিশ্চিয় দেশের সকল সমবায়ীকে আরো উৎসাহিত করবে।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতীয় অর্থনীতিতে সমবায় কৃষি, মৎস্য, পশুপালন, পোষাক, দুগ্ধ উৎপাদন, আবাসন, ক্ষুদ্র ঋণ ও সঞ্চয়, কুটির-চামড়াজাত-মৃৎশিল্প ইত্যাদি খাতের বিকাশ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, নারীর ক্ষমতায়ন ক্ষেত্রে উন্নয়নসহ, ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীকে স্বাবলম্বী করতে বিশাল অবদান রাখছে।

এ বছর কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস পুরো বিশ্বে স্থবিরতা সৃষ্টি করলেও, আমাদের সমবায় সমিতিগুলো এ সময় নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, সদস্যদের ঋণ মওকুফসহ দুর্গত সদস্যদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। করোনায় আক্রান্ত সদস্যদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সমবায়ের প্রতি বিশেষ গুরুত্বারোপ করে সংবিধানের ১৩(খ) অনুচ্ছেদে সম্পদের মালিকানার দ্বিতীয় খাত হিসেবে সমবায়কে স্বীকৃতি দিয়েছিলেন এবং সমবায়কে গণমুখী আন্দোলনে পরিণত করার ডাক দিয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, দেশের জনগণের পুষ্টি চাহিদা পূরণে দরিদ্র, ভূমিহীন, নিম্নবিত্ত দুগ্ধ উৎপাদনকারীদের স্বার্থ সংরক্ষণপূর্বক সমবায়ের মাধ্যমে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে ১৯৭৩ সালে ‘সমবায় দুগ্ধ প্রকল্প’ নামে একটি দুগ্ধ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করে পাঁচটি দুগ্ধ উৎপাদনকারী এলাকায় দুগ্ধ প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানা স্থাপন করেন।

আজকের মিল্কভিটা তাঁরই সুদূরপ্রসারি উদ্যোগের ফসল জানিয়ে তিনি বলেন, জাতির পিতা সমবায় পদ্ধতিতে সমন্বিত/যৌথ খামার প্রচলনের মাধ্যমে উন্নয়নের পাশাপাশি স্থানীয় রাজস্বে পল্লী-উন্নয়ন করতে চেয়েছিলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে আওয়ামী লীগ সরকার সমবায়ের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচনের সঙ্গে সঙ্গে পল্লী উন্নয়নে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ‘আমরা ১৯৯৭ সালে বঙ্গবন্ধু দারিদ্র্য বিমোচন প্রশিক্ষণ কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠা করি এবং পরবর্তীতে ২০১২ সালে আইন প্রণয়নের মাধ্যমে এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটিকে একটি পূর্ণাঙ্গ একাডেমিতে রূপান্তরিত করি। দারিদ্র্য বিমোচন, সামাজিক অগ্রগতি ও নারী-পুরুষ সমতার উদ্দেশ্যে পল্লী-দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশন আইন, ১৯৯৯ প্রণয়নের মাধ্যমে ফাউন্ডেশনটি প্রতিষ্ঠা করি’- বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, সমবায় সমিতি আইন, ২০০১ এবং জাতীয় সমবায় নীতিমালা, ২০১২ প্রণয়ন করি। পুনরায় সমবায় সমিতি (সংশোধন) আইন, ২০১৩ এবং বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড আইন, ২০১৮ প্রণয়ন করি। ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর ‘আমার বাড়ী, আমার খামার প্রকল্প’ গ্রহণ করি। বর্তমানে এ প্রকল্পের আওতায় ১ লক্ষ ২১ হাজার ১৪২টি সমবায় সমিতি গঠন করা হয়েছে- যার উপকারভোগী সদস্য পরিবার-৫৬ লক্ষ ৪১ হাজার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহারে ঘোষিত ‘আমার গ্রাম আমার শহর’ প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সমবায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে তিনি বিশ্বাস করেন। তিনি বলেন, ‘সমবায় খাতে বাজেট বৃদ্ধি করেছি, সমবায়ীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করছি, আর্থিক ও উপকরণ সহায়তার মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচনসহ সমবায়ীদের জীবনমান ও সামাজিক ক্ষেত্রে উত্তরোত্তর উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। সরকারের প্রচেষ্টায় সমবায় সমিতি এবং সমবায়ীদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে সমিতি ১,৯০,৫৩৪টি এবং সদস্য ১,১৪,৮৩,৭৪৭ জনে উন্নীত হয়েছে।’
প্রধানমন্ত্রী ৪৯তম জাতীয় সমবায় দিবস উপলক্ষ্যে গৃহীত সকল কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন।-বাসস

স্বনির্ভরতা অর্জনে সমবায়ের গুরুত্ব অপরিসীম: রাষ্ট্রপতি

ডেস্ক রিপাের্ট : রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও স্বনির্ভরতা অর্জনে সমবায়ের গুরুত্ব অপরিসীম। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আগামীকাল ৪৯তম জাতীয় সমবায় দিবস উপলক্ষে আজ দেয়া বাণীতে তিনি একথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘শতাব্দী প্রাচীন এ আন্দোলন বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে সমবায়ের চেতনাকে প্রবল ও অর্থবহ করে তুলেছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজন্ম লালিত স্বপ্ন ছিল ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও শোষণমুক্ত সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণ করা। তিনি দরিদ্র-সুবিধাবঞ্চিত মানুষের ভাগ্যন্নোয়নে গণমুখী সমবায় আন্দোলনের স্বপ্ন দেখেছিলেন। সংবিধানে মালিকানার নীতি হিসেবে সমবায়কে জাতীয় অর্থনীতির দ্বিতীয় খাত হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। তাই সমবায়ভিত্তিক সমাজ গঠনে সকলকে সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে।’

৪৯তম জাতীয় সমবায় দিবস উদযাপনের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, এ বছর জাতীয় সমবায় দিবসের প্রতিপাদ্য ‘বঙ্গবন্ধুর দর্শন, সমবায়ে উন্নয়ন’ অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, একটি শ্রেণি-গোষ্ঠীর মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে কোনো নির্দিষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অর্জনের ক্ষেত্রে সমবায় একটি কার্যকর প্রতিষ্ঠান। সমবায় পদ্ধতি পারস্পরিক সহযোগিতা, সমবেত প্রচেষ্টা, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের চর্চা ও ভাগ্যোন্নয়নের নীতিতে বিশ্বাস করে। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে সম্পদ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি, স্বনির্ভরতা অর্জন ও দারিদ্র্য নিরসনে বাংলাদেশের সমবায় আন্দোলন ঈপ্সিত লক্ষ্য অর্জনে সফলতার পথে এগিয়ে চলেছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে মানুষের মাথাপিছু জমি ও সম্পদের পরিমাণ অত্যন্ত সীমিত। তাই কৃষি ও অন্যান্য উৎপাদনশীল খাতে বিনিয়োগসহ ব্যবসা-বাণিজ্যে পূঁজি গঠনে সমবায় একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম।

মোঃ আবদুল হামিদ বলেন, ‘সমবায়ের মাধ্যমে আয়-বৈষম্য হ্রাস করে একটি ন্যায়ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। বাংলাদেশকে একটি সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলায় পরিণত করার লক্ষ্যে সমবায় কার্যক্রমকে আরো গতিশীল, সক্রিয় এবং যুগোপযোগী করতে সংশ্লিষ্ট সকলে তৎপর ও আন্তরিক হবেন -এ প্রত্যাশা করি।’

তিনি ৪৯তম জাতীয় সমবায় দিবসের কর্মসূচির সফলতা কামনা করেন।- বাসস

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহত ৩

ডেস্ক রিপাের্ট : কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ট্রাক, সিএনজি ও মাইক্রোবাসের ত্রিমুখী সংঘর্ষে অন্তত ৩ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৪ জন।

আজ শুক্রবার দুপুরে মহাসড়কের সৈয়দাবাদে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে এই সড়কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে কুমিল্লা অভিমুখী একটি ট্রাক মাইক্রোবাসকে চাপা দিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি যাত্রীবাহী সিএসনজি চালিত অটোরিকশাকে চাপা দেয়। এ সময় স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ সময় পথে নারী ও শিশুসহ ৩ জন মারা যান। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ২ জনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান জানান, ‘দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত হয়েছে। তবে নিহতদের নাম পরিচয় জানাযায়নি। আহতদের চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।’

প্রেক্ষাগৃহ মারাঠা মন্দিরে ফিরলো ‘ডিডিএলজে’

বিনােদন ডেস্ক : ভারতীয় সিনেমার প্রদর্শনে বিরল রেকর্ড গড়েছে ‍মুম্বাইয়ের প্রেক্ষাগৃহ মারাঠা মন্দির। শুক্রবার থেকে এই হলে নিউ নরমাল পরিস্থিতিতে ফিরছে রেকর্ডধারী আইকনিক সিনেমা ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ বা ডিডিএলজে। টুইটারে খবরটি দেন ট্রেড অ্যানালিস্ট তরণ আদর্শ।

শাহরুখ খান ও কাজলের সাড়া জাগানো ‘ডিডিএলজে’ মুক্তি পায় ১৯৯৫ সালে। নতুন নতুন অনেক মাইলফলক তৈরি করা ছবিটির ২৫ বছর পূর্ণ হয় গত মাসে।

করোনা পরিস্থিতিতে আট মাস বন্ধ থাকার পর শুক্রবার থেকে খুলছে মহারাষ্ট্রের সিনেমা হল। সে দিন মারাঠা মন্দিরে ফিরলো ‘ডিডিএলজে’।

আদিত্য চোপড়া পরিচালিত ছবিটিকে দীর্ঘদিন প্রদর্শিত ও বলিউডের সর্বকালের অন্যতম সফল ছবি হিসেবেও উল্লেখ করেন তরণ।

১৯৯৫ সালে ‘ডিডিএলজে’ মুক্তির পর টানা দুই দশকের বেশির সময় মারাঠা মন্দিরে সিনেমাটি প্রদর্শিত হয়। গত মার্চে বলা হয়, ১২৫১ সপ্তাহ বা ২৪ বছর অতিক্রম করেছে। প্রেক্ষাগৃহের এক কর্মকর্তার নাকি ছবিটি নয় হাজারের বেশিবার দেখা হয়ে গেছে।

শাহরুখ-কাজলের ছবিটি ভেঙেছে একাধিক ফিল্মি রেকর্ড। এবং এই ছবির অনেক রেকর্ডের ধারে-কাছেও পৌঁছাতে পারেনি পরবর্তী সময়ে মুক্তি পাওয়া অনেক ব্লকবাস্টার। ২৫ বছরে ‘ডিডিএলজে’ পেয়েছে কাল্ট ক্লাসিকের তকমা।

ছবিতে আরও অভিনয় করেন অমরিশ পুরী, অনুপম খের, ফরিদা জালাল, হিমানী শিবপুরী, সতীশ শাহ, প্রয়াত অচলা সচদেব। ছিলেন মন্দিরা বেদী, পরমিত শেঠি, করণ জোহর, অনাইতা শ্রফ আদাজানিয়া ও অর্জুন সাবলোক। ৪ কোটি বাজেটের ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ আয় করে ১২২ কোটি রুপির বেশি।

আবার মা হলেন সংগীতশিল্পী বিউটি

বিনােদন ডেস্ক : আবারও মা হলেন ক্লোজআপ ওয়ান-খ্যাত সংগীতশিল্পী নাসরিন আক্তার বিউটি।

গত ২ নভেম্বর ছেলের মা হন তিনি। ছেলের নাম রেখেছেন নাসিক আহমেদ।

বিউটি ফেইসবুকে লেখেন, “আলহামদুলিল্লাহ! মহান আল্লাহ পাকের দরবারে লাখো কোটি শুকরিয়া আদায় করি। গত ২ নভেম্বর আমার ঘর আলো করে আমাদের দ্বিতীয় পুত্র সন্তান ‘নাসিক আহমেদ’ এই পৃথিবীতে আগমন করেছে। মহান আল্লাহ পাকের অশেষ রহমতে আমি ও আমার সোনা বাবা ভালো আছি।”

করোনা পরিস্থিতি ও মাতৃত্ব প্রসঙ্গে বলেন, “যখন সোনা বাবার আগমনের খবর জানতে পারি তখন পুরো পৃথিবী জুড়ে করোনা মহামারি হিসেবে ছড়িয়ে পড়েছে। সবাই খুব আতঙ্কে ছিল। এ সময় আমার ভয় ও চিন্তাটাও একটু বেশি ছিলে। মাঝে মাঝে খুবই দুশ্চিন্তা হতো, কখন না জানি কী হয়। তাই, এই কঠিন সময়ে সব সময়ই অনেক বেশি সাবধানতা অবলম্বন করে চলার চেষ্টা করেছি। যদিও এর মধ্যে বেশ কিছু কঠিন পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হয়েছে, এক প্রকার ঘরবন্দী সময় কেটেছে! তারপরও পরিবারের সবার আন্তরিক ভালোবাসা ও সহযোগিতায় এবং মহান আল্লাহ্‌ পাকের অশেষ রহমতে সবকিছু ঠিকঠাকভাবেই সম্পন্ন হয়েছে।”

সবার কাছে সন্তানের জন্য দোয়াও চান এই গায়িকা।

বিউটির স্বামীর নাম হাসান ফেরদৌস আহমেদ। ২০১৬ সালের ৭ মার্চ তাদের কোলজুড়ে আছে ছেলে সন্তান রায়াত।

শাহীন আখতার জিতলেন এশিয়ান লিটারেচার অ্যাওয়ার্ড

ডেস্ক রিপাের্ট : ‘তালাশ’ উপন্যাসের জন্য এশিয়ান লিটারেচার অ্যাওয়ার্ডের তৃতীয় আসরে পুরস্কৃত হলেন বাংলাদেশের শাহীন আখতার। ২০২০ সালের এশিয়া লিটারেচার ফেস্টিভ্যাল উপলক্ষে ১ নভেম্বর দক্ষিণ কোরিয়ার গোয়াংজু শহরে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের যৌন সহিংসতার শিকার ও বেঁচে থাকা নারীদের যন্ত্রণার কথা তুলে আনা হয়েছে এ উপন্যাসে।

এ পুরস্কারের পৃষ্ঠপোষক এশিয়া কালচারাল সেন্টার, যা দক্ষিণ কোরিয়ার গণতন্ত্র আন্দোলনের তীর্থ গোওয়াংজুতে অবস্থিত। ওই আন্দোলনগুলোকে সম্মান জানাতে পুরস্কারটির প্রবর্তন হয়েছিল।

মহামারির কারণে এ সাহিত্য উৎসব এ বছর অফলাইন ও অনলাইনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে এশিয়ার ২৯ জন লেখক অংশ নেন, যার মধ্যে ম্যান বুকার পুরস্কারপ্রাপ্ত সাহিত্যিক হান কাংসহ কোরিয়ার ১৯ জন লেখক ছিলেন।

এশীয় সাহিত্যের নান্দনিক মূল্য তুলে ধরতে ২০১৭ সালে এ পুরস্কার চালু হয়। যা এত দিন ধরে পশ্চিমা সাহিত্যের চোখ দিয়ে দেখা হতো। তবে পাশ্চাত্য সাহিত্যকে প্রত্যাখ্যান নয়, এশীয় সাহিত্যকে অনুপ্রেরণা ও বিশ্বের কাছে তুলে ধরায় আয়োজকদের লক্ষ্য।

পুরস্কার হিসেবে বিজয়ী লেখক পেয়ে থাকেন ২ লাখ ওন বা সাড়ে ১৭ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৫ লাখ টাকার কাছাকাছি। এ ছাড়া বিজয়ী সাহিত্য কর্ম অবলম্বনে উৎসবের পরের আসরে বিশেষ একটি উপস্থাপনা থাকে।

প্রথম আসরে পুরস্কারটি পান মঙ্গোলিয়ার কবি ইউরিয়ানখাই ডামডিনসুরেন, দ্বিতীয়বারের অর্জনকারী ভিয়েতনামের লেখক বাউ নিন।

এবারের আসরে শাহীন আখতারের ‘তালাশ’ ছাড়াও সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলো চীনা ও তাইওয়ানিজ দুই লেখিকার তিন উপন্যাস।

বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় উৎসবের এবারের আসরে কিছু পরিবর্তন এসেছে। সে হিসেবে নারী লেখিকাদের ‘ফেমিনিস্ট থিম’-এর দিকে ছিল মূল মনোযোগ।

যুদ্ধের উন্মাদনা ও পুরুষকেন্দ্রিক সমাজের ভ্রান্ত চেতনাকে লক্ষ্য করে ‘তালাশ’ উপন্যাসে এসেছে নারীর দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যঙ্গাত্মক উপস্থাপন ও সমালোচনা। এ দুর্দান্ত ঢংয়ের প্রশংসা করেন কমিটির কিম নামিল।

সাম্রাজ্যবাদ ও উপনিবেশবাদ, যুদ্ধ ও সহিংসতা, যুদ্ধাপরাধীদের প্রতারণা, স্বাধীনতা সংগ্রামীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার এবং ধর্ষণের শিকার নারীদের সঙ্গে চলমান দুর্ব্যবহার সবই এ উপন্যাসে আছে। ইতিহাস নিয়ে তালাশ মৌলিক প্রশ্ন তুলেছে। ‘বীরাঙ্গনা’ আখ্যা দিয়ে কীভাবে ওই প্রান্তিক নারীদের ব্যথা আড়াল করা হয়েছে সে বিষয়টি এসেছে।

বিচারকদের ভাষ্য, আমরা বিশ্বাস করি যে উপন্যাসটি আমাদের সময়ের এশীয় লেখকের অন্যতম সেরা নারীবাদী ও যুদ্ধবিরোধী ডকু-উপন্যাস হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার দাবিদার। আমাদের সময়ের যন্ত্রণা ও সাহসের দলিল।

একে তুলনা করা হয় সভেতলানা আলেক্সিয়েভিচের ‘দ্য আনওম্যানলি ফেইস অব দ্য ওয়ার’, রুথ ক্লাগারের ‘স্টিল অ্যালাইভ’ বা মার্থা হিলারের ‘আ ওম্যান ইন বার্লিন’-এর সঙ্গে। তারা আশা করেন শাহীন আখতার লেখনির মাধ্যমে সামনেও অনুপ্রেরণা জোগাবেন।

শাহীন আখতার বাংলাসাহিত্যে অবদানস্বরূপ ২০১৫ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার অর্জন করেন। তার ‘ময়ূর সিংহাসন’ উপন্যাসের জন্য আখতারুজ্জামান ইলিয়াস কথাসাহিত্য পুরস্কার ও আইএফআইসি ব্যাংক পুরস্কার পেয়েছেন। ‘অসুখী দিন’ উপন্যাসের জন্য ২০১৯-এ পেয়েছেন জেমকন সাহিত্য পুরস্কার। পেয়েছেন কলকাতার আনন্দবাজর গ্রুপের টিভি চ্যানেল এবিপি আনন্দ থেকে ‘সাহিত্যে সেরা বাঙালি’ সম্মাননা। ‘তালাশ’ প্রকাশিত হয়েছে মাওলা ব্রাদার্স থেকে ২০০৪ সালে। একই বছরে প্রথম আলো বর্ষ সেরা বই হিসাবে তালাশ পুরস্কৃত হয়।২০১১ সালে ‘দ্য সার্চ’ নামে তালাশ-এর ইংরেজি অনুবাদ প্রকাশ করে দিল্লিস্থ প্রকাশনা হাউজ জুবান। ‘তালাশ’ কোরিয়ান ভাষায় অনুবাদ করেছেন প্রফেসর সিং হি জন ও ফারহানা শশী, বইটি কোরিয়া থেকে প্রকাশিত হয় ২০১৮ সালে।

শাহীন আখতার গল্প উপন্যাস লেখার পাশাপাশি কয়েকটি সাহিত্য সংকলন সম্পাদনা করেছেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন অর্থনীতিতে। তার জন্ম ১৯৬২ সালে, কুমিল্লা জেলার চান্দিনা থানার হারং গ্রামে।

রায়হান রাইনের অনুবাদ ও সম্পাদনায় ‘অতীশ দীপঙ্কর রচনাবলি’

ডেস্ক রিপাের্ট : বাংলাদেশের দার্শনিক ও বৌদ্ধ আচার্য অতীশ দীপঙ্কর। তার রচনা কেবল দর্শন নয়, সাহিত্য, ধর্ম ও ইতিহাসেরও গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। তার জীবনের ঘটনাবলি এবং রচনাকর্ম জড়িয়ে আছে বাংলা, ভারত ও তিব্বতের ইতিহাসের সঙ্গে। সর্বোপরি, এ সব রচনায় অতীশ হাজির করেছেন এক অনন্য জীবনদৃষ্টি।

‘অতীশ দীপঙ্কর রচনাবলি’ শিরোনামে এ দার্শনিকের রচনা অনুবাদ ও সম্পাদনা করেছেন রায়হান রাইন। ৩৭৫ টাকা দামের বইটি পাঠকের সামনে হাজির করছে প্রথমা প্রকাশন। বর্তমানে চলছে প্রি-অর্ডার।

সংক্ষেপে এ রচনাবলি প্রসঙ্গে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের শিক্ষক রায়হান রাইন বলেন, “চর্যাপদ যেমন বৌদ্ধ সহজিয়া দর্শনের, অতীশের রচনা তেমনই মাধ্যমিক বৌদ্ধ দর্শনের আকরগ্রন্থ। ৩১টি রচনা। হাজার বছর আগের এসব লেখার প্রসঙ্গ ধরিয়ে দিতে প্রতিটি লেখার সঙ্গে প্রবেশক হিসেবে আছে একটি করে আলোচনা যাতে লেখাগুলোকে সহজগম্য লাগে। এ ছাড়া বড় একটা পরিভাষাপঞ্জিও থাকছে বইয়ের শেষে, যাতে অতীশকে বুঝতে পাঠক স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।”

৯৮২ সালে অতীশ দীপঙ্করের জন্ম বিক্রমপুরের বজ্রযোগিনী গ্রামে। তিনি বৌদ্ধ মাধ্যমিক ধারার দার্শনিক। নাগাজু‌র্ন-পরবর্তী মাধ্যমিক দর্শনের সারাংশ ধারণ করে আছে তার রচনাবলি। মহাযান বৌদ্ধমতের দার্শনিক বিতর্কগুলো আশ্রয় করে অতীশ গড়ে তুলেছেন এক স্বচ্ছ জীবনদৃষ্টি। চর্যাপদ, দোহাকোষসহ অন্যান্য বৌদ্ধ রচনার ওপর নতুন করে আলো ফেলতে সাহায্য করবে তার এই রচনাবলি।

রায়হান রাইনের অন্যান্য বইয়ের মধ্যে রয়েছে বাংলার দর্শন (প্রাক-ঔপনিবেশিক পর্ব), বাংলার ধর্ম ও দর্শন, নিক্রোপলিসের রাত, কিতাব আল-তাওয়াসিন (অনুবাদ) এবং আগুন ও ছায়া।

ডি মারিয়াকে মূল্যায়ন করলেন নির্বাচকরা, আর্জেন্টিনা দলে ডাক পেলেন

স্পোর্টস ডেস্ক : প্যারিসের ক্লাব সেইন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) হয়ে ধারাবাহিক পারফরমেনস দেখিয়ে যাচ্ছেন। তারপরও আর্জেন্টিনা দলে ডাক না পাওয়ায় গত সেপ্টেম্বরে ক্ষোভ ঝেড়েছিলেন আনহেল ডি মারিয়া। সঙ্গে জাতীয় দলে জায়গা ফিরে পাওয়ার জন্য লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ও ব্যক্ত করেছিলেন তিনি।

অবশেষে দুর্দান্ত ফর্মে থাকার সুফল পেয়েছেন তারকা উইঙ্গার ডি মারিয়া। কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের আসন্ন দুটি ম্যাচের জন্য তাকে স্কোয়াডে অন্তর্ভুক্ত করেছেন কোচ লিওনেল স্কালোনি।

প্যারাগুয়ে ও পেরুর বিপক্ষে ম্যাচের জন্য শুক্রবার (৬ নভেম্বর) ২৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে আর্জেন্টিনা। চোটের সঙ্গে লড়াইরত ম্যানচেস্টার সিটি স্ট্রাইকার সার্জিও আগুয়েরোর জায়গা হয়নি স্কোয়াডে। তাছাড়া, আর্জেন্টিনার ঘরোয়া লিগে খেলা ফুটবলারদের নাম পরে যুক্ত করবেন স্কালোনি।
আগামী শুক্রবার নিজেদের মাটিতে প্যারাগুয়ের মুখোমুখি হবে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। এরপর বুধবার তারা খেলতে নামবে পেরুর মাঠে।

২৫ সদস্যের আর্জেন্টিনা দল- গোলকিপার: এমিলিয়ানো মার্তিনেজ ও অগাস্তিন মার্চেসিন
ডিফেন্ডার: নিকোলাস ওতামেন্দি, নেহুয়েন পেরেজ, ওয়ালতার কানেমান, নিকোলাস তাগলিয়াফিকো, ফাকুন্দো মেদিনা, লুকাস মার্তিনেজ কার্তা।

মিডফিল্ডার: লেয়ান্দ্রো পারেদেস, গিদো রদ্রিগেজ, রদ্রিগো দে পল, এজেকিয়েল পালাসিওস, জিওভানি লো সেলসো, নিকোলাস দমিঙ্গেজ, মার্কোস আকুনিয়া, আলেহান্দ্রো গোমেজ, আনহেল ডি মারিয়া, লুকাস ওকাম্পোস, রবার্তো পেরেইরা।
ফরোয়ার্ড: লিওনেল মেসি, পাওলো দিবালা, নিকোলাস গঞ্জালেজ, হোয়াকিন কোরেয়া, লুকাস আলারিও, লাউতারো মার্তিনেজ। – ডেইলি স্টার/ গোল ডটকম

প্রমাণ ছাড়াই নির্বাচনে ভোট জালিয়াতির অভিযোগের পর ট্রাম্পের সংবাদ সম্প্রচার বন্ধ করে দিলো ৩ টিভি চ্যানেল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রমাণ ছাড়াই নির্বাচনে ‘ভোট জালিয়াতি’র অভিযোগের পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সংবাদ সম্মেলন থেকে সরাসরি সম্প্রচার বন্ধ করে দেয় দেশটির তিনটি বৃহৎ টিভি নেটওয়ার্ক— এবিসি, সিবিএস ও এনবিসি।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এখন পর্যন্ত ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন ২৫৩টি ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে এগিয়ে আছেন। তার প্রয়োজন অন্তত ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোট। অন্যদিকে, ট্রাম্প পেয়েছেন ২১৪ ইলেকটোরাল ভোট।

গতকাল বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসে এক সম্মেলনে কোনো প্রমাণ ছাড়াই ভোট ‘কারচুপি’র অভিযোগ তুলেন ট্রাম্প। সে সময় টেলিভিশনের উপস্থাপকরা এর সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন করেন।

এনবিসি নাইটলি নিউজের উপস্থাপক লেস্টার হল্ট বলেন, ‘আমাদের এখানে বাধা দিতে হবে। কারণ, প্রেসিডেন্ট ভোটে জালিয়াতি হয়েছে-সহ বেশ কয়েকটি মিথ্যা বক্তব্য দিচ্ছেন যেগুলোর কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।’

এবিসির উপস্থাপক ডেভিড ম্যুরও সম্মেলনের মাঝখানেই দর্শকদের বলেন, ‘এখানে সত্যতা যাচাই করার মতো অনেক কিছু আছে।’

সিবিএস সংবাদদাতা ন্যান্সি কর্ডস ট্রাম্পের ‘ভিত্তিহীন বক্তব্য’ নিয়ে সম্মেলনের মাঝখানেই প্রায় ৯০ সেকেন্ড যুক্তিখণ্ডন করেন।

নিউইয়র্ক টাইমস জানায়, ক্যাবল নিউজ নেটওয়ার্ক— সিএনএন ও ফক্স নিউজ ট্রাম্পের বক্তব্য সরাসরি সম্প্রচার করেছে। তবে গতরাতে সিএনএন, এমএসএনবিসি ও ফক্স নিউজের তুলনায় সম্প্রচার বন্ধ করা তিন টিভি নেটওয়ার্কেই বেশি দর্শক ছিলেন।

সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ট্রাম্পের বক্তব্য সরাসরি সম্প্রচার করা হবে কী না এ প্রশ্নে তিনি প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকেই টেলিভিশন কার্যনির্বাহীরা বিভক্ত ছিলেন।

বিশেষ করে, চলতি বছরের শুরুর দিকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে ট্রাম্পের বিভ্রান্তিকর তথ্যকে কীভাবে প্রাসঙ্গিক করে তোলা যায় এ নিয়ে দ্বন্দ্বে পড়েছিলেন সংবাদকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার সিএনএনে ট্রাম্পের বক্তব্য সরাসরি সম্প্রচারের সময় নিচে একটি ক্যাপশন জুড়ে দেওয়া হয়। সেখানে লেখা ছিল, ‘কোনো প্রমাণ ছাড়াই ট্রাম্প নির্বাচনে জালিয়াতির কথা বলছেন।’

ট্রাম্পের সম্মেলনের পর ফক্স নিউজ নেটওয়ার্কের প্রধান হোয়াইট হাউজের সংবাদদাতা জন রবার্টস দর্শকদের বলেন, ‘নির্বাচনে জালিয়াতির যে ভিত্তিহীন দাবি প্রেসিডেন্ট করছেন আমরা এর কোনো প্রমাণ দেখিনি।’